ইনামুল হক

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
ইনামুল হক
জন্মমোটবী ,ফেনী
পেশাঅভিনেতা, লেখক, নাট্যকার, শিক্ষক
জাতীয়তাবাংলাদেশি
নাগরিকত্ববাংলাদেশ
শিক্ষা প্রতিষ্ঠাননটর ডেম কলেজ
ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়
ম্যানচেস্টার বিশ্ববিদ্যালয়
উল্লেখযোগ্য পুরস্কারএকুশে পদক (২০১২), স্বাধীনতা পুরস্কার (২০১৭)
দাম্পত্যসঙ্গীলাকী ইনাম
সন্তানহৃদি হক
প্রৈতি হক

ইনামুল হক একজন প্রখ্যাত বাংলাদেশি নাট্যকার।[১] অভিনেতা, লেখক, নাট্যকার, শিক্ষক। তিনি দীর্ঘকাল বাংলাদেশ প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয়ে রসায়ন বিভাগের শিক্ষক এর দায়িত্ব পালন করেছেন।[২][৩]

জন্ম ও শিক্ষাজীবন[সম্পাদনা]

ইনামুল হকের জন্ম ফেনীর এক সম্ভ্রান্ত মুসলিম পরিবারে। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে তিনি রসায়নে স্নাতক ও স্নাতকোত্তর ডিগ্রী লাভ করেন। যুক্তরাজ্যের ম্যানচেস্টার বিশ্ববিদ্যালয় থেকে পিএইচডি ডিগ্রি লাভ করেন।[১] ১৯৬৫ সালে প্রভাষক হিসেবে বুয়েটের রসায়ন বিভাগে যোগ দেন তিনি। পরে ১৯৭০, ১৯৭৯, এবং ১৯৮৭ সালে যথাক্রমে সহকারী অধ্যাপক, সহযোগী অধ্যাপক এবং অধ্যাপক পদে উন্নীত হন।[৩]

কর্মজীবন[সম্পাদনা]

ড. ইনামুল হক দীর্ঘকাল বাংলাদেশ প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয়ে রসায়ন বিভাগের শিক্ষক এর দায়িত্ব পালন করেছেন। ১৯৬৯ সালের গণঅভ্যুত্থানে জনগণকে উদ্ধুদ্ধ করার প্রয়াসে বিভিন্ন আন্দোলনমুখী নাটকে অংশগ্রহণ করেন। ১৯৭০ সালে আইয়ুব খানের রক্তচক্ষুকে উপেক্ষা করে তৎকালীন অসহযোগ আন্দোলনে অংশ নেন নাট্যচর্চাকে হাতিয়ার করে। ১৯৭১ সালের ২৫ মার্চ সৃজনীর ব্যানারে পাকিস্তান সরকারের বিরুদ্ধে ট্রাকে ট্রাকে ঢাকা শহরের বিভিন্ন স্থানে পথনাটক করেন। ইতোমধ্যে তার ১৮টি নাটক বিভিন্ন নাট্যপত্রে, বিশেষ ম্যাগাজিনে এবং বই আকারে প্রকাশিত হয়েছে। ইনামুল হক-এর উল্লেখযোগ্য গ্রন্থের মধ্যে রয়েছে: নির্জন সৈকতে, গৃহবাসী, মুক্তিযুদ্ধ নাটকসমগ্র, স্ট্রিন্ডবার্গ এর দু'টো নাটক, মহাকালের ঘোর সওয়ার, বাংলা আমার বাংলা ইত্যাদি।[৪]

পারিবারিক জীবন[সম্পাদনা]

ড. ইনামুল হকের দাম্পত্য সঙ্গী বরেণ্য নাট্যজন লাকী ইনাম। তাদের সংসারে দুই মেয়ে হৃদি হক (স্বামী লিটু আনাম) আর প্রৈতি হক (স্বামী সাজু খাদেম)।[৫]

পুরস্কার ও সম্মাননা[সম্পাদনা]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. "ক্যারিয়ার ইনটেলিজেন্স"। ২১ আগস্ট ২০১১। 
  2. "Dr Enamul Haque completes 75 today"নিউ ন্যাশন (ইংরেজি ভাষায়)। ২৯ মে ২০১৮। সংগ্রহের তারিখ ৩১ ডিসেম্বর ২০২০ 
  3. "Retired Faculties" (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ৩১ ডিসেম্বর ২০২০ 
  4. "সংরক্ষণাগারভুক্ত অনুলিপি"। ২৮ অক্টোবর ২০১৫ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১৮ অক্টোবর ২০১২ 
  5. "সংরক্ষণাগারভুক্ত অনুলিপি"। ১৭ জুন ২০১২ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২২ জানুয়ারি ২০১৩ 
  6. [১]
  7. "প্রদান করা হলো 'ট্র্যাব অ্যাওয়ার্ড'"বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম। ২৪ এপ্রিল ২০১২। সংগ্রহের তারিখ ১৬ মে ২০২০ 

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]