আশরাফুল হক (ক্রিকেটার)

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
আশরাফুল হক
ব্যক্তিগত তথ্য
পূর্ণ নামসৈয়দ আশরাফুল হক
ডাকনামহিরা
ব্যাটিংয়ের ধরনডান-হাতি
আন্তর্জাতিক তথ্য
জাতীয় পার্শ্ব
ঘরোয়া দলের তথ্য
বছরদল
১৯৭০/৭১ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়
১৯৬৯/৭০পূর্ব পাকিস্তান
১৯৬৭/৬৮পূর্ব পাকিস্তান হোয়াইটস
খেলোয়াড়ী জীবনের পরিসংখ্যান
প্রতিযোগিতা প্রথম শ্রেণি আইসিসি ট্রফি
ম্যাচ সংখ্যা
রানের সংখ্যা ১৯৬ ৭৬
ব্যাটিং গড় ৪৯.০০ ১৯.০০
১০০/৫০ –/১ –/–
সর্বোচ্চ রান ৯১ ৩১
বল করেছে ৩৬০ ২১৮
উইকেট ১০
বোলিং গড় ১৭.০০ ১০.৭০
ইনিংসে ৫ উইকেট
ম্যাচে ১০ উইকেট
সেরা বোলিং ৩/২৩ ৭/২৩
ক্যাচ/স্ট্যাম্পিং ৪/– –/–
উৎস: CricketArchive, ১৭ জানুয়ারি ২০১১

সৈয়দ আশরাফুল হক একজন প্রাক্তন বাংলাদেশী ক্রিকেটার। তিনি ১৯৯৯ সালের মে মাসে ফিজির বিপক্ষে বাংলাদেশের প্রথম আইসিসি ট্রফি জয়ের স্থপতি ছিলেন। ৯.২ ওভারের মধ্যে তার ৭/২৩ ফিজি মিডল অর্ডারকে পুরোপুরি ধ্বংস করে দিয়ে বাংলাদেশকে ২২ রানের জয়ের দিকে নিয়ে যায়। ১৯৭৭ সালের জানুয়ারিতে এমসিসির বিপক্ষে ঢাকার ঐতিহাসিক ম্যাচ খেলা বাংলাদেশ দলেরও সদস্য ছিলেন তিনি। ডানহাতি ব্যাটসম্যান এবং অফ ব্রেক ব্রেক বোলার আশরাফুল ১৯৮১-৮২ মৌসুমে অবসর গ্রহণের আগ পর্যন্ত জাতীয় দলের অবিচ্ছেদ্য অঙ্গ হিসাবে খেলেছেন।

আইসিসি ট্রফি[সম্পাদনা]

বার্মিংহামের ওয়াটার অর্টন ক্রিকেট ক্লাবের মাঠে বিদেশে বাংলাদেশের প্রথম আন্তর্জাতিক ক্রিকেট ম্যাচ ছিল। ২৪ মে, ১৯৭৯ সালে প্রথম আইসিসি ট্রফি টুর্নামেন্টে ফিজির বিপক্ষে খেলে বাংলাদেশ। বাংলাদেশই এই ম্যাচের ফেভারিট ছিল, তবুও প্রথমে ব্যাট করে তারা মাত্র ১০৩ রান করে অলআউট হয়। সৈয়দ আশরাফুল বোলিং করতে আসা অবধি স্কোরবোর্ডের দিকে তাকিয়ে অন্যরা হতাশ ছিল। তার স্পিনের যাদু প্রশান্ত মহাসাগরীয় দ্বীপপুঞ্জীদের পুরোপুরি ধ্বংস করেছিল। ৪০/২ থেকে, ফিজি ৮১ রানে অলআউট হয়ে যায়। ওবায়দুল হক আজম এমসিসির বিপক্ষে ৭/১৮ নিয়ে এই পরিসংখ্যানের অতিক্রম না করা অবধি আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে একজন বাংলাদেশী বোলারের পক্ষে সেরা অর্জন ছিল এটি। এটি আইসিসি ট্রফির সেরা বোলিংয়ের রেকর্ডও ছিল। ডেনিশ এবং ডার্বিশায়ারের ফাস্ট বোলার ওলে মর্টেনসেন ১৯৯৪ সালের কেনিয়ায় ইস্রায়েলের বিপক্ষে ৭/১৯ নিয়ে এই পরিসংখ্যানকে অতিক্রম করেছিলেন।[১]

আইসিসি ট্রফিতে আশরাফুলের ব্যাট এবং বল দুটোই দুর্দান্ত ছিল। তিনি ইংরেজদের বিপক্ষের পরিস্থিতিকে তার দীর্ঘ অভিজ্ঞতায় ভালোভাবেই ব্যবহার করেছেন। বোলিংয়ের সাফল্যের পাশাপাশি তিনি বেশ কয়েকটি দরকারী ইনিংস খেলেছিলেন: কানাডার বিপক্ষে ২৩, মালয়েশিয়ার বিপক্ষে ২২ এবং ডেনমার্কের বিপক্ষে ৩১।[২]

অন্যান্য আন্তর্জাতিক ম্যাচ[সম্পাদনা]

১৯৭৭ সালের জানুয়ারিতে ঢাকায় এমসিসির বিপক্ষে ম্যাচে অংশ নেওয়া বাংলাদেশ দলে তিনি ছিলেন। তিনি ম্যাচে ব্যর্থ হন, তবে তিনি চট্টগ্রামে ইস্ট জোনের হয়ে ৬৮ রান করেছিলেন। প্রকৃতপক্ষে, তার মনে হয়েছিল চট্টগ্রামে ভাগ্য তার পক্ষে কাজ করে। এক বছর পরে, টেস্ট স্ট্যান্ডার্ডে শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে তিনি ৪২ ও ৪৯ রান করেছিলেন এবং চট্টগ্রামে ৭০ রানে ২ উইকেট শিকার করেছিলেন।

১৯৮১-৮২ মৌসুমের পরে তিনি আন্তর্জাতিক ক্রিকেট থেকে অবসর গ্রহণ করেছিলেন।

ঘরোয়া ক্রিকেটে[সম্পাদনা]

তিনি তার ক্লাব ক্রিকেটের সবচেয়ে বেশি খেলেছেন ঢাকা আজাদ বয়েজ ক্লাবে। জাতীয় ক্রিকেটে, তিনি ১৯৮১- ৮২ মৌসুমে বাংলাদেশ শিপিং কর্পোরেশনের হয়ে ২১৪ রান করে ডাবল শতরান অর্জনকারী প্রথম খেলোয়াড় হয়েছিলেন।

ক্রিকেট প্রশাসক হিসেবে[সম্পাদনা]

সৈয়দ আশরাফুল হক বর্তমানে এশিয়ান ক্রিকেট কাউন্সিলের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা।

আরো দেখুন[সম্পাদনা]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. "Archived copy"। ২০১২-০২-২২ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২০০৭-০৮-৩০ : Rafiqul Ameer."Looking Back: Bangladesh Cricket in the 80's". (Retrieved on 2008-08-07).
  2. "Archived copy"। ২০০৮-০৬-১১ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২০০৮-০৮-০৭  banglacricket scorecards ICC79 (Retrieved on 2008-08-07)