অয়ং আত্মা ব্রহ্ম

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে

অয়ং আত্মা ব্রহ্ম (সংস্কৃত: अयम् आत्मा ब्रह्म) হল মহাবাক্য, যা অথর্ববেদের মুণ্ডক উপনিষদে পাওয়া যায়।[১][২] অন্যান্য মহাবাক্য হল- "অহং ব্রহ্মাস্মি", "তৎ ত্বং অসি" ও "প্রজ্ঞানং ব্রহ্ম"।[৩][৪][৫]

মুণ্ডক উপনিষদের দ্বিতীয় অংশে আত্ম-উপলব্ধির জন্য ধ্যানের উপায় হিসেবে ওঁ- কে আলোচনা করা হয়েছে।

অন্যান্য মহাবাক্যের মতো, এটিও ব্রহ্মআত্মার একত্বকে ব্যাখ্যা করে, যা অদ্বৈত দর্শনের মূল নীতি।[৬] গুরু গীতা অনুসারে, "অয়ং আত্মা ব্রহ্ম" হল অভ্যাস বাক্য বা অনুশীলনের বিবৃতি।[৬]

বুৎপত্তি ও অর্থ[সম্পাদনা]

সংস্কৃত শব্দ অয়ং অর্থ 'এটি'। 'আত্মা' বলতে 'আত্ম' বা নিজেকে বোঝায়। ব্রহ্ম হল সর্বোচ্চ সত্তা। তাই "অয়ং আত্মা ব্রহ্ম" অর্থ 'আত্মই ব্রহ্ম'।[৬]

উৎস ও তাৎপর্য[সম্পাদনা]

মহাবাক্যটি অথর্ববেদের মুণ্ডক উপনিষদে পাওয়া যায়।[২][১] মুণ্ডক উপনিষদ ১-২ এ উল্লেখ করা হয়েছে,

[১] ওঁ- এই পুরো পৃথিবীটাই সেই শব্দাংশ! এখানে এটির আরও ব্যাখ্যা রয়েছে। অতীত, বর্তমান ও ভবিষ্যৎ- সবই কেবল ওঁ (ওম); এবং তিন গুণের বাইরে অন্য যা কিছু, সেটিও কেবল ওঁ - [২] কারণ এই ব্রহ্ম হল সমগ্র। ব্রহ্ম হল এই স্বয়ং (আত্মা);যে [ব্রহ্ম] এই স্বয়ং (আত্মা) চার ভাগের সমন্বয়ে গঠিত।[৭]

মুণ্ডক উপনিষদ, দ্বিতীয় মুণ্ডকের প্রথম বিভাগে, আত্ম-ব্রহ্ম মতবাদের সংজ্ঞা ও ব্যাখ্যা করে। এটি দাবী করে যে যেমন জ্বলন্ত আগুন তার নিজস্ব আকারে সহস্র স্ফুলিঙ্গ এবং লাফিয়ে লাফিয়ে শিখার সৃষ্টি করে, তেমনি জীবগুলি ব্রহ্ম থেকে তার আকারে উদ্ভূত হয়।[১] ব্রহ্ম অবিনশ্বর, দেহ ব্যতীত, ইহা বাহির এবং ভিতরে উভয়ই, কখনও উৎপন্ন, মন ব্যতীত, নিঃশ্বাস ব্যতীত, তথাপি ইহা হইতে সকল বস্তুর অন্তর্নিহিত আত্মা আবির্ভূত হয়।[২] ব্রহ্ম থেকে শ্বাস, মন, ইন্দ্রিয়, স্থান, বায়ু, আলো, জল, পৃথিবী, সবকিছুর জন্ম হয়। বিভাগটি এই ধারণাটিকে নিম্নরূপ প্রসারিত করে,[১][২]

আকাশ তার মাথা, তার চোখ সূর্য এবং চাঁদ,
তার কান, তার বক্তৃতা বেদ প্রকাশ করেছে,
বাতাস তার নিঃশ্বাস, তার হৃদয় মহাবিশ্ব,
তাঁর পা থেকে পৃথিবী এসেছে, তিনি আসলেই সমস্ত কিছুর অন্তর্নিহিত স্বয়ং।

তার থেকে আগুন আসে, সূর্য জ্বালানী।
সোম থেকে বৃষ্টি আসে, পৃথিবী থেকে ভেষজ,
পুরুষ নারীর মধ্যে বীজ ঢেলে দেয়,
এইভাবে পুরুষ থেকে অনেক প্রাণীর জন্ম হয়।

তার কাছ থেকে এসেছে ঋক শ্লোক, সামান মন্ত্র, যজু সূত্র, দীক্ষা আচার,
সমস্ত বলিদান, সমস্ত অনুষ্ঠান এবং সমস্ত উপহার,
বছরটিও, বলিদানকারী, বিশ্ববাসী,
যেখানে চাঁদ উজ্জ্বলভাবে জ্বলজ্বল করে, সূর্যের মতো।

তার থেকেও দেবতা বহুগুণে উৎপন্ন হয়,
স্বর্গীয়, পুরুষ, গবাদি পশু, পাখি,
শ্বাস, চাল, ভুট্টা, ধ্যান,
শ্রদ্ধা (বিশ্বাস), সত্য, ব্রহ্মচর্য ও বিধান (আইন)।

— মুণ্ডক উপনিষদ, ২.১.৪[১][২]

উপনিষদ, শ্লোক ২.২.২-এ, মুণ্ডক উপনিষদ দাবি করে যে আত্ম-ব্রহ্মই আসল।[৮] শ্লোক ২.২.৩-এ ধ্যান প্রক্রিয়ায় সাহায্যের প্রস্তাব দেওয়া হয়েছে, যথা ওঁ (ওম)। শ্লোক ২.২.৮ এ দাবি করে যে আত্মজ্ঞানের অধিকারী এবং যিনি ব্রহ্মের সাথে একাত্ম হয়েছেন, তিনি মুক্ত, কর্ম দ্বারা প্রভাবিত হন না, দুঃখ ও আত্ম-সন্দেহ মুক্ত হন, যিনি সুখে থাকেন।[৯][১০] বিভাগটি এই ধারণাটিকে নিম্নরূপ প্রসারিত করে,

যা জ্বলছে, যা সূক্ষ্মের চেয়ে সূক্ষ্ম,
যার উপর পৃথিবী ও তাদের বাসিন্দারা স্থাপিত - সেই অবিনাশী ব্রহ্ম।[১১]
এটি জীবন, এটি বাক, এটি মন। এটাই আসল।
এটা অমর, এটা অনুপ্রবেশ করা চিহ্ন।
 এটা পরিব্যাপ্ত, আমার বন্ধু।

উপনিষদের মহান অস্ত্রকে ধনুক হিসেবে গ্রহণ করা,
ধ্যান দ্বারা তীক্ষ্ণ তীর তার উপর রাখা উচিত,
এর সারমর্মের দিকে পরিচালিত একটি চিন্তার সাথে এটিকে প্রসারিত করা,
প্রবেশ করুন[১২] যে চিহ্ন হিসাবে অবিনশ্বর, আমার বন্ধু।

ওঁ হল ধনুক, তীর হল আত্ম, ব্রহ্ম হল চিহ্ন,
বিভ্রান্ত মানুষের দ্বারা এটি অনুপ্রবেশ করা হয়,
একজনকে এতে থাকতে হবে,
তীর চিহ্নের সাথে এক হয়ে যায়।

— মুণ্ডক উপনিষদ, ২.২.২ - ২.২.৪[৮][১৩]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. Robert Hume, Mundaka Upanishad, Thirteen Principal Upanishads, Oxford University Press, page 370-371
  2. Max Muller, The Upanishads, Part 2, Mundaka Upanishad, Oxford University Press, page 34-35
  3. Saraswati 1995, পৃ. 4।
  4. "Meditation on Mahavakyas"www.sivanandaonline.org। সংগ্রহের তারিখ ২০১৬-১২-০২ 
  5. "Mahavakyas: Great Contemplations of Advaita Vedanta"www.swamij.com। সংগ্রহের তারিখ ২০১৬-১২-০২ 
  6. MAHAVAKYAS, Ayam Atma Brahma: Self is Absolute Entity, www.classicyoga.co.in (ইংরেজি ভাষায়)
  7. Olivelle 2008, পৃ. 289।
  8. Robert Hume, Mundaka Upanishad, Thirteen Principal Upanishads, Oxford University Press, pages 372-373
  9. Eduard Roer, Mundaka Upanishad[স্থায়ীভাবে অকার্যকর সংযোগ] Bibliotheca Indica, Vol. XV, No. 41 and 50, Asiatic Society of Bengal, pages 142-164
  10. Mundaka Upanishad, in Upanishads and Sri Sankara's commentary - Volume 1: The Isa Kena and Mundaka, SS Sastri (Translator), University of Toronto Archives, pages 138-152
  11. Hume translates this as "imperishable Brahma", Max Muller translates it as "indestructible Brahman"; see: Max Muller, The Upanishads, Part 2, Mundaka Upanishad, Oxford University Press, page 36
  12. The Sanskrit word used is Vyadh, which means both "penetrate" and "know"; Robert Hume uses penetrate, but mentions the second meaning; see: Robert Hume, Mundaka Upanishad, Thirteen Principal Upanishads, Oxford University Press, page 372 with footnote 1
  13. Charles Johnston, The Mukhya Upanishads: Books of Hidden Wisdom, (1920-1931), The Mukhya Upanishads, Kshetra Books, আইএসবিএন ৯৭৮-১৪৯৫৯৪৬৫৩০ (Reprinted in 2014), Archive of Mundaka Upanishad, pages 310-311 from Theosophical Quarterly journal

আরও পড়ুন[সম্পাদনা]

  • Saraswati, Chandrasekharendra (১৯৯৫), Hindu Dharma: The Universal Way of Life, Bhavan's Book University, আইএসবিএন 81-7276-055-8 
  • Olivelle, Patrick (২০০৮) [1996], Upanisads. A new translation by Patrick Olivelle, Oxford University Press 

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]