অ্যান্ডি সার্কিস

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
অ্যান্ডি সার্কিস
Andy Serkis by Gage Skidmore 2.jpg
২০১৭-এর সান ডিয়েগো কমিক-কনে সার্কিস
জন্ম
অ্যান্ড্রু ক্লেমেন্ট সার্কিস

(1964-04-20) ২০ এপ্রিল ১৯৬৪ (বয়স ৫৫)
রুইসলিপ, মিডলসেক্স, ইংল্যান্ড, যুক্তরাজ্য
পেশাঅভিনেতা, পরিচালক, প্রযোজক
কার্যকাল১৯৮৯–বর্তমান
দাম্পত্য সঙ্গীলরেইনে অ্যাশবোর্ন (বি. ২০০২)
সন্তান
ওয়েবসাইটপ্রাতিষ্ঠানিক ওয়েবসাইট

অ্যান্ড্রু ক্লেমেন্ট সার্কিস[১][২] (জন্ম ২০ এপ্রিল ১৯৬৪) হলেন একজন ইংরেজ অভিনেতা এবং পরিচালক। তিনি সেরা পরিচিত তার দ্য লর্ড অব দ্য রিংসের তিনটি চলচ্চিত্র (২০০১-২০০৩) এবং দ্য হবিট: এন আনেক্সপেক্টেড জার্নি (২০১২)-তে গোল্লাম, একই নামে ২০০৫-এর চলচ্চিত্রে কিং কং, প্ল্যানেট অব দ্য এপসের পুনরায় চালু করা ধারাবাহিকে (২০১১-১৭) কায়েসার, স্টিভেন স্পিলবার্গে দ্য অ্যাডভেঞ্চার্স অব টিনটিন (২০১১)-এর ক্যাপ্টেন হ্যাডক্‌ / স্যার ফ্রান্সিস হ্যাডক এবং প্রথম দুইটি স্টার ওয়ার্স ধারাবাহিকের ট্রিলজি চলচ্চিত্রে (স্টার ওয়ার্স: দ্য ফোর্স অ্যাওয়েকেন্স (২০১৫) এবং স্টার ওয়ার্স: দ্য লাস্ট জেডি (২০১৭) সুপ্রিম লিডার স্নোক হিসেবে কম্পিউটার-তৈরি চরিত্রের মতো মোশন ক্যাপচার অভিনয়, এনিমেশন এবং কন্ঠ কাজে অংশীভূত পারফরমেন্স ক্যাপচারের জন্য। আসন্ন তার নিজ-পরিচালিত চলচ্চিত্র, মোগলি (২০১৮)-এ তার পারফরমেন্স ক্যাপচারের মধ্যে রয়েছে ভালু

মোশন ক্যাপচারে সার্কিসের চলচ্চিত্রের কাজ সমালোচকদের দ্বারা প্রশংসিত।[৩][৪][৫] তিনি তার মোশন-ক্যাপচার অভিনয়ের জন্য একটি এম্পায়ার অ্যাওয়ার্ড এবং দুইটি স্যাটার্ন পুরস্কার পান। তিনি ব্রিটিশ টেলিভিশন চলচ্চিত্র লঙ্গফোর্ডে (২০০৬) পেশাদার খুনি ল্যান ব্র্যাডির অভিনয়ের জন্য একটি গোল্ডেন গ্লোব অর্জন এবং জীবনীসংক্রান্ত সেক্স এন্ড ড্রাগস এন্ড রক এন্ড রোলে (২০১০) নতুন ঢেউ এবং পাঙ্ক রক ল্যান ডিউরির অভিনয়ের জন্য একটি বাফটা-এর জন্য মনোনীত হন।

২০১৫-তে, সার্কিস মার্ভেল সিনেম্যাটিক ইউনিভার্সে উলিসেস ক্ল-এর চরিত্রে অভিনয় শুরু করেন, অ্যাভেঞ্জার্স: এজ অব আলট্রনের সাথে শুরু করেন, যা ব্ল্যাক প্যান্থার (২০১৮) দ্বারা অনুসরণ করা হয়। সার্কিসের কাছে তার নিজস্ব প্রোডাকশন কোম্পানি এবং মোশন ক্যাপচার কর্মশালা আছে, লণ্ডনে দ্য ইমাজিনারিয়াম, যা তিনি মোগলি-এর জন্য ব্যবহার করেন। তিনি ইমাজিনারিয়ামের ২০১৭-এর চলচ্চিত্র ব্রিথ-এর সাথে তার পরিচালনার প্রথম আত্মপ্রকাশ করেন।

প্রাথমিক জীবন[সম্পাদনা]

সার্কিস মিডলসেক্সে রুইসলিপ ম্যানোরে জন্মগ্রহণ করেন এবং বেড়ে ওঠেন। তার মা, লাইলি (জন্ম উইচ), ছিলেন ইংরেজ এবং বিকলাঙ্গ শিশুদের পড়ান; তার বাবা, ক্লেমেন্ট সার্কিস, ছিলেন ইরাকে জন্ম নেওয়া আর্মেনিয় বংশের গাইনেকোলজিস্ট[৬][৭] তার পূর্বপুরুষদের আসল বংশনাম ছিল "সার্কিসিয়ান"।[৮] তার বাবা প্রায়ই মধ্যপ্রাচ্যে দূরে কাজ করতেন, যেখানে সার্কিস এবং তার ভাইবোনরা ব্রিটেনে মধ্যপ্রাচ্যের নিয়মিত ছুটির দিনের সাথে বেড়ে ওঠেন, যার মধ্যে রয়েছে টাইরে, সিডন, দামেস্কাস এবং বাগদাদ[৯]

সার্কিস সেন্ট বেনেডিক্ট'স স্কুল, ইলিং-এ লেখাপড়া করেন, এবং পরে ল্যাঙ্কস্টার বিশ্ববিদ্যালয়ে দৃশ্যশিল্প নিয়ে পড়াশোনা করেন। তিনি থিয়েটার একটি দ্বিতীয় বিষয় হিসেবে বেছে নিয়েছিলেন যাতে তিনি পোস্টার নকশা করতে পারেন।[১০] সার্কিস দ্য কাউন্টি কলেজের সদস্য এবং শিক্ষার্থী রেডিও স্টেশন বেইলরিগ এফএমের অংশ ছিলেন। তিনি নাফিল স্টুডিও-তে যোগদান করেন, নাটক উদ্ভাবন এবং প্রযোজনায় জড়িয়ে গিয়েছিলেন।

তার প্রথম বছরের শেষের দিকে কয়েকটি প্রোডাকশনে অভিনয়ের জন্য রাজি হওয়ার পর, ব্যারি কিফে-এর নাটক, গচ্চা-এ মুখ্য ভূমিকায় অভিনয় করেন, একটি শিক্ষক জিম্মি সহ্য করা এক বিদ্রোহী কিশোর হিসেবে।

কর্মজীবন[সম্পাদনা]

দ্য ইমাজিনারিয়াম স্টুডিওস[সম্পাদনা]

পরিচালনা[সম্পাদনা]

অন্যান্য আজ[সম্পাদনা]

ব্যক্তিগত জীবন[সম্পাদনা]

২০১৩-তে সার্কিস এবং তার স্ত্রী লরেইনে অ্যাশবোর্ন

সার্কিস ক্যাথলিক মাতাপিতার কাছে জন্মগ্রহণ করেন, যদিও তার কিশোর বয়স থেকে তিনি একজন নাস্তিক ছিলেন, তাকে "শক্তি স্থানান্তরের কর্মিক সম্ভাবনাতে টেনে আনা হয়", বিশেষভাবে "এই ধারণা যে আপনার শক্তির পরে আপনার জীবনে থাকে"। তিনি ১৯৮৫-তে, ল্যাঙ্কস্টার বিশ্ববিদ্যালয় থেকে তার ডিগ্রির একটি অংশ হিসেবে দৃশ্যশিল্প এবং থিয়েটার পড়েন এবং স্নাতক পাশ করেন।

তিনি অভিনেত্রী লরেইনে অ্যাশবোর্ন-কে জুলাই ২০০২-এ বিবাহ করেন। তিনি ক্রাউচ এন্ড, উত্তর লন্ডন-এ তার স্ত্রী এবং তিন সন্তান রুবি (জ.১৯৯৮), সন্নি (জ.২০০০) এবং লুয়িস (জ.২০০৪)-এর সাথে বসবাস করেন।

চলচ্চিত্রসমূহের তালিকা[সম্পাদনা]

নির্বাচিত নাটক[সম্পাদনা]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. "SERKIS, Andy"। Ftvdb.bfi.org.uk। ১৬ এপ্রিল ২০০৯। সংগ্রহের তারিখ ১২ জুলাই ২০১০ 
  2. "Mr Andrew Clement Serkis | Level"। Levelbusiness.com। ৬ সেপ্টেম্বর ২০১২ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২১ আগস্ট ২০১১ [স্থায়ীভাবে অকার্যকর সংযোগ]
  3. "Oscars debate for computerised stars makes a monkey out of movie actors". New Zealand Herald. Retrieved 11 January 2015
  4. "Should Oscar go to Andy Serkis or the computer that turned him into an ape?". The Independent. Retrieved 11 January 2015
  5. "Does Andy Serkis's motion capture acting deserve an Oscar?". The Telegraph. Retrieves 11 January 2015
  6. xoanon (১ ফেব্রুয়ারি ২০০১)। "Andy Serkis Talks LOTR"TheOneRing.net। সংগ্রহের তারিখ ২৯ মার্চ ২০১০ 
  7. Shoard, Catherine (১৬ মার্চ ২০০৮)। "Andy Serkis: Beastie boy"The Daily Telegraph। London। সংগ্রহের তারিখ ২২ অক্টোবর ২০১০ 
  8. Nepales, Ruben V. (৬ জুলাই ২০০৭)। "Only in Hollywood Andy Serkis: From Gollum, King Kong to Einstein"Philippine Daily Inquirer। পৃষ্ঠা F2। সংগ্রহের তারিখ ২২ অক্টোবর ২০১০ – Google News-এর মাধ্যমে। 
  9. উদ্ধৃতি ত্রুটি: অবৈধ <ref> ট্যাগ; independent-20121207 নামের সূত্রের জন্য কোন লেখা প্রদান করা হয়নি
  10. Larkin, Mike (৬ আগস্ট ২০১১)। "Rise of the Planet of the Apes: How Andy Serkis brought a rebellious chimp to life"The Daily Mail। London। সংগ্রহের তারিখ ২১ আগস্ট ২০১১ 

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]