আঙুলঠোঁটি কুকুর জিব

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন

আঙুলঠোঁটি কুকুর জিব
প্যারাপ্ল্যাগুসিয়া বিলিনিয়েটা
Ichthyologie; ou, Histoire naturelle des poissons (Plate 188) (7064508315).jpg
বৈজ্ঞানিক শ্রেণীবিন্যাস
জগৎ: প্রাণী
পর্ব: মেরুদণ্ডী
উপপর্ব: Vertebrata
মহাশ্রেণী: Osteichthyes
শ্রেণী: Actinopterygii
বর্গ: Pleuronectiformes
পরিবার: Cynoglossidae
গণ: প্যারাপ্ল্যাগুসিয়া
প্রজাতি: প্যারাপ্ল্যাগুসিয়া বিলিনিয়েটা
প্রতিশব্দ

Paraplagusia formosana Oshima, 1927[১]
Rhinoplagusia australis Rendahl, 1922[১]
Plagusia robinsoni Regan, 1919[২]
Plagusia brevirostris Kent, 1893[১]
Plagusia notata De Vis, 1883[১]
Plagusia acumineata Castelnau, 1875[১]
Paraplagusia macrocephalus Bleeker, 1865[১]
Plagusia marmorata Bleeker, 1851[১]
Plagusia dypterygia Rüppell, 1828[১]
Pleuronectes bilineata Bloch, 1787[২]
Paraplagusia bilineatus (Bloch, 1787)[২]
Plagusia bilineata (Bloch, 1787)[২]
Pleuronectes bilineatus Bloch, 1787[২]

আঙুলঠোঁটি কুকুর জীব হচ্ছে Cynoglossidae পরিবারের অন্তর্গত প্যারাপ্ল্যাগুসিয়া গণের একটি স্বাদুপানির মাছ। এর বৈজ্ঞানিক নাম: প্যারাপ্ল্যাগুসিয়া বিলিনিয়েটা (Paraplagusia bilineata)।

বর্ণনা[সম্পাদনা]

আঙুলঠোঁটি কুকুর জিব আকৃতিতে জিহ্বার ন্যায়। তুণ্ড গোলাকার। দেহের যে পাশে চোখ আছে সে পাশে উপরের ঠোঁটে উপর একটি নালাকার নাসারন্ধ্র থাকে। কিন্তু অপর দু'পাশে দুটি নাসারন্ধ্র থাকে। চোখের পাশে বাদামি, কিন্তু অপর পাশে হলুদ বর্ণের। এ মাছ ২৪ সেমি পর্যন্ত লম্বা হয়।[৩]

স্বভাব এবং আবাসস্থল[সম্পাদনা]

এরা সাগরের পানিতে মহাদেশীয় তাকের অভ্যন্তরে কাদা ও বালুময় তলদেশে থাকে। বেশিরভাগ ক্ষেত্রে তলদেশের অমেরুদণ্ডী প্রাণী খাদ্য হিসাবে গ্রহণ করে। উপকূলীয় অঞ্চলে পাওয়া যায়। মোহনায় জোয়ার-ভাঁটার সময় পাওয়া যায়।[৩]

বিস্তৃতি[সম্পাদনা]

এই মাছ বাংলাদেশ, ভারত, জাপান, চীন, ফিলিপাইন, নিউগিনি, অস্ট্রেলিয়া, আফ্রিকা দেশে পাওয়া যায়। এছাড়া ভারতপ্রশান্ত মহাসাগরে পাওয়া যায়। বঙ্গোপসাগরে এ মাছ সচারচর পাওয়া যায়। বাংলাদেশের নদী মোহনা অঞ্চলে এবং জোয়ার-ভাঁটার নদীতে ব্যাপকভাবে পাওয়া যায়। তবে সর্বত্রই প্রচুর পাওয়া যায় না।[৩]

অর্থনৈতিক গুরুত্ব[সম্পাদনা]

বাংলাদেশে এ মাছ বাণিজ্যিকভাবে কম গুরুত্বপূর্ণ। তবে চীন, সিঙ্গাপুর ও অস্ট্রেলিয়ায় এ মাছ সুস্বাদু খাবার হিসাবে খাওয়া হয়। বটম ট্রল এ এ মাছ ধরা হয়। বাজারে এ মাছ টাটকা, হিমায়িত এবং শুটকি হিসাবে বিক্রি হয়।[৩]

বাস্তুতান্ত্রিক ভুমিকা[সম্পাদনা]

এই মাছ মহাদেশীয় মহীসোপান কাদা ও বালুময় তলায় বাস করে। সেখান থেকে গলিত বা পচা খাবার এবং কীটপতঙ্গ খায়। এরা শান্তিপ্রিয় মাছ হিসেবে পরিচিত।[৩]

বাংলাদেশে বর্তমান অবস্থা এবং সংরক্ষণ[সম্পাদনা]

আইইউসিএন বাংলাদেশ (২০০০) এর লাল তালিকা অনুযায়ী এই প্রজাতিটি এখনও হুমকির সম্মুখীন নয়।[৩]

মন্তব্য[সম্পাদনা]

বঙ্গোপসাগর থেকে সংগ্রহীত এ মাছের ডিপ্লয়েড ক্রোমোজোম সংখ্যা ৩৮ পাওয়া গিয়েছে।[৩]

আরও দেখুন[সম্পাদনা]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. Desoutter, M. (1986) Cynoglossidae., p. 432-433. In J. Daget, J.-P. Gosse and D.F.E. Thys van den Audenaerde (eds.) Check-list of the freshwater fishes of Africa (CLOFFA). ISNB, Brussels; MRAC, Tervuren; and ORSTOM, Paris. Vol. 2.
  2. Heemstra, P.C. (1986) Cynoglossidae., p. 865-868. In M.M. Smith and P.C. Heemstra (eds.) Smiths' sea fishes. Springer-Verlag, Berlin.
  3. হক, ওয়াহিদা (অক্টোবর ২০০৯)। "স্বাদুপানির মাছ"। আহমেদ, জিয়া উদ্দিন; আবু তৈয়ব, আবু আহমদ; হুমায়ুন কবির, সৈয়দ মোহাম্মদ; আহমাদ, মোনাওয়ার। বাংলাদেশ উদ্ভিদ ও প্রাণী জ্ঞানকোষ২৩ (১ সংস্করণ)। ঢাকা: বাংলাদেশ এশিয়াটিক সোসাইটি। পৃষ্ঠা ২৯৩–২৯৪। আইএসবিএন 984-30000-0286-0 |আইএসবিএন= এর মান পরীক্ষা করুন: invalid prefix (সাহায্য)