অপারেশন ইউ-গো

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
ইউ গো সংঘাত
মূল যুদ্ধ: বার্মা অভিযান, বিশ্বযুদ্ধের দক্ষিণ পুর্ব এশীয় যুদ্ধক্ষেত্র
The War in the Far East- the Burma Campaign 1941-1945 IND3378.jpg
নিপ্পন পাহাড়ের চুড়া, ইম্পালের পুর্ব দিকে, ওপারেশন ইউ গো এর সময় যেখানে যুদ্ধ হয়েছিলো
তারিখমার্চ ১৯৪৪ – জুন ১৯৪৪
অবস্থান
ফলাফল ব্রিটিশ বিজয়
যুধ্যমান পক্ষ

ব্রিটিশ সাম্রাজ্য ব্রিটিশ সম্রাজ্য

জাপানের সাম্রাজ্য জাপান সম্রাজ্য

সেনাধিপতি ও নেতৃত্ব প্রদানকারী
যুক্তরাজ্য ইলিয়াম স্লিম
যুক্তরাজ্য মন্টাসগো স্টপফোর্ড
যুক্তরাজ্য জেফ্রি স্কুনস
জাপানের সাম্রাজ্য রেনিয়া মাতাগুচি
জাপানের সাম্রাজ্য মাসাকজু কাওয়াবে
ভারত সুভাষ চন্দ্র বসু
শক্তি
৭টি পদাতিক ডিভিশন
১টি ট্যাংক ব্রিগেড
২টি পদাতিক ব্রিগেড
৫টি পদাতিক ডিভিশন
১ ট্যাংক রেজিমেন্ট
৮৪,২৮০ সেনা (INA বাদে)
হতাহত ও ক্ষয়ক্ষতি
১৬,৯৮৭–২১,৫০০[১][২] ১৫,৩১ ও ৩৩ ডিভিশনঃ
১২,৪৪৩ নিহত
১,৬৫২ নিখোজ
৮,৪০৭ রোগে আক্রান্ত হয়ে মৃত
মিস্ক সেনাদল:
৮,০০০ বিভিন্ন কারণে মৃত
মোট:
৩০,৫০২ নিহত,
২৩,০০৩ য়াহত[৩]

ইউ গো অক্রমন বা অপারেশন সি (ウ 号 作 戦 ইউ জি সাউকুসেন) ছিল, ১৯৪৪ সালের মার্চ মাসে মণিপুরের উত্তর-পূর্ব ভারতীয় অঞ্চল এবং নাগা পাহাড়ের (তৎকালীন আসামের অংশ হিসাবে পরিচালিত) ব্রিটিশ সাম্রাজ্যের বাহিনীর বিরুদ্ধে জাপানিদের শুরু করা আক্রমণ। ব্রহ্মপুত্র উপত্যকার দিকে দুটি শহর ইম্ফল এবং কোহিমা লক্ষ্য করে এটি পরিচালিত হয়। হা গো আক্রমণ ছিল দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধ এর সময় শেষ জাপানি বড় আক্রমণ। আক্রমণের পরিণতি ইম্ফল এবং কোহিমার যুদ্ধ এর রণাঙ্গনে দেখতে পাওয়া যায়। সেখানে জাপানি ও তাদের সহযোগীরা প্রথমে টিকে থাকলেও শেষ দিলে পিছু হঠতে বাধ্য হয়।

জাপানি পরিকল্পনার উৎস[সম্পাদনা]

১৯৪২ সালে, জাপানি সেনাবাহিনী ব্রিটিশ, ভারতীয় এবং চীনা সৈন্যদের বার্মা থেকে বিতাড়িত করেছিল। ভারী বর্ষণ যখন অগ্রযাত্রা বন্ধ করে দেয়, তখন ব্রিটিশ এবং ভারতীয় সেনারা মণিপুর রাজ্যের রাজধানী ইম্ফল দখল করে নেয়। এটি জঙ্গল আর ভারত ও বার্মাকে পৃথক কারী পর্বত এর ভেতর দিয়ে চালিত কয়েকটি পথের মধ্যে মাঝে অবস্থিত ছিলো । বার্মায় জাপানি সেনাপতি লেফটেন্যান্ট জেনারেল শাজির আইদা এর কাছে বৃষ্টিপাত শেষ হওয়ার পরে ভারতে আবার অভিযান শুরু করা উচিত কিনা সে সম্পর্কে তার মতামত চাও্যা হয়েছিলো। তার বিভাগীয় কমান্ডারদের সাথে কথা বলার পরে, আইডা রিপোর্ট করেছেন যে শক্ত অঞ্চল এবং সরবরাহের সমস্যার কারণে এটি করা বুদ্ধিমানের কাজ হবে না। এর দেড় বছরের মধ্যে, মিত্ররা উত্তর-পূর্ব ভারতে আসাম এর সাথে যোগাযোগের ব্যাবস্থার পুনর্গঠন করে। মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র সেনা (বিপুল সংখ্যক ভারতীয় শ্রমিকের সাথে) আসামে বেশ কয়েকটি বিমানবন্দর নির্মাণ করেছিল। যা থেকে চীনে আমেরিকান বিমানঘাটি এবং জাতীয়তাবাদী চিন কাই শেক সরকারের কাছে সাহায্য সরবরাহ করা হয়েছিল।[৪] বেশ কয়েকটি পর্বতমালা অতিক্রমকারী এই বিমান রুটটি হাম্প নামে পরিচিত ছিল। আমেরিকানরাও লেদো সড়ক নির্মাণ শুরু করেছিল, যার উদ্দেশ্য তারা আসাম থেকে চীন পর্যন্ত একটি স্থল যোগাযোগ তৈরি করা।

১৯৪৩ সালের মাঝামাঝি সময়ে, বার্মায় জাপানি কমান্ড পুনর্গঠিত হয়েছিল। জেনারেল আইডাকে আবার জাপানে স্থানান্তর করা হয়েছিল এবং লেফটেন্যান্ট-জেনারেল মাসাকাসু কাওয়াবে এর অধীনে একটি নতুন সদর দফতর বার্মায় তৈরি করা হয়েছিল। ইমফাল ও আসাম মোকাবেলায় কেন্দ্রীয় অংশের জন্য দায়বদ্ধ অধস্তন সেনাদলের মধ্যে একটি ছিল পঞ্চদশ সেনা, যার নতুন সেনাপতি ছিলেন লেফটেন্যান্ট-জেনারেল রেনিয়া মুতাগুচি। তিনি কমান্ড নেওয়ার মুহুর্ত থেকেই মুতাগুচি জোর করে ভারতে আগ্রাসনের পক্ষে ছিলেন। কেবল কৌশলগত বিজয় অর্জনের পরিবর্তে, তিনি ব্রহ্মপুত্র নদী উপত্যকায় অগ্রগতি লাভ করে ইম্ফলের অধিগ্রহণকে কাজে লাগানোর পরিকল্পনা করেছিলেন, যার ফলে উত্তর বার্মায় তাদের জাতীয়তাবাদী চীনের বিমানবন্দরগুলিতে মিত্র সাপ্লাই লাইন ভেঙ্গে পড়তো । এটি করার তাঁর উদ্দেশ অস্পষ্ট বলে মনে হয়। ১৯৪২ সালের শেষের দিকে, যখন জাপানিদের অগ্রযাত্রা চালিয়ে যাওয়ার পরামর্শ নিয়ে লেফটেন্যান্ট জেনারেল আইডা তাঁর সাথে পরামর্শ করেছিলেন, তখন এই অঞ্চলটি খুব কঠিন বলে মনে মতামত দিয়েছিলেন এবং যৌক্তিক সমস্যাগুলি কাটিয়ে ওঠা অসম্ভব বলে মনে ঙ্করেছিলেন। আইডা তার বিরোধিতায় বিশেষভাবে সোচ্চার ছিলেন। সে সময় তিনি ভেবেছিলেন যে এই পরিকল্পনাটি স্থানীয় পর্যায়ে উদ্ভূত হয়েছিল, তবে তিনি যখন শুনেছিলেন যে ইম্পেরিয়াল আর্মি হেডকোয়াটার মূলত এটির পক্ষে ছিল, তখন তিনি তার পূর্ব সতর্কতার জন্য লজ্জিত হয়েছিলেন।[৫]

পরিকল্পনা বা সুযোগ অনুসারে, মুতাগুচি ১৯৩৭ সালে মার্কো পোলো ব্রিজের ঘটনা এর পর থেকে বেশ কয়েকটি জাপানি বিজয়ে একটি বড় ভূমিকা পালন করেছিলেন। তিনি বিশ্বাস করেছিলেন যে জাপানের পক্ষে যুদ্ধকে জয় করা তার ডেসটিনি। ১৯৪৩ সালের প্রথম দিকে ব্রিটিশদের দ্বারা প্রথম চিন্ডিত দূরপাল্লার অভিযানে বাধা দেও্যার পালটা অভিযানও মুতাগুচির নেতৃত্বে চালিত হয়েছিল। উইঙ্গেটের সেনারা ভূখণ্ডটির দখল পেরিয়েছিল, যযেখানে মুতাগুচি দাবি করেছিলেন যে দুর্ভেদ্য। [৫] মিত্ররা উইঙ্গেটের অভিযানের সফল দিকগুলি ব্যাপকভাবে প্রচার করেছিল এবং রোগ এবং ক্লান্তির ক্ষয় গোপন করে মুতাগুচি এবং তার কিছু কর্মীদের বিভ্রান্ত করে তাদের বিপদের সম্মুখীন করেছিলো।

জাপানি পরিকল্পনা পদ্ধতি[সম্পাদনা]

২৪ জুন থেকে ২৭ জুন ১৯৪৩ এর মধ্যে রাঙ্গুনে একটি পরিকল্পনা সভা অনুষ্ঠিত হয়েছিল। মুতাগুচির চিফ অফ স্টাফ, মেজর জেনারেল টোদাই কুনোমুরা মুতাগুচির পরিকল্পনা উপস্থাপন করেছিলেন, কিন্তু নির্দ্বিধায় উড়িয়ে দেওয়া হয়েছিল। বার্মা এরিয়া সেনাবাহিনীর কর্মীরা ভারতের সীমান্তের সামান্য দূরত্বে জাপানিদের প্রতিরক্ষামূলক লাইনে ধাক্কা দেওয়ার জন্য তাদের নিজস্ব সীমিত পরিকল্পনার নিয়ে চাপ দেওয়া বিষয়ে কুনোমুরাকে আপত্তি জানায়।[৬] মুতাগুচির পরিকল্পনাটি কখনো পরীক্ষাও করা হয়নি। লেফটেন্যান্ট জেনারেল আইতারো নাকা, (বার্মা এরিয়া সেনাবাহিনীর চিফ অফ স্টাফ), মেজর জেনারেল মাসাজুমি ইনাদা, ([দক্ষিণ অভিযাত্রী সেনা গ্রুপ] এর ভাইস চিফ অফ স্টাফ) এবং এমনকি লেফটেন্যান্ট জেনারেল গনপাচি কনডো ,ইম্পেরিয়াল জেনারেল সদর দফতর থেকে সমস্ত মুতাগুচির পরিকল্পনায় কৌশলগত এবং লজিস্টিকাল দুর্বলতাগুলির দিকে নির্দেশ করেছিলেন। তবে লেফটেন্যান্ট জেনারেল কাওয়াবে মুতাগুচিকে তাঁর ধারণাগুলি পালন করতে প্রকাশ্যে নিষেধ করেননি।[৭] মায়ামিও পনেরোতম সেনাবাহিনীর সদর দফতরে এবং সিঙ্গাপুর এর সাউদার্ন এক্সপিডিশনারি আর্মি গ্রুপের সদর দফতরে অনুশীলনের সময় লেফটেন্যান্ট জেনারেল নাকা মুতাগুচির ধারণাগুলির জয়লাভ করেছিলেন বলে মনে হয়েছিল। লেফটেন্যান্ট জেনারেল ইনাডা তখনও বিরোধিতা করেছিলেন, তবে কুনোমুরা এবং মেজর ইওয়াইচি ফুজিওয়ারা (মুতাগুচির এক কর্মচারী) এর নেতৃত্বে পরিবর্তে চিনের ইউনান প্রদেশে আক্রমণ করার পরিকল্পনা পেশ করেছিলেন। যাইহোক, ফিল্ড মার্শাল প্লেক পিবুলসংগ্রাম এর সাথে জোটবদ্ধ হয়ে, থাইল্যান্ড এর অঞ্চলগুলিকে রক্ষা করার চুক্তি মেনে চলতে ব্যর্থতার জন্য বলির পাঠা হিসেবে ইনাডাকে ১৯৪৩ সালের ১১ ই অক্টোবর দক্ষিণ অভিযান সেনা থেকে সরিয়ে দেওয়া হয়।[৮] ১৯৪৩ সালের ২৩ ডিসেম্বর সিঙ্গাপুরে আরেকটি মানচিত্র মহড়ার পরে ফিল্ড মার্শাল হিশাচি তেরাচি (দক্ষিণী অভিযান সেনা গ্রুপের প্রধান কমান্ডার) এই পরিকল্পনা অনুমোদন করেছিলেন। ইনাদার পরিবর্তে আসা, লেফটেন্যান্ট জেনারেল কিটসুজু আইয়াবে অনুমোদনের জন্য পরিকল্পনাটি ইম্পেরিয়াল আর্মি সদর দফতরে প্রেরণ করেছিলেন। প্রধানমন্ত্রী হিদেকী তজা তার স্নানঘর থেকে পরিকল্পনার দিকগুলি নিয়ে কোনও স্টাফ অফিসারকে জিজ্ঞাসা করার পরে চূড়ান্ত অনুমোদন দিয়েছেন।[৯] একবার এই সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়ে গেলে, লেফটেন্যান্ট জেনারেল কাওয়াবে বা ফিল্ড মার্শাল তেরোচিকেই মুতাগুচির আক্রমণ বন্ধ করার কোনও সুযোগ দেওয়া হয়নি, যার নামকরণ করা হয় ইউ-জিও বা অপারেশন সি (ウ 号 作 戦)।এটি চালু হওয়ার পরে এটির উপর নিয়ন্ত্রণের তেমন সুযোগ রাখা হয়নি।

আজাদ হিন্দের প্রভাব[সম্পাদনা]

সুভাষচন্দ্র বসু ,যিনি নেতৃত্বে ছিলে, দ্বারা কিছুটা হলেও মুতাগুচি এবং তোজো প্রভাবিত হয়েছিল।আজাদ হিন্দ ভারতকে ব্রিটিশ শাসন থেকে মুক্ত করার জন্য উত্সর্গীকৃত একটি আন্দোলন ছিল। বোস আন্দোলনের সশস্ত্র বাহিনী, আজাদ হিন্দ ফৌজ বা ভারতীয় জাতীয় সেনা (আইএনএ) এর প্রধান কমান্ডারও ছিলেন। আইএনএ মূলত দক্ষিণ পূর্ব এশিয়া তে থাকা ভারতীয় প্রবাসী যারা জাতীয়তাবাদী আন্দোলনে যোগ দেওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছিলেন এবং প্রাক্তন যুদ্ধের বন্দী ব্রিটিশ ভারতীয় সেনাবাহিনী নিয়ে গঠিত হয়েছিল ,যাদের জাপানিরা সিঙ্গাপুরের পতন পরে দ্বারা বন্দী করেছিল। বোস আইএনএ-এর ভারতের যে কোনও আক্রমণে অংশ নেওয়ার জন্য আগ্রহী ছিলেন এবং তিনি বেশ কয়েকজন জাপানীকে বুঝিয়েছিলেন যে মুতাগুচির মতো প্রত্যাশিত একটি বিজয় ভারতে ব্রিটিশ শাসনের পতনের নিশ্চিত করবে। তাদের পশ্চিমা সীমানা আরও বন্ধুত্বপূর্ণ সরকার দ্বারা নিয়ন্ত্রিত হবে এই ধারণাটি জাপানিদের কাছে আকর্ষণীয় ছিল। এটি এ ধারণারও প্রচার করতো যে এশিয়াতে জাপানি সম্প্রসারণ এশিয়ার এশীয় সরকারকে সমর্থন এবং পশ্চিমা উপনিবেশবাদের বিরুদ্ধে লড়াইয়ের একটি প্রচেষ্টা ছিল।[১০][১১]

জাপানি পরিকল্পনা[সম্পাদনা]

ইম্পাল ও কোহিমা অভিযান

মিত্ররা ১৯৪৪ সালের গোড়ার দিকে নিজেদের আক্রমণ পরিকল্পনার প্রস্তুতি নিচ্ছিল। ভারতীয় পঞ্চদশ বাহিনী উপকূলীয় আরাকান প্রদেশ এর দিকে অগ্রসর হচ্ছিল। একি সময়ে ব্রিটিশ চতুর্থ বাহিনী ভারতীয় চিনাভিন নদী এর দিকে তমু এবং তিদিম এ প্রায় দুটি তে পদাতিক বিভাজন পাঠিয়ে দিয়েছিল। এই দুটি দলের মাঝে বিস্তর দূরত্ব ছিলো এবং বিচ্ছিন্ন হওয়ার ঝুঁকি ছিল। জাপানিরা পরিকল্পনা করেছিল যে অষ্টাবিংশ সেনাবাহিনী এর একটি বিভাগ ফেব্রুয়ারির প্রথম সপ্তাহে আরাকানে এক বিভ্রান্তকারী আক্রমণ শুরু করবে, যার নামকরণ করা হা গো। এটি আসামের মিত্র রিজার্ভ ইউনিটগুলোকে আকৃষ্ট করবে এবং এমন ধারণা তৈরি করবে যে জাপানিরা চট্টগ্রাম হয়ে বঙ্গ আক্রমণ করতে চাচ্ছে। কেন্দ্রে, মুতাগুচির পঞ্চদশ সেনাবাহিনী মার্চ মাসে প্রথম সপ্তাহে মণিপুরে মূল আক্রমণ শুরু করবে, যার লক্ষ্য ছিল ইম্ফাল ও কোহিমা দখল করা, ব্রিটিশ বাহিনীকে নাস্তাবুদ করা এবং বার্মা আক্রমণকে বাধাগ্রস্থ করা।[১২][১৩] পঞ্চদশ সেনা বিস্তারিত পরিকল্পনা ছিল:

  • লেফটেন্যান্ট-জেনারেল মটোসো ইয়ানাগিদা এর অধীনে ৩৩ তম পদাতিক ডিভিশন তিদিমে ১৭তম তম ভারতীয় পদাতিক বিভাগকে বিদ্ধস্ত করবে, তারপরে দক্ষিণ থেকে ইম্ফাল আক্রমণ করবে।
  • ইয়ামামোটো ফোর্স , মেজর-জেনারেল সুনুরু ইয়ামামোটো (৩৩ তম বিভাগের পদাতিক গ্রুপের কমান্ডার) এর অধীনে ,ট্যাঙ্ক এবং ভারী আর্টিলারি সাহায্যে,২০ তম ভারতীয়কে পরাজিত করবে তমুতে, তারপরে পূর্ব দিক থেকে ইম্ফল আক্রমণ করুন।
  • লেফটেন্যান্ট-জেনারেল মাসাফুমি ইয়ামুচি এর অধীনে ১৫ তম বিভাগ (ইম্পেরিয়াল জাপানি সেনা) উত্তর দিক থেকে ইম্ফালকে ঘিরে ফেলবে।
  • একটি পৃথক সাবসিডিয়ারি অপারেশনে লেফটেন্যান্ট-জেনারেল কোতোকু স্যাট এর অধীনে ৩১ তম বিভাগ (ইম্পেরিয়াল জাপানী সেনা) ইম্ফালকে কোহিমা দখল করে বিচ্ছিন্ন করে ফেলবে, তারপরে এগিয়ে ব্রহ্মপুত্র উপত্যকায় ডিমাপুর এ মিত্র সরবরাহের ঘাঁটি দখল করবে।

বোসের জেদেই, ভারতীয় জাতীয় সেনাবাহিনীর দুটি ব্রিগেডকেও দক্ষিণ ও পূর্ব থেকে ইম্ফালের উপর হামলার জন্য দায়িত্ব দেওয়া হয়েছিল। জাপানিরা মূলত আইএনএকে কেবল তাদের বাহিনীতে সহায়ক হিসাবে ব্যবহার করার উদ্দেশ্যে পুনগঠন এবং প্রচারের জন্য ব্যবহার করতে চেয়েছিলো। [১৪] বার্মা এরিয়া আর্মির কর্মীরা প্রাথমিকভাবে এই পরিকল্পনাটিকে খুব ঝুঁকিপূর্ণ বলে মনে করেছিলেন। তারা বিশ্বাস করতো যে আক্রমণকারী বাহিনীকে এত বিস্তৃত করা বুদ্ধিমানের কাজ নয়, তবে বেশ কয়েকজন অফিসার যারা বিরোধিতায় সোচ্চার ছিলেন তাদের বদলি করা হয়েছিল। [১৫] মুতাগুচির বিভাগীয় কমান্ডাররাও হতাশাবাদী ছিলেন। তারা ভেবেছিল যে মুতাগুচি সরবরাহ সমস্যা সমাধানে প্রাথমিক সাফল্য অর্জনে অনেক বড় জুয়া খেলছে। তাদের মধ্যে কেউ কেউ তাকে "ব্লকহেড" বা বেপরোয়া মনে করেছিলেন।

মিত্রদের পরিকল্পনা[সম্পাদনা]

১৯৪৪ সালের গোড়ার দিকে, আসাম ও আরাকানে মিত্রবাহিনীর দল ছিল ব্রিটিশ চৌদ্দতম সেনার অংশ, যা লেফটেন্যান্ট জেনারেল উইলিয়াম স্লিম দ্বারা পরিচালিত ছিল। পূর্ববর্তী বছরের, আরাকানে আক্রমণের ব্যর্থতার পর থেকে তিনি এবং তাঁর পূর্বসূরী জেনারেল জর্জ গিফার্ড সেনাবাহিনীর ব্রিটিশ ও ভারতীয় ইউনিটের স্বাস্থ্য, প্রশিক্ষণ এবং মনোবলকে বাড়ানোর জন্য সচেষ্ট ছিলেন। যোগাযোগের ব্যবস্থায় উন্নতি, পিছনের অঞ্চলগুলিতে আরও ভাল প্রশাসন এবং সর্বোপরি, নতুন করে রেশন ও ওষুধ সরবরাহের মাধ্যমে এই প্রচেষ্টা সফল হয়েছিল । মিত্র বাহিনী ফর্মেশনগুলিকে আউটফ্ল্যাঙ্কিং এবং বিচ্ছিন্ন করার স্ট্যান্ডার্ড জাপানি কৌশলগুলি মোকাবিলার জন্যও তৈরি হয়েছিল। বিশেষত, তারা ক্রমশ বিচ্ছিন্ন ইউনিটে সরবরাহের জন্য বিমানের উপর নির্ভর করবে। জাপানিরা এটি অনুমান করেনি এবং তাদের আক্রমণগুলি কয়েকবার ব্যর্থ হয়েছিলো। বিভিন্ন গোয়েন্দা সূত্র থেকে, স্লিম এবং লেফটেন্যান্ট জেনারেল জেফরি স্কুনস (ভারতীয় চতুর্থ কর্পস এর কমান্ডিং) জাপানিদের আক্রমণাত্মক অভিযানের সাধারণ উদ্দেশ্য সম্পর্কে জানতে পেরেছিলেন, যদিও তাদের জাপানি উদ্দেশ্য সম্পর্কে সুনির্দিষ্ট তথ্য ছিল না এবং জাপানিরা যখন আক্রমণ চালিয়েছিল তখন তারা বেশ কয়েকবার অবাক হয়েছিল। চিন্ডউইন পেরিয়ে আক্রমণ চালিয়ে বা নদীর সীমানা রক্ষার চেষ্টা করে জাপানিদের প্রত্যাশা না করে স্লিমের উদ্দেশ্য ছিল জাপানিদের তাদের সৈন্য সরবরাহ করতে অক্ষম করা এবং একটি প্রতিরক্ষামূলক যুদ্ধের লড়াইয়ের জন্য ইম্ফালে ফিরে গিয়ে পরিচিত জাপানিদের লজিস্টিকাল দুর্বলতাগুলি কাজে লাগানোর । [১৬]

হা গো[সম্পাদনা]

আরাকানে বিভ্রান্তিকারী জাপানি আক্রমণ শুরু হয়েছিল ২ ফেব্রুয়ারি থেকে। জাপানি ৫৫ তম বিভাগ এর একটি বাহিনী একটি ভারতীয় বিভাগীয় সদর দফতরকে অতিক্রম করতে এবং কর্পসটির সামনের বিভাগগুলি বিচ্ছিন্ন করতে ভারতীয় পঞ্চদশ কর্পস এর লাইনে অনুপ্রবেশ করেছিল। যখন তারা "অ্যাডমিন বক্স" নামে পরিচিত প্রশাসনিক অঞ্চলের বিরুদ্ধে তড়িঘড়ি আক্রমণ চালানোর চেষ্টা করেছিল, তারা দেখতে পেইয়েছিল যে অ্যালাইড বিমানগুলি গ্যারিসনে সরবরাহ করছে।, জাপানিরা তাদের সরবরাহের উত্স থেকে বিচ্ছিন্ন হয়ে পড়েছিল এবং অনাহারে ছিল। বক্সেরকে মুক্তি করতে ব্রিটিশ এবং ভারতীয় ট্যাঙ্ক এবং পদাতিকরা একটি পাহাড়ি পথ পেরিয়ে এসেছিলো। খারাপ সরবরাহ এবং অনাহারে জাপানি বাহিনী সরে যেতে বাধ্য হয়েছিল। [১৭]

ইউ গো[সম্পাদনা]

ইম্পল[সম্পাদনা]

মূল ইউ গো আক্রমণটি ১৯৪৪ সালের ৬ মার্চ থেকে শুরু হয়েছিল। বিংশ ভারতীয় বিভাগ নিরাপদে সরে য়াসতে পেরেছিল, তবে ১৭ তম ভারতীয় বিভাগটি বিচ্ছিন্ন হয়ে পোঁরে ছিল এবং ইম্ফল সমভূমিতে ফিরে যাওয়ার পথে লড়াই করতে বাধ্য হয়েছিল। স্কুনকে ১৭ তম বিভাগে সহায়তা করার জন্য তার প্রায় সমস্ত রিজার্ভ খরচ করতে হয়েছিল। আরাকানের বিভ্রান্তকর আক্রমণটি ইতিমধ্যে ব্যর্থ হয়ে গেছে বলে মিত্ররা উত্তর দিক থেকে জাপানের ১৫ তম বিভাগকে ছাড়িয়ে আরাকান ফ্রন্ট থেকে ইম্ফল পর্যন্ত (আর্টিলারি এবং যুদ্ধ-লাইনের পরিবহন সহ)সাপ্লাই বিমান উড়াতে সক্ষম হয়েছিল। এপ্রিলের সময়, ইম্ফাল সমভূমির কিনারায় জাপানিদের আক্রমণ প্রতহত করা হয়েছিল। মে মাসে, চতুর্থ কর্পস একটি পাল্টা আক্রমণ শুরু করে, উত্তর দিক দিয়ে কোহিমা থেকে দক্ষিণে যাওয়ার পালটা আক্রমন শুরু করে একটি রিলিফ বাহিনীর সাথে সংযোগ স্থাপনের জন্য। যদিও মিত্রদের অগ্রগতি ধীর ছিল, জাপানি ১৫ তম বিভাগ সরবরাহের অভাবে সরে যেতে বাধ্য হয়েছিল, এবং মিত্র বাহিনী অবরোধের অবসান ঘটিয়ে ২২ জুন কোহিমা-ইম্ফল রাস্তাটি পুনরায় চালু করে (যদিও জাপানিরা দক্ষিণ ও পূর্ব ইম্ফল থেকে আক্রমণ চালিয়ে যেতে থাকে)।

কোহিমা[সম্পাদনা]

কোহিমার যুদ্ধ দুটি পর্যায়ে সংঘটিত হয়েছিল। ১৯৪৪ সালের ৩ থেকে ১৬ এপ্রিল পর্যন্ত জাপানি ৩১ তম বিভাগ কোহিমা পর্বত দখল করার চেষ্টা করেছিল, তারা দিমাপুর থেকে ইম্ফল পর্যন্ত রাস্তাকে প্রাধান্য দিয়েছিল যার উপর ইম্ফলের চতুর্থ কর্পস সরবরাহের জন্য নির্ভর করত। ১৬ এপ্রিল কোহিমাতে ছোট ব্রিটিশ বাহিনীকে মুক্ত হয়েছিল, এবং ১৮ এপ্রিল থেকে ১৬ মে পর্যন্ত নতুন আগত XXXXII কর্প্স ,জাপানিরা তাদের যে অবস্থানগুলি দখল করেছিল তাদের থেকে তাড়ানোর জন্য পাল্টা আক্রমণ করেছিল। এই সময়ে, লেফটেন্যান্ট জেনারেল কোতোকু স্যাটো অনাহারের থাকা জাপানি বিভাগকে পিছু হটার নির্দেশ দিয়েছিলেন। যদিও একটি বিচ্ছিন্ন দল রাস্তা অবরোধ করতে রিয়ারগার্ডের ক্রিয়াকলাপের বিরুদ্ধে লড়াই চালিয়ে গিয়েছিল, তবুও ২২ শে জুন XXXXII কর্পস দক্ষিণে ইম্ফলের রক্ষাকারীদের সাথে সংযোগ স্থাপনের উদ্দেশ্যে যাত্রা করেছিল।

পশ্চাদধাবন[সম্পাদনা]

মুতাগুচি আক্রমণ করার আদেশ অব্যাহত রেখেছিল, তবে জুনের শেষের দিকে এটি পরিষ্কার হয়ে গিয়েছিল যে অনাহারী এবং রোগ-আক্রান্ত জাপানি ফর্মেশনগুলি আদেশ মানার মতো অবস্থায় ছিল না। যখন তিনি বুঝতে পারলেন যে তাঁর কোনও ফর্মেশনই তাঁর আদেশ মানছে না, অবশেষে মুতাগুচি আক্রমণটি ৩ জুলাই শেষ করার নির্দেশ দেয়। জাপানিরা অনেক ক্ষেত্রে বিভ্রান্ত হয়ে পড়েছিল এবং তাদের আর্টিলারি, পরিবহন এবং অসুস্থ সৈন্যদের ছেড়ে চিন্ডউইনের কাছে ফিরে যায়।

প্রভাব[সম্পাদনা]

কোহিমা এবং ইম্ফলে জাপানিদের পরাজয় সেই সময়ের সবচেয়ে বড় ছিল। ব্রিটিশ ও ভারতীয় বাহিনী প্রায় ১৬,৯৪৭ জন লোক হারিয়েছিল, তারা মৃত, নিখোঁজ ও আহত হয়েছিল। [২] জাপানিরা ১৩,৩৭৬ নিহত সহ ,৬০,৬৪৩ জনের হতাহতের শিকার হয়েছিল। এটা অনাহার, রোগ এবং ক্লান্তির ফল।

এই পরাজয়ের ফলে বার্মায় জাপানি সেনাবাহিনীর অভ্যন্তরে নেতৃত্বে ব্যাপক পরিবর্তন আনা হয়েছিল। মুতাগুচি ৩০ আগস্টে বরখাস্ত হওয়ার আগে অভিযানের সময় তার সমস্ত বিভাগীয় কমান্ডারদের বরখাস্ত করেন। কাওয়াবে যার স্বাস্থ্য ভেঙে পড়েছিলো, তাকেও বরখাস্ত করা হয়েছিল। পঞ্চদশ সেনাবাহিনী এবং বার্মা এরিয়া আর্মি সদর দফতরের সিনিয়র স্টাফ অফিসারদের অনেককে বিভাগীয় বা রেজিমেন্টাল কমান্ডে স্থানান্তর করা হয়েছিল। [১৮]

দ্রষ্টব্য[সম্পাদনা]

  1. Allen (1984), p. 643
  2. Allen (1984), p. 638
  3. JM-134 pp. 164 Retrieved 5/19/16
  4. Lebra 1977, পৃ. 20
  5. Allen (1984), pp. 152–153
  6. Allen (1984), p. 158
  7. Allen (1984), pp. 159–160
  8. Allen (1984), pp. 164–165
  9. Allen (1984), p. 166
  10. Syonan Sinbun, 26 January 1943
  11. Lebra, 1977, p. 20
  12. Fay 1993, পৃ. 281
  13. Fay 1993, পৃ. 265
  14. Allen (1984), p. 170
  15. Allen, (1984), pp. 159–162
  16. Allen (1984), p. 155
  17. Fay 1993, পৃ. 264
  18. Allen (1984), p. 386

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  • Fay, Peter W. (১৯৯৩), The Forgotten Army: India's Armed Struggle for Independence, 1942–1945., Ann Arbor: University of Michigan Press, আইএসবিএন 0-472-08342-2 
  • Lebra, Joyce C. (১৯৭৭), Japanese trained armies in South-East Asia, New York: Columbia University Press, আইএসবিএন 0-231-03995-6 
  • Allen, Louis (১৯৮৪)। Burma: The Longest War। J. M. Dent & Sons। আইএসবিএন 0-460-02474-4 

আরো পড়ুন[সম্পাদনা]