আমেরিকান বিশ্ববিদ্যালয়, আফগানিস্তান

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
আমেরিকান বিশ্ববিদ্যালয়, আফগানিস্তান
دانشگاه آمریکایی افغانستان
د افغانستان امریکايي پوهنتون
Saleha Bayat Building at AUAF in Kabul-2.jpg
আমেরিকান বিশ্ববিদ্যালয়, আফগানিস্তান ক্যম্পাস
ধরনবেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়
স্থাপিত২০০৬; ১৩ বছর আগে (2006)
প্রতিষ্ঠাতাফরিফ ফয়েজ
চেয়ারম্যানডঃ আকরাম ফজল
সভাপতিডাঃ কেনেথ এম. হল্যান্ড
প্রাধ্যক্ষডঃ টিমর সাফারি
শিক্ষার্থী১,১৫১ জন
অবস্থান, ,
৩৪°২৮′৩২″ উত্তর ৬৯°৭′৩৫″ পূর্ব / ৩৪.৪৭৫৫৬° উত্তর ৬৯.১২৬৩৯° পূর্ব / 34.47556; 69.12639স্থানাঙ্ক: ৩৪°২৮′৩২″ উত্তর ৬৯°৭′৩৫″ পূর্ব / ৩৪.৪৭৫৫৬° উত্তর ৬৯.১২৬৩৯° পূর্ব / 34.47556; 69.12639
সংক্ষিপ্ত নামআ.ইউ.এ.এফ
মাসকটসিমরাগ
ওয়েবসাইটwww.auaf.edu.af

আমেরিকান বিশ্ববিদ্যালয়, আফগানিস্তান (আ.ইউ.এ.এফ; ফার্সি: دانشگاه آمریکایی افغانستان‎‎; পশতু: د افغانستان امریکايي پوهنتون) আফগানিস্তানের একটি বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়।[২] এই বিশ্ববিদ্যালয় আফগানিস্তানের একমাত্র জাতীয় স্বীকৃত, বেসরকারি, অলাভজনক, অ-পক্ষী এবং সহ-শিক্ষা বিশ্ববিদ্যালয়। এটি ২০০৬ সালে মাত্র ৫০ জন শিক্ষার্থী নিয়ে প্রাথমিকভাবে যাত্রা শুরু করেছিল, বর্তমানে বিশ্ববিদ্যালয়টিতে ১,৭০০ জন শিক্ষার্থীদের তালিকাভুক্ত করে থাকে। এটি ২৯ ফুলব্রাইট স্কলার তৈরি করেছে এবং স্ট্যানফোর্ড ইউনিভার্সিটি, জর্জটাউন ইউনিভার্সিটি এবং ক্যালিফোর্নিয়া বিশ্ববিদ্যালয়সহ বিশ্বের সবচেয়ে মর্যাদাপূর্ণ বিশ্ববিদ্যালয়গুলোর সাথে অংশীদারত্ব বজায় রেখেছে।[৩]

ইতিহাস ও অগ্রযাত্রা[সম্পাদনা]

২০০২ সালে আফগানিস্তানের উচ্চ শিক্ষা মন্ত্রী শরীফ ফয়েজ আফগানিস্তানের প্রথম বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিষ্ঠার প্রস্তাব দেন এবং জাতির উদ্দেশে ভাষণে রাষ্ট্রপতি হামিদ কারজাই দেশের শিক্ষার গুরুত্বে বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রয়োজন তুলে ধরে। এরপর ২০০৩ সালে আফগানিস্তানের হাই কমিশন ফর প্রাইভেট ইনভেস্টমেন্ট একটি বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয় গড়ে তোলার জন্য দুলুলমান প্রাসাদের কাছে দক্ষিণপশ্চিমে কাবুলে দুটি বড় বড় জমিতে ৯৯ বছরের জন্য ইজারা দেয়। ডেলাওয়্যারে চার্টার্ড ফাউন্ডেশনটি এই লিজগুলো গ্রহণের জন্য একটি অলাভজনক দাতব্য সংস্থা ছিল। ২০০৩ সালে জাতিসংঘের শিক্ষা, বৈজ্ঞানিক ও সাংস্কৃতিক সংগঠন (ইউনেস্কো)-এর একটি বিবৃতিতে মার্কিন ফার্স্ট লেডি লরা বুশ আফগানিস্তানে শিক্ষাগত উদ্যোগের সমর্থনের ঘোষণা দেন এবং মার্কিন রাষ্ট্রদূত জামাল খালিলজাদ আফগানিস্তান আমেরিকান বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিষ্ঠার জন্য দৃঢ় সমর্থন দেন। ২০০৪ সালে আফগানিস্তান সংবিধানের ২৪ অধ্যায়, সিভিল কোডের আর্টিকেল ৪৪৫-এর অধীন আমেরিকান ইউনিভার্সিটি অফ আফগানিস্তান একটি চিঠি প্রদান করে। মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে অবস্থিত ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটির সমন্বয় পরিষদ নতুন বিশ্ববিদ্যালয়টির জন্য একটি প্রাতিষ্ঠানিক কাঠামোর সুপারিশ করে এবং বিশ্ববিদ্যালয়ের ট্রাস্টি বোর্ড দুবাই, ইউএই-তে তার প্রথম বৈঠক পরিচালনা করে। ২০০৫ সালে মার্চ মাসে যুক্তরাষ্ট্রের ফার্স্ট লেডি লরা বুশ নতুন বিশ্ববিদ্যালয়ের সাইট পরিদর্শন করেন এবং প্রতিষ্ঠানটি চালু করার জন্য ইউএস এজেন্সি ফর ইন্টারন্যাশনাল ডেভলপমেন্ট (ইউএসএআইডি) থেকে অনুদান ঘোষণা করেন[৪] এবং ২০০৬ সালে মাত্র ৫০ জন শিক্ষার্থী নিয়ে বিশ্ববিদ্যালয়টি প্রাথমিক ভাবে যাত্রা শুরু করে।[৫]

২০০৭ সালে বিশ্ববিদ্যালয় তার প্রথম একাডেমিক পরিকল্পনা বাস্তবায়ন করে এবং গ্রীষ্মকালীন কোর্সের শিক্ষা প্রদান শুরু করে। ২০০৮ সালের জুন মাসে যুক্তরাষ্ট্রের ফার্স্ট লেডি লরা বুশ পাঁচ বছরে ইউএসএআইডি থেকে তহবিল সংগ্রহের জন্য $৪২ মিলিয়ন ডলার ঘোষণা করে। বছরের শেষ স্নাতক এবং ফাউন্ডেশন স্টাডিজ প্রোগ্রামে তালিকাভুক্তকরণ শিক্ষার্থী সংখ্যা দড়ায় প্রায় ৩৫০ জন । ২০০৯ সালের আগস্টে, ট্রাস্টি বোর্ডের সভাপতি ডঃ সি. মাইকেল স্মিথকে বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য হিসাবে নিয়োগ দেয়া হয়। ইউএসএআইডি থেকে $৫ মিলিয়ন ডলার অনুদানের মাধ্যমে বিশ্ববিদ্যালয়ে একটি অত্যাধুনিক ই-লার্নিং সুবিধা ইনস্টল করা হয় যাতে শিক্ষার্থীরা অঞ্চলের অন্যান্য বিশ্ববিদ্যালয়ের সহযোগিতায় উপকৃত হতে পারে এবং বেয়াত ফাউন্ডেশন থেকে মার্কিন সহায়তা করে বিশ্ববিদ্যালয় ব্যামাগার পুনর্নির্মাণ করেন। ওয়াশিংটনে অফিস সহ আফগানিস্তানের আমেরিকান ইউনিভার্সিটির বন্ধুরা ইন্টারনাল রেভেনিউ সার্ভিসের ৫০১ (গ) (৩) অ-লাভজনক অবস্থা প্রদান করে। ২০১০ সালে ৫৫০ ছাত্র বৃদ্ধি, নতুন ডিগ্রি প্রোগ্রাম- ব্যাচেলর অফ বিজনেস অ্যাডমিনিস্ট্রেশন (বিবিএ), কম্পিউটার বিজ্ঞান বিভাগের স্নাতক, রাজনৈতিক বিজ্ঞানে স্নাতক এবং জন প্রশাসন -কে ট্রাস্টি বোর্ড অনুমোদন করে। মার্কিন ক্যাম্পাসের সহায়তায় নতুন ক্যাম্পাসের নকশা সম্পন্ন করা হয়। জুন মাসে, লরা বুশ উইমেন রিসোর্স সেন্টারের ওয়াশিংটনে একটি সফল তহবিল সংগ্রহের ঘটনা অনুষ্ঠিত হয়। আগস্টে বিশ্ববিদ্যালয়ের নবনির্মিত অনুষদ অফিস ভবন উদ্বোধন করা হয়। ২০১১ সালে বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রথম কনভোকেশন দিয়ে জানুয়ারিতে বসন্তের সেমিস্টার খোলা হয়। নতুন ক্যাম্পাসে অনুষদ ও কর্মীদের আবাসনের জন্য গ্রাউন্ডব্যাকিং অনুষ্ঠান অনুষ্ঠিত হয়। আগস্টে, মূল ক্যাম্পাসে একটি নতুন অনুষদ অফিস ভবন খোলা হয়। ২০১২ সালের জানুয়ারী মাসে বিশ্ববিদ্যালয়ের ১৫০ জনেরও বেশি শিক্ষার্থীকে এফএসপি ও ইউজি প্রোগ্রামে অনুমোদন দেওয়া হয়েছে, যা এই প্রোগ্রামগুলির শিক্ষার্থীদের মোট সংখ্যা ৮৭৯ জন । ফেব্রুয়ারিতে বিশ্ববিদ্যালয়ের ৫ মিলিয়ন ডলারের আফগান নারী অর্থনৈতিক উন্নয়নের জন্য আন্তর্জাতিক কেন্দ্রটি ভেঙ্গে পড়ে। এছাড়াও ফেব্রুয়ারিতে বাণিজ্য সচিব ফ্রান্সিসকো সানচেজ এউএএফ-এর নতুন কর্মসূচী, কমার্শিয়াল ল ইনিশিয়েটিভের উদ্বোধন করার জন্য ক্যাম্পাস পরিদর্শন করেন, যেটি বাণিজ্যিক আইনের উপর কোর্স প্রদান করবে। ২০১৮ সালে আ.ইউ.এ.এফ উচ্চ শিক্ষা মন্ত্রণালয় থেকে স্কুল পাঁচ বছর জন্য স্বীকৃত হয়। শিক্ষার জাতীয় মানদণ্ড পূরণ এবং অতিক্রম করার জন্য আ.ইউ.এ.এফ গুণমানের মূল্যায়ন এবং প্রোগ্রাম পর্যালোচনার প্রচেষ্টা অব্যাহত রাখবে। এবং ওমাহা বিশ্ববিদ্যালয়, জর্জটাউন ইউনিভার্সিটি, স্ট্যানফোর্ড বিশ্ববিদ্যালয় , ক্যালিফোর্নিয়া বিশ্ববিদ্যালয়, আমেরিকা বিশ্ববিদ্যালয় এবং নেব্রাস্কা বিশ্ববিদ্যালয়ের মতো অংশীদারদের মাধ্যমে আন্তর্জাতিক স্বীকৃতির কাজ চালিয়ে যাবে।[৬][৭]

লক্ষ্য[সম্পাদনা]

আফগানিস্তান আমেরিকান ইউনিভার্সিটি আন্তর্জাতিক বিশ্ববিদ্যালয়গুলোর মধ্যে স্থান পাবে, যা দেশ ও অঞ্চলের বেসরকারী অ-লাভজনক উচ্চশিক্ষার জন্য মডেল হিসেবে কাজ করবে। বিশ্ববিদ্যালয় একাডেমিক ও পেশাদারী কর্মসূচির জন্য পরিচিত হবে, যা দেশের উন্নয়নে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করবে এবং শিক্ষার্থীদের আকাঙ্ক্ষাগুলোকে উন্নীত করবে। সামাজিক ও বৈজ্ঞানিক অনুসন্ধানের সমৃদ্ধ পরিবেশে দেশের সেরা পুরুষ ও মহিলা শিক্ষার্থীদের আকৃষ্ট ও শিক্ষিত করার জন্য বিশ্ববিদ্যালয় বিভিন্ন উচ্চতর আন্তর্জাতিক অনুষদের নিযুক্ত করবে।

উদ্দেশ্য[সম্পাদনা]

আমেরিকান ইউনিভার্সিটি আফগানিস্তান অঞ্চলের চাহিদা পূরণের জন্য ছাত্রছাত্রী প্রস্তুত করে বিশ্বব্যাপী উচ্চতর শিক্ষা প্রদানের জন্য নিবেদিত রয়েছে ।

আরও দেখুন[সম্পাদনা]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. CNN, Eliott C. McLaughlin, Ralph Ellis and AnneClaire Stapleton। "Kabul siege: 12 killed in attack on American University"CNN। সংগ্রহের তারিখ ২০১৬-০৮-২৫ 
  2. http://www.foxnews.com/politics/2016/09/08/sources-us-forces-mounted-unsuccessful-mission-to-rescue-american-u-hostages-in-afghanistan.html
  3. Khaama Press, American and Australian University Professors Kidnapped From Kabul
  4. "সংরক্ষণাগারভুক্ত অনুলিপি"। ১৬ ফেব্রুয়ারি ২০০৭ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২৬ নভেম্বর ২০১৮ 
  5. "সংরক্ষণাগারভুক্ত অনুলিপি"। ২৫ জানুয়ারি ২০০৫ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২৬ নভেম্বর ২০১৮ 
  6. "AUAF Achieves Record Enrollment » American University of Afghanistan"। Auaf.edu.af। ২০১৩-১০-১৩ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২০১৪-০২-১২ 
  7. "Dr. C. Michael Smith on Education and Women Empowerment in Afghanistan"। Filmannex.com। ২০১৩-০৩-১৪। ২০১৩-০৩-১৮ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২০১৪-০২-১২