আব্দুল খালেক সাম্ভলী

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে

আব্দুল খালেক সাম্ভলী
আব্দুল খালেক সাম্ভলী (২০২০).jpeg
নায়েবে মুহতামিম, দারুল উলুম দেওবন্দ
কাজের মেয়াদ
২০০৮ – ৩০ জুলাই ২০২১
ব্যক্তিগত
জন্ম(১৯৫০-০১-০৪)৪ জানুয়ারি ১৯৫০
সাম্ভল, ভারত
মৃত্যু৩০ জুলাই ২০২১(2021-07-30) (বয়স ৭১)
ধর্মইসলাম
যেখানের শিক্ষার্থীদারুল উলুম দেওবন্দ
শিক্ষক
ঊর্ধ্বতন পদ

আব্দুল খালেক সাম্ভলী (৪ জানুয়ারি ১৯৫০ – ৩০ জুলাই ২০২১) ছিলেন একজন ভারতীয় দেওবন্দি ইসলামি পণ্ডিত ও সাহিত্যিক। তিনি দারুল উলুম দেওবন্দের নায়েবে মুহতামিম হিসেবে দায়িত্ব পালন করেছিলেন। তিনি দেওবন্দ মাদ্রাসার প্রাক্তন ছাত্র ছিলেন এবং তার শিক্ষকদের মধ্যে মাহমুদ হাসান গাঙ্গুহী, মুহাম্মদ তৈয়ব কাসেমিসৈয়দ ফখরুদ্দিন আহমদ অন্যতম। তিনি আব্দুল মাজিদ আল-জিনদানির আত তাওহীদ গ্রন্থটি উর্দুতে অনুবাদ করেন। মুহাম্মদ নাজিব কাসেমি তার ছাত্র।

জীবনী[সম্পাদনা]

আব্দুল খালেক ১৯৫০ সালের ৪ জানুয়ারি সাম্ভলে জন্মগ্রহণ করেন।[১] তিনি সাম্ভলের মাদ্রাসা খায়রুল মাদারিস এবং মাদ্রাসা শামসুল উলুমে পড়াশোনা করেছেন। তিনি হাফিজ ফরিদুদ্দিনের তত্ত্বাবধানে কুরআন মুখস্থ করেন।[২] ১৯৬৮ সালে তিনি দারুল উলুম দেওবন্দে ভর্তি হন[১] এবং ১৯৭২ সালে দাওরায়ে হাদিস (স্নাতক) সমাপ্ত করেন। তিনি ১৯৭৩ সালে আরবি সাহিত্যে উচ্চতর ডিগ্রি লাভ করেন।[৩] তার শিক্ষকদের মধ্যে রয়েছেন সৈয়দ ফখরুদ্দিন আহমদ, মুহাম্মদ তৈয়ব কাসেমি এবং মাহমুদ হাসান গাঙ্গুহী[২]

তিনি ১৯৭৩ সালে হাপুরের মাদ্রাসা খাদিমুল ইসলামে শিক্ষকতা শুরু করেন এবং ১৯৭৯ সালে মোরাদাবাদের মাদ্রাসা জামিয়ুল হুদায় চলে যান।[৩] ১৯৮২ সালে তিনি দারুল উলুম দেওবন্দের শিক্ষক নিযুক্ত হন।[১] ২০০৮ সালে তিনি মাদ্রাসার নায়েবে মুহতামিম হিসেবে পদোন্নতি পান।[৩] তিনি আরবিউর্দু ভাষার একজন সাহিত্যিক ছিলেন এবং দেওবন্দে সুনানে ইবনে মাজাহ সহ হাদিসের পাঠ দিয়েছেন।[৪][৫] দেওয়ানে মুতান্নবির কবিতাগুলো নিয়ে তার দেওয়া বক্তৃতা সমূহ জনপ্রিয় হয়েছিল।[৫] তার ছাত্রদের মধ্যে মুহাম্মদ নাজিব কাসেমি অন্যতম।[৬]

তালেবানদের নারীদের স্কুল বন্ধ করা নিয়ে এক প্রশ্নের জবাবে ২০০৯ সালের মে মাসে ডেকান হেরাল্ডকে দেওয়া একটি সাক্ষাৎকারে তিনি বলেছেন, ‘আমরা নারী শিক্ষার বিরুদ্ধে নই, আমরা সহশিক্ষার বিরুদ্ধে।’[৭] মুসলিম নারী (বিয়ে সংক্রান্ত অধিকার সুরক্ষা) বিল, ২০১৭ সম্পর্কে তিনি বলেন, শরিয়তের আদেশ পরিবর্তনের ক্ষমতা কারও নেই।[৮] তিনি আব্দুল মাজিদ আল-জিনদানির বই আত তাওহীদ উর্দুতে অনুবাদ করেছেন।[৩] মওদুদীবাদের সমালোচনা নিয়ে তার বক্তৃতা সমূহ বেশ কয়েকটি খন্ডে প্রকাশিত হয়েছে।[৩]

২০২১ সালের ৩০ জুলাই মজঃফরনগরে তার মৃত্যু হয়।[৬] দেওবন্দের মাজারে কাসেমিতে তাকে সমাহিত করা হয়।[৪] আবুল কাসেম নোমানী, আরশাদ মাদানি, মাহমুদ মাদানি, মুহাম্মদ সুফিয়ান কাসেমি প্রমুখ তার মৃত্যুতে শোক প্রকাশ করেছেন।[৯]

আরও দেখুন[সম্পাদনা]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

উদ্ধৃতি[সম্পাদনা]

  1. "দারুল উলুম দেওবন্দের নায়েবে মুহতামিম আব্দুল খালেক সাম্ভলী ইন্তেকাল করেছেন"বাছিরাত অনলাইন। ৩০ জুলাই ২০২১। 
  2. "দারুল উলুম দেওবন্দের মুহাদ্দিস মাওলানা আব্দুল খালেক সাম্ভলী দীর্ঘ অসুস্থতার পর ইন্তেকাল করেছেন"মিল্লাত টাইমস (উর্দু ভাষায়)। ৩০ জুলাই ২০২১। 
  3. কাসেমি ২০২০, পৃ. ৬৮৯।
  4. "দারুল উলুম দেওবন্দের নায়েবে মুহতামিম মাওলানা আব্দুল খালেক সাম্ভলী ইন্তেকাল করেছেন"রোজনামা খবরীন (উর্দু ভাষায়)। ৩০ জুলাই ২০২১। 
  5. তালহা, মুহাম্মদ আবু (৩১ জুলাই ২০২১)। "খোদা ইয়াদ আয়ে জিনহে দেখ কার: মুহতারাম মাওলানা আব্দুল খালেক সাম্ভলী"কিন্দেল অনলাইন 
  6. "দারুল উলুম দেওবন্দের নায়েবে মুহতামিম মারা গেছেন"দি চেনাব টাইমস। ৩০ জুলাই ২০২১। সংগ্রহের তারিখ ৩০ জুলাই ২০২১ 
  7. "মুসলিম পলিটিশিয়ানস হেভ লস্ট বন্ড উইথ দি কমিউনিটি"ডেকান হেরাল্ড (সাক্ষাৎকার)। ১৪ মে ২০০৯। সংগ্রহের তারিখ ১ আগস্ট ২০২১ 
  8. শার্মা, সোয়াতি (২২ আগস্ট ২০১৭)। "আমরা 'তিন তলাক' ইস্যুতে মুসলিম পার্সোনাল ল বোর্ডের পাশে আছি: দারুল উলুম দেওবন্দ"দি স্টেটমেন্টস। সংগ্রহের তারিখ ৩০ জুলাই ২০২১ 
  9. ভাট, প্রেম দত্ত (৩০ জুলাই ২০২১)। "দারুল উলুমের নায়েব মোহতামিম মাওলানা আব্দুল খালেক সাম্ভলী মারা গেছেন"জাগরণ (হিন্দি ভাষায়)। 

গ্রন্থপঞ্জি[সম্পাদনা]

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]