ইটালো ক্যালভিনো

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন

যুদ্ধ শুরু হতেই লুইজি নামে এক ব্যক্তি এসে তাতে যোগ দিতে চাইল।

সকলেই তখন তার অনেক প্রশংসা করল । অস্ত্র বিতরণের জায়গায় গিয়ে সে একটা অস্ত্র চেয়ে নিয়ে ঘোষণা দিল “ আমি এখন অ্যালবার্তো নামে এক লোক গিয়ে কে খুন করব”

সবাই জানতে চাইল অ্যালবার্তো টা কে?

সে উত্তরে বলল “ আমার শত্রু”

তারা তখন তাকে বুঝিয়ে বলল যে,সে শুধুমাত্র কিছু নির্দিষ্ট ধরনের শত্রুকেই হত্যা করতে পারবে , ইচ্ছেমত যাকে তাকে না।

“তাহলে” , সে বলল , “ তোমাদের কি ধারণা আমি বেকুব? এই অ্যালবার্তো তোমাদের সেই নির্দিষ্ট ধরণেরই, তাদেরই একজন। যখন জানলাম তোমরা এদের বিরুদ্ধে যুদ্ধে যাচ্ছ, আমি ভাবলাম আমিও যাব , গেলে অ্যালবার্তো কে খুন করতে পারব। আমি এজন্যেই এসেছি। আমি ওকে ভাল করেই চিনি , ব্যাটা একটা জোচ্চোর। ও আমার সাথে বিশ্বাসঘাতকতা করেছে, কোনরকম কারণ ছাড়াই সে একটা মহিলার সামনে আমাকে বোকা বানিয়েছিল । বেশ পুরনো একটা ঘটনা । বিশ্বাস না হলে আমি পুরো ঘটনাটা তোমাদের খুলে বলতে পারি।

তারা বলল, না না , ঠিকাছে।

লুইজি বলল,"ঠিকাছে তাহলে অ্যালবার্তো কোথায় আছে বল, আমি সেখানে যেয়ে যুদ্ধ শুরু করব।"

তারা বলল, তারা এ ব্যাপারে কিছুই জানে না।

"ব্যাপার না," লুইজি বলল, "আমি ঠিকই এমন কাউকে খুঁজে বের করব যে বলতে পারবে। আজ হোক অথবা কাল ওকে আমি নাগালের মধ্যে পাবই। "

তারা বলল , সে এরকম কিছু করতে পারবে না,কারণ যেখানে পাঠানো হবে সেখানে গিয়েই তাকে যুদ্ধ করতে হবে এবং ওখানে যে শত্রুরা থাকবে তাদেরকেই শুধু মারতে হবে। তাদের আলবার্তো সম্পর্কে কিছু জানার দরকার নেই।

“দেখ”, লুইজি জোরাজুরি শুরু করল, “আমাকে আসলেই ঘটনাটা তোমাদের খুলে বলতে হবে । তাহলেই বুঝবে লোকটা একটা সত্যিকারের জোচ্চোর এবং ওর বিরুদ্ধে যুদ্ধ করাটা তোমাদের জন্য সঠিক কাজই হবে।"

কিন্তু অন্যরা কেউ জানতে আগ্রহী হল না।

লুইজি কিন্তু বুঝতে পারছিল না কেন ,সে আবার বলল “দুঃখিত, তোমাদের হয়ত কিছু যাবে আসবে না আমি শত্রুদের ভিতরে যাকেই মারি না কেন ,কিন্তু অ্যালবার্তোর সাথে সম্পর্ক নেই এমন কাউকে মারলে আমি নিজে মানসিকভাবে সুস্থির থাকব না ।"

এবার তারা সকলেই ধৈর্য হারিয়ে ফেলল। তাদের মধ্যে একজন তাকে ভাল করে বুঝিয়ে বলল যুদ্ধ ব্যাপারটা আসলে কি, কেমন,এবং কেন তুমি চাইলেই যে কোন একজন শত্রুকে গিয়ে ইচ্ছেমত হত্যা করতে পার না।

লুইজি তখন কাঁধ ঝাঁকিয়ে বলল, "ঠিকাছে, যদি ব্যাপারটা এরকমই হয় তাহলে তোমরা আমাকে বাদ দিতে পার।"

তারা সমস্বরে চিৎকার করে উঠল। “না, তুমি আছ, এবং তুমি থাকবে”

এরপর তারা চিৎকার শুরু করল “জলদি চল , এক দুই, এক দুই...”

এবং অবশেষে লুইজিকে তারা যুদ্ধে পাঠিয়ে দিল ।

লুইজি খুশি ছিল না। যদিও সে কোনরকম ইতস্তত ছাড়াই একের পর এক মানুষ হত্যা করছিল শুধু এটা দেখার জন্য যে সে আলবার্তো বা তার পরিবারের কাউকে খুঁজে পায় কিনা। প্রতিটা শত্রুকে মারার জন্য তারা তাকে একটা করে পদক দিয়ে যাচ্ছিলো কিন্তু তবুও সে সুখী হতে পারছিল না। তার এটা ভেবে খারাপ লাগত যে “ যদি শেষপর্যন্ত অ্যালবার্তো কেই মারতে না পারি তাহলে অকারণেই এক গাদা মানুষকে হত্যা করা হবে”।

ইতিমধ্যে সে বেশ অনেকগুলো পদক পেয়েছে , সোনার, রুপার, সবকিছুর।

লুইজি মনে মনে ধরে নিলো , আজকে একজন কালকে একজন এরকম করে মারতে থাকলে ওদের সংখ্যা কমতে থাকবে , এবং ওই জোচ্চোরটার পালা এক সময় না এক সময় আসবেই।

কিন্তু লুইজির অ্যালবার্তোকে খুঁজে পাওয়ার আগেই শত্রুপক্ষ আত্মসমর্পণ করে বসল। এত এত মানুষকে কোন কারণ ছাড়াই সে মেরে ফেলেছে ভাবতে তার খুব কষ্ট হচ্ছিল । এবং যেহেতু দুপক্ষের মধ্যে তখন শান্তিপূর্ণ অবস্থা তাই সে তার সব পদকগুলো একটা ব্যাগে ভরে প্রতিপক্ষের দেশে ঘুরে বেড়ানো শুরু করল এবং নিহতদের স্ত্রী এবং পুত্রকন্যাদের মধ্যে সেগুলোএক এক করে বিতরণ করে দিতে লাগল ।

এবং এভাবে ঘুরতে ঘুরতেই সে একদিন অ্যালবার্তোকে পেয়ে গেল।

সে ভাবল , “চমৎকার, দেরী হোক তবু একেবারে যায়নি সময় ” এবং সে তাকে খুন করল।

এবার এসে তারা তাকে গ্রেপ্তার করল, হত্যাকারী হিসেবে বিচার করল এবং ফাঁসিতে ঝুলাল। বিচারের সময় সে বার বার সবাইকে বলে বুঝাতে চাইল যে, সে এটা করেছে শুধুমাত্র নিজের বিবেকের কাছে পরিষ্কার থাকার জন্য কিন্তু এবারও কেউ তার কথা শুনল না।

মূল গল্প - ইটালো ক্যালভিনো