আর্ন্সট থ্যালমান দ্বীপ

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
আর্ন্সট থ্যালমান দ্বীপ
আর্ন্সট থ্যালমান দ্বীপ কিউবা-এ অবস্থিত
আর্ন্সট থ্যালমান দ্বীপ
আর্ন্সট থ্যালমান দ্বীপ
ভূগোল
অবস্থানকাজোনেস উপসাগর
স্থানাঙ্ক২২°০২′০০″ উত্তর ৮১°২৪′০০″ পশ্চিম / ২২.০৩৩৩৩° উত্তর ৮১.৪° পশ্চিম / 22.03333; -81.4 (আর্ন্সট থ্যালমান দ্বীপ)
আয়তন৭.০ বর্গকিলোমিটার (২.৭ বর্গমাইল)
প্রশাসন
প্রদেশমাতাঞ্জাস প্রদেশ
জনপরিসংখ্যান
জনসংখ্যাবসতিবিহীন

আর্ন্সট থ্যালমান দ্বীপ ( স্পেনীয়: Cayo Ernesto Thaelmann বা Cayo Blanco del Sur ; জার্মান: Ernst-Thälmann-Insel অথবা Südlicher weißer-Insel) একটি ১৫ কিমি (৯.৩ মা) দীর্ঘ এবং ৫০০ মি (১,৬০০ ফু) প্রশস্ত, কাজোনেস উপসাগরে অবস্থিত কিউবান দ্বীপ যার নামকরণ জার্মান কমিউনিস্ট রাজনীতিবিদ আর্নস্ট থ্যালম্যানের নামে হয়েছে। ১৯৭০-এর দশকে জার্মান গণতান্ত্রিক প্রজাতন্ত্রে (পূর্ব জার্মানি) রাষ্ট্রীয় সফরের সময় ফিদেল কাস্ত্রো প্রতিশ্রুতি দিয়েছিলেন যে কিউবা পূর্ব জার্মান সরকারকে একটি দ্বীপ দান করবে[১] এবং এরিখ হোনেকার এর একটি রাষ্ট্রীয় সফরের সময় এক অনুষ্ঠানে কায়ো ব্লাঙ্কো দেল সুরের নাম পরিবর্তন করা হয়। জার্মানির পুনঃএকত্রীকরণের পর, একটি জার্মান সংবাদপত্র দ্বীপটিতে যাওয়ার চেষ্টা করলে তাদের বলা হয় যে এই হস্তান্তরের ঘটনাটি কেবল "প্রতীকী" ছিল। [২]

ইতিহাস[সম্পাদনা]

১৯৭০ এর দশক[সম্পাদনা]

পূর্ব বার্লিন, ১৯ জুন ১৯৭২: ফিদেল কাস্ত্রো (বাম) ঘোষণাপত্রে স্বাক্ষর করার পর, এরিখ হোনেকারকে (মাঝে) একটি কিউবার মানচিত্র হস্তান্তর করেন। মানচিত্রটি একটি দ্বীপ দেখায় যেটির নাম "আর্ন্সট থ্যালমান" এবং যার দক্ষিণাঞ্চলের নাম " জিডিআর সৈকত" ( Playa RDA )।

১৯৭২ সাল পর্যন্ত দ্বীপটি কায়ো ব্লাঙ্কো দেল সুর নামে পরিচিত ছিল। ১৯৭২ সালের জুন মাসে এরিখ হোনেকারের একটি রাষ্ট্রীয় সফরের উপলক্ষ্যে, ফিদেল কাস্ত্রো জার্মান কমিউনিস্ট রাজনীতিবিদ এবং কর্মী আর্নস্ট থ্যালমানের সম্মানে দ্বীপটির নতুন নামকরণ করেন। ২০ জুন ১৯৭২ তারিখে নিউজ ডয়েচল্যান্ডের একটি সংবাদপত্র নিবন্ধ অনুসারে,[৩] কিউবার নেতা দ্বীপটির নাম পরিবর্তন করার ঘোষণা দেন এবং এর একটি সৈকতকে প্লেয়া "রিপাবলিকা ডেমোক্র্যাটিকা আলেমানা" (ইংরেজি: "German Democratic Republic Beach", জার্মান: "DDR-Strand" ) নামে নামকরণ করেন। পূর্ব জার্মানির রাষ্ট্রীয় টেলিভিশন নিউজকাস্ট, আকতুয়েল কামেরা, ১৮ আগস্ট ১৯৭২ তারিখে জিডিআর রাষ্ট্রদূত, কিছু পূর্ব জার্মান প্রতিনিধি এবং প্রায় ১০০ জন কিউবান প্রতিনিধির উপস্থিতিতে আর্নস্ট থালম্যানের আবক্ষ মূর্তি উন্মোচন অনুষ্ঠানের প্রতিবেদন করে।[তথ্যসূত্র প্রয়োজন]

১৯৭৫ সালের মার্চ মাসে, পূর্ব জার্মান সরকার গায়ক ফ্রাঙ্ক শোবেলকে কিছু মিউজিক ভিডিও তৈরি করার জন্য কিউবায় পাঠায় এবং সেসময় দ্বীপের কিছু দৃশ্য শুট করা হয়েছিল, যা পরে জিডিআর-কিউবা বন্ধুত্বের প্রতীক হিসেবে একটি তথ্যচিত্রে দেখানো হয়।[৪]

সাম্প্রতিক ইতিহাস[সম্পাদনা]

১৯৯৮ সালে, দ্বীপটি হারিকেন মিচ দ্বারা মারাত্মকভাবে আক্রান্ত হয়, যা আর্নস্ট থ্যালম্যানের আবক্ষ মূর্তিকে আঘাত করে।[৫][৬]

জার্মানির কিউবান দূতাবাস এবং জার্মান পররাষ্ট্র দফতর উভয়ের মতে, নামকরণটি একটি "প্রতীকী কাজ" ছিল, দ্বীপটি কখনই কিউবা থেকে স্থানান্তরিত হয়নি এবং পুনঃএকত্রীকরণের সময় বা পরে কোনো জার্মান রাষ্ট্রই দ্বীপটির মালিক ছিল না। [৭]

তা সত্ত্বেও, গণপ্রজাতন্ত্রী মোলোসিয়া, পশ্চিম মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের একটি মাইক্রোনেশন প্রকল্প, জার্মান গণতান্ত্রিক প্রজাতন্ত্র বিলুপ্ত হওয়ার এক দশকেরও বেশি সময় ধরে, ২০০০-এর দশকের শেষের দিক থেকে পূর্ব জার্মানির বিরুদ্ধে চলমান "যুদ্ধ" ব্যাখ্যা করতে দ্বীপটিকে ব্যবহার করেছে। মোলোসিয়ার প্রেসিডেন্ট কেভিন বহ্ দাবি করেছেন যে যুদ্ধটি প্রথম ঘোষণা করা হয়েছিল ১৯৮৩ সালে (যখন মোলোসিয়া "ভুলস্টাইন" নামে পরিচিত ছিল) এবং জার্মানির সাথে চূড়ান্ত নিষ্পত্তির চুক্তিতে দ্বীপের উল্লেখ না থাকার বিষয়টিকে দ্বীপটিতে জিডিআর এর অস্তিত্বের "প্রমাণ" হিসাবে উল্লেখ করেছেন। এই অনুমিত দ্বন্দ্বটি মোলোসিয়ার সংস্কৃতিতে একটি বড় ভূমিকা পালন করেছে, যদিও মাইক্রোনেশনটি কখনোই আর্নস্ট থালম্যান দ্বীপের বিরুদ্ধে সামরিক বা অন্যথায় পদক্ষেপ নেওয়ার কোনো বাস্তব অভিপ্রায় প্রদর্শন করেনি।[৮][৯]

আরো দেখুন[সম্পাদনা]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. "Die Insel, die Ernst Thälmann's Namen trägt" (PDF)Neues Deutschland (জার্মান ভাষায়)। ২০ জুন ১৯৭২। ১৪ অক্টোবর ২০১২ তারিখে মূল (PDF) থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ৩১ জানুয়ারি ২০১৪ 
  2. "Castro's Caribbean island gift to East Germany | DW | 27.11.2016"DW.COM (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ২০১৯-০৯-১৬ 
  3. "Die Insel, die Ernst Thälmann's Namen trägt" (PDF)Neues Deutschland (জার্মান ভাষায়)। ২০ জুন ১৯৭২। ১৪ অক্টোবর ২০১২ তারিখে মূল (PDF) থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ৩১ জানুয়ারি ২০১৪ "Die Insel, die Ernst Thälmann's Namen trägt" (PDF). Neues Deutschland (in German). 20 June 1972. Archived from the original (PDF) on 14 October 2012. Retrieved 31 January 2014.
  4. Gebauer, Matthias (১৪ ফেব্রুয়ারি ২০০১)। "Schenkte Castro den Deutschen eine Karibikinsel?"Spiegel Online (জার্মান ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ৩১ জানুয়ারি ২০১৪ 
  5. "Castro's Caribbean island gift to East Germany | DW | 27.11.2016"DW.COM (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ২০১৯-০৯-১৬ "Castro's Caribbean island gift to East Germany | DW | 27.11.2016". DW.COM. Retrieved 2019-09-16.
  6. "6 uninhabited and mysterious islands with bizarre pasts" 
  7. "6 uninhabited and mysterious islands with bizarre pasts" "6 uninhabited and mysterious islands with bizarre pasts".
  8. "The War with East Germany"। Molossia.org। সংগ্রহের তারিখ ২০১৭-১০-১৮ 
  9. Machado, Carmen (২০১৩-০৪-২৬)। "The Imaginary Republic of Molossia"। VICE। সংগ্রহের তারিখ ২০১৭-১০-১৮ 

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]