আনিসা আহমেদ

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের পররাষ্ট্রমন্ত্রী হিলারি ক্লিনটন এবং ফার্স্ট লেডি মিশেল ওবামার থেকে ২০১২ সালে আনিসা আহমেদ আন্তর্জাতিক সাহসী নারী পুরস্কার গ্রহণ করেন।

আনিস আহমেদ একজন মালদ্বীপের মানবাধিকার কর্মী।[১]

তিনি ১৯৮৫ থেকে ১৯৮৬ সাল পর্যন্ত পেন্সিলভেনিয়া স্টেট ইউনিভার্সিটি হামফ্রে ফেলো হিসেবে পড়াশোনা করেন।[২] পরে তিনি মালদ্বীপের নারী বিষয়ক উপমন্ত্রী হিসাবে দায়িত্ব পালন করেন, যেখানে তিনি গার্হস্থ্য সহিংসতার বিষয়টি সবার সামনে নিয়ে এসেছিলেন যদিও এটি করা নিষিদ্ধ ছিল।[২] সরকারের জন্য তার সেবা প্রদানের পর তিনি এনজিও প্রতিষ্ঠা করেন যার নামকরণ করা হয় "হোপ ফর উইমেন", যেখানে তিনি পুলিশ, শিক্ষার্থী ও অন্যান্যদের সাথে লিঙ্গ ভিত্তিক সহিংসতার বিষয়ে নেতৃত্ব প্রদান করেন।[৩] যখন মালদ্বীপের জাতীয় রেডিও ধর্মীয় পণ্ডিতদের তুলে ধরতে শুরু করে, যারা দাবি করে যে নারীর জিনগত বিমোচন বা যৌনাঙ্গে অঙ্গহানি ইসলাম দ্বারা সমর্থিত ছিল, তখন তিনি সরকারকে হস্তক্ষেপ নিতে এবং নারীর জিনগত বিকৃতির দ্বারা সৃষ্ট ক্ষতি সম্পর্কে সার্বজনিকভাবে কথা বলার অনুরোধ জানান।[১]

তিনি ২০১২ সালের আন্তর্জাতিক সাহসী নারী পুরস্কার প্রাপক।[১][৪] তিনি দ্বিতীয় মালদ্বীপের একজন নারী যিনি আন্তর্জাতিক সাহসী নারী পুরস্কার লাভ করেন।.[৫]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. "2012 International Women of Courage Award Winners"state.gov 
  2. "Maldivian Humphrey Alumna Wins 2012 International Women of Courage Award"state.gov 
  3. "AWIU » Maldives – Aneesa Ahmed"www.awiu.org। ৯ মার্চ ২০১৬ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ৪ সেপ্টেম্বর ২০১৮ 
  4. "HaveeruOnline - "International Women and Courage Award" is an added impetus: Aneesa Ahmed"haveeru.com.mv। ২০১৪-০৯-০৭ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। 
  5. "Maldives: US awards Aneesa Ahmed 'International Woman of Courage' award"International Knowledge Network of Women in Politics