আরিফ বাট

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
আরিফ বাট
আরিফ বাট.jpg
ক্রিকেট তথ্য
ব্যাটিংয়ের ধরনডানহাতি
বোলিংয়ের ধরনডানহাতি ফাস্ট-মিডিয়াম
আন্তর্জাতিক তথ্য
জাতীয় পার্শ্ব
টেস্ট অভিষেক
(ক্যাপ ৪৭)
৪ ডিসেম্বর ১৯৬৪ বনাম অস্ট্রেলিয়া
শেষ টেস্ট২৯ জানুয়ারি ১৯৬৫ বনাম নিউজিল্যান্ড
খেলোয়াড়ী জীবনের পরিসংখ্যান
প্রতিযোগিতা টেস্ট এফসি
ম্যাচ সংখ্যা ৯৭
রানের সংখ্যা ৫৯ ৪০১৭
ব্যাটিং গড় ১১.৮০ ২৯.১০
১০০/৫০ –/– ৪/২২
সর্বোচ্চ রান ২০ ১৮০
বল করেছে ৬৬৬ ১১৮৭৯
উইকেট ১৪ ২০১
বোলিং গড় ২০.৫৭ ২৬.৭৯
ইনিংসে ৫ উইকেট ১০
ম্যাচে ১০ উইকেট
সেরা বোলিং ৬/৮৯ ৮/৪৫
ক্যাচ/স্ট্যাম্পিং –/– ৪৪/–
উৎস: ইএসপিএনক্রিকইনফো.কম, ২৩ নভেম্বর ২০১৬

আরিফ বাট (উর্দু: عارف بٹ‎‎; জন্ম: ১৭ মে, ১৯৪৪ - মৃত্যু: ১১ জুলাই, ২০০৭) পাঞ্জাবের লাহোরে জন্মগ্রহণকারী বিশিষ্ট পাকিস্তানী আন্তর্জাতিক ক্রিকেটার ছিলেন। পাকিস্তান ক্রিকেট দলের অন্যতম সদস্য ছিলেন তিনি। ১৯৬৪ থেকে ১৯৬৫ সময়কালে সংক্ষিপ্ত সময়ের জন্যে পাকিস্তানের পক্ষে আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে অংশগ্রহণ করেছিলেন। ঘরোয়া প্রথম-শ্রেণীর পাকিস্তানী ক্রিকেটে লাহোরের প্রতিনিধিত্ব করেছেন। দলে তিনি মূলতঃ ডানহাতি ফাস্ট-মিডিয়াম বোলিংয়ে পারদর্শী ছিলেন। এছাড়াও, নিচেরসারির কার্যকরী ডানহাতি ব্যাটসম্যান হিসেবেও তার সুনাম ছিল।

ঘরোয়া ক্রিকেট[সম্পাদনা]

তার চাচা খাজা আব্দুর রব তাকে প্রশিক্ষণ দিতেন। এ সময়ে লাহোরের ফ্রেন্ডস ক্রিকেট ক্লাবের সদস্য ছিলেন তিনি। ১৯৬০-৬১ মৌসুমে পাঞ্জাব বিশ্ববিদ্যালয়ের বিপক্ষে ১৬ বছর বয়সে তার প্রথম-শ্রেণীর ক্রিকেটে অভিষেক ঘটে। এরপর ১৯৬২-৬৩ মৌসুম থেকে অবসর নেয়ার পূর্ব-পর্যন্ত ১৯৭৭-৭৮ মৌসুমে পাকিস্তান রেলওয়েজের পক্ষে খেলেন।

১৯৬৬-৬৭ মৌসুমে কায়েদ-ই-আজম ট্রফির ফাইনালে করাচির বিপক্ষে নিজের প্রথম সেঞ্চুরি করেন। ১৯৭৩-৭৪ মৌসুমে রেলওয়েজের অধিনায়কের দায়িত্বে থেকে প্যাট্রন্স ট্রফি ও কায়েদ-ই-আজম ট্রফির শিরোপা জয়ে ভূমিকা রাখেন। কায়েদ ফাইনালে সিন্ধুর বিপক্ষে ৬/৫৫ পান ও ঐ মৌসুমে ৭১৮ রান তোলেন। তন্মধ্যে পাঞ্জাবের বিপক্ষে ব্যাটিং উদ্বোধনে নেমে সর্বোচ্চ ১৮০ রান তোলেন। ১৯৭২-৭৩ মৌসুমে সারগোদার বিপক্ষে নিজস্ব সেরা বোলিং পরিসংখ্যান ৮/৪৫ লাভ করেন।

টেস্ট ক্রিকেট[সম্পাদনা]

১৯৬৪-৬৫ মৌসুমে মেলবোর্নে স্বাগতিক অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে তার টেস্ট অভিষেক হয়। প্রথম ইনিংসেই তিনি ৬/৮৯ লাভ করেন।[১] এরফলে প্রথম পাকিস্তানী হিসেবে টেস্ট অভিষেকে পাঁচ-উইকেট লাভের গৌরবগাঁথা রচনা করেন আরিফ বাট। এছাড়াও, আঘাতপ্রাপ্ত উইকেট-রক্ষক আবদুল কাদিরের পরিবর্তে দ্বিতীয় ইনিংসে দলের ব্যাটিং উদ্বোধনে নামেন। প্রায় এক ঘন্টা নতুন বলের অস্ট্রেলীয় বোলিং আক্রমণ রুখে ১২ রান তোলেন।[২] এরপর নিউজিল্যান্ড সফরে যান। তিন টেস্ট সিরিজের প্রথম দুইটিতে অংশ নিয়ে ২৪.২৮ গড়ে ৭ উইকেট তুলেন। শেষ টেস্ট ইনিংসে ইন্তিখাব আলমের সাথে নবম উইকেট জুটিতে মূল্যবান ৫২ রান তুল দলকে ড্রয়ের দিকে নিয়ে যেতে প্রভূতঃ সহায়তা করেন।

বাউন্সার ও লেগ কাটারের সমন্বয়ে নিজের বোলিংকে সমৃদ্ধ করেছেন। কিন্তু দূর্ভাগ্যজনকভাবে তিনি কেবলমাত্র তিন টেস্ট খেলার সুযোগ পান। ঐ সময় পাকিস্তান দলে কার্যকরী ফাস্ট বোলার ছিল না। ১৯৬৭ সালে ইংল্যান্ড সফরে গেলেও পুরোপুরি ব্যর্থতায় পর্যবসিত হন।[৩] নয় খেলায় অংশ নিয়ে ৫৪.৫০ গড়ে ১২ উইকেট তুলেন।

দেহাবসান[সম্পাদনা]

হৃদযন্ত্র ক্রীয়ায় আক্রান্ত হয়ে ১১ জুলাই, ২০০৭ তারিখে আরিফ বাটের দেহাবসান ঘটে। এরপূর্বে ডায়াবেটিসের কারণে ফুসফুসের সংক্রমণে আক্রান্ত হয়েছিলেন। লাহোরে তার শবানুষ্ঠান হয় যাতে সরফরাজ নওয়াজসহ সাবেক ক্রিকেটার ও কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।[৪]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. "Six wickets on Test debut"। ১ এপ্রিল ২০০৭ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২৬ নভেম্বর ২০১৮ 
  2. Australia v Pakistan, Melbourne 1964-65
  3. Wisden 2008, p. 1548.
  4. "Archived copy"। ২০০৭-০৯-২৭ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২০০৭-০৭-১৭ 

আরও দেখুন[সম্পাদনা]

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]