ইনাতগঞ্জ ইউনিয়ন

স্থানাঙ্ক: ২৪°৩৮′১৭.৯৯৯″ উত্তর ৯১°৩৪′৮.০০০″ পূর্ব / ২৪.৬৩৮৩৩৩০৬° উত্তর ৯১.৫৬৮৮৮৮৮৯° পূর্ব / 24.63833306; 91.56888889
উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
ইনাতগঞ্জ
ইউনিয়ন
ইনাতগঞ্জ সিলেট বিভাগ-এ অবস্থিত
ইনাতগঞ্জ
ইনাতগঞ্জ
ইনাতগঞ্জ বাংলাদেশ-এ অবস্থিত
ইনাতগঞ্জ
ইনাতগঞ্জ
বাংলাদেশে ইনাতগঞ্জ ইউনিয়নের অবস্থান
স্থানাঙ্ক: ২৪°৩৮′১৭.৯৯৯″ উত্তর ৯১°৩৪′৮.০০০″ পূর্ব / ২৪.৬৩৮৩৩৩০৬° উত্তর ৯১.৫৬৮৮৮৮৮৯° পূর্ব / 24.63833306; 91.56888889 উইকিউপাত্তে এটি সম্পাদনা করুন
দেশবাংলাদেশ
বিভাগসিলেট বিভাগ
জেলাহবিগঞ্জ জেলা
উপজেলানবীগঞ্জ উপজেলা উইকিউপাত্তে এটি সম্পাদনা করুন
স্থাপিত১৯৯৯
আসনহবিগঞ্জ-১
সরকার
 • ইউপি চেয়ারম্যানমোঃ বজলু রসিদ[তথ্যসূত্র প্রয়োজন]
আয়তন
 • মোট২,৩৬৬ হেক্টর (৫,৮৪৬ একর)
জনসংখ্যা (২০১১)
 • মোট২৪,২০৭
 • জনঘনত্ব১,০০০/বর্গকিমি (২,৭০০/বর্গমাইল)
সময় অঞ্চলবিএসটি (ইউটিসি+৬)
প্রশাসনিক
বিভাগের কোড
৬০ ৩৬ ৭৭ ৫১
ওয়েবসাইটপ্রাতিষ্ঠানিক ওয়েবসাইট উইকিউপাত্তে এটি সম্পাদনা করুন
মানচিত্র

ইনাতগঞ্জ ইউনিয়ন বাংলাদেশের হবিগঞ্জ জেলার নবীগঞ্জ উপজেলার একটি প্রশাসনিক এলাকা।

অবস্থান ও আয়তন[সম্পাদনা]

এই ইউনিয়নের আয়তন ২২ বর্গ কি.মি.।

ইতিহাস[সম্পাদনা]

সপ্তদশ শতাব্দীর সিলেটের ফৌজদার এনায়েতউল্লাহ খানের নামানুসারে এনায়েতগঞ্জ বাজারের নামকরণ করা হয়। যদিও এনায়েতগঞ্জ এলাকা পূর্বে সোনাতিয়া নামে পরিচিত ছিলো। পরবর্তীতে এই বাজারের নাম ইনাতগঞ্জ বাজার হিসেবে পরিচিতি পায়। এক সময় এশিয়ার পাটের বাণিজ্য কেন্দ্র ছিল। বর্তমানের ইনাতগঞ্জ উচ্চ বিদ্যালয় যে জায়গায় সেই জায়গায় ছিল পাটের গুদাম। বড় বড় জাহাজ এসে ভিড়ত ইনাতগঞ্জ বাজারের কিনারে। তখনকার সময় মানুষ ওখান থেকে জাহাজে করে বিদেশ গমন করত। এখনও ঐ জাহাজ ঘাটের নিদর্শন দেখতে পাওয়া যায় ইনাতগঞ্জ উচ্চ বিদ্যালয়ের ভিতর।[১]

প্রশাসনিক বিন্যাস[সম্পাদনা]

১৭টি মৌজা নিয়ে গঠিত এই ইউনিয়টিতে গ্রামের সংখ্যা ৩৫টি।[২]

জনসংখ্যা উপাত্ত[সম্পাদনা]

এই ইউনিয়নের লোক সংখ্যা ২৭৬৫৩ জন ও পরিবারের সংখ্যা ৩৬৬৮টি।[২]

শিক্ষা[সম্পাদনা]

এখানকার শিক্ষার হার ৭৩%। এখানে মোট শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের সংখ্যা নিম্নরূপ:[২]

  • সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় - ১২ টি,
  • মাদ্রাসা - ২টি মোস্তফাপুর আনোয়ারুল উলুম আলিম মাদরাসা

নাদামপুর হাফিজিয়া মাদ্রাসা।

  • উচ্চ বিদ্যালয় - ৩টি।
  • ইনাতগঞ্জ উচ্চ বিদ্যালয়
  • নাদামপুর উচ্চ বিদ্যালয়
  • ঘোলডোবা উচ্চ বিদ্যালয়
  • কলেজ -২টি ইনাতগঞ্জ ডিগ্রি কলেজ,

নয়মৌজা কলেজ

  • বে-সরকারি বিদ্যালয় - ৩টি (পাঞ্জেরী কিন্ডারগার্টেন এন্ড জুনিয়র স্কুল, ইনাতগঞ্জ ইসলামিক একাডেমি এবং টি ইউ কিন্ডারগার্ডেন )

অন্যান্য স্থাপনা[সম্পাদনা]

  1. ইনাতগঞ্জ উচ্চ বিদ্যালয়;
  2. নাদামপুর উচ্চ বিদ্যালয়;
  3. মোস্তফাপুর আলিম মাদ্রাসা;
  4. বিবিয়ানা গ্যাসক্ষেত্র;
  5. ২টি রাইস মিল;
  6. ইনাতগঞ্জ পুলিশ ফাঁড়ি;
  7. ইনাতগঞ্জ সরকারি হাসপাতাল;
  8. ইনাতগঞ্জ উমরপুর বাঁধ।

উল্লেখযোগ্য ব্যক্তিত্ব[সম্পাদনা]

  1. মোদাব্বির হোসাইন চৌধুরী - মোস্তফাপুর (হবিগঞ্জ মহকুমার প্রথম মন্ত্রী)
  2. এডভোকেট ইসমত চৌধুরী- মোস্তফাপুর (সাবেক সাংসদ নবীগঞ্জ-বাহুবল)
  3. মোতাহের রহমান আক্কা মিয়া-মোস্তফাপুর, ইনাতগঞ্জ ইউনিয়ন পরিষদের ৩ বারের নির্বাচিত চেয়ারম্যান
  4. যেহীন আহমদ চৌধুরী - মোস্তফাপুর(এফআইভিডিবি এর প্রতিষ্ঠাতা ও পরিচালক)
  5. প্রতাপ উদ্দিন - মোস্তফাপুর (প্রতিষ্ঠাতা সাধারণ সম্পাদক- জাতীয় গণতান্ত্রিক ফ্রন্ট)
  6. আফজাল হোসাইন - নাদামপুর, (নর্থ ইস্ট মেডিকেল কলেজের প্রতিষ্ঠাতা চেয়ারম্যান)


হাট বাজার- ইনাতগঞ্জ বাজার, বান্দের বাজার, ঘোলডোবা বাজার,

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. Fazlur Rahman (১৯৯১)। Sileter Mati, Sileter ManushSylhet District: M A Sattar। 
  2. "ইনাতগঞ্জ ইউনিয়ন - জাতীয় তথ্য বাতায়ন"। ৯ জানুয়ারি ২০১৭ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ৩১ আগস্ট ২০১৫ 

ইনাতগঞ্জ ইউনিয়নের চেয়ারম্যান বজলুর রসিদ আওয়ামী লীগের সমর্থক বা অনুসারী নন। তিনি ব্যক্তিগত ভাবে জামায়াতের সমর্থক হলেও স্বতন্ত্র ভাবে নির্বাচন করে জয়ী হন। নির্বাচনের পর ভোরের কাগজে এই সংবাদ প্রকাশিত হয়। সেখানে বজলুর রসিদ যে স্বতন্ত্র প্রার্থী সে ব্যাপারে তথ্য রয়েছে। তথ্যসূত্র: ভোরের কাগজ, ৩১ মে, মঙ্গলবার ২০১৬। http://www.bhorerkagoj.com/print-edition/2016/05/31/90985.php ওয়েব্যাক মেশিনে আর্কাইভকৃত ২ মে ২০২১ তারিখে

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]