কুসংস্কার

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
(অন্ধবিশ্বাস থেকে পুনর্নির্দেশিত)
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন

কুসংস্কার (ইংরেজি: superstition) হল অযৌক্তিক যেকোনো বিশ্বাস বা অভ্যাস - যেমন, এটি অজ্ঞতা থেকে উদ্ভূত হয়, বিজ্ঞান বা এর কার্যকারিতা নিয়ে ভুল বোঝাবুঝি হওয়া, ভাগ্য বা জাদুতে ইতিবাচক বিশ্বাস অথবা যা অজানা তা থেকে ভয় পাওয়া। এছাড়াও "কুসংস্কার" বলতে ধর্মীয় বিশ্বাস বা অযৌক্তিকতা থেকে উদ্ভূত কর্মকাণ্ডকে বোঝায়।[১]

কুসংস্কার শব্দটি প্রায়ই একটি নির্দিষ্ট সমাজের অধিকাংশের দ্বারা অনুসরণ না করা ধর্মের কথা বলে ব্যবহৃত হয়, যদিও প্রথাগত ধর্মের মধ্যে কুসংস্কার রয়েছে কিনা তা নিয়ে সন্দেহ রয়েছে। এটি সাধারণত ভাগ্য, ভবিষ্যদ্বাণী এবং নির্দিষ্ট আধ্যাত্মিক জগতের বিশেষ করে বিশ্বাস এবং অভ্যাসগুলির ক্ষেত্রে প্রয়োগ করা হয়, বিশেষ করে এই ধারণাটি যে নির্দিষ্ট (আপাতদৃষ্টিতে) সম্পর্কহীন পূর্বের ঘটনাগুলি দ্বারা ভবিষ্যতের ঘটনাগুলির জন্য ভবিষ্যদ্বাণী করা যেতে পারে।

উৎপত্তি[সম্পাদনা]

কুসংস্কার শব্দটি পঞ্চদশ শতাব্দীতে প্রথম ইংরেজিতে ব্যবহৃত হয়েছিল যা মূলত ফরাসি সুপারস্টিশন থেকে নেয়া। ইংরেজি বিশেষ্য হিসাবে সর্বপ্রথম পরিচিত ব্যবহার লক্ষ্য করা যায় ফ্রায়ার ডাউস রিপ্লাই (সিএ. ১৪২০), যেখানে কুসংস্কার শব্দের জন্য চারটি শব্দ সুপারিশ করা হয়েছিল, যেমন কেডিশিয়াস, সুপারস্টিশনস, বি গ্লুটোনস, এবং বি প্রাউড। ফ্রেঞ্চ শব্দটি তার রোম্যান্স কণাগুলির সাথে (ইতালীয় সুপারস্টিজিওন, স্প্যানিশ সুপারস্টেসন, পর্তুগিজ সুপারস্টাইকো, কাতালান সুপারস্টিকো) ল্যাটিন সুপারস্টিশিও টি অব্যাহত রেখেছিল।

যদিও ল্যাটিন শব্দ গঠনটি স্পষ্ট, ক্রিয়া থেকে সুপার-স্টেচার, "দাঁড়ানো, বেঁচে থাকা", তা মূল উদ্দেশ্যপ্রণোদিত অর্থে স্পষ্ট নয়। এটা ব্যাখ্যা করা যেতে পারে এমনভাবে "বিস্ময় বা আতঙ্কিত হয়ে দাঁড়িয়ে থাকা", তবে অন্যান্য সম্ভাবনাগুলি প্রস্তাব করা হয়েছে যেমন অতিরিক্ত অর্থে ধর্মীয় অনুষ্ঠানগুলি সম্পাদন করা,পুরাতন ও অযৌক্তিক ধর্মীয় অভ্যাস অব্যাহত রাখা।

কুসংস্কার এবং ধর্ম[সম্পাদনা]

গ্রীক এবং রোমান বহুত্ববাদী যারা রাজনৈতিক ও সামাজিক স্বার্থে দেবতাদের সাথে তাদের সম্পর্কের মডেল তৈরি করেছিলেন, এমনকি যারা ঈশ্বরের ভয়ে কাঁপতে থাকে এবং ক্রীতদাস নিষ্ঠুর ও অদ্ভুত মালিকের ভয়ে ভীত ছিল। রোমানদের মতে দেবতাদেরকে এইরকমভাবে ভয় করাই ছিল "কুসংস্কার" (ভিয়েন ১৯৮৭, পৃঃ ২১১)।

ডিডেরটস এনসাইক্লোপিডিয়া "সাধারণভাবে ধর্মের কোনও অতিরিক্ত বিষয়" হিসাবে কুসংস্কারকে সংজ্ঞায়িত করেছে এবং এটি বিশেষভাবে পৌত্তলিকতার সাথে যুক্ত।

মার্টিন লুথার প্রিলোড অন দ্য ব্যাবিলনিয়ান ক্যাপটিভিটি অব চার্চ প্রবন্ধে, (তিনি পোপের কর্মকাণ্ডকে " সমস্ত কুসংস্কারের উৎস বা ফোয়ারা " বলেছিলেন) পোপকে কুসংস্কারের দোষে অভিযুক্ত করেছিলেন:

কেননা এমন কিছু উদারপন্থী বিশপদের মধ্যে অপ্রতিরোধ্য ছিল যাদের মধ্যে খুব অল্প সংখ্যকই পন্ডিত ছিল; শুধুমাত্র সহিংসতা, চক্রান্ত এবং কুসংস্কারের মধ্যে এটি সীমাবদ্ধ ছিল যা এখন বাকিদেরকে অতিক্রম করেছে। রোমানদের দখলে যারা এসেছিল তারা হাজার বছর আগে যা দেখেছিল তারা ক্ষমতায় আসার পর ব্যক্তিদের মধ্যে কিছু পার্থক্য হল যে, একজন রোমান পণ্ডিতদেরর নামকে পূর্বে বা পরবর্তীতে অস্বীকার করতে বাধ্য হয়।

ক্যাথলিক চার্চের বর্তমান ক্যাথিজম কুসংস্কারকে পাপিষ্ঠ বলে বিবেচনা করে "ধর্মের জন্য বিপথগামী অতিরিক্ত বিষয় ", ঐশ্বরিক সহায়তায় বিশ্বাসের অভাব এবং দশটি আদেশের প্রথমটি লঙ্ঘন করা বুঝায়। ক্যাথেসিজম হল ক্যাথোলিক মতবাদ কুসংস্কারাচ্ছন্ন এই অভিযোগের বিরুদ্ধে একটি প্রতিরোধ:

কুসংস্কার হল ধর্মীয় অনুভূতি এবং এই অনুভূতি এই বিষয়গুলোর চর্চা করে থাকে । এটি এমন উপাসনাকেও প্রভাবিত করতে পারে যা আমরা সত্য ঈশ্বরকে প্রদান করি, উদাহরণস্বরূপ, যখন কেউ নির্দিষ্ট কিছু অনুশীলনের ক্ষেত্রে জাদুমন্ত্রকে বৈধ বা প্রয়োজনীয় বলে গুরুত্ব দেয়। তাদের নিছক বহিরাগত পারফরম্যান্স প্রার্থনা বা ধর্মত্যাগী চিহ্নগুলির কার্যকারিতা তুলে ধরার জন্য অভ্যন্তরীণ স্বীকৃতিগুলি ছাড়াও তারা কুসংস্কারে পতিত হয়। Cf. ম্যাথু ৩: ১৬-২২

কুসংস্কার এবং লোককাহিনী[সম্পাদনা]

অষ্টাদশ শতাব্দীর শেষের দিকে লোককাহিনী অধ্যয়নগুলির উন্নতির সাথে সাথে কুসংস্কারের ব্যবহার কখনও কখনও নিরপেক্ষ শব্দ "লোক বিশ্বাস" দ্বারা প্রতিস্থাপিত হয়েছিল, যা স্থানীয় সাংস্কৃতিক পক্ষপাতের উপর দিয়ে যেতে চেয়েছিল। উভয় পদ ব্যবহৃত হতে থাকে; এইভাবে "লোক বিশ্বাস" একটি প্রতিশ্রুতি বাতিল করার জন্য ক্রসিং আঙ্গুলের মত চর্চাকে নির্দেশ করে এবং "কুসংস্কারকে" অযৌক্তিক হিসাবে প্রত্যাখ্যান করা বোঝায় যা এ্যাথনোলজি বা লোকাচারবিদ্যা অধ্যয়নের দৃষ্টিকোণ থেকে একটি নিরপেক্ষ বিবরণের উপর গুরুত্ব দেয়।

কুসংস্কার এবং মনোবিজ্ঞান[সম্পাদনা]

আচরণগত দিক[সম্পাদনা]

১৯৪৮ সালে আচরণগত মনোবিজ্ঞানী বি.এফ. স্কিনার জার্নাল অব এ্যাক্সপেরিমেন্টাল সাইকোলজিতে একটি প্রবন্ধ প্রকাশ করেছিলেন, যেখানে তিনি বর্ণনা করেছিলেন তার কবুতর প্রকাশ্যে যা করতেছে তা নিয়ে বিতর্কিত আচরণ লক্ষ্য করা গেছে। একটি পায়রা তার খাঁচায় ঘুরছে, অন্যটি তার মাথা দিয়ে চারপাশে ঘুরপাক খাচ্ছে এবং অন্যান্যদের মধ্যে বিভিন্ন ধরনের আচরণ লক্ষ্য করা গেছে। যেহেতু এই আচরণগুলি একটি ঔষধ থেকে খাদ্য প্রাপ্তির প্রচেষ্টায় সঞ্চালিত হয়েছিল, যদিও মেশিনটি ইতিমধ্যেই নির্ধারিত সময়ের মধ্যে খাদ্যের বিরতির জন্য প্রস্তুত করা হয়েছিল কবুতরের কাজগুলি বিবেচনা করে, স্কিনার বিশ্বাস করেন যে পায়রা তাদের খাওয়ানোর উপর প্রভাব বিস্তারের চেষ্টা করতেছিল। কর্ম সঞ্চালনের দ্বারা সময়সূচী তারপর তিনি মানুষের মধ্যে কুসংস্কারের আচরণগত প্রকৃতি সম্পর্কে একটি প্রস্তাব উত্থাপন করেছিলেন।

কবুতরের আচরণ সংক্রান্ত স্কিনারের তত্ত্বকে অন্যান্য মনোবৈজ্ঞানিক যেমন স্ট্যাডন এবং সিম্মেলহাগের দ্বারা বিরোধিতা করা হয়েছে, যারা কবুতরের আচরণের জন্য একটি বিকল্প ব্যাখ্যা প্রণয়ন করেছেন।

তার কবুতরের 'অন্ধবিশ্বাসী আচরণের তত্ত্বকে চ্যালেঞ্জ সত্ত্বেও, শক্তিবৃদ্ধি সময়সূচীর ধারণাটি মানুষের মধ্যে অন্ধবিশ্বাসের আচরণকে ব্যাখ্যা করতে ব্যবহৃত হয়েছিল । মূলত, স্কিনারের পশুর গবেষণায়, "কিছু কবুতর উত্সাহের সময় ১০,০০০ বার পর্যন্ত প্রতিক্রিয়া জানিয়েছিল যখন মূলত একটি আবর্তিত শক্তিবৃদ্ধির ভিত্তি ছিল।" এই আচরণগুলির তুলনায় অন্য রক্ষণাবেক্ষণের সময়সূচী (যেমন, নির্দিষ্ট অনুপাত, নির্দিষ্ট সময়কাল) বিলুপ্তির জন্য সবচেয়ে প্রতিরোধী ছিল। একে আংশিক শক্তিবৃদ্ধি প্রভাব বলা হয়, এবং এটি মানুষের মধ্যে অন্ধবিশ্বাসী আচরণ ব্যাখ্যা করতে ব্যবহৃত হয়েছে। আরও সুস্পষ্ট হতে এই প্রভাব মানে হল যখনই কোনও ব্যক্তি একটি কর্ম সঞ্চালন করার জন্য শক্তিবৃদ্ধি প্রত্যাশা করে এবং কোন কিছু আসন্ন মনে হয় না এটি আসলে জীবের অনুভূতি দৃঢ়তার মধ্যে ব্যক্তির আচরণকে নির্দেশ করে। এই শক্তিশালী সমান্তরালে মানুষের মধ্যে একটি অস্পষ্ট আচরণ আছে কারণ ব্যক্তি মনে করেন যে এই কর্ম চালিয়ে যেতে হবে তাতেই শক্তিবৃদ্ধি ঘটবে; অথবা অতীতের যেকোন সময়ে এই শক্তিবৃদ্ধি ঘটেছে কিন্তু এটি সেই সময়গুলোর মধ্যে একটি।

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. Vyse, Stuart A (২০০০)। Believing in Magic: The Psychology of Superstition। Oxford, England: Oxford University Press। পৃষ্ঠা 19–22। আইএসবিএন 978-0-1951-3634-0 

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]