অ্যালেক্স টেইট

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
অ্যালেক্স টেইট
ব্যক্তিগত তথ্য
পূর্ণ নামঅ্যালেক্স রস টেইট
জন্ম (1972-06-13) ১৩ জুন ১৯৭২ (বয়স ৪৭)
পাপারোয়া, নিউজিল্যান্ড
ব্যাটিংয়ের ধরনডানহাতি
বোলিংয়ের ধরনডানহাতি মিডিয়াম
ভূমিকাবোলার
আন্তর্জাতিক তথ্য
জাতীয় পার্শ্ব
ওডিআই অভিষেক
(ক্যাপ ১০৮)
২৪ অক্টোবর ১৯৯৮ বনাম জিম্বাবুয়ে
শেষ ওডিআই১৭ নভেম্বর ১৯৯৯ বনাম ভারত
খেলোয়াড়ী জীবনের পরিসংখ্যান
প্রতিযোগিতা টেস্ট ওডিআই
ম্যাচ সংখ্যা -
রানের সংখ্যা - ৩৫
ব্যাটিং গড় - ১১.৬৬
১০০/৫০ - ০/০
সর্বোচ্চ রান - ১৩*
বল করেছে - ১২০
উইকেট -
বোলিং গড় - ২৯.৩৩
ইনিংসে ৫ উইকেট -
ম্যাচে ১০ উইকেট - -
সেরা বোলিং - ২/৩৭
ক্যাচ/স্ট্যাম্পিং - ০/-
উৎস: ইএসপিএনক্রিকইনফো.কম, ৮ অক্টোবর ২০১৯

অ্যালেক্স রস টেইট (ইংরেজি: Alex Tait; জন্ম: ১৩ জুন, ১৯৭২) পাপারোয়া এলাকায় জন্মগ্রহণকারী প্রথিতযশা ও সাবেক নিউজিল্যান্ডীয় আন্তর্জাতিক ক্রিকেটার। নিউজিল্যান্ড ক্রিকেট দলের অন্যতম সদস্য ছিলেন তিনি। ১৯৯৮ থেকে ১৯৯৯ সময়কালে সংক্ষিপ্ত সময়ের জন্যে নিউজিল্যান্ডের পক্ষে আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে অংশগ্রহণ করেছেন।

ঘরোয়া প্রথম-শ্রেণীর নিউজিল্যান্ডীয় ক্রিকেটে নর্দার্ন ডিস্ট্রিক্টস দলের প্রতিনিধিত্ব করেন। দলে তিনি মূলতঃ ডানহাতি মিডিয়াম বোলিং করতেন। এছাড়াও, নিচেরসারিতে ডানহাতে ব্যাটিং করতেন অ্যালেক্স টেইট

প্রথম-শ্রেণীর ক্রিকেট[সম্পাদনা]

১৯৯৪-৯৫ মৌসুম থেকে ২০০০-০১ মৌসুম পর্যন্ত অ্যালেক্স টেইটের প্রথম-শ্রেণীর খেলোয়াড়ী জীবন চলমান ছিল। ১৯৯৬-৯৭ মৌসুমে দূর্দান্ত খেলা উপহার দেন। হ্যামিল্টনের সেডন পার্কে অকল্যান্ড এইসেসের বিপক্ষে প্রথম ইনিংসে ৯/৪৮ পান। এ বোলিং পরিসংখ্যানটি নর্দার্ন ডিস্ট্রিক্টসের জন্যে রেকর্ডবিশেষ।[১] খেলায় তিনি ১৩০ রান খরচায় ১৬ উইকেট পেয়েছিলেন। এছাড়াও, খেলার বোলিং পরিসংখ্যানটি নিউজিল্যান্ডের প্রথম-শ্রেণীর ক্রিকেটে সেরা হিসেবে পরিগণিত হয়।[২] হক কাপ প্রতিযোগিতায় নর্থল্যান্ডের সদস্যরূপে খেলেছেন।

মালয়েশিয়ার কুয়ালালামপুরে অনুষ্ঠিত ১৯৯৮ সালের কমনওয়েলথ গেমসে ক্রিকেটে অংশ নেন তিনি। সেমি-ফাইনালে দলটি অস্ট্রেলিয়ার কাছে শোচনীয়ভাবে পরাজিত হয়। তৃতীয় স্থান নির্ধারণী খেলায় শ্রীলঙ্কাকে পরাজিত করে ঐ প্রতিযোগিতায় তার দল ব্রোঞ্জপদক লাভ করেছিল।

আন্তর্জাতিক ক্রিকেট[সম্পাদনা]

১৯৯০-এর দশকের শেষদিকে নিউজিল্যান্ডের পক্ষে আন্তর্জাতিক পর্যায়ে অংশগ্রহণ করেছিলেন। সমগ্র খেলোয়াড়ী জীবনে পাঁচটিমাত্র একদিনের আন্তর্জাতিকে অংশগ্রহণ করেছেন। কোন টেস্টে অংশগ্রহণ করার সুযোগ হয়নি তার। ২৪ অক্টোবর, ১৯৯৮ তারিখে ঢাকায় জিম্বাবুয়ে দলের বিপক্ষে ওডিআইয়ে অভিষেক ঘটে তার। ১৭ নভেম্বর, ১৯৯৯ তারিখে দিল্লিতে স্বাগতিক ভারতের বিপক্ষে সর্বশেষ ওডিআইয়ে অংশ নেন তিনি।

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. "Most Wickets in an Innings for Northern Districts"অর্থের বিনিময়ে সদস্যতা প্রয়োজন। CricketArchive। সংগ্রহের তারিখ ১৬ মে ২০০৯ 
  2. "Fast and fiery Frederick"ESPN Cricinfo। সংগ্রহের তারিখ ৭ ফেব্রুয়ারি ২০১৭ 

আরও দেখুন[সম্পাদনা]

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]