ইওর নেম

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
ইওর নেম
Your name movie logo.png
ইওর নেম চলচ্চিত্রের লোগো
ইওর নেম
পরিচালকমাকোতো শিনকাই
প্রযোজক
  • নোরিতাকা কাওয়াগুচি
    * গেনকি কাওয়ামুরা
চিত্রনাট্যকারমাকোতো শিনকাই
উৎসইওর নেম
by মাকোতো শিনকাই
শ্রেষ্ঠাংশে
সুরকাররেডউইম্পস
চিত্রগ্রাহকমাকোতো শিনকাই
সম্পাদকমাকোতো শিনকাই
প্রযোজনা
কোম্পানি
পরিবেশকতোহো
মুক্তি
  • ৩ জুলাই ২০১৬ (2016-07-03) (Anime Expo)
  • ২৬ আগস্ট ২০১৬ (2016-08-26) (Japan)
দৈর্ঘ্য১০৭ মিনিট
দেশজাপান
ভাষাজাপানি
আয়$৩৩১.৬[১]

ইওর নেম (জাপানি: 君の名は。, হেপবার্ন: Kimi no Na wa.(কিমি নো না ওয়া)) (সাধারণত ইওর নেম(Your Name) নামে লেখা হয়।) হল ২০১৬ সালের জাপানি রোমান্টিক, কাল্পনিক, অভিনয় নির্ভর আনিমে চলচ্চিত্র যা মাকোতো শিনকাই কর্তৃক পরিচালিত, লিখিত, চলচ্চিত্রিত এবং সম্পাদিত। এটি তারই নিজস্ব উপন্যাসের উপর ভিত্তি করে তৈরি করা হয় যা কিনা একই নামে পরিচিত এবং চলচ্চিত্রটি প্রকাশের একমাস আগে প্রকাশ করা হয়[২]। গল্পটি জাপানের টোকিও শহরে বসবাসকারী একজন যুবক এবং গ্রামে বসবাসকারী একজন যুবতীকে নিয়ে যাদের মধ্যে প্রায়শই হঠাৎ করে দেহ পরিবর্তন করা শুরু হয়।

ইওর নেম কোমিক্স ওয়েব ফিল্মস কর্তৃক তৈরি করা হয় এবং তোহো কোম্পানি কর্তৃক বিতরণ করা হয়[৩]। চলচ্চিত্রটি ৬ই জুলাই, ২০১৬ সালে ক্যালিফোর্নিয়ার লস অ্যাঞ্জেলেসে আনিমে এক্সপো সম্মেলন সভায় প্রদর্শন করা হয় এবং ২৬শে আগস্ট জাপানে পরিদর্শিত হয় [৪][৫][৬]। আনিমে এক্সপো ২০১৬ তে ফানিমেশন চলচ্চিত্রটি বিতরণের জন্য অনুমতি পায়।[৭]

চলচ্চিত্রটি সমালোচনামূলক প্রশংসা পেয়েছে এটির অ্যানিমেশন এবং আবেগপ্রবণতার জন্য এবং নিজ দেশে বৃহত্তর ব্যবসায়িক সাফল্য অর্জনের জন্য, যা জাপানে সর্বকালের সর্বোচ্চ আয়কৃত চলচ্চিত্রের মধ্যে ৪র্থ স্থানের এবং বিশ্বব্যাপী সর্বোচ্চ আয়কৃত অানিমে চলচ্চিত্রের খেতাব পায়। চলচ্চিত্রটি ১৫ই জানুয়ারি, ২০১৭ সাল অবধি  $৩৩১.৬ মিলিয়ন মার্কিন ডলারেরও বেশি আয় করে।

পটভূমি[সম্পাদনা]

সুওয়া হ্রদ, ইওর নেম-এর ইতোমোরি হ্রদ এরই উপর ভিত্তি করে তৈরি করা হয়[৮]। শিনকাই প্রথম ইতোমোরি হ্রদের ধারণার জন্য অনুপ্রেরণা পান  মাৎসুবারা হ্রদের থেকে , যা তার আদিশহরে অবস্থিত.[৯]

মিৎসুহা ইতোমোরি নামক এক কাল্পনিক শহরে বসবাসকারী একজন উচ্চ বিদ্যালয়ের ছাত্রী, সে তার গ্রাম্য জীবন নিয়ে অতিষ্ঠ এবং তার ইচ্ছা পরবর্তী জীবনে সে যাতে টোকিও শহরে বসবাসকারী একজন সুদর্শন বালক হিসেবে জন্ম নিতে পারে।  পরবর্তীতে তাকি, টোকিও শহরে বসবাসকারী উচ্চ বিদ্যালয়ের ছাত্র, ঘুম থেকে জেগে বুঝতে পারে সে মিৎসুহা,  যে কিনা কোন ভাবে তাকির শরীরে এসে পড়েছে। 

তাকি এবং মিৎসুহা বুঝতে পারে তারা দেহ পরিবর্তন করেছে। তাই তারা তাদের মধ্যে যোগাযোগ করার জন্য  কাগজে নোট লিখে অথবা তাদের প্রত্যেকের মোবাইলে স্মারকলিপি লিখে রাখে। সময় যত অতিবাহিত হয় তারা তাদের মধ্যে দেহ পরিবর্তনকে স্বাভাবিক হিসেবেই মেনে নেয় এবং নিজেদের জীবনে মধ্যস্থতা করে নেয়। মিৎসুহা তাকির মহিলা সহকারী মিকি ওকুদেরার সাথে সম্পর্ক গঠনে সহায়তা করে এবং অবশেষে তাকি তার সাথে ডেটে যায়, অন্যদিকে তাকি মিৎসুহাকে তার স্কুলে আরও জনপ্রিয় করে তোলে। মিৎসুহা তাকিকে একটি ধূমকেতু সম্পর্কে বলে যেটি কিছুদিনের মধ্যে পৃথিবীর পাশ দিয়ে যাওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে এবং সে এটি দেখার জন্য খুবই উৎফুল্ল কারণ এটি তাদের শহরের উৎসবের দিন দেখা যাবে।

একদিন তাকি তার নিজ শরীরে হঠাৎ করে ঘুম থেকে জেগে উঠে। ওকুদেরার সাথে ডেট অসফল হওয়ার পর সে মিৎসুহার সাথে যোগাযোগের চেষ্টা করে, কিন্তু সে চেষ্টা ব্যর্থ হয়। সে পরে বুঝতে পারে তাদের মধ্যে দেহ পরিবর্তন বন্ধ হয়েছে, তাই সে মিৎসুহার গ্রামের বাড়িতে যাওয়ার সিদ্ধান্ত গ্রহণ করে। তার গ্রামের নাম না জানার ফলে, সে সমগ্র হিদা অঞ্চল ভ্রমণ করে কেবলমাত্র তার আঁকা গ্রামটির দৃশ্য থেকে যেটি সে তার স্মৃতি থেকে একেঁছিল। অবশেষে রেস্তোরার  একজন পরিবেশনকারী তাকির অঙ্কিত ছবির শহরকে ইতোমরি নামে চিনতে পারে। সে তাকে বলে যে তিন বছর আগে ধূমকেতু তিয়ামাতের একটি অংশ পৃথিবীর বুকে আছড়ে পড়ে এবং ইতোমোরি ও এর আশেপাশের সব কিছুকে নিশ্চিহ্ন করে দেয়, যার ফলে শহরের জনসংখ্যার এক তৃতীয়াংশ লোক মারা যায়। তাকি যখন দূর্ঘটনায় নিহত ব্যক্তিদের নথি দেখতেছিল তখন সে সেখানে মিৎসুহার নাম খুঁজে পায়।

মিৎসুহার সাথে পুনরায় যোগাযোগ করার চেষ্টায় তাকি মিৎসুহাদের পারিবারিক মঠে যায়। তার এবং মিৎসুহার সময়পরিক্রমা যে প্রকৃতপক্ষে কিছু বছরের পৃথক তা বুঝার পর, তাকি কুচিকামিযাকে পান করে যেটি মিৎসুহা বলি দেয়ার উপহার হিসেবে তৈরি করেছিল  যাতে করে সে ধূমকেতুর সংঘর্ষের আগে মিৎসুহার সাথে পুনরায় যোগাযোগ করতে পারে।  সফলভাবে সে মিৎসুহার শরীরে সকালবেলা উৎসবের দিনটিতে জেগে উঠে, এবং  বুঝতে পারে শহরটিকে বাঁচানোর জন্য তার এখনও সময় আছে। ধূমকেতু সম্পর্কে তার বন্ধুদের বোঝানোর পর সে তাদের সাহায্য নিয়ে গ্রামবাসীদের নিরাপদ স্থানে নিয়ে যাওয়ার চেষ্টা করে। যখন তারা তাদের পরিকল্পনা মাফিক কাজ করতেছিল, তাকি অনুমান করে মিৎসুহা হয়তো তার শরীরে উপস্থিত আছে তাই সে তার সাথে দেখা করার জন্য পর্বতটিতে ফিরে যায়।

মিৎসুহা মঠটিতে তাকির শরীরে জেগে উঠে এবং পর্বতের চূড়ায় উদ্দেশ্যহীনভাবে হাঁটতে থাকে। অন্যদিকে তাকিও পর্বতের চূড়ায় এসে হাজির হয়; যদিও তারা একে অপরের অস্তিত্ব অনুভব করতে পারে, কিন্তু তাদের সময়পরিক্রমার পার্থক্যের জন্য কেউ কাউকে দেখতে পায় না। যখন সূর্য অস্ত যায় তাকি এবং মিৎসুহা বুঝতে পারে এখন গোধূলির সময়, [১০] তারা তাদের নিজেদের যে যার শরীরে স্থানান্তরিত হয়ে ফিরে যায় এবং অবশেষে একে অপরকে দেখতে পায়। তাকি মিৎসুহাকে তার বাবা যিনি ইতোমোরির নগরপ্রধান, তাকে শহরটির লোকজনকে সরিয়ে নেয়ার জন্য বুঝাতে বলে।  তারা তাদের নিজ নিজ সময়পরিক্রমায় ফিরে যাওয়ার পূর্বে তারা তাদের প্রত্যেকের নিজ নাম একে অপরের হাতে লিখতে সম্মত হয়, কিন্তু মিৎসুহা তার নাম লেখা শুরু করা আগেই হঠাৎ করে অদৃশ্য হয়ে যায়। সময় যত অতিবাহিত হতে থাকে, তাদের প্রত্যেকের পরিচয়ের স্মৃতি ঝাপসা হতে থাকে এবং এক সময় তা মুছে যায়; তারা প্রত্যেকে একে অপরের নাম ভুলে যায়, পাশাপাশি তাদের মধ্যে যে ঘটনাটি ঘটেছিল তাও। ভুলে না যাওয়ার চেষ্টার শেষ মুহূর্তে, মিৎসুহা দেখতে পায় তাকি তার হাতে নিজের নাম লেখার পরিবর্তে “আই লাভ ইউ” লিখে। মিৎসুহা নতুন উদ্যমে দৃঢ় সংকল্পে পুনরায় তার বাবাকে বুঝাতে চেষ্টা করে, এবং অতিশীঘ্রই ধূমকেতু তিয়ামাতের ভাঙা অংশ পৃথিবীতে আছড়ে পড়ে ইতোমোরিকে ধ্বংস করে দেয়।

আট বছর পর এটি প্রকাশ পায় যে মিৎসুহা তার বাবাকে জরুরী ভিত্তিতে দূর্ঘটনা কবলিত অঞ্চলগুলো থেকে সকল লোকজনকে সরিয়ে নেয়ার ব্যবস্থা করতে বাধ্য করেছিল। এতে প্রায় সকল বাসিন্দারাই সময়মত পালিয়ে বাঁচতে সক্ষম হয়। তাকি বিশ্ববিদ্যালয় থেকে পাশ করে একটি চাকুরি খোঁজার জন্য চেষ্টা করছে, কিন্তু তার কাছে এখনো গুরুত্বপূর্ণ কারোর অনুপস্থিতির দীর্ঘস্থায়ী অনুভূতি তাকে তাড়া করে বেড়ায়। সে ইতোমোরি বিষয়ক বিভিন্ন জিনিস যেমন ম্যাগাজিন এবং পরিচিত লোকজনদের (যাদের সে মিৎসুহার শরীরে থাকার সময় পরিচিত হয়েছিল) প্রতি আকর্ষণ অনুভব করে। তাকি এবং মিৎসুহা আলাদা ট্রেনে ভ্রমণ করার সময় যখন তাদের ট্রেন পাশ কাটিয়ে চলে যায় তখন তারা একে অপরকে দেখে স্তব্ধ হয়ে যায়। তারা তাদের পরবর্তী বিরতিস্থানে ট্রেন থেকে বেরিয়ে আসে এবং এক অপরকে খুঁজতে থাকে। শেষ পর্যন্ত তারা একটি সিঁড়িতে এসে মিলিত হয় এবং তারা অনুভব করে তারা কোন না কোনভাবে তারা একে অপরের পরিচিত এবং একে অপরের নাম জিজ্ঞেস করে।

অভিনয়ে[সম্পাদনা]

চরিত্র জাপানি ইংরেজি
তাকি তাচিবানা (立花 瀧, Tachibana Taki) (立花 瀧, 'Tachibana Taki'?) রাউনোসুকে কামিকি মাইকেল সিন্টারনিকলাস
টোকিও শহরে বসবাসকারী একজন উচ্চ বিদ্যালয়ের ছাত্র, যে তার বন্ধুদের সাথে আনন্দের মধ্যে দিন অতিবাহিত করে এবং একটি ইতালীয় রোস্তোরায় স্বল্প সময়ের জন্য কাজ করে। সে অতি সহজেই রেগে যায় কিন্তু মনের দিক থেকে দয়ালু।
মিৎসুহা মিইয়ামিযু (宮水 三葉, Miyamizu Mitsuha) (宮水 三葉, 'Miyamizu Mitsuha'?) মোনে কামিশিরাইশি স্টিফেনি সেহ
ইতোমোরি নামক গ্রামীণ শহরে বসবাসকারী, উচ্চ বিদ্যালয়ের একজন ছাত্রী। সে একজন স্পষ্টভাষী বালিকা যে পারিবারিক মঠের সমস্যাসমূহকে অপছন্দ করে এবং টোকিওতে বসবাস করার জন্য ইচ্ছাপোষণ করে।
মিকি ওকাদেরা (奥寺 ミキ, Okudera Miki) (奥寺 ミキ, 'Okudera Miki'?) মাসামি নাগাসাওয়া লরা পোস্ট
বিশ্ববিদ্যালয়ের একজন শিক্ষার্থী, সে তাকির সাথে একই রেস্তোরায় কাজ করে।
হিতোহা মিইয়ামিযু (宮水 一葉, Miyamizu Hitoha) (宮水 一葉, 'Miyamizu Hitoha'?) এৎসুকো ইচিহারা গ্লিনিস এলিস
পারিবারিক মঠের প্রধান এবং মিৎসুহা এবং ইয়োৎসুহার দাদি। তাদের পারিবারিক নাম 宮水 এর আক্ষরিক অর্থ হল "মন্দিরের জল". তিনি কুমিহিমোতে দক্ষ, যেটি তার পরিবারের অন্যতম ঐতিহ্য।
কাৎসুহিকো তেশিগাওয়ারা (勅使河原 克彦, Teshigawara Katsuhiko) (勅使河原 克彦, 'Teshigawara Katsuhiko'?) রিও নারিতা কাইল হবার
মিৎসুহার বন্ধু, যে যন্ত্রপাতি মেরামত এবং বিস্ফোরক সম্পর্কে দক্ষ।
সাইয়াকা নাতোরি (名取 早耶香, Natori Sayaka) (名取 早耶香, 'Natori Sayaka'?) আওই ইয়ুকি ক্যাসান্ড্রা মরিস
মিৎসুহার বন্ধু। সে উচ্চ বিদ্যালয়ের সম্প্রচার দলের একজন ভীতু মেয়ে। যে কাৎসুহিকোর সাথে সম্পর্কের বিষয় তীব্রভাবে অস্বীকার করে।
ৎসুকাসা ফুজিই (藤井 司, Fujii Tsukasa) (藤井 司, 'Fujii Tsukasa'?) নোবুনাগা শিমাযাকি বেন প্রোনস্কে
তাকির উচ্চ বিদ্যালয়ের বন্ধু। সে প্রায়ই তাকির ব্যাপারে উদ্বিগ্ন থাকে।
শিনতা তাকাগি (高木 真太, Takagi Shinta) (高木 真太, 'Takagi Shinta'?) কাইতো ইশিকাওয়া রে চেজ
উচ্চ বিদ্যালয়ে তাকির অন্যতম বন্ধু। সে আশাবাদী এবং বন্ধুদের বিপদে যে কোন সময় ঝাঁপিয়ে পড়ে।
ইয়োৎসুহা মিইয়ামিযু (宮水 四葉, Miyamizu Yotsuha) (宮水 四葉, 'Miyamizu Yotsuha'?) কানোন তানি ক্যাথি হার্ভে
মিৎসুহার ছোট বোন, যে মিৎসুহা এবং তাদের দাদির সাথে বসবাস করে। সে তার বড় বোনকে কিছুটা পাগল বলে মনে করে কিন্তু এরূপ পরিস্থিতি সত্ত্বেও সে তাকে ভালোবাসে। সে কুমিহিমো এবং কুচিকামিযাকেতে অংশগ্রহণ করে।
তোশিকি মিইয়ামিযু (宮水 俊樹, Miyamizu Toshiki) (宮水 俊樹, 'Miyamizu Toshiki'?) মাসাকি তেরাসোমা স্কট উইলিয়ামস
মিৎসুহা এবং ইয়োৎসুহার পিতা, যিনি শহরটির মেয়র। তিনি একজন লোককাহিনীবিদ ছিলেন যিনি শরটিতে গবেষণার জন্য আসেন এবং মিৎসুহার মাতার সাথে পরিচিত হন। তিনি খুবই কঠোর এবং শ্রান্ত প্রকৃতির।
ফুতাবা মিইয়ামিযু (宮水 二葉, Miyamizu Futaba) (宮水 二葉, 'Miyamizu Futaba'?) সাইয়াকা ওহারা মাইকেল রুফ
মিৎসুহা এবং ইয়োৎসুহার মৃত মা।
ইয়ুকারি ইয়কিনো (雪野 百香里, Yukino Yukari) (雪野 百香里, ''Yukino Yukari'?) কানা হানাযাওয়া[১১] কেটি ভগান
মিৎসুহা, কাৎসুহিকো এবং সাইয়াকার জাপানি সাহিত্যের শিক্ষক। ক্লাসে তিনি তাদের “কাতাওয়ারে-দোকি” শব্দটি শেখান স্থানীয় হিদা উপভাষায় যার অর্থ গোধূলি। ইয়ুকারি দ্যা গার্ডেন অব ওয়ার্ডস আনিমে চলচ্চিত্রেও উপস্থিত ছিলেন।

নির্মাণ[সম্পাদনা]

গল্পটির অনুপ্রেরণা জন্য লেখক, শুযো ওশিমির ইনসাইড মারি, রেনমা হাফ, দ্যা হেইআন যুগের উপন্যাস তোরিকাএবাইয়া মোনোগাতারি এবং গ্রেগ ইগানের ছোট গল্প দ্যা সেফ-ডিপোজিট বক্সের সাহায্য নেন [১২]

ইতোমোরির শহরটি কাল্পনিক হওয়া সত্ত্বেও, চলচ্চিত্রটি শহরটির  জন্য বাস্তবিক স্থানগুলোর পরিপ্রেক্ষিতে অনুপ্রেরণা পায়।  এমন স্থানগুলো হল গিফু প্রশাসনিক অঞ্চলের হিদা শহর এবং এর গ্রন্থাগার হিদা সিটি লাইব্রেরি [১৩]

আবহ[সম্পাদনা]

জাপানি রক ব্যান্ড রেডউইম্পসের প্রধান কন্ঠদাতা  নোদা ইয়োজিরু, ইওর নেমের থিম সঙ্গীতের জন্য সুর প্রদান করেন। পরিচালক মাকোতো শিনকাই তাকে চলচ্চিত্রটির জন্য সুরারোপ করার অনুরোধ করেন এই ভেবে যে সঙ্গীতটি চরিত্রগুলোর সংলাপ অথবা স্বগত উক্তিকে সম্পূর্ণভাবে প্রকাশ করতে পারবে [১৪]। রেডউইম্পস ইওর নেম চলচ্চিত্রের জন্য নিম্নলিখিত গান গুলো সম্পন্ন করে:

  • Yumetōrō (夢灯籠, "Dream Lantern") (夢灯籠, "Dream Lantern"?)
  • Zenzenzense (前前前世, "Previous Previous Previous Life") (前前前世, "Previous Previous Previous Life"?)
  • Supākuru (スパークル, "Sparkle") (スパークル, "Sparkle"?)

[১৫]

  • Nandemonaiya (なんでもないや, "It's Nothing") (なんでもないや, "It's Nothing"?)

চলচ্চিত্রটির সাউন্ডট্র্যাকগুলো দর্শক শ্রোতা এবং সমালোচক উভয়ের নিকট ব্যাপক সমাদৃত হয় এবং মূলত এটিকেই বক্স অফিসে সাফল্যের জন্য দায়ী বলে স্বীকৃত করা হয়[১৪] । ২০১৬ “নিউটাইপ আনিমে অ্যাওয়ার্ড” পুরষ্কারের “সেরা সাউন্ডট্র্যাক” বিভাগে চলচ্চিত্রটির সাউন্ডট্র্যাক দ্বিতীয় স্থান লাভ করেছিল, যখন যেনযেনযেনসে গানটি “সেরা থিম সং” বিভাগে দ্বিতীয় হয়েছিল [১৬]

প্রকাশ[সম্পাদনা]

চলচ্চিত্রটি ৩রা জুলাই, ২০১৬ সালে ক্যালিফোর্নিয়ার লস অ্যাঞ্জেলেসের ২০১৬ আনিমে এক্সপো সম্মেলন সভায় পরিদর্শিত হয়েছিল, এবং পরবর্তীকালে জাপানের নাট্যশালায় মুক্তি পায় ২৬শে আগস্ট, ২০১৬তে।  চলচ্চিত্রটি ৯২টি দেশে মুক্তির জন্য তালিকাভুক্ত হয়েছিল[১৭]। ২রা ডিসেম্বর, ২০১৬ সালে এটি হুয়াক্সিয়া ফিল্ম ডিস্ট্রিবিউশন কর্তৃক চীনে মুক্তি পায় [১৮]অষ্কার-এর যোগ্যতা অর্জনের জন্য চলচ্চিত্রটি লস অ্যাঞ্জেলেসে এক সপ্তাহের(২-৮ ডিসেম্বর, ২০১৬) জন্য মুক্তি পেয়েছিল। ১৭ই জানুয়ারি, ২০১৭ সালে ফানিমেশন ঘোষণা দেয় যে, চলচ্চিত্রটি উত্তর আমেরিকার নাট্যশালায় মুক্তি পাবে ৭ই এপ্রিল, ২০১৭ সালে[১৯]। চলচ্চিত্রটি ২৪শে নভেম্বর ম্যাডম্যান এন্টারটেনমেন্ট কর্তৃক অস্ট্রেলিয়ার সিনেমা হলগুলোতে চলচ্চিত্রটির মূল জাপানি এবং ইংরেজি ডাব সংস্করণে সীমিত সময়ের জন্য মুক্তি পায়[২০]। ম্যাডম্যান এন্টারটেনমেন্ট চলচ্চিত্রটি নিউজিল্যান্ডেও প্রকাশ করে ১লা ডিসেম্বরে[২১]। ২৪ নভেম্বর যুক্তরাজ্যে চলচ্চিত্রটি মুক্তি পায় [২২]

অভ্যর্থনা[সম্পাদনা]

বক্স অফিস[সম্পাদনা]

ইওর নেম  ব্যাপক ব্যবসায়িক সাফল্য অর্জন করে বিশেষ করে জাপানে, [২৩] যেখানে এটি ¥২৩ বিলিয়ন (~US$১৯০ মিলিয়ন) অর্থ অায় করে। যেটি নিজের দেশে আয়ের তালিকায় স্পিরিটেড অ্যাওয়ের পরে দ্বিতীয় স্থান অর্জন করে, এবং সর্বকালের সর্বোচ্চ আয়কারীর তালিকায় ৪র্থ স্থান লাভ করে টাইটানিক (১৯৯৭-এর চলচ্চিত্র) এবং ফ্রোজেন চলচ্চিত্রের পরে অবস্থান করছে [২৪]। এটিই প্রথম আনিমে যেটি হাইয়াও মিইয়াযাকি কর্তৃক পরিচালিত নয় যার তৈরিকৃত আনিমে জাপানের বক্স অফিসে $১০০ মিলিয়ন (~¥১০ বিলিয়ন) -এরও বেশি আয় করে থাকে [২৫]। এটি রেকর্ড ভঙ্গকারী টানা ১২ সপ্তাহ ধরে জাপানের বক্স অফিসে শীর্ষস্থান ধরে রাখে। ডেথ নোট: লাইট আপ দ্যা নিউ ওয়ার্ড চলচ্চিত্রের দ্বারা শীর্ষস্থান হারানোর আগ পর্যন্ত এটি অক্টোবরের শেষ সপ্তাহ অবধি টানা ৯ সপ্তাহ ধরে ১ম স্থান ধরে রাখে।  এটি আবারও ৩ সপ্তাহের জন্য শীর্ষস্থান অর্জন করে কিন্তু হলিউড ব্লকবাস্টার “ফ্যানট্যাস্টিক বিস্টস অ্যান্ড হোয়্যার টু ফাইন্ড দেম” কর্তৃক সিংহাসনচূত হয় [২৫][২৬][২৭]

চলচ্চিত্রটির সাফল্য জাপান ছাড়িয়ে অন্যান্য দেশেও সম্প্রসারিত হয়। ১৭ই ডিসেম্বর, ২০১৬ সালে পৃথিবীর দ্বিতীয় বৃহত্তর চলচ্চিত্র বাজার চীনে  এটি সর্বোচ্চ আয়কারী জাপানি চলচ্চিত্রের স্থান পায়[২৮]। চীনের টুডি অ্যানিমেটেড চলচ্চিত্রে আয়কারী চলচ্চিত্রের মধ্যে এটি সর্বোচ্চ আয় করে এবং সংখ্যায় তা $৮১.৩ মিলিয়ন[২৯]। প্রথমদিনের প্রদর্শনিতে এটি ৭,০০০ এরও বেশি নাট্যশালায় পরিদর্শন করা হয়। প্রথমদিনের প্রদর্শনিতে ৬৬,০০০ বার প্রদর্শনের পর আনুমানিক প্রায়  $১০.৯ মিলিয়ন আয় করে এবং ২.৭৭ মিলিয়ন দর্শকে আকৃষ্ট করে যা দেশটিতে প্রথমদিনে প্রদর্শিত টুডি অ্যানিমেটেড চলচ্চিত্রের মধ্যে সর্বোচ্চ [৩০][৩১]

থাইল্যান্ডে ฿৪৪.১ মিলিয়ন ($১.২৩ মিলিয়ন) আয় করার মাধ্যমে এটি সর্বোচ্চ আয়কারী জাপানি চলচ্চিতত্রের খেতাব লাভ করে[৩২]। ২৬শে ডিসেম্বর পর্যন্ত চলচ্চিত্রটি অস্ট্রেলিয়াতে $৭৭১,৯৪৫ মার্কিন ডলার আয় করে [৩৩], এবং নিউজিল্যান্ডে আয়ের পরিমাণ $৯৫5,২৭৮ মার্কিন ডলার[৩৪]। ২০শে ডিসেম্বর ম্যাডম্যান এন্টারটেনমেন্টের একটি ব্লগ পোস্ট থেকে জানা যায় যে, অস্ট্রেলিয়ায় সীমিত প্রদর্শিত সময়ের মধ্যে চলচ্চিত্রটি অস্ট্রেলিয়ার বক্স অফিসে একাই $১,০০০,০০০ অস্ট্রেলিয়ান ডলারেরও বেশি আয় করে[৩৫]। চলচ্চিত্রটি দক্ষিণ কোরিয়ায় প্রচারের প্রথমদিন থেকে ৫ দিন পর্যন্ত শীর্ষস্থানে থেকে ১.১৮ মিলিয়ন দর্শক আকৃষ্ট করার মাধ্যমে $৮.২ মিলিয়ন আয় করে[৩৬], যা দেশটিতে হাউলস মুভিং ক্যাসেলের পর ১ম স্থান লাভ করে[৩৭]

সমালোচনামূলক অভ্যর্থনা[সম্পাদনা]

ইওর নেম  প্রচুর সমালোচনামূলক প্রশংসা লাভ করে। রটেন টম্যাটোস-এর ওয়েব সাইটের রিভিউয়ে ৩৭জন পর্যালোচনাকারীর মতামতের ভিত্তিতে এটি ৯৭% রেটিং পায় যাদের প্রত্যেকের গড় রেটিং ৮.৩/১০। ওয়েব সাইটটিতে সবার ঐক্যমতেভিত্তিতে বলা হয় “ এত সুন্দরভাবে অ্যানিমেশন করা হয়েছে যেন এটি আবেগগত তৃপ্তি লাভ করাতে পারে, ইওর নেম লেখক-পরিচালক মাকোতো শিনকাই-এর চলচ্চিত্রজীবনে আরেকটি অসাধারণ অধ্যায় যুক্ত করল” [৩৮]মেটাক্রিটিক-এ যেটি সাধারণ রেটিং নির্ধারণ করে, চলচ্চিত্রটি ৮জন সমালোচকদের নিকট ১০০ এর মধ্যে ৮০ স্কোর করে যা “সাধারণত সুবিধাজনক পর্যালোচনা” নির্দেশ করে [৩৯]

দ্যা জাপান টাইমের মার্ক শিলিং চলচ্চিত্রটিকে ৫ এর মধ্যে ৪ রেটিং প্রদান করেন এবং চলচ্চিত্রটির অ্যানিমেশনের প্রশংসা হিসেবে “জমকালো মিশ্রণ, বাস্তবিক বিশদ এবং আবেগগত কাল্পনিক পটভূমির” কথা উল্লেখ করেন[৪০]। যদিওবা তিনি চলচ্চিত্রটির অতিরিক্ত “হাস্যরসাত্নক কিশোর বিব্রততা এবং কদর্যতা” এবং চলচ্চিত্রটির বিস্ময়কারী এমন সমাপ্তি যা জাপানি তারুণ্য অভিনয়ে আজ পর্যন্ত দেখা যায়নি সে সম্পর্কে  সমালোচনা করেন [৪০]

জাপানের বাইরে এটির অভ্যর্থনা খুবই সন্তোষজনক ছিল [২৩][৪১]। মার্ক কার্মোড ২০১৬ সালে যুক্তরাজ্যে মুক্তিপ্রাপ্ত ছবিগুলোর মধ্যে এটি তার ৯ম প্রিয় চলচ্চিত্র বলে মনে করেন [৪২]

প্রশংসা[সম্পাদনা]

পুরষ্কার এবং মনোনয়নের তালিকা
বছর পুরষ্কার
বিভাগ প্রাপক ফলাফল
২০১৬ ৪৯তম সিটগেজ চলচ্চিত্র উৎবস[৪৩] সেরা অ্যানিমেটেড ফিচার লেন্থ ফিল্ম ইওর নেম
বিজয়ী
৬০তম বিএফআই লন্ডন চলচ্চিত্র উৎসব[৪৪] সেরা চলচ্চিত্র ইওর নেম মনোনীত
১৮তম বুচেওন আন্তর্জাতিক অ্যানিমেশন উৎসব
সেরা অ্যানিমেটেড ফিচার স্পেশাল ডিসটিঙ্কটিভ পুরষ্কার
ইওর নেম বিজয়ী
সেরা অ্যানিমেটেড ফিচার অডিয়েন্স পুরষ্কার
ইওর নেম বিজয়ী
২৯তম টোকিও আন্তর্জাতিক চলচ্চিত্র উৎসব[৪৫] আরিগাতো পুরষ্কার মাকোতো শিনকাই বিজয়ী
৬ষ্ঠ নিউটাইপ আনিমে পুরষ্কার[১৬] সেরা ছবি(চলচ্চিত্র) ইওর নেম বিজয়ী
সেরা সাউন্ডট্র্যাক ইওর নেম Runner-up
সেরা থিম সং বিভাগ ZenZenZense Runner-up
৪১তম হোচি চলচ্চিত্র পুরষ্কার সেরা ছবি ইওর নেম মনোনীত
২৯তম নিক্কন স্পোর্টস চলচ্চিত্র পুরষ্কার সেরা চলচ্চিত্র ইওর নেম মনোনীত
সেরা পরিচালক
মাকোতো শিনকাই বিজয়ী
২০১৬ লস অ্যাঞ্জেলেস চলচ্চিত্র সমালোচনা সমিতি পুরষ্কার[৪৬] সেরা অ্যানিমেটেড চলচ্চিত্র ইওর নেম বিজয়ী
মহিলা চলচ্চিত্র সমালোচনা চক্র ২০১৬[৪৭] সেরা অ্যানিমেটেড মহিলা
ইওর নেম মনোনীত
২০১৭ ৪৪তম অ্যানি পুরষ্কার[৪৮] সেরা অ্যানিমেটেড ফিচার - স্বাধীন ইওর নেম প্রক্রিয়াধীন
অ্যানিমেটেড ধর্মী চলচ্চিত্র পরিচালনার অসামান্য কৃতিত্ব মাকোতো শিনকাই প্রক্রিয়াধীন
২১তম স্যাটেটাইট পুরষ্কার[৪৯] সেরা অ্যানিমেটেড অথবা মিশ্র মিডিয়া ধর্মী
ইওর নেম মনোনীত
৭১তম মাইনিচি চলচ্চিত্র পুরষ্কার সেরা অ্যানিমেটেড চলচ্চিত্র ইওর নেম বিজয়ী
৫৯তম ব্লু রিবন পুরষ্কার সেরা চলচ্চিত্র ইওর নেম মনোনীত
সেরা পরিচালনা
মাকোতো শিনকাই মনোনীত
বিশেষ পুরষ্কার
ইওর নেম বিজয়ী
১১তম এশিয়ান চলচ্চিত্র পুরষ্কার  সেরা চিত্রনাট্যকার মাকোতো শিনকাই প্রক্রিয়াধীন
৪০তম জাপান অ্যাক্যাডেমি পুরষ্কার  বছরের চমৎকার অ্যানিমেশন
ইওর নেম বিজয়ী
এ বছরের অ্যানিমেশন
ইওর নেম প্রক্রিয়াধীন
এ বছরের পরিচালক
মাকোতো শিনকাই প্রক্রিয়াধীন
এ বছরের চিত্রনাট্যকার মাকোতো শিনকাই প্রক্রিয়াধীন
সঙ্গীতে চমৎকার কৃতিত্ব রেডউইম্পস প্রক্রিয়াধীন

Gallery[সম্পাদনা]

আরও দেখুন[সম্পাদনা]

  • ইওর নেম (অ্যালবাম), রেডউইম্পস কর্তৃক চলচ্চিত্রটির জন্য সাউন্ডট্র্যাক অ্যালবাম
  • কোকোরো কানেক্ট, একটি আনিমে সিরিজ একই ধরনের ভাবার্থ নিয়ে
  • List of highest-grossing animated films
  • List of highest-grossing anime films
  • List of highest-grossing films in Japan
  • তোরিকাএবাইয়া মোনোগাতারি
  • মিকো

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. "Kimi no na wa (2016)"The Numbers। সংগ্রহের তারিখ জানুয়ারি ১৫, ২০১৭ 
  2. "Makoto Shinkai Publishes Kimi no Na wa./your name. Novel Before Film Opens"Anime News Network। মে ১১, ২০১৬। সংগ্রহের তারিখ সেপ্টেম্বর ২৪, ২০১৬ 
  3. "君の名は。(2016)"allcinema (Japanese ভাষায়)। Stingray। সংগ্রহের তারিখ আগস্ট ৩০, ২০১৬ 
  4. "Makoto Shinkai Reveals Kimi no Na wa./your name. Anime Film for August 2016"Anime News Network। ডিসেম্বর ১০, ২০১৫। সংগ্রহের তারিখ ফেব্রুয়ারি ৯, ২০১৬ 
  5. "Makoto Shinkai's Kimi no Na wa./your name. Film Trailer Reveals August 26 Opening, Song"Anime News Network। এপ্রিল ৬, ২০১৬। সংগ্রহের তারিখ এপ্রিল ৬, ২০১৬ 
  6. "Anime Expo to Host Makoto Shinkai & His Latest Film's World Premiere"Anime News Network। জুন ১৭, ২০১৬। সংগ্রহের তারিখ জুন ১৭, ২০১৬ 
  7. "Anime Expo: Funimation Licenses Makoto Shinkai's your name. Film"Anime News Network। জুলাই ৩, ২০১৬। সংগ্রহের তারিখ জুলাই ৩, ২০১৬ 
  8. "女子高生・三葉が暮らす家 美術監督 丹治匠"at-Home Co. (Japanese ভাষায়)। আগস্ট ১৯, ২০১৬। নভেম্বর ৮, ২০১৬ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ নভেম্বর ৮, ২০১৬ 
  9. 斉藤和音 (অক্টোবর ২১, ২০১৬)। "「君の名は。」企画書やコンテ紹介 監督の故郷・小海町高原美術館"Chunichi Web। The Chunichi Shimbun। নভেম্বর ৯, ২০১৬ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ নভেম্বর ৯, ২০১৬ 
  10. "Kataware-doki," the word Taki and Mitsuha use, is turned from "kawatare-doki," an old Japanese word meaning twilight.
  11. "映画『君の名は。』新海誠監督インタビュー!"animatetimes। আগস্ট ৩০, ২০১৬। সংগ্রহের তারিখ সেপ্টেম্বর ২, ২০১৬ 
  12. 〈COLUMN1 入れ替わりから見えてくる面白さ〉『君の名は。 公式ビジュアルガイド』 (জাপানি ভাষায়)। Japan: 角川書店। আগস্ট ২৭, ২০১৬। পৃষ্ঠা 48। আইএসবিএন 978-4-04-104780-4 
  13. "City that inspired settings in hit anime 'yourname.' sees unbelievable boost in tourism"Japan Today। নভেম্বর ২৮, ২০১৬। সংগ্রহের তারিখ নভেম্বর ২৮, ২০১৬ 
  14. Masangkay, May (নভেম্বর ৪, ২০১৬)। "Radwimps play a part in the popularity of anime film 'your name.'"KyodoThe Japan Times। নভেম্বর ৮, ২০১৬ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ নভেম্বর ৮, ২০১৬ 
  15. Stimson, Eric (অক্টোবর ৩০, ২০১৬)। "RADWIMPS Release your name's "Sparkle (original ver.)""animenewsnetwork। সংগ্রহের তারিখ নভেম্বর ৮, ২০১৬ 
  16. "Shinkai's 'your name.,' Kabaneri Win Top Newtype Anime Awards"Anime News Network। অক্টোবর ৯, ২০১৬। নভেম্বর ৮, ২০১৬ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ নভেম্বর ৮, ২০১৬ 
  17. Mark Schilling (নভেম্বর ৭, ২০১৬)। "Japanese Hit 'Your Name' Wins China Release"Variety। সংগ্রহের তারিখ নভেম্বর ২৮, ২০১৬ 
  18. "你的名字。(2016)"cbooo.cn (Chinese ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ডিসেম্বর ২০, ২০১৬ 
  19. "Makoto Shinkai Masterpiece 'Your Name.' to Open in North American Theaters April 7, 2017"। Funimation। জানুয়ারি ১৭, ২০১৭। সংগ্রহের তারিখ জানুয়ারি ১৭, ২০১৭ 
  20. "Official Australian site."। Madman Entertainment। সংগ্রহের তারিখ ডিসেম্বর ২০, ২০১৬ 
  21. "Makoto Shinkai's Your Name is Coming to Cinemas This November"। Madman Entertainment। অক্টোবর ২৮, ২০১৬। সংগ্রহের তারিখ ডিসেম্বর ২০, ২০১৬ 
  22. "Your Name UK Cinema Release Details"। Anime News Network। সেপ্টেম্বর ৯, ২০১৬। সংগ্রহের তারিখ ডিসেম্বর ২৯, ২০১৬ 
  23. Motoko Rich (ডিসেম্বর ৪, ২০১৬)। "The Anime Master of Missed Connections Makes Strong Contact in Japan"The New York Times। সংগ্রহের তারিখ ডিসেম্বর ৫, ২০১৬ 
  24. 歴代興収ベスト100 [Successive box-office top 100] (Japanese ভাষায়)। Kogyo Tsushinsha। সংগ্রহের তারিখ ১৬ জানুয়ারি ২০১৭ 
  25. Gavin J. Blair (নভেম্বর ২৮, ২০১৬)। "'Your Name' Passes 'Princess Mononoke' to Become Third-Highest Grossing Japanese Film of All Time"The Hollywood Reporter। সংগ্রহের তারিখ নভেম্বর ২৮, ২০১৬ 
  26. Mark Schilling (অক্টোবর ২৫, ২০১৬)। "Japan Box Office: 'Your Name' Wins Ninth Weekend"Variety। সংগ্রহের তারিখ নভেম্বর ২৮, ২০১৬ 
  27. Mark Schilling (অক্টোবর ৩১, ২০১৬)। "Japan Box Office: Warner's 'Death Note' Ends 'Your Name' Dominance"Variety। সংগ্রহের তারিখ নভেম্বর ২৮, ২০১৬ 
  28. "Shinkai's 'your name.' Becomes #1 Japanese Film in China of All Time"Anime News Network। ডিসেম্বর ১৭, ২০১৬। সংগ্রহের তারিখ ডিসেম্বর ৩১, ২০১৬ 
  29. Frater, Patrick (ডিসেম্বর ২৫, ২০১৬)। "China Box Office: 'Tomorrow' and 'Tigers' Climb Over 'Great Wall'"Variety। সংগ্রহের তারিখ ডিসেম্বর ২৬, ২০১৬ 
  30. Kyodo (ডিসেম্বর ৩, ২০১৬)। "Animated teen flick 'your name.' scores lucrative debut in China"The Japan Times। সংগ্রহের তারিখ ডিসেম্বর ৩, ২০১৬ 
  31. Patrick Frater (ডিসেম্বর ২, ২০১৬)। "Japan's 'Your Name' Poised to Win China Box Office Weekend"Variety। সংগ্রহের তারিখ ডিসেম্বর ৩, ২০১৬ 
  32. "Shinkai's 'your name.' Becomes #1 Japanese Film in Thailand of All Time"Anime News Network। ডিসেম্বর ১৯, ২০১৬। সংগ্রহের তারিখ ডিসেম্বর ২০, ২০১৬ 
  33. "Australian Box Office"। Box Office Mojo। ডিসেম্বর ২৫, ২০১৬ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ডিসেম্বর ২০, ২০১৬ 
  34. "New Zealand Box Office"। Box Office Mojo। ডিসেম্বর ২৫, ২০১৬ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ডিসেম্বর ২০, ২০১৬ 
  35. "Last chance to see Makoto Shinkai's Your Name in cinemas!"। Madman Entertainment। ডিসেম্বর ২০, ২০১৬। সংগ্রহের তারিখ ডিসেম্বর ২১, ২০১৬ 
  36. Kil, Sonia (জানুয়ারি ৮, ২০১৭)। "Korea Box Office: Japanese Animation 'Your Name' Opens on Top"Variety। সংগ্রহের তারিখ জানুয়ারি ৯, ২০১৭ 
  37. "Shinkai's 'your name.' Tops S. Korean Box Office With US$8.1 Million"Anime News Network। জানুয়ারি ৮, ২০১৭। সংগ্রহের তারিখ জানুয়ারি ৯, ২০১৭ 
  38. "Your Name (Kimi No Na Wa.)"Rotten Tomatoes। সংগ্রহের তারিখ নভেম্বর ৮, ২০১৬ 
  39. "Your Name"Metacritic। সংগ্রহের তারিখ নভেম্বর ৮, ২০১৬ 
  40. Schilling, Mark (আগস্ট ৩১, ২০১৬)। "'Your name.': Makoto Shinkai could be the next big name in anime"The Japan Times। নভেম্বর ৮, ২০১৬ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ নভেম্বর ৮, ২০১৬ 
  41. http://www.bbc.com/news/world-asia-38246184
  42. "Kermode Uncut - My Top Ten Films of 2015: Part One"BBC। ডিসেম্বর ২০, ২০১৬। সংগ্রহের তারিখ ডিসেম্বর ২২, ২০১৬ 
  43. "Sitges Film Festival - The unclassifiable 'Swiss Army Man' wins Sitges 2016"Sitges Film Festival। অক্টোবর ১৫, ২০১৬। সংগ্রহের তারিখ অক্টোবর ১৬, ২০১৬ 
  44. "Official Competition - BFI London Film Festival 2016"British Film Institute। সংগ্রহের তারিখ অক্টোবর ১৬, ২০১৬ 
  45. "'Yesterday' Takes Top Prize at Tokyo Film Festival"Variety। নভেম্বর ৩, ২০১৬। সংগ্রহের তারিখ নভেম্বর ৮, ২০১৬ 
  46. "42nd Annual Los Angeles Film Critics Association Awards 2016 Winners"Los Angeles Film Critics Association। ডিসেম্বর ৪, ২০১৬। ডিসেম্বর ২১, ২০১৬ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ডিসেম্বর ৫, ২০১৬ 
  47. "Women Film Critics Circle Nominations: "Hidden Figures," "13th," & More"Women And Hollywood। ডিসেম্বর ১৯, ২০১৬। সংগ্রহের তারিখ ডিসেম্বর ১৫, ২০১৬ 
  48. "Miss Hokusai, Red Turtle, your name Nominated for Annie Awards"Anime News Network। নভেম্বর ২৮, ২০১৬। সংগ্রহের তারিখ নভেম্বর ২৯, ২০১৬ 
  49. Kilday, Gregg (নভেম্বর ২৯, ২০১৬)। "Satellite Awards Nominees Revealed"The Hollywood Reporter। সংগ্রহের তারিখ নভেম্বর ২৯, ২০১৬ 

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]