অসম কারবি আংলং আদা

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন

অসম কাৰ্বি আংলং আদা (অসমীয়া: অসম কাৰ্বি আংলং আদা) হচ্ছে অাসামের কার্বি আংলং জেলায় উৎপাদিত মসলাজাতিয় উদ্ভিদ। এটি Zingiberaceae পরিবারের অন্তৰ্গত Zingiber গণের একপ্ৰকারের সপুশ্পক উদ্ভিদ, বৈজ্ঞানিক নাম হচ্ছে Zingiber officinale Rosc। অসম কাৰ্বি আংলং আদার কয়েকটা প্ৰকারভেদ আছে। এর মধ্যে নদীয়া এবং ভোলা অতি জনপ্ৰিয় প্ৰকার, আইজল নামের আরও এক প্ৰকারের আদা ও কাৰ্বি আংলঙের কৃষকেরা চাষ করে।

ভৌগোলিক অবস্থান[সম্পাদনা]

কাৰ্বি আংলং হচ্ছে অসমের আদা উৎপাদন করা অঞ্চলসমূহের ভিতর সবথেকে গুরুত্বপূৰ্ণ অঞ্চল। এই জেলার রিডুং, ওমালফের এবং সিংহাসন পাহারের প্ৰায় পাঁচ সহস্ৰাধিক কৃষকে বছরে চল্লিশ হাজার মেট্ৰিকটন আদা উৎপাদন করে। আদা চাষের অণুকূল সিংহাসন পাহারের জলবায়ু এবং কৃষিভূমিতে অতি উন্নত মানের আদা উৎপাদিত হয়। ২৪°০৩′ উত্তর ৮৯°২৫′ পূর্ব / ২৪.০৫° উত্তর ৮৯.৪২° পূর্ব / 24.05; 89.42 এবং ২৮°০০′ উত্তর ৯৬°০০′ পূর্ব / ২৮.০০° উত্তর ৯৬.০০° পূর্ব / 28.00; 96.00 ভৌগোলিক স্থানাংকের মধ্যে কাৰ্বি আংলং আদার উৎপাদন হয়।

প্ৰকারভেদ[সম্পাদনা]

অসম কাৰ্বি আংলং আদার কয়েকটা প্ৰকারভেদ আছে। এর মধ্যে নদীয়া এবং ভোলা অতি জনপ্ৰিয় প্ৰকার।

নদীয়া প্ৰকারের আদায় রূপান্তরিত কাণ্ডের মাধ্যমে শক্ত, পাতলা মেটে বর্ণ, তীক্ষ্ণ স্বাদের তথা গণ্ধযুক্ত হয়।

ভৌগোলিক স্বীকৃতি[সম্পাদনা]

২০১৫ সালের ৩১ মাৰ্চ চেন্নাইএ অবস্থিত ভৌগোলিক স্বীকৃতি প্ৰদানকারী প্রধান কাৰ্যালয় থেকে উত্তর-পূর্বের অন্য আঠ টি উৎপাদিত পণ্যের সাথে অসম কাৰ্বি আংলং আদা ভৌগোলিক স্বীকৃতি লাভ করে।[১]

ভৌগোলিক স্বীকৃতি লাভ করা উত্তর-পূর্বের অন্য আঠ টি উৎপাদিত পণ্য হচ্ছে অসমের তেজপুর লিচু (অসম), খাছী মেণ্ডারিণ (মেঘালয়), লারজ কারডামম (সিকিম), চরাই চকুয়া জলকীয়া (মিজোরাম), কচাই নেমু (মণিপুর), কুইন মাটিকঠাল (ত্রিপুরা), অরুণাচল কমলা (অরুণাচল প্রদেশ) এবং নাগাল্যান্ড গাছ আলু (নাগাল্যান্ড)।[২]

তথ্য সূত্র[সম্পাদনা]