অনিতা মজুমদার

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
Jump to navigation Jump to search
অনিতা মজুমদার
জন্ম পোর্ট মুডি, কানাডা
জাতীয়তা ইন্দো-কানাডিয়ান
পেশা অভিনেত্রী, নাট্যকর, নৃত্যশিল্পী

অনিতা মজুমদার একজন কানাডীয় অভিনেত্রী এবং নাট্যকার। তিনি সিবিসি টেলিভিশন চলচ্চিত্র মার্ডার আনভেইল্ড অভিনয়ের জন্য সর্বাধিক পরিচিত এবং চলচ্চিত্রটির জন্য ২০০৫ সালে এশিয়ান ফেস্টিভ্যাল ফিল্ম ফেস্টিভালে তিনি সেরা অভিনেত্রী পুরস্কার পান।[১]

ব্যক্তিগত জীবন[সম্পাদনা]

ভারত থেকে বাঙালি অভিবাসী পিতা-মাতার কন্যা হলেন অনিতা মজুমদার। তার জন্ম কানাডায় এবং তিনি কানাডার পোর্ট মুডি'তে  বড়ে উঠেছেন।[২] ছয় বয়স পর্যন্ত তিনি ইংরেজিতে কথা বলতেন না তিনি বিভিন্ন নৃত্যশিল্পে প্রশিক্ষণ নেন, যার মধ্যে ভারত নাট্যম, কত্থকওড়িশি রয়েছে।[৩] অনিতা মজুমদার ব্রিটিশ কলম্বিয়া বিশ্ববিদ্যালয়ে তার স্নাতক স্তরের শিক্ষা গ্রহন করেন এবং সেখান থেকে স্নাতক ডিগ্রি অর্জন করেন। বিশ্ববিদ্যালয় থেকে তিনি ইংরেজি, থিয়েটার এবং দক্ষিণ এশীয় ভাষাগুলিতে স্নাতক ডিগ্রি অর্জন করেছিলেন।[৪] ২০০৪ সালে তিনি কানাডার ন্যাশনাল থিয়েটার স্কুল থেকে স্নাতক হন।[৫]

কর্মজীবন[সম্পাদনা]

অনিতা মজুমদারের মঞ্চস্থ প্রথম নাটক হল টেক'স ফর্ম ওভিদ। তিনি প্রথম একক-নারী নাটক হিসাবে ফিশ আই নাটকে আভিনয় করেন যেখানে তিনি তিনটি ভিন্ন চরিত্রে অভিনয় দিয়ে সকলের নজরে আসেন।[৬][৭] ১৯৯৮ সালে অনিতা মছুমদার প্রিন্সিপাল টেক এ হলিডে নামে একটি চলচ্চিত্রে অভিনয় করেন। এই চলচ্চিত্রে একটি ছাত্রীর চরিত্রে তিনি অভিনয় করেছিলেন। এরপর তিনি সিবিসি টেলিভিশন চলচ্চিত্র মার্ডার আনভেইল্ড'য়ে ডাভিন্দের সামরা চরিত্রে নির্বাচিত হয়ন। চলচ্চিত্রটিতে তিনি একজন কানাডীয় শিখ শিল্পী জসবিন্দর কড় সিধু এর একটি কল্পনাপীক চরিত্রে আভিনয় করেছেন, যেখানে দেখানো হয় কানাডীয় শিখ শিল্পী যাকে তার পরিবারের দ্বারা হত্যা করা হয়েছিল, গোপনে ভারতীয় দরিদ্র ভারতীয় রিক্সা চালককে বিয়ে করার পরে। চলচ্চিত্রটির জন্য ২০০৫ সালের এশীয় ফেস্টিভাল ফার্স্ট ফিল্মসে তিনি অভিনয়ের জন্য শ্রেষ্ঠ অভিনেত্রীর পুরস্কার পান। তারপর তিনি একটি নারী-নাটক দি মিসফিট লিখেছিলেন।[৮] আনিতা মজুমদারকে ডাইভার্টেডে এস আলিয়া নামে নির্বাচিত হন, যেখানে দেখানও একজন যাত্রী ১১ সেপ্টেম্বরের বিমান হামলার ফলে বিমানটি বিধ্বস্ত হয় এবং শবন অ্যাশমোরের প্রেমে পড়ে। তিনি দীপা মেহতা'র লেখা উপন্যাস থেকে নির্মিত মিডনাইটস চিলড্রেন চলচ্চিত্রে  এমারল্ড চরিত্রে আভিনয় করেন। ২০১২ সালে গ্যুইন ক্র্যাফোর্ডের ওয়াইল্ড ওয়েস্ট নামে একটি চলচ্চিত্রে অনিতা মজুমদার লিজ নামে একটি চরিত্রে অভিনয় করেন। ২০১৪ সালে "সেম সেম বাট ডিফারেন্ট" নামে একটি নাটকে তিনি অভিনয় করেছেন।

কাজ[সম্পাদনা]

তিনি চলচ্চিত্র, টেলিভিশন ও মঞ্চে অভিনয় করেছেন।

ফিল্ম এবং টেলিভিশন[সম্পাদনা]

অনিতা মজুমদার অভিনীত চলচ্চিত্র ও টেলিভিশন অনুষ্ঠানগুলি হল:

  • ১৯৯৮ - প্রিন্সিপাল টেক এ হলিডে- ছাত্রী
  • ২০০৫ -মার্ডার আনভেইল্ড - ডেভিন্ডার সামরা
  • ২০০৯ -ডাইভার্ট- আলিস রামাস্বামী
  • ২০১১ - রিপাবলিক ওফ ডেয়লি - এপিসোড: "দি সন অলস রাইস" - মিশেল রিচমন্ড
  • ২০১২ - মিডনাইটস চিলড্রেন - এমারল্ড
  • ২০১২ - গ্যুইন ক্র্যাফোর্ডের ওয়াইল্ড ওয়েস্ট- লিজ

মঞ্চ[সম্পাদনা]

অনিতা মজুমদার অভিনীত মঞ্চস্থ অনুষ্ঠানগুলি হল:

  • ২০০৪ - টেকস ফর্ম ওভিদ
  • ২০০৫ - ফিস আই
  • ২০০৬ - ব্লুম
  • ২০০৬ - বোম্বে ব্ল্যাক
  • ২০০৮ - দি মিসফিট
  • ২০০৯ - আইসা ন' বেন
  • ২০০৯ - শাকুন্তলা[৯]
  • ২০১০ - ওই! জাস্ট বীট ইট!
  • ২০১০ - আলী অ্যান্ড আলী: দি ডিপোর্টেশন হেয়ারিংস
  • ২০১১ - রাইস বয়
  • ২০১৪ - সেম সেম বাট ডিফারেন্ট

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. "Port Moody Actress Stars In Canadian Tragedy"Asian Pacific Post। ফেব্রুয়ারি ৮, ২০০৬। সংগ্রহের তারিখ ফেব্রুয়ারি ৩, ২০১২  একের অধিক |work= এবং |newspaper= উল্লেখ করা হয়েছে (সাহায্য) একের অধিক |work= এবং |newspaper= উল্লেখ করা হয়েছে (সাহায্য)
  2. "Anita Majumdar"। 411 Initiative for Change। সংগ্রহের তারিখ ফেব্রুয়ারি ৩, ২০১২My parents were born and raised in India and are Bengalis, so I've inherited a Bengali-Indian background. 
  3. "Mom scolded Majumdar for writing comedy"North Shore News। জানুয়ারি ১১, ২০০৮। সংগ্রহের তারিখ ফেব্রুয়ারি ৩, ২০১২  একের অধিক |work= এবং |newspaper= উল্লেখ করা হয়েছে (সাহায্য) একের অধিক |work= এবং |newspaper= উল্লেখ করা হয়েছে (সাহায্য)
  4. "Anita Majumdar"। 411 Initiative for Change। সংগ্রহের তারিখ ফেব্রুয়ারি ৩, ২০১২I did high school in Port Moody, went to the University of British Columbia (UBC) and got a degree in English, Theatre and South Asian Languages and then did the 3 year Acting Program at the National Theatre School of Canada. 
  5. DiRaddo, Christopher (Spring ২০০৬)। "Anita Majumdar: Anita Unveiled"NTS Magazine। আগস্ট ২৭, ২০১১ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ফেব্রুয়ারি ৩, ২০১২  একের অধিক |work= এবং |newspaper= উল্লেখ করা হয়েছে (সাহায্য) একের অধিক |work= এবং |newspaper= উল্লেখ করা হয়েছে (সাহায্য)
  6. Ouzounian, Richard (অক্টোবর ৭, ২০০৫)। "Ladies' night runs long, short"। Toronto Star। পৃষ্ঠা D13।  একের অধিক |work= এবং |newspaper= উল্লেখ করা হয়েছে (সাহায্য) একের অধিক |work= এবং |newspaper= উল্লেখ করা হয়েছে (সাহায্য)
  7. "A fish out of water"The Queen's Journal। সেপ্টেম্বর ২৫, ২০০৯। সংগ্রহের তারিখ ফেব্রুয়ারি ৩, ২০১২  একের অধিক |work= এবং |newspaper= উল্লেখ করা হয়েছে (সাহায্য) একের অধিক |work= এবং |newspaper= উল্লেখ করা হয়েছে (সাহায্য)
  8. Werb, Jessica (জানুয়ারি ১০, ২০০৮)। "The Misfit confronts social codes that can turn women into targets"The Georgia Straight। সংগ্রহের তারিখ ফেব্রুয়ারি ৩, ২০১২  একের অধিক |work= এবং |newspaper= উল্লেখ করা হয়েছে (সাহায্য) একের অধিক |work= এবং |newspaper= উল্লেখ করা হয়েছে (সাহায্য)
  9. Baute, Nicole (ডিসেম্বর ১১, ২০০৮)। "To father, with love"Toronto Star। সংগ্রহের তারিখ ফেব্রুয়ারি ৩, ২০১২  একের অধিক |work= এবং |newspaper= উল্লেখ করা হয়েছে (সাহায্য) একের অধিক |work= এবং |newspaper= উল্লেখ করা হয়েছে (সাহায্য)

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]