আলেকসান্দ্র দুগিন

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন

আলেকসান্দ্র গেলিয়েভিচ দুগিন (রুশ: Алекса́ндр Ге́льевич Ду́гин; ৭ জানুয়ারি ১৯৬২) রাশিয়ার সবচেয়ে প্রভাবশালী দার্শনিক, রাজনৈতিক বিশ্লেষক ও কৌশলী।[১] তিনি তার তথাকথিত ‘উগ্রবাদি’ চিন্তাধারার জন্য পশ্চিমা মিডিয়ায় অধিক পরিচিত। সিরিয়ান গৃহযুদ্ধে রাশিয়ার সরাসরি প্রবেশ, রাশিয়া-ইউক্রেনের মধ্যে ২০১৪ সালে সংগঠিত দোনবাস যুদ্ধ, মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের ২০১৬ সালের রাষ্ট্রপতি নির্বাচনে রাশিয়ার প্রভাব, পশ্চিমা বিশ্বজুড়ে নব্য ডানপন্থী ও অন্যান্য মূল ধারার রাজনৈতিক আদর্শ বিরোধী লোকরঞ্জনবাদি মতাদর্শের প্রসার ঘটানো সহ বর্তমান বিশ্বরাজনীতির বহু আলোচিত ঘটনায় যার প্রত্যক্ষ ও পরোক্ষ মদদ রয়েছে। ক্রেমলিন ও রাশিয়ান মিলিটারির সাথে তার নিবিড় সম্পর্ক। সেজন্য তাকে পুতিনের ডানহাত ও পুতিনের রাসপুতিন বলা হয়ে থাকে। এভাবে পুতিন-দুগিন রাজনৈতিক জুটি কে সর্বশেষ রাশিয়ান সম্রাট জার ২য় নিকোলাস রোমানভ ও রাসপুতিনের রাজা-উপদেষ্টা জুটির সাথে তুলনা করা হয়ে থাকে।

তিনি বিশ্বায়নের ঘোরবিরোধী এবং বহুপাক্ষিকতাকে বৈশ্বিক স্থিতিশীলতার মূলমন্ত্র হিসাবে মনে করেন। তার প্রবর্তিত ধারণাসমূহের মধ্যে অন্যতম হল নব্য-ইউরেশীয়বাদ, চতুর্থ রাজনৈতিক তত্ত্ব, ভূমি সভ্যতা ও সমুদ্র সভ্যতা পার্থক্য। তার চিন্তাভাবনায় বিংশ শতাব্দীর জার্মান দার্শনিক ফ্রিডরিখ নিৎশে, কার্ল শ্মিট, মার্টিন হাইডেগার, ইতালীয় ফ্যাসিবাদী দার্শনিক জুলিয়াস ইভোলা, ফ্রেঞ্চ ধর্মতত্ত্ববিদ ও সুফি মুসলিম দার্শনিক রেনে গুয়েনন, সোভিয়েত নেতা জোসেফ স্ট্যালিন ও হালের ফ্রেঞ্চ দার্শনিক অ্যালেন ডি বেনোয়াদের গভীর প্রভাব লক্ষ্য করা যায়। রাজনৈতিক জীবনে তিনি জাতীয় বলশেভিক দল (যার মূল আদর্শ নাৎসিবাদ ও কমিউনিজম উভয়ের মৌলবাদী দিকগুলোর সংমিশ্রণ) ও ইউরেশিয়া দল প্রতিষ্ঠা করেন। এখন পর্যন্ত তার ৩০টির অধিক বই প্রকাশিত হয়েছে। যার মধ্যে Fourth Political Theory ও Foundations of Geopolitics অন্যতম যা বর্তমানে রাশিয়ান মিলিটারীর প্রধান আদর্শগত পাঠ্যবই।

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. Shekhovtsov, Anton (2009). "Aleksandr Dugin's Neo-Eurasianism: The New Right à la Russe". Religion Compass: Political Religions. 3 (4): 697–716. doi:10.1111/j.1749-8171.2009.00158.x.