অশোক মালহোত্রা

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
অশোক মালহোত্রা
ব্যক্তিগত তথ্য
পূর্ণ নামঅশোক ওমপ্রকাশ মালহোত্রা
জন্ম২৬ জানুয়ারি, ১৯৫৭
অমৃতসর, পাঞ্জাব, ভারত
ব্যাটিংয়ের ধরনডানহাতি
বোলিংয়ের ধরনডানহাতি মিডিয়াম
ভূমিকাব্যাটসম্যান, কোচ, প্রশাসক, ধারাভাষ্যকার
আন্তর্জাতিক তথ্য
জাতীয় পার্শ্ব
টেস্ট অভিষেক
(ক্যাপ ১৫৫)
১৩ জানুয়ারি ১৯৮২ বনাম ইংল্যান্ড
শেষ টেস্ট৩১ জানুয়ারি ১৯৮৫ বনাম ইংল্যান্ড
ওডিআই অভিষেক
(ক্যাপ ৪০)
২৭ জানুয়ারি ১৯৮২ বনাম ইংল্যান্ড
শেষ ওডিআই৫ ফেব্রুয়ারি ১৯৮৬ বনাম অস্ট্রেলিয়া
খেলোয়াড়ী জীবনের পরিসংখ্যান
প্রতিযোগিতা টেস্ট ওডিআই
ম্যাচ সংখ্যা ২০
রানের সংখ্যা ২২৬ ৪৫৭
ব্যাটিং গড় ২৫.১১ ৩০.৪৬
১০০/৫০ -/১ -/১
সর্বোচ্চ রান ৭২* ৬৫
বল করেছে ১৮
উইকেট - -
বোলিং গড় - -
ইনিংসে ৫ উইকেট - -
ম্যাচে ১০ উইকেট - -
সেরা বোলিং - -
ক্যাচ/স্ট্যাম্পিং ২/- ৪/-
উৎস: ইএসপিএনক্রিকইনফো.কম, ৬ আগস্ট ২০২০

অশোক ওমপ্রকাশ মালহোত্রা (এই শব্দ সম্পর্কেউচ্চারণ ; মারাঠি: अशोक मल्होत्रा; জন্ম: ২৬ জানুয়ারি, ১৯৫৭) পাঞ্জাবের অমৃতসর এলাকায় জন্মগ্রহণকারী সাবেক ভারতীয় আন্তর্জাতিক ক্রিকেটার, কোচ, প্রশাসক ও ধারাভাষ্যকার। ভারত ক্রিকেট দলের অন্যতম সদস্য ছিলেন তিনি। ১৯৮০-এর দশকের মাঝামাঝি সময়কালে ভারতের পক্ষে আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে অংশগ্রহণ করেছেন।[১][২][৩]

ঘরোয়া প্রথম-শ্রেণীর ভারতীয় ক্রিকেটে বাংলাহরিয়ানা দলের প্রতিনিধিত্ব করেন। দলে তিনি মূলতঃ ডানহাতি ব্যাটসম্যান হিসেবে খেলতেন। এছাড়াও, ডানহাতে মিডিয়াম বোলিংয়ে পারদর্শী ছিলেন অশোক মালহোত্রা

প্রথম-শ্রেণীর ক্রিকেট[সম্পাদনা]

১৯৭৩-৭৪ মৌসুম থেকে ১৯৯৪-৯৫ মৌসুম পর্যন্ত অশোক মালহোত্রা’র প্রথম-শ্রেণীর খেলোয়াড়ী জীবন চলমান ছিল। আকর্ষণীয় ডানহাতি মাঝারিসারির ব্যাটসম্যান ছিলেন অশোক মালহোত্রা। জিআর বিশ্বনাথের আদলে খেললেও টেস্ট ক্রিকেট তিনি তার শুরুরদিকের প্রতিশ্রুতিশীলতার স্বাক্ষর মেলে ধরতে পারেননি। এছাড়াও, সামগ্রিক পরিসংখ্যানও তার প্রতিকূলে রয়েছে।

রঞ্জী ট্রফিতে তৎকালীন সর্বোচ্চ রানের ইনিংস খেলেছিলেন তিনি। তাকে ভারতীয় ক্রিকেটের পরবর্তী গুণ্ডাপ্পা বিশ্বনাথ হিসেবে ডাকা হতো। স্কটল্যান্ডের ফিফে এলাকায় ডানফারমলাইন ক্রিকেট ক্লাবে বিদেশী খেলোয়াড় হিসেবে ১৯৯০-এর দশকের শুরুরদিকে খেলেন। এ সময়ে তিনি ডানফারমলাইন অ্যাথলেটিক এফসি’র সমর্থক ছিলেন।

আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে ব্যর্থতার পরিচয় দিলেও ঘরোয়া ক্রিকেটে বেশ ভালো খেলেছিলেন তিনি। দীর্ঘদিন ধরে ১৮ শতক সহযোগে ৫২.৪৯ গড়ে ৭,২৭৪ রান সংগ্রহ করে সর্বোচ্চ রান সংগ্রাহক হিসেবে রয়েছেন। ১৯৮৯-৯০ মৌসুমে বাংলার সদস্যরূপে হায়দ্রাবাদের বিপক্ষে ২৫৮ রানের অপরাজিত ইনিংস খেলেন। এটিই তার ব্যক্তিগত সর্বোচ্চ রানের ইনিংস ছিল।

আন্তর্জাতিক ক্রিকেট[সম্পাদনা]

সমগ্র খেলোয়াড়ী জীবনে সাতটিমাত্র টেস্ট ও বিশটি একদিনের আন্তর্জাতিকে অংশগ্রহণ করেছেন অশোক মালহোত্রা। ১৩ জানুয়ারি, ১৯৮২ তারিখে চেন্নাইয়ে সফরকারী ইংল্যান্ড দলের বিপক্ষে টেস্ট ক্রিকেটে অভিষেক ঘটে তার। ৩১ জানুয়ারি, ১৯৮৫ তারিখে কানপুরে একই দলের বিপক্ষে সর্বশেষ টেস্টে অংশ নেন তিনি।

ঘরোয়া ক্রিকেটে কয়েকটি দূর্দান্ত খেলা প্রদর্শনের পর তাকে জাতীয় দলের পক্ষে খেলার জন্যে অন্তর্ভূক্ত করা হয়। প্রথম কয়েকটি টেস্টে নিজেকে বিকশিত করতে পারেননি। ফলশ্রুতিতে, তাকে দলের বাইরে রাখা হয়।

১৯৮৩ সালে ওয়েস্ট ইন্ডিজ গমন করেন। তবে, তাকে কোন টেস্টে খেলানো হয়নি। এরপর ১৯৮৩-৮৪ মৌসুমে স্বদেশে সফরকারীদের বিপক্ষে তুলনামূলকভাবে ভালোমানের খেলা উপহার দেন। ৩২, অপরাজিত ৭২, ২০ ও ৩০ রান তুলেন। তন্মধ্যে, শেষের ইনিংসটি দলের সংগৃহীত ৯০ রানের মধ্যে সর্বোচ্চ ছিল। এরপর, তিনি আবারও বাদ পড়েন। ১৯৮৪-৮৫ মৌসুমে ইংল্যান্ডের বিপক্ষে আরও এক টেস্টে অংশ নেন। ১৯৮৫ সালে অস্ট্রেলিয়ায় অনুষ্ঠিত বিশ্ব চ্যাম্পিয়নশীপ বিজয়ী ভারতীয় দলের সদস্য ছিলেন।

অবসর[সম্পাদনা]

ক্রিকেট খেলা থেকে অবসর গ্রহণের পর অশোক মালহোত্রা ক্রিকেট একাডেমি প্রতিষ্ঠা করেন। সেখানে প্রায় তিনশত ছাত্রকে প্রশিক্ষণ দেয়া হয়। খুব স্বল্পসংখ্যক ভারতীয় হিসেবে তৃতীয় পর্যায়ের কোচ হিসেবে প্রশিক্ষণ নিয়েছেন তিনি।

সংক্ষিপ্ত সময়ের জন্যে ভারত দলে জন রাইটের অনুপস্থিতিতে কোচের দায়িত্বে ছিলেন। ২০০৩ সালে ঢাকায় অনুষ্ঠিত ত্রি-দেশীয় সিরিজকে ঘিরে ভারত দলে দায়িত্ব পালনের পাশাপাশি ভারত এ দলকেও প্রশিক্ষণ দিতেন। ২২ জুলাই, ২০১৩ তারিখে বাংলা ক্রিকেট দলের কোচ হিসেবে তাকে মনোনীত করা হয়।

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. List of India Test Cricketers
  2. "India – Test Batting Averages"। ESPNCricinfo। সংগ্রহের তারিখ ৪ আগস্ট ২০২০ 
  3. "India – Test Bowling Averages"। ESPNCricinfo। সংগ্রহের তারিখ ৪ আগস্ট ২০২০ 

আরও দেখুন[সম্পাদনা]

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]