আবু নিদাল

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
আবু নিদাল
أبو نضال
photograph
আবু নিদাল, ১৯৭৬ সালের ছবি
জন্ম
সাবরি খলিল আল-বান্না
صبري خليل البنا

মে ১৯৩৭
মৃত্যু১৬ আগস্ট ২০০২(2002-08-16) (বয়স ৬৫)
সমাধিআল-কারাখ ইসলামী কবরস্থান, বাগদাদ
জাতীয়তাফিলিস্তিনি
প্রতিষ্ঠান
ফাতাহ: বিপ্লবী পরিষদ
(فتح المجلس الثوري)
আবু নিদাল অর্গানাইজেশন নামে পরিচিত
আন্দোলনফিলিস্তিনি প্রত্যাখ্যানবাদী ফ্রন্ট

সাবরি খলিল আল-বান্না (মে ১৯৩৭)   - ১ আগস্ট ২০০২), আবু নিদাল নামে পরিচিত, ফাতাহ: বিপ্লব পরিষদের প্রতিষ্ঠাতা ছিলেন, একটি সংগ্রামরত ফিলিস্তিনি উপদল যা সাধারণত আবু নিদাল অর্গানাইজেশন (এএনও) নামে পরিচিত। [১] ১৯৭০ এবং ১৯৮০ এর দশকে এটি খুবই শক্তিশালী ছিল, এএনওকে ফিলিস্তিনি গ্রুপগুলির মধ্যে সবচেয়ে নির্মম হিসাবে গণ্য করা হতো। [২][৩][৪][৫]

আবু নিদাল ("সংগ্রামের জনক") [৬] ১৯৭৪ সালের অক্টোবরে ফিলিস্তিন মুক্তি সংস্থা (পিএলও) এর মধ্যে ইয়াসির আরাফাতের ফাতাহ গোষ্ঠীর সাথে বিরোধের পর আলাদা হয়ে এএনও গঠন করেন। [৭] একজন ফ্রিল্যান্স ঠিকাদারের ভূমিকায় অবতীর্ণ হয়ে, আবু নিদাল ২০ টি দেশে হামলার নির্দেশ দেন, এতে ৩০০ জন নিহত এবং ৬৫০ জনের বেশি আহত হয় বলে মনে করা হয়। [৪][৮][৯] এই গ্রুপের অভিযানগুলোর মধ্যে আছে ১৯৮৫ সালের ২৭ ডিসেম্বর রোম এবং ভিয়েনা বিমানবন্দরে হামলা, এতে এল আল টিকিট কাউন্টারে বন্দুকধারীরা যাত্রীদের উপর একযোগে গুলি চালিয়ে ২০ জনকে হত্যা করে। আবু নিদালের জীবনী লেখক প্যাট্রিক সিল গুলি চালানোর বিষয়ে বলেন "যথেচ্ছভাবে নিষ্ঠুরতা থেকে প্রতিয়মান হয় এটি বৈশিষ্ট্যমূলক আবু নিদাল অপারেশন"। [১০][১১]

ফিলিস্তিনি সূত্র মনে করে যে সাদ্দাম হুসেনের নির্দেশে তাকে হত্যা করা হয়, তবে ইরাকি কর্মকর্তারা জোর দিয়ে বলে যে জিজ্ঞাসাবাদের সময় তিনি আত্মহত্যা করেন। [১২][১৩] গার্ডিয়ান পত্রিকায় তার মৃত্যুর সংবাদে ডেভিড হার্স্ট লিখেন, "তিনি ছিলেন দেশপ্রেমিক যা তাকে সাইকোপ্যাথে পরিনত করে"। "তিনি কেবল নিজের জন্যই করেছেন, কেবলমাত্র বিকৃত মানসিকতাই তাকে ঘৃণ্য অপরাধের দিকে ঠেলে দিয়েছে। তিনি ছিলেন চরম মার্সেনারি।" [১৪]

পরিচ্ছেদসমূহ

প্রাথমিক জীবন[সম্পাদনা]

পরিবার, প্রাথমিক শিক্ষা[সম্পাদনা]

photograph
আবু নিদাল জাফায় জন্মগ্রহণ করেন, সেখানে তিনি সমুদ্র সৈকতের কাছে একটি বড় পাথরের ঘরে বড় হয়েছেন।।

আবু নিদালের জন্ম তত্কালীন ব্রিটিশ ম্যান্ডেটরি ফিলিস্তিনের ভূমধ্যসাগরীয় উপকূলীয় অঞ্চল জাফায়। তার বাবা হজ খলিল আল-বান্না জাফা এবং মাজদালের মধ্যবর্তী অঞ্চলে ৬০০০ একর (২৪ বর্গ কিলোমিটার) কমলা বাগানের মালিক ছিলেন, যা আজ ইস্রায়েলের দখলদারিত্বে আশ্কেলোন নামে পরিচিত। [১৫] তাদের পরিবার সৈকতের কাছে একটি তিনতলা পাথরের বিলাসবহুল বাড়িতে বাস করত, দখলের পর ইস্রায়েলের সামরিক আদালত হিসাবে ব্যবহৃত হত। [১৬] আবু নিদালের ভাই মুহাম্মদ খলিল আল-বান্না ইউসিসি মেলম্যানকে বলেন:

খলিল আল-বানার অনেক সম্পদ থাকার কারণে বেশ কয়েকজন স্ত্রী ছিল। ডের স্পিগেলের সাথে এক সাক্ষাত্কারে আবু নিদাল জানান, তার বাবার ১৩ জন স্ত্রী, ১৭ জন ছেলে এবং আটজন মেয়ে ছিল। মেলম্যান বলেন যে আবু নিদালের মা ছিলেন তার বাবার অষ্টম স্ত্রী। [১৭] তিনি পরিবারের দাসীদের একজন ১৬ বছর বয়সী আলাউয়ি মেয়ে ছিলেন। প্যাট্রিক সিলের মতে পরিবার এই বিবাহকে অস্বীকার করেছিল এবং ফলস্বরূপ খলিলের দ্বাদশ সন্তান আবু নিদালকে স্পষ্টতই তার বড় ভাইবোনরা তুচ্ছতাচ্ছিল্ল করত, যদিও পরবর্তীতে সম্পর্কের স্বাভাবিক হয়। [১৮]

১৯৪৪ বা ১৯৪৫ সালে তার পিতা তাকে ফরাসি মিশন স্কুল কলেজ ডেস ফ্রেরেস ডি জাফায় পাঠান, সেখানে তিনি এক বছর ছিলেন। ১৯৪৫ সালে আবু নিদালের সাত বছর বয়সে তার বাবা মারা গেলে পরিবার তার মাকে ঘর থেকে বের করে দেয়। [১৮] তার ভাইয়েরা তাকে মিশন স্কুল থেকে সরিয়ে নিয়ে জেরুজালেমের একটি নামী বেসরকারী মুসলিম স্কুলে ভর্তি করে দেয়, এটি বর্তমানে উমরিয়া প্রাথমিক বিদ্যালয় নামে পরিচিত, সেখানে তিনি প্রায় দুই বছর পড়াশুনা করেন। [১৯]

১৯৪৮ ফিলিস্তিন যুদ্ধ[সম্পাদনা]

নাবলুস এবং সৌদি আরব গমন[সম্পাদনা]

মেলম্যান বলেন, আল-বান্না পরিবারের বাণিজ্যিক অভিজ্ঞতা এবং যে অর্থ তারা তাদের সাথে নিতে পেরেছিল তা দিয়ে তারা আবার ব্যবসায়ে দাঁড়াতে পারত। [২০] তাদের কমলা বাগান বেদখল হয়ে যায় এবং তা এখন ইস্রায়েলের দখলদারিত্বে আছে, ১৯৪৮ সালের ১৪ মে ইসরায়েল রাষ্ট্র ঘোষণা করা হয়। তাদের পরিবার পশ্চিম তীরের নাবলুসে চলে আসে, এটি জর্ডানের নিয়ন্ত্রণে ছিল। [১৭] ১৯৫৫ সালে আবু নিদাল উচ্চ বিদ্যালয় থেকে স্নাতক পাশ করার পর আরব জাতীয়তাবাদী বাথ পার্টিতে যোগ দেন,[২১] এবং কায়রো বিশ্ববিদ্যালয় থেকে প্রকৌশলে একটি ডিগ্রি কোর্স শুরু করেন, তবে তিনি ডিগ্রি সম্পূর্ণ না করেই দুই বছর পর বিশ্ববিদ্যালয় ত্যাগ করেন।[২২] ১৯৬০ সালে তিনি সৌদি আরব যান, সেখানে তিনি চিত্রশিল্পী এবং ইলেক্ট্রিশিয়ান হিসাবে নিজেকে প্রতিষ্ঠিত করেন এবং এরামকোতে নৈমিত্তিক শ্রমিক হিসাবে কাজ করেন। [২৩] তার ভাই মেলম্যানকে বলেন, আবু নিদাল প্রতিবছর তার মাকে দেখার জন্য সৌদি আরব থেকে নাবলুস আসতো।১৯৬২ সালে এক সফরের সময় তিনি তার স্ত্রীর সাথে দেখা করেছিলেন, তার পরিবারও জাফা থেকে পালিয়ে এসেছিল। এই দম্পতির এক পুত্র ও দুই কন্যা জন্মগ্রহণ করে।[২৪]

ব্যক্তিত্ব[সম্পাদনা]

সিলের মতে আবু নিদাল প্রায়শই খারাপ স্বাস্থের ছিলেন, এবং পরবর্তী বছরগুলিতে প্রতি রাতে হুইস্কি পান করা, জিপ-আপ জ্যাকেট এবং পুরানো ট্রাউজার পরে থাকতেন। সিলে আরও বলেন, তিনি হয়ে ওঠেন "ছদ্মবেশ এবং লুকানোর কৌশলে দক্ষ, কাউকে বিশ্বাস করতেন না, নি:সঙ্গ এবং আত্মকেন্দ্রিক, [জীবিত] গন্ধমূষিকের মতো, জনগণের দৃষ্টি থেকে অজ্ঞাত"। [২৫] পরিচিতরা বলেন যে তিনি কঠোর পরিশ্রমের যোগ্য ছিলেন এবং তার ভাল অর্থসংক্রান্ত বুদ্ধি ছিল। [২৬] ১৯৯১ সালে এএনও কর্তৃক গুপ্তহত্যার শিকার ফতাহর উপ-প্রধান সালাহ খালাফ (আবু আইয়াদ) ১৯৬০ এর দশকের শেষদিকে তার আশ্রয়ে নেওয়া আবু নিদালকে তিনি তাকে ভাল করেই চিনতেন। [২৭] তিনি সিলকে বলেন:

"তিনি আমার কাছে শক্তি ও উত্সাহের ব্যক্তি হিসাবে প্রস্তাবিত হয়েছিল, কিন্তু আমাদের সাথে দেখা হওয়ার পরে তাকে লজ্জাজনক মনে হয়েছিল। এটি কেবলমাত্র আরও পরিচিতির উপরই আমি অন্যান্য বৈশিষ্ট্যগুলি লক্ষ্য করেছি noticed তিনি অত্যন্ত ভাল সংস্থায় ছিলেন, একটি তীক্ষ্ণ জিহ্বা এবং প্রবণতা সহ বেশিরভাগ মানবতাকে গুপ্তচর এবং বিশ্বাসঘাতক হিসাবে বরখাস্ত করার জন্য। আমি বরং এটা পছন্দ! আমি আবিষ্কার করেছি যে তিনি অত্যন্ত উচ্চাভিলাষী, সম্ভবত তার ক্ষমতাগুলির চেয়ে বেশি চাওয়া হয়েছে, এবং খুব উত্তেজকও। তিনি কখনও কখনও নিজেকে এমন অবস্থায় পরিণত করেছিলেন যে তিনি যুক্তির সমস্ত ক্ষমতা হারিয়ে ফেলেন "। [২৭]

রাজনৈতিক জীবন[সম্পাদনা]

ইমেক্স, কালো সেপ্টেম্বর[সম্পাদনা]

photograph
জর্ডানের রাজা হুসেন, ১৯৯৭
১৯৭০ সালে জর্ডানের পরিস্থিতি সম্পর্কে ইকো নিউজরিয়েল

প্রথম অপারেশন[সম্পাদনা]

ফাতাহ থেকে বহিষ্কার[সম্পাদনা]

ANO[সম্পাদনা]

প্রতিষ্ঠানের প্রকৃতি[সম্পাদনা]

বিপ্লবী বিচারপতি কমিটি[সম্পাদনা]

গোয়েন্দা দপ্তর[সম্পাদনা]

বিশেষ মিশনের জন্য কমিটি[সম্পাদনা]

অপারেশন এবং সম্পর্ক[সম্পাদনা]

শ্লোমো আরগোভ[সম্পাদনা]

photograph
লন্ডনের পার্ক লেনের ডরচেস্টার হোটেল ছেড়ে যাওয়ার সময় শ্লোমো আরগোভকে মাথায় গুলি করা হয়।

রোম এবং ভিয়েনা[সম্পাদনা]

মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের লিবিয়ায় বোমা হামলা[সম্পাদনা]

photograph
৪৮ তম কৌশলগত যোদ্ধা উইং এফ -১১১ এফ বিমানটি ১৯66 সালের ১৪ এপ্রিল, লিবিয়ায় বোমা ফেলার জন্য ইংল্যান্ডের আরএএফ লেকেনথ থেকে যাত্রা করেছিল।

হিন্দায়ির সাথে সম্পর্ক[সম্পাদনা]

পান এম ফ্লাইট ৭৩[সম্পাদনা]

গাদ্দাফির সাথে সম্পর্ক[সম্পাদনা]

বিসিসিআইয়ের সাথে ব্যাংকিং[সম্পাদনা]

আবু আইয়াদকে হত্যা[সম্পাদনা]

মৃত্যু[সম্পাদনা]

চিত্র:Iraq chief of intelligence, Taher Jalil Habbush on death of Abu Nidal in 2002.jpg
ইরাকের গোয়েন্দা বিভাগের প্রধান তাহের জলিল হাববুশ সাংবাদিকদের আবু নিদলের মরদেহের ছবি দেখাচ্ছেন।

আরও দেখুন[সম্পাদনা]

  • অমীমাংসিত মৃত্যুর তালিকা

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. Melman, Yossi (1987) [1986]. The Master Terrorist: The True Story Behind Abu Nidal. Sidgwick & Jackson, 213.
  2. Chamberlin, Paul Thomas (2012). The Global Offensive: The United States, the Palestine Liberation Organization, and the Making of the Post-Cold War Order. New York: Oxford University Press, 173.
  3. Kifner, John (14 September 1986). "On the bloody trail of Sabri al-Banna", The New York Times.
  4. Randal, Jonathan C. (10 June 1990). "Abu Nidal Battles Dissidents", The Washington Post.
  5. Partrick, Neil (2015) [1997]. "Abu Nidal", in Martha Crenshaw and John Pimlott (eds.), International Encyclopedia of Terrorism. London: Routledge, 326–327.
  6. AbuKhalil, As'ad; Fischbach, Michael R. (2005) [2000]. "Biography of Abu Nidal – Sabri al-Bana", in Philip Mattar (ed.). Encyclopedia of the Palestinians (11–13), 11. Melman 1987, 53, translates it as "father of the struggle".
  7. Seale, Patrick (1992). Abu Nidal: A Gun for Hire. London: Hutchinson, 99.
  8. Hudson, Rex A. (September 1999). "The Sociology and Psychology of Terrorism: Who Becomes a Terrorist and Why?", Federal Research Division, Library of Congress, 97.
  9. "Abu Nidal Organization (ANO)", United States Department of State, June 2004.
  10. Seale 1992, 243.
  11. Suro, Roberto (13 February 1988). "Palestinian Gets 30 Years for Rome Airport Attack", The New York Times.
  12. Whitaker, Brian (22 August 2002). "Mystery of Abu Nidal's death deepens", The Guardian.
  13. Fisk, Robert (25 October 2008). "Abu Nidal, notorious Palestinian mercenary, 'was a US spy'", The Independent.
  14. Hirst, David (20 August 2002). "Abu Nidal", The Guardian.
  15. Melman 1987, 45–46; for orange groves, Seale 1992, 57.
  16. Melman 1987, 45–46; for the military court, image between 122 and 123.
  17. Melman 1987, 46.
  18. Seale 1992, 58.
  19. Melman 1987, 48.
  20. Melman 1987, 49.
  21. Hudson 1999, 100.
  22. Melman 1987, 50.
  23. Melman 1987, 50; Seale 1992, 64.
  24. Melman 1987, 51.
  25. Seale 1992, 56.
  26. Seale 1992, 57.
  27. Seale 1992, 69.

বহিঃ সংযোগ[সম্পাদনা]