অ্যাজোস্পার্মিয়া

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
এজুস্পার্মিয়া
Semen analysis.JPG
বীর্য নিরীক্ষা করে কোন শুক্র কোষ দেখা যায় নি এবং কিছু শ্বেতরক্ত কণিকার উপস্থিতি পাওয়া গেছে
বিশেষত্ববৃক্কশল্যবিদ্যা উইকিউপাত্তে এটি সম্পাদনা করুন

অ্যাজোস্পার্মিয়া হল চিকিৎসা বিজ্ঞানের ভাষায় এমন একটি রোগ যে অবস্থায় একজন পুরুষের বীর্যে কোন শুক্রাণু থাকে না।[১] এটি বন্ধ্যাত্বের সাথে সম্পর্কিত। অনেকগুলি ক্ষেত্রে রোগটি চিকিত্সার জন্য অনুকূল অবস্থায় থাকতে পারে, সে সকল ক্ষেত্রে বীর্যে পুনরায় শুক্রানু আনা যায়। মোট পুরুষ জনসংখ্যার মধ্যে, অ্যাজোস্পার্মিয়ায় প্রায় ১% উক্ত রোগ হয়। [২] এবং কানাডায় পুরুষ বন্ধ্যাত্বের ক্ষেত্রে এ হার ২০% পর্যন্ত দেখা গেছে। [৩]

শ্রেণিবিন্যাস[সম্পাদনা]

অ্যাজোস্পার্মিয়াকে তিনটি প্রধান শ্রেণীর মধ্যে শ্রেণীবদ্ধ করা যেতে পারে। [৩] তালিকাভুক্ত অনেক অবস্থায় অ্যাজোস্পার্মিয়ার পরিবর্তে বিভিন্ন মাত্রার অলিগোস্পার্মিয়া হতে পারে কারন দুটি ক্ষেত্রেই রোগের উপসর্গ একই রকম এবং রোগের উৎসও প্রায় কাছাকাছি হয়ে থাকে। প্রিটেস্টিকুলার এবং টেস্টিকুলার অ্যাজোস্পার্মিয়াকে অ-বাধাজনিত অ্যাজোস্পার্মিয়া বলা হয়। যেখানে পোষ্ট-টেস্টিকুলার অ্যাজোস্পার্মিয়াকে বাধা হিসাবে বিবেচনা করা হয়।

প্রাক-টেস্টিকুলার[সম্পাদনা]

প্রাক টেস্টিকুলার অ্যাজোস্পার্মিয়া চিহ্নিত করা হয় অণ্ডকোষ এবং যৌনাঙ্গ নালীর অপর্যাপ্ত উদ্দীপনার দ্বারা। সাধারণত, ফলিকেল-স্টিমুলেটিং হরমোন (এফএসএইচ) স্তর কম থাকে (হাইপোগোনাডোট্রপিক) শুক্রাণু তৈরির জন্য টেস্টিগুলির অপর্যাপ্ত উদ্দীপনার সাথে যা সঙ্গতিপূর্ণ। উদাহরণগুলির মধ্যে রয়েছে হাইপোপিটুইটারিজম (বিভিন্ন কারণে), হাইপারপ্রোলেটিনেমিয়া এবং টেস্টোস্টেরন দ্বারা বহিরাগত এফএসএইচ দমন। কেমোথেরাপির ফলে শুক্রাণু দমন হতে পারে। [৪] প্রিটেস্টিকুলার কারনে ঘটা অ্যাজোস্পার্মিয়া মোট অ্যাজোস্পার্মিয়া রোগীর প্রায় ২% ক্ষেত্রে দেখা যায়। [৩] প্রিটেস্টিকুলার অ্যাজোস্পার্মিয়া এক ধরনের অ-বাধাজনিত অ্যাজোস্পার্মিয়া।

অণ্ডকোষী জনিত[সম্পাদনা]

এই পরিস্থিতিতে অন্ডকোষগুলি অস্বাভাবিক, অ্যাট্রোফিক বা অনুপস্থিত থাকে এবং শুক্রাণু উত্পাদন অনুপস্থিতির কারনে মারাত্মকভাবে ব্যহত হয়। এফএইচএস গ্রহণকারী ধাপটি ব্যাহত হওয়ায় (এফএসএইচে প্রতিক্রিয়া প্রতিরোধের অভাব) এফএসএইচ স্তরগুলি অনেক বেড়ে যাওয়ার (হাইপারগোনাডোট্রপিক) প্রবণতা রয়েছে। এই অবস্থাটি অ্যাজোস্পার্মিয়াতে আক্রান্ত মোট পুরুষদের ৪৯-৯৩% পুরুষদের মধ্যে দেখা যায়। [৩] টেস্টিকুলার ব্যর্থতার ফলে শুক্রাণুজনিত প্রক্রিয়া ক্ষতিগ্রস্থ হয় যেমন: শুক্রানু উৎপাদন চলাকালীন ব্যর্থতা বা কম উত্পাদন এবং শুক্রানু পরিপক্কতা না পাওয়া ইত্যাদি।

টেস্টিকুলার ব্যর্থতার কারণগুলির মধ্যে জন্মগত সমস্যা যেমন কিছু জেনেটিক অবস্থা দায়ী থাকে উদাঃ ক্লাইনফেল্টার সিন্ড্রোম ), ক্রিপ্টোর্কিডিজম বা সের্টোলি সেল কেবলমাত্র সিনড্রোম এছাড়াও কিছু ক্ষেত্রে সংক্রমণ ( অর্কিটিস ), সার্জারি (ট্রমা, ক্যান্সার), বিকিরণ,[৪] বা অন্যান্য কারণে টেস্টিকুলার ব্যর্থতা দেখা যায়। মাস্ট কোষগুলি হতে নিসৃত প্রদাহজনক মধ্যস্থতাকারীগুলি সরাসরি শুক্রাণুর গতিশীলতা দমন করে উল্টো পদ্ধতিতে এবং এটি একটি সাধারণ প্যাথোফিজিওলজিক্যাল প্রক্রিয়া যা বিভিন্ন কারনে ঘটা প্রদাহের ক্ষেত্রে একই রকম আচরণ করে। [৫] টেস্টিকুলার অ্যাজোস্পার্মিয়া হ'ল এক প্রকার অ-বাধাপ্রাপ্ত অ্যাজোস্পার্মিয়া।

সাধারণত, অব্যক্ত হাইপারগোনাডোট্রপিক অ্যাজোস্পার্মিয়ায় আক্রান্ত পুরুষদের ক্রোমোসোমাল মূল্যায়ন করতে হয়।

পোষ্ট-টেস্টিকুলার[সম্পাদনা]

টেস্টিকুলার পরবর্তী অ্যাজোস্পার্মিয়ায় শুক্রাণু উত্পাদিত হয় তবে বীর্যপাতের সাথে নির্গত হয় না, এমন একটি অবস্থা যা মোট আক্রান্ত পুরুষের ৭-৫১% পুরুষকে প্রভাবিত করে। [৩] মূল কারণটি হল টেস্টিকুলার পরবর্তী যৌনাঙ্গে জৈব নালীগুলির পথে একটি শারীরিক বাধা (বাধা অ্যাজোস্পার্মিয়া)। সর্বাধিক সাধারণ কারণটি হল পুরুষ গর্ভনিরোধক উদ্দেশ্যে নেয়া একটি পদ্ধতি। [৬] অন্যান্য বাধাগুলি জন্মগত (যেমন সিস্ট ফাইব্রোসিসের কিছু ক্ষেত্রে দেখা যায় ভাস ডিফারেন্সের কারনে উদাহরণস্বরূপ অ্যালেনেসিস) বা আগে ছিল না পরে বিভিন্ন কারনে তৈরি হওয়া বাধা যেমন সংক্রমণের দ্বারা বীর্যপাতের নালীতে বাধা থাকা।

বীর্যস্খলন রোগের মধ্যে থাকতে পারে পশ্চাত্গামী রেতঃপাত এবং এনইজাকুলেশন; এই সকল পরিস্থিতিতে শুক্রাণু উত্পাদিত হয় তবে বের হয় না।

অজানা[সম্পাদনা]

আইডোপ্যাথিক অ্যাজোস্পার্মিয়া হ'ল যেখানে অবস্থার কোনও কারণ জানা যায় না। এটি বয়স এবং ওজনের মতো একাধিক ঝুঁকির কারণে হতে পারে। উদাহরণস্বরূপ, ২০১৩ সালে একটি পর্যালোচনায় উঠে এসেছিল যে অলিগোস্পার্মিয়া এবং এজুস্পার্মিয়া উল্লেখযোগ্যভাবে বেশি ওজন ( ওডস রেশিও ১.১), স্থূলকায় (অদ্ভুত অনুপাত ১.৩) হওয়ার সাথে জড়িত, তবে এর কারণ অজানা। [৭] পর্যালোচনাতে অলিগোস্পার্মিয়া এবং ওজন কম হওয়ার মধ্যে কোনও উল্লেখযোগ্য সম্পর্ক পাওয়া যায় নি।

জিনগত কারন[সম্পাদনা]

জেনেটিক কারণে প্রাকটেস্টিকুলার, অণ্ডকোষ এবং পোস্ট-টেস্টিকুলার অ্যাজোস্পার্মিয়া (বা অলিগোস্পার্মিয়া ) সৃষ্টি হতে পারে এবং নিম্নলিখিত পরিস্থিতিও জিনগত কারনে হয়ে থাকে:[৮] ক্রোমসোমাল অস্বাভাবিকতার ফ্রিকোয়েন্সি বীর্য সংখ্যার বিপরীতভাবে সমানুপাতিক, সুতরাং অ্যাজোস্পার্মিয়াযুক্ত পুরুষদের মধ্যে ১০-১৫% এরূপ কারনে হওয়ার ঝুঁকি থাকে। অন্যান্য উত্সগুলি একে ১৫-২০% ঘটনা এরূপ বলে উল্লেখ করে থাকে।[৯] উর্বর পুরুষ জনসংখ্যার প্রায় <১% ক্যারিয়োটাইপিংয়ের অস্বাভাবিকতা রয়েছে। [১০]

চিকিত্সা[সম্পাদনা]

প্রি এবং পোষ্ট টেস্টিকুলার অ্যাজোস্পার্মিয়া প্রায়শই সংশোধনযোগ্য, অন্যদিকে টেস্টিকুলার অ্যাজোস্পার্মিয়া সাধারণত স্থায়ী হয়। [২] পূর্ববর্তী ধাপ হিসেবে অ্যাজোস্পার্মিয়ার কারণ বিবেচনা করা প্রয়োজন এবং সরাসরি এই পরিস্থিতি পরিচালনা করার জন্য সম্ভাবনাগুলি সহজেই নির্ণয় করা যায়। হাইপারপ্রোলাক্টিনেমিয়ার কারণে অজোস্পার্মিয়া আক্রান্ত পুরুষরা হাইপারপ্রোল্যাকটিনিমিয়া চিকিত্সার পরে শুক্রাণু উত্পাদন পুনরায় শুরু করতে পারেন বা যাদের শুক্রাণু উত্পাদন এক্সোজেনাস অ্যান্ড্রোজেন দ্বারা দমন করা হয় তারা অ্যান্ড্রোজেন গ্রহণ বন্ধ হওয়ার পরে শুক্রাণু উত্পাদন করবেন বলে আশা করা যায়। এমন পরিস্থিতিতে যেখানে টেস্টিসগুলি স্বাভাবিক তবে অনুদ্দীপক, সেখানে গোনাডোট্রপিন থেরাপির মাধ্যমে শুক্রাণু উত্পাদন শুরু করা যায় বলে আশা করা যায়।

আরো দেখুন[সম্পাদনা]

  • বন্ধ্যাত্ব
  • প্রতিবিম্বিত বীর্যপাত
  • ভ্যাসেক্টমি

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. Berookhim, BM; Schlegel, PN (ফেব্রুয়ারি ২০১৪)। "Azoospermia due to spermatogenic failure.": 97–113। ডিওআই:10.1016/j.ucl.2013.08.004পিএমআইডি 24286770 
  2. Male Infertility Best Practice Policy Committee of the American Urological Association; Practice Committee of the American Society for Reproductive Medicine (২০০১)। Infertility: Report on Evaluation of the Azoospermic Male (PDF)American Urological Association; American Society for Reproductive Medicineআইএসবিএন 978-0-9649702-8-1 
  3. Jarvi, K; Lo, K (২০১০)। "CUA Guideline: The workup of azoospermic males": 163–7। ডিওআই:10.5489/cuaj.10050পিএমআইডি 20514278পিএমসি 2874589অবাধে প্রবেশযোগ্য  উদ্ধৃতি ত্রুটি: <ref> ট্যাগ বৈধ নয়; আলাদা বিষয়বস্তুর সঙ্গে "cua" নামটি একাধিক বার সংজ্ঞায়িত করা হয়েছে উদ্ধৃতি ত্রুটি: <ref> ট্যাগ বৈধ নয়; আলাদা বিষয়বস্তুর সঙ্গে "cua" নামটি একাধিক বার সংজ্ঞায়িত করা হয়েছে উদ্ধৃতি ত্রুটি: <ref> ট্যাগ বৈধ নয়; আলাদা বিষয়বস্তুর সঙ্গে "cua" নামটি একাধিক বার সংজ্ঞায়িত করা হয়েছে উদ্ধৃতি ত্রুটি: <ref> ট্যাগ বৈধ নয়; আলাদা বিষয়বস্তুর সঙ্গে "cua" নামটি একাধিক বার সংজ্ঞায়িত করা হয়েছে
  4. Dohle, Gert R (২০১০)। "Male infertility in cancer patients: Review of the literature": 327–331। ডিওআই:10.1111/j.1442-2042.2010.02484.xঅবাধে প্রবেশযোগ্যপিএমআইডি 20202000  উদ্ধৃতি ত্রুটি: <ref> ট্যাগ বৈধ নয়; আলাদা বিষয়বস্তুর সঙ্গে "dohle" নামটি একাধিক বার সংজ্ঞায়িত করা হয়েছে
  5. Menzies, F. M.; Shepherd, M. C. (২০১০)। "The role of mast cells and their mediators in reproduction, pregnancy and labour": 383–396। ডিওআই:10.1093/humupd/dmq053অবাধে প্রবেশযোগ্যপিএমআইডি 20959350 
  6. Practice Committee of ASRM, August 2008। "The management of infertility due to obstructive azzospermia" (PDF)। সংগ্রহের তারিখ জুন ১৪, ২০১০ 
  7. [১] Sermondade, N.; Faure, C. (২০১২)। "BMI in relation to sperm count: An updated systematic review and collaborative meta-analysis": 221–231। ডিওআই:10.1093/humupd/dms050পিএমআইডি 23242914পিএমসি 3621293অবাধে প্রবেশযোগ্য 
  8. Poongothai, J; Gopenath, TS (২০০৯)। "Genetics of human male infertility": 336–47। পিএমআইডি 19421675 
  9. Padubidri; Daftary (2011). Shaw's Textbook of Gynaecology, 15e. p. 205. আইএসবিএন ৯৭৮-৮১-৩১২-২৫৪৮-৬
  10. Male Infertility Best Practice Policy Committee of the American Urological Association; Practice Committee of the American Society for Reproductive Medicine (২০০১)। Infertility: Report on Evaluation of the Azoospermic Male (PDF)American Urological Association; American Society for Reproductive Medicineআইএসবিএন 978-0-9649702-8-1 Male Infertility Best Practice Policy Committee of the American Urological Association; Practice Committee of the American Society for Reproductive Medicine (2001). Infertility: Report on Evaluation of the Azoospermic Male (PDF). American Urological Association; American Society for Reproductive Medicine. ISBN 978-0-9649702-8-1.

বহিঃ সংযোগ[সম্পাদনা]

শ্রেণীবিন্যাস
-স্পার্মিয়া,
আরো জানুন: অন্ডকোষীয় অনুর্বরতার কারণগুলো
এস্পার্মিয়া—বীর্যের অভাব; বীর্যপাত করতে না পারা
এস্থেনোজুস্পার্মিয়া— আদর্শমানের চেয়ে শুক্রানুর গতিশীলতা কম থাকা
অ্যাজোস্পার্মিয়া—বীর্যপাত হলেও তাতে শুক্রানু না থাকা
হাইপারস্পার্মিয়া— আদর্শমানের চেয়ে অত্যাধিক হারে রেতঃপাত হওয়া
হাইপোস্পার্মিয়া—আদর্শমানের চেয়ে কম হারে রেতঃপাত হওয়া
ওলিগোস্পার্মিয়া—আদর্শমানের চেয়ে মোট শুক্রানুর পরিমান কম থাকা
নেক্রোস্পার্মিয়া—বীর্যে জীবিত বা কার্যকরি শুক্রের অনুপস্থিতি
টেরাটোস্পার্মিয়া—বীর্যে শুক্রের স্বাভাবিক আকার-আকৃতি আদর্শমানের তুলনায় কম থাকা