ইনাতগঞ্জ ইউনিয়ন

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
ইনাতগঞ্জ
ইউনিয়ন
ইনাতগঞ্জ সিলেট বিভাগ-এ অবস্থিত
ইনাতগঞ্জ
ইনাতগঞ্জ
ইনাতগঞ্জ বাংলাদেশ-এ অবস্থিত
ইনাতগঞ্জ
ইনাতগঞ্জ
বাংলাদেশে ইনাতগঞ্জ ইউনিয়নের অবস্থান
স্থানাঙ্ক: ২৪°৩৮′১৭.৯৯৯″ উত্তর ৯১°৩৪′৮.০০০″ পূর্ব / ২৪.৬৩৮৩৩৩০৬° উত্তর ৯১.৫৬৮৮৮৮৮৯° পূর্ব / 24.63833306; 91.56888889স্থানাঙ্ক: ২৪°৩৮′১৭.৯৯৯″ উত্তর ৯১°৩৪′৮.০০০″ পূর্ব / ২৪.৬৩৮৩৩৩০৬° উত্তর ৯১.৫৬৮৮৮৮৮৯° পূর্ব / 24.63833306; 91.56888889 উইকিউপাত্তে এটি সম্পাদনা করুন
দেশ বাংলাদেশ
বিভাগসিলেট বিভাগ
জেলাহবিগঞ্জ জেলা
উপজেলানবীগঞ্জ উপজেলা উইকিউপাত্তে এটি সম্পাদনা করুন
স্থাপিত১৯৯৯
আসনহবিগঞ্জ-১
সরকার
 • ইউপি চেয়ারম্যানমোঃ বজলু রসিদ (বাংলাদেশ আওয়ামীলীগ)
আয়তন
 • মোট২৩৬৬ হেক্টর (৫৮৪৬ একর)
জনসংখ্যা (২০১১)
 • মোট২৪,২০৭
 • জনঘনত্ব১০০০/কিমি (২৭০০/বর্গমাইল)
সময় অঞ্চলবিএসটি (ইউটিসি+৬)
প্রশাসনিক
বিভাগের কোড
৬০ ৩৬ ৭৭ ৫১
ওয়েবসাইটপ্রাতিষ্ঠানিক ওয়েবসাইট Edit this at Wikidata
মানচিত্র

ইনাতগঞ্জ ইউনিয়ন বাংলাদেশের হবিগঞ্জ জেলার নবীগঞ্জ উপজেলার একটি প্রশাসনিক এলাকা।

অবস্থান ও আয়তন[সম্পাদনা]

এই ইউনিয়নের আয়তন ২২ বর্গ কি.মি.।

ইতিহাস[সম্পাদনা]

এনায়েত উল্লা নামের এক ব্যক্তি প্রথম একটি ছোট দোকান দিয়েছিলেন আর তার নামানুসারে ইনাতগঞ্জ বাজারের নামকরণ করা হয়।[তথ্যসূত্র প্রয়োজন] ইনাতগঞ্জ বাজার এক সময় এশিয়ার পাটের বাণিজ্য কেন্দ্র ছিল। বর্তমানের ইনাতগঞ্জ উচ্চ বিদ্যালয় যে জায়গায় সেই জায়গায় ছিল পাটের গুদাম। বড় বড় জাহাজ এসে ভীড়ত ইনাতগঞ্জ বাজারের কিনারে, তখনকার সময় মানুষ ওখান থেকে জাহাজে করে বিদেশ গমন করত। এখনও ঐ জাহাজের নিদর্শন দেখতে পাওয়া যায় ইনাতগঞ্জ উচ্চ বিদ্যালয়ের ভিতর।[তথ্যসূত্র প্রয়োজন]

প্রশাসনিক বিন্যাস[সম্পাদনা]

১৭ টি মৌজা নিয়ে গঠিত এই ইউনিয়টিতে গ্রামের সংখ্যা ৩৫ টি।[১]

জনসংখ্যা উপাত্ত[সম্পাদনা]

এই ইউনিয়নের লোক সংখ্যা ২৭৬৫৩ জন ও পরিবারের সংখ্যা ৩৬৬৮ টি।[১]

শিক্ষা[সম্পাদনা]

এখানকার শিক্ষার হার ৭৩ %। এখানে মোট শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের সংখ্যা নিম্নরূপ:[১]

  • সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয় - ১২ টি,
  • বে-সরকারী বিদ্যালয় - ৩ টি (ইনাতগঞ্জ ইসলামিক একাডেমি, টি ইউ কিন্ডারগার্ডেন এবং পাঞ্জেরী কিন্ডারগার্টেন এন্ড জুনিয়র স্কুল),
  • মাদ্রাসা - ১ টি,
  • উচ্চ বিদ্যালয় - ৩ টি।
  • কলেজ - ১টি (ইনাতগঞ্জ ডিগ্রি কলেজ, নবীগঞ্জ)

অন্যান্য স্থাপনা[সম্পাদনা]

১) ইনাতগঞ্জ উচ্চ বিদ্যালয়।

২) বিবিয়ানা গ্যাস ক্ষেত্র।

৩) ২টি রাইস মিল ।

৪) ইনাতগঞ্জ পুলিশ ফাঁড়ী।

৫) ইনাতগঞ্জ সরকারী হাসপাতাল।

৬) ইনাতগঞ্জ উমরপুর বাঁধ।

কৃতি ব্যক্তিত্ত্ব[সম্পাদনা]

ইনাতগঞ্জ বাজারের কৃতিত্ব ব্যক্তির মধ্যে হলেন - আসাদ উল্লাহর বড় ছেলে _করিম উল্লাহ। ( এক সময় ইনাতগঞ্জের বাজারে সেরা প্রাচীন ধনী ব্যক্তি ছিলেন এবং ইনাতগঞ্জের বুকে তিনিই প্রথম বাজারে ভিটা নির্মাণ করেন।)

ইসমত চৌধুরী (সাবেক সাংসদ), ডাঃ মোঃ আফজাল হোসেন, সৈয়দ আলি হায়দার আলমগির,মো:মুহিবুর রহমান (সিতার আলী) ফিরুজ মিয়া, খালেদ আহম্মেদ পাঠান, বজলু রসিদ, নাজমুল হুদা সাদেক, তৌফিক আহম্মেদ, শিরিন আক্তার, আজিজুর রহমান, বাশির আলী, মাসুদ আহমেদ জিহাদী, আব্দুল বাতেন, তোফাজ্জল হোসেন, মুহিবুর রহমান (সাংবাদিক),রাকিল হোসেন (সাংবাদিক), জিয়াউর রহমান (সাবেক ভাইস চেয়ারম্যান), আব্দুল বারিক, আব্দুর নুর মাস্টার, শকদিল হোসেন।

বিবিধ[সম্পাদনা]

আরও দেখুন[সম্পাদনা]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. "ইনাতগঞ্জ ইউনিয়ন - জাতীয় তথ্য বাতায়ন"। ৯ জানুয়ারি ২০১৭ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ৩১ আগস্ট ২০১৫ 

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]