ইজি বাইক

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
একটি ইজি বাইক

ইজি বাইক (Easy Bike) একপ্রকার বিদ্যুৎচালিত তিনচাকাবিশিষ্ট বাহন। পৃথিবীর বিভিন্ন দেশের মতো বাংলাদেশের শহরগুলোর রাস্তায় এগুলো প্রচুর দেখা যায়। আনেক সুবিধা থাকায় এটি বর্তমানে (২০১১) প্রচুর গ্রহণযোগ্যতা পেয়েছে এবং উত্তরোত্তর এর জনপ্রিয়তা বাড়ছে। এর ব্যাপক সমাদর, জনপ্রিয়তা ও সহজলভ্যতার কারণে খুব সহজেই এটি বর্তমানে প্রচলিত অনেক শহুরে যানবাহনের অন্যতম বিকল্প হিসেবে স্থান করে নিয়েছে।[১]

ইজি বাইকসমূহ সাধারণত চীনে তৈরি হয়ে থাকে। তবে দাম খুব একটা বেশি না হওয়ায় এবং বিদ্যুৎচালিত হওয়ার কারণে জ্বালানী খরচ না থাকায় এটি অর্থনৈতিক দিক থেকে বেশ লাভজনক। এ কারণে তা অনেক বেকার যুবকের কর্মসংস্থানের মাধ্যম হয়ে উঠেছে। এইভাবে ইজি বাইক বাংলাদেশের কর্মসংস্থান ও যাতায়াত মাধ্যম উভয়খাতে সমান ভূমিকা রাখছে। এছাড়াও এই বাহনগুলো অনেকটাই নীরব হওয়ায় শব্দদূষণও করে না।[২]

নামের বিভিন্নতা[সম্পাদনা]

বাংলাদেশের বিভিন্ন এলাকায় ইজি বাইক বিভিন্ন নাম ধারণ করেছে। কোথাও এগুলো টমটম নামে, কোথাও ব্যাটারিচালিত হওয়ায় শ্রেফ ব্যাটারি নামে পরিচিতি পেয়েছে। আবার কোথাও অটো বলেও পরিচিত হয়েছে।

বিরোধিতা[সম্পাদনা]

ইজি বাইক, বিদ্যুৎচালিত হওয়ায় একদিকে যেমন জনপ্রিয়তা পেয়েছে, তেমনি অন্যদিকে এই কারণেই বাংলাদেশের বিভিন্ন জায়গায় এর বিরোধিতাও হয়েছে। কারণ প্রথম দিকে বাহনগুলো সৌরপ্যানেলসমৃদ্ধ অবস্থায় বাজারে এলেও ধীরে ধীরে সৌর প্যানেল ছাড়াই বাজারে আসতে শুরু করে। এজাতীয় বাহনগুলো তাই ব্যবহারকারীগণ জাতীয় গ্রিডের বিদ্যুৎ সংযোগে লাগিয়ে চার্জ করতে শুরু করেন। ফলে সামাজিকভাবে বিদ্যুৎ ঘাটতি সৃষ্টির জন্য এই বাইকগুলোকে দায়ী করে এর বিরোধিতা করেন বাংলাদেশের বিভিন্ন এলাকার, বিশেষ করে চট্টগ্রাম এলাকার মানুষজন।[তথ্যসূত্র প্রয়োজন]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. "It's cheaper: Dealers import rickshaw parts from China, assemble them here"The Indian Express (ইংরেজি ভাষায়)। ২০১৪-০৩-২০। সংগ্রহের তারিখ ২০২০-০৫-১১ 
  2. Jamil, Faiz। "Regulation threatens India's e-rickshaws"www.aljazeera.com। সংগ্রহের তারিখ ২০২০-০৫-১১