আস্ক.এফএম

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
আস্ক.এফএম
Ask.fm Logo.png
সংস্থাপিত ১৬ই জুন, ২০১০
সদর দপ্তর রিগা, লাতভিয়া
অঞ্চলিক পরিসেবা বিশ্বব্যাপী
প্রধান ব্যক্তি Ilja Terebin (CEO)
শিল্প ইন্টারনেট
স্লোগ্যান জিজ্ঞাসা এবং উত্তর
ওয়েবসাইট www.ask.fm
আলেক্সা স্থান হ্রাস ১৪৩ (জুন ২০১৩)[১]
সাইটের ধরন সামাজিক প্রশ্নোত্তর ওয়েবসাইট
বিজ্ঞাপন Yes
নিবন্ধীকরণ ঐচ্ছিক, প্রতিক্রিয়া পোস্ট করার প্রয়োজন
ব্যবহারকারীরা ৬৫ মিলিয়ন (৪ঠা জুলাই, ২০১৩)[২][৩][৪]
উপলব্ধ ভাষাসমূহ ইন্দোনেশীয়, বসনীয়, চেক, জার্মান, ওলন্দাজ, এস্তোনীয়, ইংরেজি, স্পেনীয়, ফিলিপিনো, ফরাসি, ক্রোয়েশীয়, ইতালীয়, লাটভিয়ান, লিথুয়ানিয়া্ন, হাঙ্গেরীয়, নরওয়েজীয়, পোলীয়, পর্তুগিজ, পর্তুগিজ (ব্রাজিল), রুমানীয়, স্লোভাক, স্লোভেনীয়, সুয়েডীয়, তুর্কি, গ্রিক, বুলগেরীয়, ম্যাসেডোনিয়ান, মঙ্গোলীয়, রুশ, সার্বীয়, ইউক্রেনীয়, আরবি, জর্জীয়, চীনা, জাপানি (জুন ২০১৩)[৫]
চালু হয়েছে ১৬ই জুন, ২০১০
বর্তমান অবস্থা সক্রিয়

আস্ক.এফএম (ইংরেজি: Ask.fm) হল ইন্টারনেট ভিত্তিক একটি প্রশ্ন ও উত্তরের ওয়েবসাইট। ওয়েবসাইটটি ২০১০ সালের জুনে চালু হয়।ব্যবহারকারীরা সাইটের সদ্যস্যদের প্রশ্ন করতে পারেন এবং এর উত্তর প্রবেশ (লগ-ইন) না করেও পাওয়া যায়।[৩]

ইতিহাস[সম্পাদনা]

২০১০ সালে লাটভিয়াতে সাইটটি চালু হলেও পরবর্তীতে এটি বিশ্বব্যাপী পরিচিত হয়ে উঠে।[১][৩][৬] সম্প্রতি ওয়েবসাইটির বিরুদ্ধে সাইবার নির্যাতনের অভিযোগে কয়েকটি সংবাদ মাধ্যমে নিবন্ধ প্রকাশিত হয়।[৭] এধরনের সাইবার নির্যাতনের শিকার হয়ে অনেক শিশু আত্মহত্যা করায় সাইটি আদালত কর্তৃক বিতর্কের শিকার হয়। অভিযোগে বলা হয় ওয়েবসাইটটিতে আপত্তিকর মন্তব্যকারীদের কোন প্রকার ট্র্যাকিং-এর ব্যবস্থা নেই ও বাবা মায়েরা শিশুদের কাছ থেকে এটি নিয়ন্ত্রন করতে পারছে না। অন্যান্য সামাজিক যোগাযোগের ওয়েবসাইট মূলত এধরনের ব্যবস্থা থাকে। যাইহোক পরবর্তীতে ওয়েবসাইটটি এই মর্মে ঘোষণা দেয় যে, তারা অভিযোগ গ্রহনের জন্য আলাদা ফিচার চালু করবে ও শীঘ্রই তাদের ওয়েবসাইটটি পর্যবেক্ষনের জন্য কিছু সঞ্চালক নিয়োগ করবে।[৮][৮]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. ১.০ ১.১ "Ask.fm সাইট তথ্য"। এলেক্সা ইন্টারনেট। সংগৃহীত ২০১৩-০৮-২০ 
  2. Steve O'Hear (২০১৩-০৭-০৪)। "Personal Q&A Site Ask.fm Is Growing At A Clip Amid Media Backlash Over Safety Of Its Young Users"। সংগৃহীত ২০১৩-০৭-১৫ 
  3. ৩.০ ৩.১ ৩.২ Kenins, Laura (১৪ নভেম্বর ২০১২)। "Latvian Web site at center of cyber-bullying inquiry"The Baltic Times (Riga)। Baltic News Ltd.। 
  4. Jennifer Van Grove (২০১৩-০৬-০৮)। "Ask.fm, the troubling secret playground of tweens and teens"CNET। সংগৃহীত ২০১৩-০৬-১৩ 
  5. "Ask.fm Languages"। সংগৃহীত ২০১৩-০৭-১২ 
  6. "Formspring.me Site Info on Alexa"। Alexa Internet। সংগৃহীত ২০১২-০৮-০২ 
  7. Pupils and parents warned social networking website linked to teen abuse Mail Online UK
  8. ৮.০ ৮.১ "Ask.fm Responds To Cyberbullying"। ArcticStartup। 

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]