বিষয়বস্তুতে চলুন

অস্ট্রেলিয়া জাতীয় অনূর্ধ্ব-২৩ ফুটবল দল

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
অস্ট্রেলিয়া অনূর্ধ্ব-২৩
দলের লোগো
ডাকনামসকারুস
অ্যাসোসিয়েশনঅস্ট্রেলিয়া ফুটবল ফেডারেশন
কনফেডারেশনএএফসি (এশিয়া)
প্রধান কোচগ্র্যাহাম আর্নল্ড
মাঠবিভিন্ন
ফিফা কোডAUS
ওয়েবসাইটwww.socceroos.com.au/australian-u23s
প্রথম জার্সি
দ্বিতীয় জার্সি
প্রথম আন্তর্জাতিক খেলা
 নতুন ক্যালিডোনিয়া ২–১ অস্ট্রেলিয়া 
(নুমেয়া, নতুন ক্যালিডোনিয়া; ৬ নভেম্বর ১৯৬৭)
বৃহত্তম জয়
 অস্ট্রেলিয়া ১২–০ ভানুয়াতু 
(অ্যাডিলেড, অস্ট্রেলিয়া; ২৫ জানুয়ারি ১৯৯৬)
বৃহত্তম পরাজয়
 অস্ট্রেলিয়া ১–৬ পোল্যান্ড 
(বার্সেলোনা, স্পেন; ৫ আগস্ট ১৯৯২)
গ্রীষ্মকালীন অলিম্পিক
অংশগ্রহণ৫ (১৯৯২-এ প্রথম)
সেরা সাফল্যচতুর্থ স্থান (১৯৯২)
এএফসি অনূর্ধ্ব-২৩ চ্যাম্পিয়নশিপ
অংশগ্রহণ৪ (২০১৩-এ প্রথম)
সেরা সাফল্যতৃতীয় স্থান (২০২০)

অস্ট্রেলিয়া জাতীয় অনূর্ধ্ব-২৩ ফুটবল দল (ইংরেজি: Australia national under-23 football team; যা অস্ট্রেলিয়া অলিম্পিক ফুটবল দল অথবা অস্ট্রেলিয়া অনূর্ধ্ব-২৩ নামেও পরিচিত) হচ্ছে আন্তর্জাতিক ফুটবলে অস্ট্রেলিয়ার প্রতিনিধিত্বকারী পুরুষদের অনূর্ধ্ব-২৩ দল, যার সকল কার্যক্রম অস্ট্রেলিয়ার ফুটবলের সর্বোচ্চ নিয়ন্ত্রক সংস্থা অস্ট্রেলিয়া ফুটবল ফেডারেশন দ্বারা নিয়ন্ত্রিত হয়।[১][২] ১৯৬৭ সালের ৬ই নভেম্বর তারিখে, অস্ট্রেলিয়া অনূর্ধ্ব-২৩ প্রথমবারের মতো আন্তর্জাতিক খেলায় অংশগ্রহণ করেছে; নতুন ক্যালিডোনিয়ার নুমেয়ায় অনুষ্ঠিত উক্ত ম্যাচে অস্ট্রেলিয়া নতুন ক্যালিডোনিয়া অনূর্ধ্ব-২৩ দলের কাছে ২–১ গোলের ব্যবধানে পরাজিত হয়েছে।

সকারুস নামে পরিচিত এই দলটি বেশ কয়েকটি স্টেডিয়ামে তাদের হোম ম্যাচগুলো আয়োজন করে থাকে। এই দলের প্রধান কার্যালয় অস্ট্রেলিয়ার সিডনিতে অবস্থিত। বর্তমানে এই দলের ম্যানেজারের দায়িত্ব পালন করছেন গ্র্যাহাম আর্নল্ড। অস্ট্রেলিয়া অনূর্ধ্ব-২৩ এপর্যন্ত ৫ বার গ্রীষ্মকালীন অলিম্পিকে অংশগ্রহণ করেছে, যার মধ্যে সেরা সাফল্য হচ্ছে ১৯৯২ গ্রীষ্মকালীন অলিম্পিকে চতুর্থ স্থান অর্জন করা।[৩]

ব্রেট এমার্টন, মার্ক মিলিগান, মার্ক ব্রিজ, নিক ডি'অগস্টিনো এবং জর্জ ব্ল্যাকউডের মতো খেলোয়াড়গণ অস্ট্রেলিয়ার অনূর্ধ্ব-২৩ দলের জার্সি গায়ে মাঠ কাঁপিয়েছেন।

প্রতিযোগিতামূলক তথ্য

[সম্পাদনা]

গ্রীষ্মকালীন অলিম্পিক

[সম্পাদনা]
গ্রীষ্মকালীন অলিম্পিক
সাল পর্ব অবস্থান ম্যাচ জয় ড্র হার স্বগো বিগো
ফ্রান্স ১৯০০ অংশগ্রহণ করেনি
মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র ১৯০৪
যুক্তরাজ্য ১৯০৮
সুইডেন ১৯১২
বেলজিয়াম ১৯২০
ফ্রান্স ১৯২৪
নেদারল্যান্ডস ১৯২৮
জার্মানি ১৯৩৬
যুক্তরাজ্য ১৯৪৮
ফিনল্যান্ড ১৯৫২
অস্ট্রেলিয়া ১৯৫৬ কোয়ার্টার-ফাইনাল ৫ম
ইতালি ১৯৬০ নিষিদ্ধ
জাপান ১৯৬৪ অংশগ্রহণ করেনি
মেক্সিকো ১৯৬৮
পশ্চিম জার্মানি ১৯৭২
কানাডা ১৯৭৬
সোভিয়েত ইউনিয়ন ১৯৮০
মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র ১৯৮৪
দক্ষিণ কোরিয়া ১৯৮৮ কোয়ার্টার-ফাইনাল ৭ম
স্পেন ১৯৯২ ৩য় স্থান নির্ধারণী ৪র্থ ১২
মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র ১৯৯৬ গ্রুপ পর্ব ১৩তম
অস্ট্রেলিয়া ২০০০ গ্রুপ পর্ব ১৫তম
গ্রিস ২০০৪ কোয়ার্টার-ফাইনাল ৭ম
চীন ২০০৮ গ্রুপ পর্ব ১১তম
যুক্তরাজ্য ২০১২ অংশগ্রহণ করেনি
ব্রাজিল ২০১৬
জাপান ২০২০ অনির্ধারিত
মোট চতুর্থ স্থান ৭/২৬ ২৫ ১৫ ২৮ ৪১

তথ্যসূত্র

[সম্পাদনা]
  1. "Australia U23 - Club profile"Transfermarkt (জার্মান ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ২০২১-০৭-১৮ 
  2. "Australia U-23 News"Socceroos। ২০২১-০৭-১৮। সংগ্রহের তারিখ ২০২১-০৭-১৮ 
  3. "Olympic Football Tournament Final"FIFA। ১৯৯২-০৮-০৭। সংগ্রহের তারিখ ২০২১-০৭-১৮ 

বহিঃসংযোগ

[সম্পাদনা]