ইবনে তুফায়েল

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
ইবনে তুফায়েল
Ibn Ṭufail, Sayr mulhimah min al-Sharq wa-al-Gharb.png
ব্যক্তিগত
জন্মআনু. ১১০৫
মৃত্যুআনু. ১১৮৫
ধর্মইসলাম
যুগইসলামি স্বর্ণযুগ
অঞ্চলআন্দালুস
প্রধান আগ্রহপ্রাক ইসলামিক দর্শন, সাহিত্য, কালাম, ইসলামি চিকিৎসা
উল্লেখযোগ্য কাজহাই ইবনে ইয়াকজান
কাজইসলাম পন্ডিত
মুসলিম নেতা
যাদের প্রভাবিত করেন

ইবন তুফাঈল (আরবি: أبو بكر محمد بن عبد الملك بن محمد بن طفيل القيسي الأندلسي‎‎; ১১০৫–১১৮৫) ছিলেন আন্দালুসিয়া মুসলিম বহুবিদ্যাবিশারদ[১] তিনি একাধারে লেখক, দার্শনিকধর্মতত্ত্ববিদচিকিৎসকজ্যোতির্বিজ্ঞানীউজির ছিলেন।[২] একজন দার্শনিক এবং ঔপন্যাসিক হিসেবে, তিনি প্রথম দার্শনিক উপন্যাস হাই ইবনে ইয়াকজান রচনার জন্য সবচেয়ে বিখ্যাত। পাশ্চাত্য জগতে তিনি ফিলোসফিকাল অটোডিডাকটাস নামে পরিচিত। একজন চিকিৎসক হিসেবে, তিনি ব্যবচ্ছেদ ও ময়নাতদন্তের প্রাথমিক সমর্থক ছিলেন, যা তার উপন্যাসে প্রকাশ করা রয়েছে।[৩][৪]

জীবনী[সম্পাদনা]

তিনি গ্রানাদায় জন্মগ্রহণ করেন এবং ইবনে বাজার দ্বারা শিক্ষিত হন।[৫] তার পরিবার আরবের কায়স গোত্রের ছিল।[৬] তিনি ১১৫৪ সালে সেউতা এবং ট্যাঙ্গিয়ারের শাসক সহ বেশ কয়েকটি নেতার সচিব ছিলেন।[৭] তিনি গ্রানাদার শাসকের সচিব হিসেবেও কাজ করেছিলেন এবং পরে আলমোহাদ খলিফা আবু ইয়াকুব ইউসুফের উজির ও চিকিৎসক হিসেবেও কাজ করেছিলেন। যাকে তিনি ১১৬৯ সালে তার নিজের ভবিষ্যতের উত্তরসূরি হিসেবে ইবনে রুশদকে সুপারিশ করেছিলেন।[৮]

ইবনে রুশদ ১১৮২ সালে অবসর গ্রহণের পর ইবনে তুফায়েলের উত্তরসূরি হন; ইবনে তুফায়েল বেশ কয়েক বছর পর ১১৮৫ সালে মরক্কোতে মারা যান। জ্যোতির্বিজ্ঞানী নুর আদ-দ্বীন আল-বিতুজিও ইবনে তুফাইলের শিষ্য ছিলেন। আল-বিতুজি জ্যোতির্বিজ্ঞানের অ্যারিস্টটেলিও পদ্ধতি অনুসরণ করার জন্য তাঁর দ্বারা প্রভাবিত হয়েছিলেন, কারণ তিনি মূলত জ্যোতির্বিজ্ঞানের টলেমাইক পদ্ধতি অনুসরণ করেছিলেন।[৯]

অনেক ইসলামী দার্শনিক, লেখক, চিকিৎসক এবং জ্যোতির্বিজ্ঞানী ইবনে তুফাইল এবং তার কাজ দ্বারা প্রভাবিত হয়েছেন।[১০] এই ব্যক্তিদের মধ্যে রয়েছে নুর আল-দিন আল-বিত্রুজি, আবু আবদুল্লাহ মুহাম্মদ আল-আব্বার, আব্দুল-ওয়াহিদ আল-মাররাকুশি, আহমেদ মোহাম্মদ আল-মাক্কারি, এবং ইবনে আল-খাতিব।[১১]

আরও দেখুন[সম্পাদনা]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. "Avempace | Biography, History, & Facts | Britannica"www.britannica.com (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ২০২২-০১-০২ 
  2. Shampo, M. A.; Kyle, R. A. (১৯৮৪-০৫-০৪)। "Ibn Tufail (Abubacer)"JAMA২৫১ (১৭): ২২৪০। আইএসএসএন 0098-7484ডিওআই:10.1001/jama.251.17.2240পিএমআইডি 6368882 
  3. McGinnis, Jon; Reisman, David C. (২০০৭-০৯-০১)। Classical Arabic Philosophy: An Anthology of Sources (ইংরেজি ভাষায়)। Hackett Publishing। পৃষ্ঠা ২৮৪। আইএসবিএন 978-1-60384-392-8 
  4. Pitskhelauri, G. Z. (১৯৬৪)। "[AB'U BAKR IBN TUFAIL--PROMINENT ARABIAN SCIENTIST AND PHYSICIAN]"Sovetskoe Zdravookhranenie২৩: ৬৩–৬৭। আইএসএসএন 0038-5239পিএমআইডি 14184435 
  5. "Ibn Ṭufail"1911 Encyclopædia Britannica। Volume 14। 
  6. Carra de Vaux, B. (২০১২-০৪-২৪)। "Ibn Ṭufayl"Encyclopaedia of Islam, Second Edition (ইংরেজি ভাষায়)। Brill। ডিওআই:10.1163/1573-3912_islam_sim_3394 
  7. Abu Bakr Muhammad ibn Tufayl (English ভাষায়)। (২ সংস্করণ)। Detroit, MI: Gale। ২০০৪। পৃষ্ঠা ৯৬। 
  8. Ben-Zaken, Avner (২০১১-০১-০১)। Reading Ḥayy Ibn-Yaqẓān: A Cross-Cultural History of Autodidacticism (ইংরেজি ভাষায়)। Johns Hopkins University Press। আইএসবিএন 978-0-8018-9739-9 
  9. "Ibn Tufayl | Encyclopedia.com"www.encyclopedia.com। সংগ্রহের তারিখ ২০২২-০১-০২ 
  10. Bozovic, Mihajlo (২০১৭-০১-০১)। "The process of civilization in ibn Tufayl's Hayy ibn Yaqzan"Kom : casopis za religijske nauke: ৭৭–৯০। ডিওআই:10.5937/kom1702077B 
  11. Matar, Nabil (২০১৩)। Bowering, Gerhard, সম্পাদক। Ibn Tufayl (ca. 1105–85) (English ভাষায়)। Princeton, NJ: Princeton University Press। পৃষ্ঠা ২৪১–৪২। 

গ্রন্থপঞ্জি[সম্পাদনা]

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]