অটল বিহারী বাজপেয়ী

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
(অটল বিহারী বাজপেয়ি থেকে পুনর্নির্দেশিত)
অটল বিহারী বাজপেয়ী
Ab vajpayee.jpg
১১তম ভারতের প্রধানমন্ত্রী
কাজের মেয়াদ
১৯ মার্চ ১৯৯৮ – ২২ মে ২০০৪
পূর্বসূরীইন্দ্র কুমার গুজরাল
উত্তরসূরীমনমোহন সিং
কাজের মেয়াদ
১৬ মে ১৯৯৬ – ১ জুন ১৯৯৬
পূর্বসূরীপি ভি নরসিমা রাও
উত্তরসূরীএইচ ডি দেব গৌড়া
এমপি
সংসদীয় এলাকালক্ষ্মৌ
ব্যক্তিগত বিবরণ
জন্ম(১৯২৪-১২-২৫)২৫ ডিসেম্বর ১৯২৪
গোয়ালিয়র, ব্রিটিশ ভারত
মৃত্যু১৬ আগস্ট ২০১৮(2018-08-16) (বয়স ৯৩)
নতুন দিল্লি, ভারত
জাতীয়তাভারত
রাজনৈতিক দলভারতীয় জনতা পার্টি
দাম্পত্য সঙ্গীঅকৃতদার
প্রাক্তন শিক্ষার্থীদেব কলেজ
পেশারাজনীতিবীদ; কবি
ধর্মহিন্দু
স্বাক্ষর
ওয়েবসাইটBJP: Shri A.B Vajpayee

অটল বিহারী বাজপেয়ী (হিন্দি: अटल बिहारी वाजपायी আটাল্‌ বিহারী ভ়াজ্‌পাঈ, আ-ধ্ব-ব: [əʈəl bɪhaːɾiː ʋaːdʒpai]; ২৫ ডিসেম্বর ১৯২৪ – ১৬ আগস্ট ২০১৮) হলেন ভারতের প্রাক্তন প্রধানমন্ত্রী (১১তম)। ১৯৯৬ সালে তিনি প্রথমবারের মত মাত্র ১৩ দিনের জন্য প্রধানমন্ত্রী নির্বাচিত হন। এরপর ১৯৯৮ সাল থেকে ২০০৪ সাল পর্যন্ত প্রধানমন্ত্রী ছিলেন। প্রথম ব্যক্তি হিসেবে তিনি ভারতীয় জনতা পার্টির নেতা হিসেবে এবং ভারতীয় জাতীয় কংগ্রেস এর বাইরে থেকে পূর্ণ মেয়াদে ভারতের প্রধানমন্ত্রীর দায়িত্বে ছিলেন।[১][২][৩][৪] ১৯৯৮ সালে রাষ্ট্র ক্ষমতায় আসার তেরো মাস পর ১৯৯৯ সালের এপ্রিল মাসে জয়ললিতা অটলজির সরকারের উপর থেকে সমর্থন প্রত্যাহার করে নিলে আস্থাভোটে মাত্র একভোটের ব্যবধানে হেরে তার সরকারকে পদত্যাগ করতে হয়। একজন কবি এবং লেখক হিসেবেও তিনি বিখ্যাত ছিলেন।

তিনি পাঁচ দশকেরও বেশি সময় ধরে ভারতের জাতীয় সংসদের সদস্য ছিলেন, যার মধ্যে দশবার তিনি নিম্নকক্ষ অর্থাৎ লোকসভায় নির্বাচিত হন এবং দুবার উচ্চকক্ষ অর্থাৎ রাজ্যসভায় নির্বাচিত হন। তিনি ২০০৯ সাল পর্যন্ত লোকসভায় লখনৌ থেকে নির্বাচিত হয়েছিলেন কিন্তু শারীরিক অসুস্থতার কারণে অবসর গ্রহণ করেন। তিনি ভারতীয় জনসংঘ এর অন্যতম প্রতিষ্ঠাতা সদস্য ছিলেন যেখানে ১৯৬৮ থেকে ১৯৭২ সাল পর্যন্ত প্রেসিডেন্ট পদে ছিলেন৷

তার শাসনামলে ভারত ১৯৯৮ সালে পোখারানে পারমাণবিক অস্ত্রের পরীক্ষা চালায়। বাজপেয়ী পাকিস্তানের সাথে কূটনৈতিক সম্পর্ক উন্নত করতে চেয়েছিলেন, তাই প্রধানমন্ত্রী নওয়াজ শরীফের সাথে সাক্ষাত করার জন্য বাসে করে লাহোর ভ্রমণ করেন। ১৯৯৯ সালে পাকিস্তানের সাথে কার্গিল যুদ্ধের পর তিনি প্রেসিডেন্ট পারভেজ মুশাররফের সাথে সম্পর্ক পুনরুদ্ধারের চেষ্টা করেন, এজন্য তাকে আগ্রায় একটি শীর্ষ সম্মেলনে অংশগ্রহণের জন্য আমন্ত্রণ জানান।

২০১৪ সালে মোদি সরকার তার জন্মদিন অর্থাৎ ২৫শে ডিসেম্বর কে সুশাসন দিবস হিসেবে পালন করার কথা ঘোষণা করে। ২০১৫ সালে তৎকালীন রাষ্ট্রপতি প্রণব মুখোপাধ্যায় তাকে ভারতের সর্বোচ্চ বেসামরিক সম্মাননা ভারতরত্নে ভূষিত করে। তিনি ১৬ আগস্ট ২০১৮ সালে বাধ্যক্যজনিত অসুস্থতার কারণে মৃত্যুবরণ করেন।

প্রাথমিক জীবন এবং শিক্ষা[সম্পাদনা]

বাজপেয়ী ১৯২৪ সালের ২৫শে ডিসেম্বর মধ্যপ্রদেশের গোয়ালিয়রে একটি হিন্দু ব্রাহ্মণ পরিবারে জন্মগ্রহণ করেন।[৫] তার মাতা কৃষ্ণ দেবী ও পিতা কৃষ্ণবিহারী বাজপেয়ী। তার বাবা তাদের নিজ শহরে একটি স্কুলের শিক্ষক ছিলেন। তাঁর পিতামহ শ্যাম লাল বাজপেয়ী উত্তর প্রদেশের আগ্রা জেলার বাতেশ্বর গ্রামে তাঁর পৈতৃক গ্রাম থেকে গোয়ালিয়রের কাছে মোরেনায় চলে এসেছিলেন।[৬]

বাজপেয়ী গোয়ালিয়রের সরস্বতী শিশু মন্দিরে পড়াশোনা শুরু করেন। ১৯৩৪ সালে তার বাবা প্রধান শিক্ষক হিসেবে যোগ দেওয়ার পর ১৯৩৪ সালে তিনি উজ্জয়িনী জেলার বারনগরের অ্যাংলো-ভার্নাকুলার মিডল (এভিএম) স্কুলে ভর্তি হন। পরবর্তীকালে তিনি গোয়ালিয়রের ভিক্টোরিয়া কলেজে (বর্তমানে মহারানি লক্ষ্মী বাই গভর্নমেন্ট কলেজ অফ এক্সেলেন্স) হিন্দি, ইংরেজি ও সংস্কৃতে বিএ ডিগ্ৰীর জন্য পড়াশোনা করেন। তিনি কানপুরের ডিএভি কলেজ থেকে রাষ্ট্রবিজ্ঞানে এমএ পাশ করেন।[৭]

স্বাধীনতা আন্দোলন[সম্পাদনা]

আর্য সমাজ আন্দোলনের যুব শাখা আর্য কুমার সভায় যোগদানের মধ্য দিয়ে গোয়ালিয়রে তার সক্রিয়তা শুরু হয়, যেখানে তিনি ১৯৪৪ সালে সাধারণ সম্পাদক নির্বাচিত হন। তিনি ১৯৩৯ সালে রাষ্ট্রীয় স্বয়ংসেবক সংঘ (আরএসএস) একটি স্বয়ংসেবক বা স্বেচ্ছাসেবক হিসেবে যোগদান করেন। বাবাসাহেব আপ্তে দ্বারা প্রভাবিত হয়ে তিনি ১৯৪০ থেকে ১৯৪৪ সাল পর্যন্ত আরএসএস-এর অফিসার্স ট্রেনিং ক্যাম্পে যোগ দেন। তিনি ১৯৪৭ সালে প্রচারক (পূর্ণ সময়ের কর্মীর জন্য আরএসএস পরিভাষা) হয়ে উঠেন। তিনি ভারত বিভাজনের কারণে আইন অধ্যয়ন ছেড়ে দেন। তাকে একজন ভিস্তারাক (একটি পরীক্ষামূলক প্রাচরক) হিসাবে উত্তর প্রদেশে পাঠানো হয় এবং পরপরই তিনি দীনদয়াল উপাধ্যায়ের রাষ্ট্রধর্ম (একটি হিন্দি মাসিক), পঞ্চজানিয়া (একটি হিন্দি সাপ্তাহিক) এবং দৈনিক স্বদেশ এবং বীর অর্জুন পত্রিকায় কাজ শুরু করেন।[৮][৯][১০]

১৯৪২ সালে মাত্র ১৬ বছর বয়সে, বাজপেয়ী রাষ্ট্রীয় স্বয়ংসেবক সংঘের (আরএসএস) সক্রিয় সদস্য হয়েছিলেন। যদিও আরএসএস ভারত ছাড়ো আন্দোলনে অংশগ্রহণ না করার সিদ্ধান্ত নিয়েছিল তবুও ১৯৪২ সালের আগস্ট মাসে, বাজপেয়ী এবং তার বড়ো ভাই প্রেমকে ভারত ছাড়ো আন্দোলনের সময় ২৪ দিনের জন্য গ্রেফতার করা হয়। জনসমাগমের অংশ থাকা অবস্থায় ১৯৪৪ সালের ২৭ আগস্ট বাটেশ্বরে জঙ্গিদের অনুষ্ঠানে তিনি অংশ নেননি বলে লিখিত বক্তব্য দেওয়ার পরে তাকে মুক্তি দেওয়া হয়। প্রধানমন্ত্রী হওয়ার পরও তিনি সারা জীবনে এই অভিযোগকে একটি মিথ্যা গুজব হিসাবে চিহ্নিত করেছেন।[১১]

প্রাথমিক রাজনৈতিক কর্মজীবন (১৯৪৭-১৯৭৫)[সম্পাদনা]

১৯৫১ সালে বাজপেয়ী, দীনদয়াল উপাধ্যায় সহ, আরএসএস সঙ্গে যুক্ত একটি হিন্দু ডানপন্থী রাজনৈতিক দল নবগঠিত ভারতীয় গণ সংঘের হয়ে কাজ করার জন্য যুক্ত হন। তিনি দিল্লি ভিত্তিক উত্তর অঞ্চলের দায়িত্বে থাকা দলের জাতীয় সম্পাদক হিসেবে নিযুক্ত হন। তিনি এর পরপরই দলীয় নেতা শ্যামাপ্রসাদ মুখোপাধ্যায়ের অনুগামী এবং সহযোগী হয়ে ওঠেন। ১৯৫৭ সালের ভারতীয় সাধারণ নির্বাচনে বাজপেয়ী ভারতীয় সংসদের নিম্নকক্ষ লোকসভা নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করেন। তিনি নির্বাচনে মথুরার রাজা মহেন্দ্র প্রতাপের কাছে পরাজিত হন কিন্তু বলরামপুর থেকে জয়লাভ করেন। লোকসভায় এক বক্তৃতায় প্রধানমন্ত্রী জওহরলাল নেহেরু ভবিষ্যদ্বাণী করেন যে “বাজপেয়ী একদিন ভারতের প্রধানমন্ত্রী হবেন।”[১২][১৩] বাজপেয়ী বক্তৃতার মাধ্যমে জনসংঘের নীতির সবচেয়ে বাকপটু হিসেবে খ্যাতি অর্জন করেন।[১৪] দীনদয়াল উপাধ্যায় এর মৃত্যুর পর জনসংঘের নেতৃত্ব বাজপেয়ীর কাছে চলে যায়।[১৫] তিনি ১৯৬৮ সালে জনসংঘের জাতীয় সভাপতি হন ও নানাজি দেশমুখ, বলরাজ মাধোক এবং লালকৃষ্ণ আদভানির সাথে দল পরিচালনা শুরু করেন।[১৬]

জনতা পার্টি এবং বিজেপি (১৯৭৫-১৯৯৫)[সম্পাদনা]

১৯৭৮ সালে ভারত সফরের সময় মার্কিন প্রেসিডেন্ট জিমি কার্টারের সাথে পররাষ্ট্রমন্ত্রী বাজপেয়ী (ডান দিক থেকে) এবং প্রধানমন্ত্রী মোরারজি দেসাই (ডান দিক থেকে তৃতীয়)।

বাজপেয়ী ১৯৭৫ সালে প্রধানমন্ত্রী ইন্দিরা গান্ধী দ্বারা আরোপিত অভ্যন্তরীণ জরুরি অবস্থার সময় আরও কয়েকজন বিরোধী দলীয় নেতাসহ তাকে গ্রেফতার করা হয়।[১৭][১৮]প্রাথমিকভাবে বেঙ্গালুরে বন্দী থাকাবস্থায় বাজপেয়ী খারাপ স্বাস্থ্যের কারণে তার কারাদণ্ডের আবেদন করেন, এবং দিল্লির একটি হাসপাতালে স্থানান্তরিত করা হয়।[১৯] গান্ধী ১৯৭৭ সালে জরুরি অবস্থা শেষ করেন। বিজেএস সহ বিভিন্ন দলের একটি জোট একত্রিত হয়ে জনতা পার্টি গঠন করে ও ১৯৭৭ সালের সাধারণ নির্বাচনে জয়লাভ করে।[২০] জোটের নির্বাচিত নেতা মোরারজি দেশাই প্রধানমন্ত্রী হন। বাজপেয়ী দেশাইয়ের মন্ত্রিসভায় পররাষ্ট্রমন্ত্রী হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন।[২১] পররাষ্ট্রমন্ত্রী হিসেবে, বাজপেয়ী ১৯৭৭ সালে হিন্দিতে জাতিসংঘের সাধারণ পরিষদে ভাষণ দেওয়া প্রথম ব্যক্তি হন।

১৯৭৯ সালে দেশাই এবং বাজপেয়ীর পদত্যাগ করা ফলে জনতা পার্টির পতন ঘটে।[১৯][২২] ভারতীয় জনসংঘের পুরনো কর্মীরা ১৯৮০ সালে ভারতীয় জনতা পার্টি (বিজেপি) গঠন করতে প্রথম রাষ্ট্রপতি হিসেবে বাজপেয়ী সঙ্গে একত্রিত হন।[২৩]

প্রধানমন্ত্রী ইন্দিরা গান্ধীর শিখ দেহরক্ষীদের দ্বারা হত্যার পরিপ্রেক্ষিতে ১৯৮৪ সাধারণ নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়। যদিও তিনি ১৯৭৭ এবং ১৯৮০ সালে নয়া দিল্লি থেকে নির্বাচনে জিতেছিলেন, বাজপেয়ী নির্বাচনের জন্য তার নিজের শহর গোয়ালিয়রে চলে যান।[২৪] বিদ্যা রাজদানকে প্রাথমিকভাবে কংগ্রেস (আমি) প্রার্থী হওয়ার ইঙ্গিত দেওয়া হয়েছিল। পরবর্তীতে, গোয়ালিয়র রাজপরিবারের বংশধর মাধবরাও সিন্ধিয়া, শেষ দিনে মনোনয়ন দাখিল করেন।[২৫] বাজপেয়ী সিন্ধিয়ার কাছে মাত্র ২৯% ভোটের ব্যবধানে সিন্ধিয়ার কাছে পরাজিত হন।[২৪]

বাজপেয়ীর অধীনে বিজেপি জনসংঘের হিন্দু-জাতীয়তাবাদী অবস্থান সংযত করে, জনতা পার্টির সাথে যোগাযোগের উপর জোর দেয় এবং গান্ধীবাদী সমাজতন্ত্রের প্রতি সমর্থন প্রকাশ করে। আদর্শগত পরিবর্তনের ফলে বিজেপিকে সাফল্য এনে দেয়নি বরং ইন্দিরা গান্ধীর হত্যাকাণ্ড কংগ্রেসের প্রতি সহানুভূতি রটাচ্ছে, যার ফলে নির্বাচনে ব্যাপক জয় লাভ করেছে। বিজেপি সংসদে মাত্র দুটি আসন জিতে।[২৬] নির্বাচনে বিজেপির হতাশাজনক ফলাফলের পর বাজপেয়ী দলীয় সভাপতির পদ থেকে পদত্যাগের প্রস্তাব দেন।[২৭] কিন্তু ১৯৮৬ সাল পর্যন্ত পদে ছিলেন।[২৮] তিনি ১৯৮৬ সালে মধ্যপ্রদেশ থেকে রাজ্যসভায় নির্বাচিত হন, এবং সংসদে বিজেপি নেতা ছিলেন।[২৯]

১৯৮৬ সালে লালকৃষ্ণ আদভানি বিজেপির সভাপতির দায়িত্ব গ্রহণ করেন। তার অধীনে বিজেপি কট্টর হিন্দু জাতীয়তাবাদের নীতিতে ফিরে আসে।[২৬] হিন্দু দেবতা রামের সম্মানে রামের জন্মভূমিতে মন্দির নির্মাণ করার জন্য রাজনৈতিক আন্দোলন জোরদার হয়ে উঠে। ১৬ শতকের একটি বাবরি মসজিদ ভেঙ্গে [[অযোধ্যা|অযোধ্যায় মন্দির নির্মাণ করতে চেয়েছিল, যা রামের জন্মস্থান বলে বিশ্বাস করা হত।[৩০] এই কৌশলের ফলে বিজেপির ১৯৮৯ সালের সাধারণ নির্বাচনে লোকসভায় ৮৬ আসন জয়লাভ করে, ভি পি সিং সরকারের সমর্থন গুরুত্বপূর্ণ করে তোলে।[২৬] ১৯৯২ সালের ডিসেম্বর মাসে বিজেপি, রাষ্ট্রীয় স্বয়ংসেবক সংঘ (আরএসএস) এবং বিশ্ব হিন্দু পরিষদের (ভিএইচপি) সদস্যদের নেতৃত্বে একদল ধর্মীয় স্বেচ্ছাসেবক মসজিদটি ভেঙ্গে ফেলে।[৩১]

১৯৫৭ থেকে ১৯৬২ সাল পর্যন্ত বলরামপুরে শুরু হয়ে বিভিন্ন মেয়াদে তিনি লোকসভার সংসদ সদস্য হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন। তিনি ১৯৬৭-১৯৭১ সাল পর্যন্ত বলরামপুর থেকে আবার দায়িত্ব পালন করেন, তারপর ১৯৭১-১৯৭৭ সাল পর্যন্ত গোয়ালিয়র থেকে এবং তারপর ১৯৭৭-১৯৮৪ সাল পর্যন্ত নয়া দিল্লি থেকে ও অবশেষে, তিনি ১৯৯১-২০০৯ পর্যন্ত লখনউ থেকে নির্বাচিত হন।[৩২]

প্রধানমন্ত্রী হিসেবে মেয়াদ (১৯৯৬-২০০৪)[সম্পাদনা]

প্রথম মেয়াদ:মে ১৯৯৬[সম্পাদনা]

১৯৯৫ সালের নভেম্বরে মুম্বাইয়ে বিজেপির এক সম্মেলনে বিজেপি সভাপতি আদভানি ঘোষণা করেন যে বাজপেয়ী আগামী নির্বাচনে দলের প্রধানমন্ত্রী পদপ্রার্থী হবেন। বাজপেয়ী নিজে এই ঘোষণায় অসন্তুষ্ট হন বলে জানা গেছে। তিনি এর জবাবে বলেন যে দলের প্রথমে নির্বাচনে জয়লাভ করা প্রয়োজন।[৩৩] বিজেপি ১৯৯৬ সালের সাধারণ নির্বাচনে বাবরি মসজিদ ধ্বংসের ফলে সারা দেশে ধর্মীয় মেরুকরণ দ্বারা সংসদে একক বৃহত্তম দল হয়ে ওঠে।[৩৪] ভারতের রাষ্ট্রপতি শঙ্কর দয়াল শর্মা বাজপেয়ীকে সরকার গঠনের আমন্ত্রণ জানিয়েছেন।[৩৫] বাজপেয়ী ভারতের দশম প্রধানমন্ত্রী হিসেবে শপথ গ্রহণ করেন, কিন্তু বিজেপি লোকসভার সদস্যদের মধ্যে সংখ্যাগরিষ্ঠতা অর্জন করতে ব্যর্থ হয়। বাজপেয়ী ১৬ দিন পর পদত্যাগ করেন, যখন এটা পরিষ্কার হয়ে যায় যে সরকার গঠনের জন্য তার যথেষ্ট সমর্থন নেই।[৩৬]

দ্বিতীয় মেয়াদে: ১৯৯৮-১৯৯৯[সম্পাদনা]

১৯৯৬ এবং ১৯৯৮ সালের মধ্যে দুই যুক্তফ্রন্ট সরকারের পতনের পর, লোকসভা ভেঙ্গে দেওয়া হয় এবং নতুন নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়। ১৯৯৮ সালের সাধারণ নির্বাচনে আবার বিজেপিকে অন্যদের চেয়ে এগিয়ে রাখে। বেশ কিছু রাজনৈতিক দল জাতীয় গণতান্ত্রিক জোট (এনডিএ) গঠনের জন্য বিজেপিতে যোগ দেয়, এবং বাজপেয়ী প্রধানমন্ত্রী হিসেবে শপথ গ্রহণ করেন।[৩৭] শিবসেনা ছাড়া অন্য কোন দল বিজেপির হিন্দু-জাতীয়তাবাদী মতাদর্শ সমর্থন না করায় জোট একটি অস্বস্তিকর অবস্থায় ছিল।[৩৪] বাজপেয়ীকে সফলভাবে এই জোট পরিচালনার জন্য কৃতিত্ব দেওয়া হয়েছে, যখন দলের কট্টরপন্থী শাখা এবং আরএসএস থেকে মতাদর্শগত চাপের সম্মুখীন হয়েছে।[১৯] বাজপেয়ীর সরকার ১৯৯৯ সালের মাঝামাঝি সময় পর্যন্ত ১৩ মাস স্থায়ী হয় যখন জয়ললিতা জয়রামের নেতৃত্বে সর্বভারতীয় আন্না দ্রাবিড় মুন্নেত্রা কাঝাগ্রাম (এআইএডিএমকে) তাদের সমর্থন প্রত্যাহার করে নেয়।[৩৮] সরকার ১৭ এপ্রিল ১৯৯৯ লোকসভায় আনা আস্থা প্রস্তাব ভোটে পরাজিত হয়।[৩৯] যেহেতু বিরোধীদল নতুন সরকার গঠনের জন্য সংখ্যাগরিষ্ঠতা অর্জন করতে অক্ষম,তাই লোকসভা আবার ভেঙ্গে ফেলা হয় এবং নতুন নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়।

পারমাণবিক পরীক্ষা[সম্পাদনা]

১৯৯৮ সালের মে মাসে ভারত রাজস্থানের পোখরান মরুভূমিতে পাঁচটি ভূগর্ভস্থ পারমাণবিক পরীক্ষা চালায়। ১৯৭৪ সালে প্রথম পারমাণবিক পরীক্ষার ২৪ বছর পরে এটি চালানো হয়। দুই সপ্তাহ পরে, পাকিস্তান তার নিজস্ব পারমাণবিক পরীক্ষা দ্বারা সাড়া দেয় এবং নবমতম জাতি ঘোষিত হয়।[৩৪] যদিও কিছু দেশ যেমন ফ্রান্স, ভারতের রক্ষণাত্মক পারমাণবিক শক্তির অধিকার সমর্থন করে, কিন্তু মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র, কানাডা, জাপান, ব্রিটেন এবং ইউরোপীয় ইউনিয়ন সহ অন্যরা তথ্য, সম্পদ এবং প্রযুক্তির উপর নিষেধাজ্ঞা আরোপ করে। তীব্র আন্তর্জাতিক সমালোচনা এবং বিদেশী বিনিয়োগ এবং বাণিজ্য ক্রমাগত পতন সত্ত্বেও, পারমাণবিক পরীক্ষা অভ্যন্তরীণভাবে জনপ্রিয় ছিল। প্রকৃতপক্ষে, আরোপিত আন্তর্জাতিক নিষেধাজ্ঞা ভারতকে তার পারমাণবিক ক্ষমতাকে অস্ত্র থেকে প্রভাবিত করতে ব্যর্থ হয়েছে। ভারত ও পাকিস্তানের বিরুদ্ধে মার্কিন নিষেধাজ্ঞা অবশেষে মাত্র ছয় মাস পর প্রত্যাহার করা হয়।[৪০][৪১]

লাহোর সম্মেলন[সম্পাদনা]

১৯৯৮ সালের শেষের দিকে এবং ১৯৯৯ সালের প্রথম দিকে, বাজপেয়ী পাকিস্তানের সঙ্গে একটি পূর্ণ মাপের কূটনৈতিক শান্তি প্রক্রিয়ার জন্য প্রচেষ্টা শুরু করেন। ১৯৯৯ সালের ফেব্রুয়ারি মাসে দিল্লি-লাহোর বাস সার্ভিসের ঐতিহাসিক উদ্বোধন করেন, বাজপেয়ী কাশ্মীর বিবাদ এবং পাকিস্তানের সাথে অন্যান্য দ্বন্দ্ব স্থায়ীভাবে সমাধানের লক্ষ্যে একটি নতুন শান্তি প্রক্রিয়া শুরু করেন।[৪২] ফলশ্রুতিতে লাহোর ঘোষণা সংলাপ, বাণিজ্য সম্পর্ক এবং পারস্পরিক বন্ধুত্বের অঙ্গীকার করে এবং দক্ষিণ এশিয়াকে পারমাণবিক নিরস্ত্রীকরণের লক্ষ্যে পরিকল্পনা শুরু করে। এর ফলে ১৯৯৮ সালের পারমাণবিক পরীক্ষা সৃষ্ট উত্তেজনা শুধু দুই দেশের মধ্যেই নয়, দক্ষিণ এশিয়া এবং বাকি বিশ্বেও উত্তেজনা কমিয়ে দেয়।

এআইএডিএমকে এর থেকে প্রত্যাহার জোট[সম্পাদনা]

এআইএডিএমকে ক্রমাগত জোট থেকে সরে যাওয়ার হুমকি দিয়েছিল এবং জাতীয় নেতারা বারবার দিল্লি থেকে চেন্নাই উড়ে এআইএডিএমকে সাধারণ সম্পাদক জয়ললিতা জয়রামকে শান্ত করার জন্য উড়ে গিয়েছিলেন। যাইহোক ১৯৯৯ সালের মে মাসে এআইএডিএমকে সরিয়ে এনডিএ কে সাথে নিয়ে এবং বাজপেয়ী প্রশাসন ১৯৯৯ সালের অক্টোবর নতুন নির্বাচন স্থগিত করে একটি তত্ত্বাবধায়ক সরকার ব্যবস্থা মূলতবি করা হয়।[৪৩]

কারগিল যুদ্ধ[সম্পাদনা]

১৯৯৯ সালের মে মাসে কিছু কাশ্মীরি রাখাল কাশ্মীর উপত্যকায় জঙ্গি এবং উর্দিবিহীন পাকিস্তানি সৈন্যদের (অনেকের সরকারি পরিচয় এবং পাকিস্তান সেনাবাহিনীর নিজস্ব অস্ত্রসহ) উপস্থিতি লক্ষ্য করে, যেখানে তারা সীমান্ত পাহাড় এবং মানববিহীন সীমান্ত চৌকির নিয়ন্ত্রণ গ্রহণ করে। আক্রমণটা কার্গিল শহরের চারপাশে কেন্দ্রীভূত ছিল, কিন্তু এছাড়াও সিয়াচেন হিমবাহের বাতালিক এবং আখনুর সেক্টর এবং আর্টিলারি এক্সচেঞ্জ অন্তর্ভুক্ত ছিল।[৪৪][৩৪]

ভারতীয় সেনাবাহিনী অপারেশন বিজয় সাথে সাথে ১৯৯৯ সালের ২৬শে মে চালু করা হয়। এর ফলে ভারতীয় সামরিক বাহিনী ভারী আর্টিলারি গোলাবর্ষণের মধ্যে হাজার হাজার জঙ্গি ও সৈন্যের সাথে লড়াই করছে এবং অতি উচ্চতায় অত্যন্ত ঠাণ্ডা আবহাওয়া, তুষারপাতের মুখোমুখি হচ্ছে।[৪৫] তিন মাস ব্যাপী কার্গিল যুদ্ধে ৫০০ জনেরও বেশি ভারতীয় সেনা নিহত হয়, এবং ধারণা করা হয় প্রায় ৬০০-৪,০০০ পাকিস্তানি জঙ্গি ও সৈন্যও মারা গেছে।[৪৬][৪৭][৪৮][৪৯] ভারত পাকিস্তানি জঙ্গি ও নর্দার্ন লাইট পদাতিক সৈন্যদের পিছনে ঠেলে দেয়[৪৫] প্রায় ৭০% অঞ্চল ভারত দ্বারা পুনর্দখল করা হয়। বাজপেয়ী মার্কিন প্রেসিডেন্ট বিল ক্লিনটনকে একটি গোপন চিঠি পাঠিয়েছেন যে যদি পাকিস্তানি অনুপ্রবেশকারীরা ভারতীয় ভূখণ্ড থেকে সরে না যায়, "আমরা তাদের বের করে দেবো, কোন না কোনভাবে"- অর্থাৎ তিনি নিয়ন্ত্রণ রেখা (এলওসি) অতিক্রম করার কথা অস্বীকার করেননি, অথবা পারমাণবিক অস্ত্র ব্যবহার করেছেন।[৫০]

পাকিস্তান ব্যাপক ক্ষতির সম্মুখীন হওয়ার পর, এবং মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র এবং চীন উভয়ই এই আক্রমণ বন্ধ করতে অস্বীকার করে অথবা ভারতকে তাদের সামরিক অভিযান বন্ধ করার হুমকি দেয়, জেনারেল পারভেজ মুশাররফকে পুনরায় ডাকা হয়। নওয়াজ শরিফ অবশিষ্ট জঙ্গিদের এলওসি বরাবর অবস্থান থেকে সরে যেতে বলেন।[৫১] জঙ্গিরা শরিফের আদেশ মেনে নিতে রাজি ছিল না কিন্তু এনএলআই সৈন্যরা প্রত্যাহার করে নেয়।[৫১] জঙ্গিরা ভারতীয় সেনাবাহিনীর হাতে নিহত হয় অথবা সংঘর্ষে পিছু হটতে বাধ্য হয় যা পাকিস্তান প্রত্যাহারের ঘোষণার পরেও অব্যাহত থাকে।[৫১]

তৃতীয় মেয়াদ: (১৯৯৯-২০০৪)[সম্পাদনা]

১৯৯৯-২০০২[সম্পাদনা]

১৯৯৯ সালের সাধারণ নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয় কার্গিল অভিযানের পর। বিজেপি নেতৃত্বাধীন এনডিএ লোকসভায় ৫৪৩টি আসনের মধ্যে ৩০৩টি আসন জিতে এবং আরামদায়ক এবং স্থিতিশীল সংখ্যাগরিষ্ঠতা অর্জন করে।[৫২] ১৯৯৯ সালের ১৩ অক্টোবর বাজপেয়ী তৃতীয়বারের মত ভারতের প্রধানমন্ত্রী হিসেবে শপথ গ্রহণ করেন।[৫৩]

১৯৯৯ সালের ডিসেম্বর মাসে একটি জাতীয় সংকটের উদ্ভব ঘটে, যখন ইন্ডিয়ান এয়ারলাইন্সের ফ্লাইট আইসি ৮১৪ কাঠমান্ডু থেকে নয়া দিল্লি তে পাঁচজন সন্ত্রাসী অপহরণ করে তালেবান-শাসিত আফগানিস্তানে নিয়ে যায়।[৫৪] অপহরণকারীরা মাসুদ আজহারের মত কিছু সন্ত্রাসীকে কারাগার থেকে মুক্তি সহ বেশ কিছু দাবি জানিয়েছে। চাপের মুখে অবশেষে সরকার নতিস্বীকার করে। যশবন্ত সিং, সে সময় পররাষ্ট্র মন্ত্রী, সন্ত্রাসীদের সঙ্গে আফগানিস্তানে উড়ে যান এবং বিনিময়ে যাত্রীদের মুক্তি চান[৫৫]

৬ নভেম্বর ২০০১ তারিখে রাশিয়ার প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিন সাথে বাজপেয়ী

২০০০ সালের মার্চ মাসে, মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট বিল ক্লিনটন, ভারতে একটি রাষ্ট্রীয় সফর করেন।[৫৬] ১৯৭৮ সালে প্রেসিডেন্ট জিমি কার্টারের সফরের পর ২২ বছরে যুক্তরাষ্ট্রের কোন রাষ্ট্রপতি দ্বারা এটি ছিল প্রথম ভারত সফর।[৫৭] প্রেসিডেন্ট ক্লিনটনের এই সফর দুই দেশের মধ্যে সম্পর্কের একটি উল্লেখযোগ্য মাইলফলক হিসেবে প্রশংসিত হয়। বাজপেয়ী এবং ক্লিনটন দ্বিপাক্ষিক, আঞ্চলিক এবং আন্তর্জাতিক উন্নয়ন নিয়ে ব্যাপক আলোচনা করেছেন।[৫৮] এই সফর ভারত ও মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের মধ্যে বাণিজ্য ও অর্থনৈতিক সম্পর্ক সম্প্রসারণের নেতৃত্ব দেয়।[৫৯] ইন্দো-মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের ভবিষ্যৎ গতিপথের উপর একটি গুরুত্বপূর্ণ নথি সফরের সময় সম্পর্ক স্বাক্ষরিত হয়।[৬০]

হোয়াইট হাউজে মার্কিন প্রেসিডেন্ট জর্জ ডব্লিউ বুশ সাথে বাজপেয়ীর সাক্ষাৎ

অভ্যন্তরীণভাবে, বিজেপি নেতৃত্বাধীন সরকার আরএসএস দ্বারা প্রভাবিত ছিল, কিন্তু জোট সমর্থনের উপর নির্ভরশীলতার কারণে বিজেপির পক্ষে অযােধ্যায় রাম জন্মভূমি মন্দির নির্মাণ, ৩৭০ ধারা বাতিল করা, যা কাশ্মীর রাজ্যকে বিশেষ মর্যাদা দিয়েছে, অথবা একটি অভিন্ন দেওয়ানি বিধি প্রণয়ন করা বিজেপির পক্ষে অসম্ভব ছিল। ২০০০ সালের ১৭ জানুয়ারি আরএসএস এবং কিছু বিজেপি কট্টরপন্থী বাজপেয়ীর শাসন নিয়ে অসন্তোষের কারণে বিজেপির পূর্বসূরি জন সংঘ পুনরায় চালু করার হুমকি দেয়। জন সংঘের প্রাক্তন সভাপতি বলরাজ মাধোক তৎকালীন আরএসএস প্রধান রাজেন্দ্র সিংকে একটি চিঠি লিখেছিলেন। [৬১] তবে বিজেপির বিরুদ্ধে রাষ্ট্রীয় শিক্ষা পাঠ্যক্রমে 'জাফরান' করার অভিযোগ আনা হয়েছে, জাফরান হচ্ছে আরএসএস-এর পতাকার রঙ, এবং হিন্দু জাতীয়তাবাদের প্রতীক।[৬২] স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী লালকৃষ্ণ আদভানি এবং মানবসম্পদ উন্নয়ন মন্ত্রী (বর্তমানে শিক্ষামন্ত্রী) মুরলী মনোহর জোশীকে ১৯৯২ সালের বাবরি মসজিদ ধ্বংস মামলায় অভিযুক্ত করা হয়। মসজিদ ধ্বংসের একদিন আগে তার বিতর্কিত ভাষণের কারণে বাজপেয়ী নিজেই জনসমক্ষে আসেন।[৬৩][৬৪]

এই বছরে প্রশাসনের মধ্যে সংঘর্ষ এবং সরকারের দিক নির্দেশনা সম্পর্কে বিভ্রান্তি ছিল।[৬৫][৬৬] বাজপেয়ীর দুর্বল স্বাস্থ্য এছাড়াও জনস্বার্থের একটি বিষয় ছিল, এবং তিনি তার পায়ের উপর তীব্র চাপ দূর করতে মুম্বাইয়ের ব্রেক ক্যান্ডি হাসপাতালে একটি প্রধান হাঁটু প্রতিস্থাপন অস্ত্রোপচার করা হয়।[৬৭]

২০০১ সালের মার্চ মাসে তেহেলকা গ্রুপ অপারেশন ওয়েস্ট এন্ড নামে একটি গোপন ভিডিও প্রকাশ করে, যেখানে দেখা যাচ্ছে বিজেপি সভাপতি বাঙ্গারু লক্ষ্মণ, ঊর্ধ্বতন সেনা কর্মকর্তা এবং এনডিএ সদস্যরা এজেন্ট এবং ব্যবসায়ী হিসেবে দাঁড়িয়ে থাকা সাংবাদিকদের কাছ থেকে ঘুষ গ্রহণ করছেন।[৬৮][৬৯] কার্গিলে নিহত সৈন্যদের জন্য কফিন সরবরাহ এবং একটি তদন্ত কমিশনের ফলাফল যে সরকার কার্গিল আক্রমণ প্রতিরোধ করতে পারে তার সাথে জড়িত বারাক মিসাইল কেলেঙ্কারির পর জর্জ ফার্নান্ডেজ পদত্যাগ করতে বাধ্য হন।[৭০]

বাজপেয়ী পাকিস্তানের সাথে আলোচনা শুরু করেন এবং পাকিস্তানের প্রেসিডেন্ট পারভেজ মুশাররফকে একটি যৌথ সম্মেলনের জন্য আগ্রায় আমন্ত্রণ জানান। প্রেসিডেন্ট মোশাররফ ভারতের কার্গিল যুদ্ধের প্রধান স্থপতি বলে বিশ্বাস করা হয়।[৭১] তাঁকে পাকিস্তানের রাষ্ট্রপতি হিসেবে গ্রহণ করে বাজপেয়ী কার্গিল যুদ্ধের পিছনে রেখে এগিয়ে যাওয়ার সিদ্ধান্ত নেন। কিন্তু তিন দিন ধরে অনেক উন্মাদনার পর, যার মধ্যে মুশাররফ দিল্লিতে তার জন্মস্থান পরিদর্শন অন্তর্ভুক্ত ছিল, শীর্ষ সম্মেলন একটি সাফল্য অর্জন করতে ব্যর্থ হয় যখন প্রেসিডেন্ট মুশাররফ কাশ্মীর ইস্যু ছেড়ে যেতে অস্বীকৃতি জানান।[৭২]

২০০১ সালে সংসদে আক্রমণ[সম্পাদনা]

২০০১ সালের ১৩ ডিসেম্বর একদল মুখোশধারী, নকল পরিচয়পত্র নিয়ে দিল্লির সংসদ ভবনে হামলা চালায়।[৭৩] সন্ত্রাসীরা বেশ কয়েকজন নিরাপত্তা রক্ষীকে হত্যা করতে সক্ষম হয়, কিন্তু ভবনটি দ্রুত বন্ধ করে দেওয়া হয় এবং নিরাপত্তা বাহিনী কোণঠাসা হয়ে পড়ে এবং তাদের হত্যা করে যারা পরে পাকিস্তানের নাগরিক বলে প্রমাণিত হয়।[৭৪] বাজপেয়ী ভারতীয় সৈন্যদের যুদ্ধের জন্য সংগঠিত করার আদেশ দেন, যার ফলে ভারত ও পাকিস্তানের মধ্যে আন্তর্জাতিক সীমান্ত বরাবর আনুমানিক ৫০০.০০ থেকে ৭৫০,০০০ ভারতীয় সৈন্য অবস্থান করে। পাকিস্তান সীমান্তবরাবর তাদের নিজস্ব সৈন্য সংগঠিত করে সাড়া দেয়।[৭৫][৭৬] ২০০২ সালের মে মাসে কাশ্মীরের একটি সেনা গ্যারিসনে সন্ত্রাসী হামলা পরিস্থিতিকে আরো উত্তপ্ত করে। যখন দুটি পারমাণবিক সক্ষম দেশের মধ্যে যুদ্ধের হুমকি এবং পারমাণবিক বিনিময়ের সম্ভাবনা ব্যাপক আকার ধারণ করে, তখন আন্তর্জাতিক কূটনৈতিক মধ্যস্থতা পরিস্থিতি নিষ্ক্রিয় করার উপর মনোযোগ প্রদান করে।[৭৭] ২০০২ সালের অক্টোবরে , ভারত এবং পাকিস্তান উভয় সীমান্ত থেকে তাদের সৈন্য প্রত্যাহার ঘোষণা করে।

বাজপেয়ী প্রশাসন ২০০২ সালে সন্ত্রাস প্রতিরোধ আইন আনে। এই আইনের উদ্দেশ্য ছিল সন্দেহভাজন সন্দেহভাজনের বিরুদ্ধে তদন্ত এবং কাজ করার জন্য সরকারি কর্তৃপক্ষের ক্ষমতা শক্তিশালী করে সন্ত্রাসী হুমকি দমন করা।.[৭৮][৭৯] আইনটির অপব্যবহার করা হবে এমন উদ্বেগের মধ্যে সংসদের যৌথ অধিবেশনে এটি পাস করা হয়েছিল।[৮০]

২০০১ সালের ডিসেম্বর থেকে ২০০২ সালের মার্চের মধ্যে আরেকটি রাজনৈতিক বিপর্যয় তার সরকারকে আঘাত করে যখন রাম মন্দির নিয়ে অযােধ্যায় একটি বড়ো অচলাবস্থায় সরকারকে জিম্মি করে রাখে। বাবরি মসজিদ ধ্বংসের দশম বার্ষিকীতে, বিশ্ব হিন্দু পরিষদ(ভিএইচপি) একটি শিলা দান, অথবা বিতর্কিত স্থানে লালিত মন্দিরের ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন করতে চেয়েছিল।[৮১] হাজার হাজার ভিএইচপি কর্মী জড়ো হয় এবং জায়গাটি দখল করে নেওয়ার হুমকি দেয় এবং জোর করে অনুষ্ঠান করার হুমকি দেয়।[৮২][৮৩] শুধু সাম্প্রদায়িক সহিংসতা নয়, একটি ধর্মীয় সংগঠনের সরকারের অবাধ্যতার কারণে আইনশৃঙ্খলা সরাসরি ভেঙ্গে পড়ার আশঙ্কা রয়েছে। যাইহোক, ঘটনাটি শান্তিপূর্ণভাবে বিতর্কিত স্থান থেকে ১ কিলোমিটার দূরে একটি ভিন্ন স্থানে একটি পাথর হস্তান্তরের মাধ্যমে শেষ হয়।[৮৪]

২০০২ সালে গুজরাটে সহিংসতা[সম্পাদনা]

২০০২ সালের ফেব্রুয়ারি, অযোধ্যা থেকে গুজরাটে ফিরে হিন্দু তীর্থযাত্রীদের ভর্তি একটি ট্রেন গোধরা শহরে থামে। হিন্দু কর্মী এবং মুসলিম বাসিন্দাদের মধ্যে হাতাহাতি শুরু হয় এবং ট্রেনে আগুন ধরিয়ে দেওয়া হয়, যার ফলে ৫৯ জন লোক মারা যায়। নিহতদের দগ্ধ দেহ আহমেদাবাদ শহরে জনসম্মুখে প্রদর্শন করা হয় এবং বিশ্ব হিন্দু পরিষদ গুজরাটে রাজ্যব্যাপী ধর্মঘটের ডাক দেয়। এই সিদ্ধান্ত মুসলিম বিরোধী আবেগকে উস্কে দিয়েছে।[৮৫] এই মৃত্যুর জন্য মুসলমানদের দোষারোপ করে হিন্দু জনতা হাজার হাজার মুসলিম পুরুষ ও নারীকে হত্যা করে, মুসলমানদের ঘরবাড়ি ও উপাসনাস্থল ধ্বংস করে দেয়। দুই মাসেরও বেশি সময় ধরে এই সহিংসতা চলছে, এবং ১০০০ এর ও বেশি লোক মারা গেছে।[৮৬] গুজরাটে তখন একটি বিজেপি সরকার দ্বারা শাসিত হচ্ছিল এবং নরেন্দ্র মোদী মুখ্যমন্ত্রী ছিলেন। রাজ্য সরকার পরিস্থিতির অপব্যবহার করার জন্য সমালোচিত হয়।[৮৭] এটা সহিংসতা থামাতে পরিস্থিতিকে জটিল ও এটিকে উৎসাহিত করা হয় বলে অভিযোগ করা হয়।[৮৮]

শোনা যাচ্ছিল, বাজপেয়ী মোদীকে অপসারণ করতে চেয়েছিলেন, কিন্তু অবশেষে দলের সদস্যরা তার বিরুদ্ধে ব্যবস্থা না নেওয়ার জন্য বলেন।[৮৯][৯০] তিনি গুজরাটের গোধরা শহরে, এবং আহমেদাবাদ ভ্রমণ করেন। তিনি ক্ষতিগ্রস্তদের জন্য আর্থিক সাহায্য ঘোষণা করেন, এবং সহিংসতা বন্ধ করার আহ্বান জানান।[৯১] যদিও বাজপেয়ী এই সহিংসতার নিন্দা জানিয়েছেন তবুও তিনি সরাসরি মোদীকে প্রকাশ্যে শাস্তি দেননি। দাঙ্গা সংঘটিত হলে মুখ্যমন্ত্রী্র প্রতি তার বার্তা কি হবে জানতে চাওয়া হলে বাজপেয়ী বলেন যে মোদীকে অবশ্যই নৈতিক শাসনের জন্য রাজ ধর্ম, হিন্দি অনুসরণ করতে হবে।[৯২].

২০০২ সালের এপ্রিল মাসে গোয়ায় বিজেপির জাতীয় নির্বাহীর সভায় বাজপেয়ীর ভাষণ বিতর্কের সৃষ্টি করে, যার মধ্যে তিনি বলেন: "মুসলমানরা যেখানেই বাস করে, তারা সেখানে অন্যদের সাথে সহাবস্থানে থাকতে পছন্দ করে না"।[৯৩][৯৪] প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয় বলেছে যে এই মন্তব্যগুলো পরে প্রেক্ষাপট থেকে সরিয়ে নেওয়া হয়।[৯৫] বাজপেয়ী সহিংসতা থামাতে কিছুই করতে পারেননি এবং পরে পরিস্থিতি সামাল দিতে না পারার ভুল স্বীকার করেন।[৯৬] ভারতের তৎকালীন রাষ্ট্রপতি নারায়ণন ও সহিংসতা দমনে ব্যর্থ হওয়ার জন্য বাজপেয়ী সরকারকে দায়ী করেন।[৯৭] ২০০৪ সালের সাধারণ নির্বাচনে বিজেপির পরাজয়ের পর, বাজপেয়ী স্বীকার করেন যে মোদীকে অপসারণ না একটি ভুল ছিল।[৯৮]

২০০২-২০০৪[সম্পাদনা]

২০০২ এবং ২০০৩ সালের শেষের দিকে সরকার অর্থনৈতিক সংস্কারের প্রচেষ্টা শুরু করে।[৯৯] তিন বছর পরে দেশের জিডিপি প্রবৃদ্ধি ২০০৩ থেকে ২০০৭ প্রতি বছর ৭% অতিক্রম করে।[১০০],বিদেশী বিনিয়োগ বৃদ্ধি, সরকারি ও শিল্প অবকাঠামোর আধুনিকীকরণ, কর্মসংস্থান সৃষ্টি, একটি ক্রমবর্ধমান উচ্চ-প্রযুক্তি ও তথ্যপ্রযুক্তি শিল্প এবং শহুরে আধুনিকীকরণ এবং সম্প্রসারণ জাতির আন্তর্জাতিক ভাবমূর্তি উন্নত করেছে। ভাল ফসল ফসল এবং শক্তিশালী শিল্প সম্প্রসারণ এছাড়াও অর্থনীতি সাহায্য করে।[১০১]

২০০৩ সালের মে মাসে তিনি সংসদের সামনে ঘোষণা দেন যে তিনি পাকিস্তানের সাথে শান্তি অর্জনের জন্য শেষ চেষ্টা করবেন। ২০০১ সালে ভারতীয় সংসদে হামলার পর যখন ভারত পাকিস্তানের সাথে কূটনৈতিক সম্পর্ক ছিন্ন করার ১৬ মাস পর ঘোষণাটি দেন।[১০২] যদিও কূটনৈতিক সম্পর্ক তাৎক্ষণিকভাবে গ্রহণ করা হয়নি, পরিদর্শন উচ্চ পর্যায়ের কর্মকর্তাদের দ্বারা বিনিময় করা হয় এবং সামরিক অচলাবস্থার পরি সমাপ্তি ঘটে। পাকিস্তানের প্রেসিডেন্ট এবং পাকিস্তানি রাজনীতিবিদ, সুশীল এবং ধর্মীয় নেতারা এই উদ্যোগকে স্বাগত জানিয়েছেন। ২০০৩ সালের জুলাই মাসে প্রধানমন্ত্রী বাজপেয়ী চীন সফর করেন এবং বিভিন্ন চীনা নেতাদের সাথে সাক্ষাৎ করেন। তিনি তিব্বতকে চীনের অংশ হিসেবে স্বীকৃতি দেন, যা চীনা নেতৃত্ব দ্বারা স্বাগত হয়, এবং যা পরের বছর, সিকিমকে ভারতের অংশ হিসেবে স্বীকৃতি দেয়। পরবর্তী বছরগুলোতে চীন-ভারত সম্পর্ক ব্যাপকভাবে উন্নত সাধিত হয়।[১০৩]

নীতি[সম্পাদনা]

বাজপেয়ী সরকার অনেক অভ্যন্তরীণ অর্থনৈতিক ও অবকাঠামোগত সংস্কার প্রবর্তন করে যার মধ্যে রয়েছে বেসরকারি খাত ও বিদেশী বিনিয়োগ উৎসাহিত করা, সরকারি বর্জ্য হ্রাস, গবেষণা ও উন্নয়ন এবং কিছু সরকারি মালিকানাধীন কর্পোরেশনের বেসরকারিকরণ করে।[১০৪] বাজপেয়ীর প্রকল্পগুলির মধ্যে ছিল জাতীয় সড়ক উন্নয়ন প্রকল্প এবং প্রধানমন্ত্রী গ্রাম সড়ক যোজনা অন্তর্ভুক্ত ছিল।[১০৫][১০৬] ২০০১ সালে, বাজপেয়ী সরকার প্রাথমিক ও মাধ্যমিক বিদ্যালয়ে শিক্ষার মান উন্নয়নের লক্ষ্যে সর্বশিক্ষা অভিযান শুরু করে।[১০৭][১০৮]

২০০৪ সালের সাধারণ নির্বাচনে[সম্পাদনা]

২০০৩ সালে, সংবাদ প্রতিবেদন বাজপেয়ী এবং উপ-প্রধানমন্ত্রী লালকৃষ্ণ আদভানির মধ্যে নেতৃত্ব ভাগাভাগি নিয়ে বিজেপির অভ্যন্তরে একটি সংঘর্ষের প্রস্তাব দেন।[১০৯][১১০] বিজেপি সভাপতি ভেঙ্কাইয়া নাইডু পরামর্শ দিয়েছিলেন যে আদভানিকে অবশ্যই ২০০৪ সালের সাধারণ নির্বাচনে দলকে রাজনৈতিকভাবে নেতৃত্ব দিতে হবে, বাজপেয়ীকে হিন্দি উন্নয়নের জন্য বিকাশ পুরুষ, এবং আদভানিকে লৌহ পুরুষ, লৌহ মানব হিসেবে উল্লেখ করে।[১১১] বাজপেয়ী যখন অবসরের হুমকি দেন তখন নাইডু তার বক্তব্য প্রত্যাখ্যান করে নেন। তিনি ঘোষণা করেন যে দল বাজপেয়ী এবং আদভানির জোড়া নেতৃত্বে নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করবে।[১১২]

২০০৪ সালের সাধারণ নির্বাচনের পর এনডিএ ব্যাপকভাবে ক্ষমতা ধরে রাখার আশা করেছিল। অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধিকে পুঁজি করার আশায় এবং পাকিস্তানের সাথে বাজপেয়ীর শান্তি উদ্যোগের কথা ঘোষণা করে নির্বাচন ছয় মাস আগে অনুষ্ঠিত হয়।[১১৩][১১৪] মেয়াদ শেষ হওয়ার আগেই ১৩তম লোকসভা ভেঙে দেওয়া হয়। রাজস্থান, মধ্যপ্রদেশছত্তিশগড়ে বিধানসভা নির্বাচনে বিজেপির সাম্প্রতিক সাফল্যকে পুঁজি করার আশা করেছিল বিজেপি। "ইন্ডিয়া শাইনিং" নামক প্রচারাভিযানের অধীনে এটি সরকারের অধীনে জাতির অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধি ঘোষণা করে ইশতেহার প্রকাশ করে।[১১৫][১১৬]

যাইহোক, বিজেপি ৫৪৩টি আসনের সংসদে মাত্র ১৩৮টি আসন জিতে ও বেশ কয়েকজন বিশিষ্ট ক্যাবিনেট মন্ত্রী পরাজিত হয়।[১১৭].[১১৪] এনডিএ জোট ১৮৫টি আসন জিতেছে। সোনিয়া গান্ধীর নেতৃত্বে ভারতীয় জাতীয় কংগ্রেস একক বৃহত্তম দল হিসেবে আবির্ভূত হয়, নির্বাচনে ১৪৫টি আসন জিতে কংগ্রেস এবং তার সহযোগীরা, অনেক ছোটো দল নিয়ে গঠিত, সংযুক্ত প্রগতিশীল জোট গঠন, সংসদে ২২০টি আসন হিসাব করেন।বাজপেয়ী প্রধানমন্ত্রী পদ থেকে পদত্যাগ করেন। ইউপিএ, কমিউনিস্ট পার্টির সমর্থন নিয়ে প্রধানমন্ত্রী মনমোহন সিংয়ের সঙ্গে পরবর্তী সরকার গঠন করে।[১১৮].[১১৯]

প্রধানমন্ত্রীত্বের পরে[সম্পাদনা]

২০০৫ সালের ডিসেম্বরে, বাজপেয়ী সক্রিয় রাজনীতি থেকে তার অবসরের ঘোষণা দেন, ঘোষণা করেন যে তিনি পরবর্তী সাধারণ নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করবেন না। মুম্বাইয়ের শিবাজী পার্কে বিজেপির রৌপ্য জয়ন্তী সমাবেশে একটি বিখ্যাত বিবৃতিতে বাজপেয়ী ঘোষণা করেন যে "এখন থেকে লালকৃষ্ণ আদভানি এবং প্রমোদ মহাজন হবেন রাম-লক্ষ্মণ [হিন্দুদের অনেক শ্রদ্ধেয় এবং হিন্দুদের দ্বারা পূজিত]"[১২০]

প্রাক্তন প্রধানমন্ত্রী মনমোহন সিং রাজ্যসভায় একটি বক্তৃতার সময় বাজপেয়ীকে ভারতীয় রাজনীতির হিন্দু মহাকাব্য মহাভারতের একটি চরিত্র ভীষ্মের সাথে তুলনা করেন।[১২১]

বাজপেয়ী ৬ ফেব্রুয়ারি ২০০৯ সালে বুকে সংক্রমণ এবং জ্বরের জন্য দিল্লির অল ইন্ডিয়া ইনস্টিটিউট অফ মেডিক্যাল সায়েন্সেস (এইমস) হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। অবস্থার অবনতি হওয়ায় তাকে ভেন্টিলেটর সাপোর্টে রাখা হয় কিন্তু অবশেষে তিনি সুস্থ হয়ে ওঠেন এবং পরে তাকে ছেড়ে দেওয়া হয়।[১২২] তার দুর্বল স্বাস্থ্যের কারণে ২০০৯ সালের সাধারণ নির্বাচনের প্রচারণায় অংশগ্রহণ করতে অক্ষম, তিনি ভোটারদের বিজেপিকে ফিরে পেতে আহ্বান জানিয়ে একটি চিঠি লিখেছেন। লালজি ট্যান্ডন সেই নির্বাচনে লখনউ আসন ধরে রাখতে সক্ষম হন, যদিও এনডিএ সারা দেশে নির্বাচনী ক্ষতির সম্মুখীন হয়। ধারণা করা হয় যে, বাজপেয়ীর নিরপেক্ষতা উত্তর প্রদেশের মতো অন্য জায়গায় বিজেপির খারাপ ফলাফলের বিপরীতে লখনউতে লালজির সাফল্যে অবদান রেখেছে।[১২৩]

দলে অবস্থান[সম্পাদনা]

বছর পদ অবস্থান দল মন্তব্য
১৯৫১ প্রতিষ্ঠাতা-সদস্য ভারতীয় জনসংঘ ভারতীয় জনসংঘ
১৯৫৭-৬২ এমপি, বলরামপুর (লোকসভা কেন্দ্র) ২য় লোকসভা ভারতীয় জনসংঘ ১ম মেয়াদ
১৯৫৭-৭৭ নেতা ভারতীয় জনসংঘ সংসদীয় দল ভারতীয় জনসংঘ
১৯৬২-৬৮ এমপি, উত্তর প্রদেশ , রাজ্যসভা রাজ্যসভা ভারতীয় জনসংঘ ১ম মেয়াদ (২৫ ফেব্রুয়ারি ১৯৬৭ তারিখে পদত্যাগ) লোকসভায় নির্বাচিত হন।
১৯৬৬-৬৭ চেয়ারম্যান সরকারের আশ্বাস বিষয়ক কমিটি রাজ্যসভা
১৯৬৭ এমপি, বলরামপুর (লোকসভা কেন্দ্র) চতুর্থ লোকসভা ভারতীয় জনসংঘ ২য় মেয়াদ
১৯৬৭-৭০ চেয়ারম্যান, পাবলিক অ্যাকাউন্টস কমিটি ভারতীয় জনসংঘ
১৯৬৮-৭৩ রাষ্ট্রপতি ভারতীয় জনসংঘ ভারতীয় জনসংঘ
১৯৭১ এমপি, গোয়ালিয়র (লোকসভা আসন) ৫ম লোকসভা ভারতীয় জনসংঘ ৩তম মেয়াদ
১৯৭৭ এমপি, নয়া দিল্লি (লোকসভা আসন) ষষ্ঠ লোকসভা (৪র্থ মেয়াদ) জনতা পার্টি (৪র্থ মেয়াদ)
১৯৭৭-৭৯ কেন্দ্রীয় ক্যাবিনেট মন্ত্রী, পররাষ্ট্র বিষয়ক জনতা পার্টি
১৯৭৭-৮০ প্রতিষ্ঠাতা সদস্য জনতা পার্টি জনতা পার্টি
১৯৮০ এমপি, নয়া দিল্লি (লোকসভা আসন) সপ্তম লোকসভা ভারতীয় জনতা পার্টি (৫ম মেয়াদ)
১৯৮০-৮৬ রাষ্ট্রপতি ভারতীয় জনতা পার্টি ভারতীয় জনতা পার্টি
১৯৮০-৮৪, ১৯৮৬ এবং ১৯৯৩-৯৬ নেতা সংসদীয় দল ভারতীয় জনতা পার্টি
১৯৮৬ এমপি, মধ্যপ্রদেশ, রাজ্যসভা রাজ্যসভা ভারতীয় জনতা পার্টি ২য় মেয়াদ
১৯৮৮-৮৯ সদস্য সাধারণ উদ্দেশ্য কমিটি রাজ্যসভা
১৯৮৮-৯০ সদস্য হাউস কমিটি

সদস্য, ব্যবসায়িক উপদেষ্টা কমিটি

রাজ্যসভা
১৯৯০-৯১ চেয়ারম্যান, পিটিশন বিষয়ক কমিটি রাজ্যসভা
১৯৯১ এমপি, লক্ষ্ণৌ (লোকসভা আসন) দশম লোকসভা ভারতীয় জনতা পার্টি (৬ষ্ঠ মেয়াদ)
১৯৯১-৯৩ চেয়ারম্যান, পাবলিক অ্যাকাউন্টস কমিটি লোকসভা
১৯৯৩-৯৬ চেয়ারম্যান, পররাষ্ট্র বিষয়ক কমিটি লোকসভা
১৯৯৩-৯৬ বিরোধী দলীয় নেতা, লোকসভা ভারতীয় জনতা পার্টি
১৯৯৬ এমপি, লক্ষ্ণৌ (লোকসভা আসন) একাদশ লোকসভা ভারতীয় জনতা পার্টি ৭ম মেয়াদ
১৬ মে ১৯৯৬- ৩১ মে ১৯৯৬ ভারতের প্রধানমন্ত্রী; এবং অন্য কোন ক্যাবিনেট মন্ত্রীর জন্য বরাদ্দ কৃত অন্যান্য বিষয়ের দায়িত্বে ভারতীয় জনতা পার্টি ভারতীয় জনতা পার্টি
১৯৯৬-৯৭ বিরোধী দলীয় নেতা, লোকসভা ভারতীয় জনতা পার্টি
১৯৯৭-৯৮ চেয়ারম্যান, পররাষ্ট্র বিষয়ক কমিটি লোকসভা
১৯৯৮ এমপি, লক্ষ্ণৌ (লোকসভা আসন) দ্বাদশ লোকসভা ভারতীয় জনতা পার্টি ৮ম মেয়াদ
১৯৯৮-৯৯ ভারতের প্রধানমন্ত্রী; পররাষ্ট্র মন্ত্রী; এবং মন্ত্রণালয়/বিভাগের ইনচার্জও কোন মন্ত্রীর দায়িত্বে বিশেষভাবে বরাদ্দ করা হয়নি ভারতীয় জনতা পার্টি ভারতীয় জনতা পার্টি
১৯৯৯ এমপি, লক্ষ্ণৌ (লোকসভা আসন) ১৩তম লোকসভা ভারতীয় জনতা পার্টি ৯ম মেয়াদ
১৯৯৯ নেতা সংসদীয় দল, লোকসভা ভারতীয় জনতা পার্টি
১৩ অক্টোবর ১৯৯৯- মে ২০০৪ ভারতের প্রধানমন্ত্রী এবং মন্ত্রণালয়/বিভাগের দায়িত্বে থাকা কোন মন্ত্রীর দায়িত্বে বিশেষভাবে বরাদ্দ করা হয়নি ভারতীয় জনতা পার্টি ভারতীয় জনতা পার্টি
২০০৪ এমপি, লক্ষ্ণৌ (লোকসভা আসন) চতুর্দশ লোকসভা ভারতীয় জনতা পার্টি ১০ম মেয়াদ
২০০৪ চেয়ারম্যান, সংসদীয় দল ভারতীয় জনতা পার্টি এবং

জাতীয় গণতান্ত্রিক জোট

ব্যক্তিগত জীবন[সম্পাদনা]

বাজপেয়ী তার সারা জীবন অবিবাহিত ছিলেন।[১২৪] তিনি নমিতা ভট্টাচার্যকে দত্তক নেন এবং লালন-পালন করেন তার নিজের সন্তান হিসেবে, দীর্ঘদিনের বন্ধু রাজকুমারী কাউল এবং তার স্বামী অধ্যাপক বি এন কাউলের কন্যা হিসেবে। তার দত্তক নেওয়া পরিবার তার সাথে থাকত।[১২৫]

বিশুদ্ধ ব্রাহ্মণ যারা মাংস এবং অ্যালকোহল থেকে দূরে, বাজপেয়ী হুইস্কি এবং মাংস পছন্দ করতেন বলে পরিচিত ছিল।[১২৬][১২৭] তিনি একজন প্রখ্যাত কবি ছিলেন, হিন্দিতে লিখতেন। তাঁর প্রকাশিত কাজের মধ্যে রয়েছে কাদি কবিরাজ কি কুন্দলিয়ান, ১৯৭৫-৭৭ সালের জরুরি অবস্থার সময় তিনি যখন বন্দী ছিলেন তখন লেখা কবিতার একটি সংকলন অমর আগ হ্যায় প্রকাশিত হয়।[১২৮] তাঁর কবিতা প্রসঙ্গে তিনি লিখেছেন, "আমার কবিতা যুদ্ধের ঘোষণা, পরাজয়ের জন্য নয়। এটা পরাজিত সৈনিকের হতাশার ডঙ্কা নয়, কিন্তু যুদ্ধ যোদ্ধার জেতার ইচ্ছা। এটা হতাশার বিষণ্ণ কণ্ঠস্বর নয়, বিজয়ের উত্তেজক চিৎকার।"[১২৯]

মৃত্যু[সম্পাদনা]

রাজ ঘাটের কাছে স্মৃতি শাল

বাজপেয়ী ২০০৯ সালে স্ট্রোকে ভুগছিলেন যার ফলে তার কথা বলতে কষ্ট হত।[১৩০] তার স্বাস্থ্য উদ্বেগের একটি প্রধান কারণ ছিল তাকে হুইলচেয়ারে বন্দী করে রাখা হত এবং মানুষকে চিনতে পারতেন না। এছাড়াও তিনি ডিমেনশিয়া এবং দীর্ঘমেয়াদী ডায়াবেটিসে রোগে ভুগছিলেন। অল ইন্ডিয়া ইনস্টিটিউট অফ মেডিক্যাল সায়েন্সে চেকআপ ছাড়া বহু বছর ধরে তিনি কোন জনসংযোগে অংশ নেননি। তিনি খুব কমই বাড়ি থেকে বের হতেন।[১৩১]

১১ই জুন ২০১৮ সালে, বাজপেয়ী একটি কিডনিতে সংক্রমণ দেখার পর গুরুতর অবস্থায় এইমস হাসপাতালে ভর্তি করা হয়।[১৩২][১৩৩] ১৬ আগস্ট, ২০১৮ তারিখে ৯৩ বছর বয়সে ৫:০৫ মিনিটে ভারতের প্রমাণ সময়ে তাকে আনুষ্ঠানিকভাবে মৃত ঘোষণা করা হয়।[১৩৪][১৩৫] কিছু সূত্র দাবি করে যে তিনি আগের দিন মারা গেছেন।[১৩৬][১৩৭] ১৭ আগস্ট সকালে ভারতীয় পতাকায় আবৃত বাজপেয়ীর মৃতদেহ ভারতীয় জনতা পার্টির সদর দপ্তরে নিয়ে যাওয়া হয় যেখানে দলীয় কর্মীরা দুপুর ১টা পর্যন্ত শ্রদ্ধা নিবেদন করে। পরে বিকেল ৪টায় রাজ ঘাটের কাছে রাষ্ট্রীয় স্মৃতি শালে বাজপেয়ীর শেষকৃত্য সম্পন্ন হয় এবং তার চিতায় তার পালিত কন্যা নমিতা কৌল ভট্টাচার্য দ্বারা আলোকিত করা হয়।[১৩৮][১৩৯] প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী এবং রাষ্ট্রপতি রামনাথ কোবিন্দ সহ তাঁর অন্ত্যেষ্টিক্রিয়া শোভাযাত্রায় হাজার হাজার মানুষ এবং অনেক বিশিষ্ট ব্যক্তি উপস্থিত ছিলেন।[১৪০][১৪১] ১৯শে আগস্ট, তার ছাই কউল দ্বারা হরিদ্বারের গঙ্গা নদীতে নিমজ্জিত হয়।[১৪২][১৪৩]

তার মৃত্যুতে প্রতিক্রিয়া এবং শ্রদ্ধা নিবেদন[সম্পাদনা]

বাজপেয়ীর মৃত্যুতে ভারত শোক প্রকাশ করেছে এবং সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে হাজার হাজার মানুষ শ্রদ্ধা নিবেদন করেছে। তার অন্ত্যেষ্টিক্রিয়া শোভাযাত্রার সময় হাজার হাজার মানুষ তাকে শ্রদ্ধা নিবেদন করে।[১৪৪] সারা ভারত জুড়ে কেন্দ্রীয় সরকার কর্তৃক সাত দিনের রাষ্ট্রীয় শোক ঘোষণা করা হয়। এই সময়ের মধ্যে জাতীয় পতাকা অর্ধনমিত রাখা হয়।[১৪৫]

  • আফগানিস্তান আফগানিস্তান: সাবেক প্রধানমন্ত্রী অটলবিহারী বাজপেয়ীর শেষকৃত্যে উপস্থিত ছিলেন প্রাক্তন আফগান রাষ্ট্রপতি হামিদ কারজাই। তিনি স্মরণ করেন যে প্রয়াত নেতা ছিলেন " তিনি প্রথম আমাদের বেসামরিক বিমান, এয়ারবাস সাহায্যের প্রস্তাব শুরু করেছিলেন"।[১৪৬]
  • বাংলাদেশ বাংলাদেশ: ভারতের সাবেক প্রধানমন্ত্রী অটলবিহারী বাজপেয়ীর মৃত্যুতে বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা 'গভীর শোক' প্রকাশ করে বলেন, এটি বাংলাদেশের জনগণের জন্য একটি অত্যন্ত বেদনাদায়ক দিন। বাজপেয়ীর প্রতি শ্রদ্ধা জানিয়ে হাসিনা তাকে "ভারতের অন্যতম বিখ্যাত পুত্র" এবং বাংলাদেশের একজন অত্যন্ত সম্মানিত ব্যক্তি বলে অভিহিত করেন।[১৪৭]
  • ভুটান ভুটান: ভুটানের রাজা জিগমে খেসার নামগেল ওয়াংচুক নয়া দিল্লিতে অন্ত্যেষ্টিক্রিয়া অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন।[১৪৮]
  • চীন: পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় এক বিবৃতিতে বলেছে যে ভারতীয় নেতা একজন "অসাধারণ ভারতীয় রাষ্ট্রনায়ক এবং চীন-ভারতীয় সম্পর্কের উন্নয়নে অসামান্য অবদান রেখেছেন"। চীন তার মৃত্যুতে গভীর সমবেদনা জানিয়েছে এবং ভারত সরকার এবং জনগণ এবং জনাব বাজপেয়ীর আত্মীয়দের প্রতি আন্তরিক সমবেদনা জানিয়েছে। বিবৃতিতে বলা হয়েছে প্রধানমন্ত্রী লি কেকিয়াং ভারতের নেতাদের প্রতি একটি শোক বার্তা পাঠিয়েছেন।[১৪৯]
  • জাপান জাপান:২০০১ সালে বাজপেয়ীর জাপান সফরের কথা স্মরণ করে জাপানের প্রধানমন্ত্রী শিনজো আবে বলেন, "সরকার এবং জাপানের জনগণের পক্ষ থেকে আমি সরকার এবং ভারতের জনগণ এবং শোকার্ত পরিবারের প্রতি আমার আন্তরিক সমবেদনা জানাতে চাই। মহামান্য বাজপেয়ী ২০০১ সালে তৎকালীন প্রধানমন্ত্রী হিসেবে জাপান সফর করেন এবং জাপানের একজন ভালো বন্ধু হিসেবে আমাদের দুই দেশের মধ্যে বন্ধুত্বে উল্লেখযোগ্য অবদান রাখেন। তিনিই আজ জাপান-ভারত সম্পর্কের ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন করেছেন"। বাজপেয়ীকে ভারতের একজন বিশিষ্ট নেতা আখ্যা দিয়ে আবে আরও বলেন, "আমি আমার হৃদয়ের নিচ থেকে প্রার্থনা করি যেন তাঁর আত্মা শান্তিতে বিশ্রাম করতে পারে"।[১৫০]
  • মরিশাস মরিশাস: ১৭ই আগস্ট, মরিশাস সরকার ঘোষণা করে যে মরিশাস এবং ভারতীয় উভয় পতাকা বাজপেয়ীর সম্মানে অর্ধনমিত থাকবে।[১৫১][১৫২] মরিশাসে অনুষ্ঠিত বিশ্ব হিন্দি সম্মেলনে প্রধানমন্ত্রী প্রভিন্দ জগনাউথ ঘোষণা করেন যে মরিশাসে বাজপেয়ী যে সাইবার ভবন স্থাপনে অবদান রেখেছেন তা অটলবিহারী বাজপেয়ীর টাওয়ার নামে নামকরণ করা হবে।[১৫৩]
  • পাকিস্তান পাকিস্তান: পাকিস্তানের অন্তর্বর্তীকালীন আইন ও তথ্য মন্ত্রী সৈয়দ আলী জাফর পররাষ্ট্রমন্ত্রী সুষমা স্বরাজের সাথে সাক্ষাৎ করেন এবং প্রাক্তন প্রধানমন্ত্রী অটলবিহারী বাজপেয়ীর মৃত্যুতে পাকিস্তানের শোক প্রকাশ করেন। জাফর নয়া দিল্লিতে বাজপেয়ীর অন্ত্যেষ্টিক্রিয়ায় উপস্থিত বিদেশী বিশিষ্ট ব্যক্তিদের মধ্যে ছিলেন।[১৫৪] পাকিস্তানের সাবেক প্রেসিডেন্ট পারভেজ মুশাররফ সাবেক প্রধানমন্ত্রী অটলবিহারী বাজপেয়ীর মৃত্যুতে শোক প্রকাশ করেছেন। তিনি বলেন যে বাজপেয়ীর মৃত্যু ভারত এবং পাকিস্তান উভয় জন্য একটি বিরাট ক্ষতি হল।[১৫৫]
  • রাশিয়া রাশিয়া: রাশিয়ার প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিন বাজপেয়ীর মৃত্যুতে রাষ্ট্রপতি রামনাথ কোবিন্দ এবং প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীর প্রতি সমবেদনা জানিয়েছেন। পুতিন সাবেক প্রধানমন্ত্রীকে "অসাধারণ রাষ্ট্রনায়ক" বলে অভিহিত করেছেন। "অটলবিহারী বাজপেয়ী সারা বিশ্বে অত্যন্ত সম্মানের পাত্র ছিলেন। তাকে এমন একজন রাজনীতিবিদ হিসেবে স্মরণ করা হবে যিনি আমাদের দেশের মধ্যে বন্ধুত্বপূর্ণ সম্পর্ক এবং সুবিধাজনক কৌশলগত অংশীদারিত্বে একটি প্রধান ব্যক্তিগত অবদান রেখেছেন। রাশিয়ার প্রেসিডেন্ট মৃত, সরকার এবং ভারতের জনগণের প্রতি আন্তরিক সহানুভূতি এবং সমর্থনের কথা জানিয়েছেন"।[১৫৬]
  • শ্রীলঙ্কা শ্রীলঙ্কা: শ্রীলঙ্কার বিভিন্ন নেতা তিনবারের প্রধানমন্ত্রীকে সমৃদ্ধ শ্রদ্ধা জানিয়েছেন। প্রেসিডেন্ট মৈত্রীপালা সিরিসেন একটি টুইটে বলেছেন: "আজ আমরা একজন মহান মানবতাবাদী এবং শ্রীলঙ্কার সত্যিকারের বন্ধুকে হারিয়েছি। ভারতের প্রাক্তন প্রধানমন্ত্রী অটলবিহারী বাজপেয়ী ছিলেন একজন দূরদৃষ্টিসম্পন্ন নেতা এবং গণতন্ত্রের একজন দৃঢ় সমর্থক। তার পরিবার এবং সারা বিশ্বের লক্ষ লক্ষ ভক্তের প্রতি আমার সমবেদনা"। বিরোধী দলীয় নেতা আর সাম্পান্থান বলেছেন যে ভারত তার "সবচেয়ে সম্মানিত বুদ্ধিজীবী এবং রাষ্ট্রনায়ককে হারিয়েছে। "তিনি ভারতের মহান নেতা যিনি নম্রতা ও সততার সাথে দেশের সেবা করেছেন। তিনি সারা বিশ্বের লক্ষ লক্ষ মানুষ তাকে অনেক ভালবাসতেন এবং শ্রদ্ধা করতেন। প্রাক্তন তিনবারের প্রধানমন্ত্রী বাজপেয়ী একজন ব্যতিক্রমী সুর এবং একজন নেতা যার রসবোধ রয়েছে, ভারতীয় সংসদে এবং বাইরে তার বক্তৃতা সবসময় স্মরণ করা হবে", তিনি এক বিবৃতিতে শ্রীলঙ্কার তামিল জনগণের পক্ষ থেকে সমবেদনা জানিয়েছেন।[১৫৭]
  • মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র যুক্তরাষ্ট্র: যুক্তরাষ্ট্রের পররাষ্ট্র মন্ত্রী মাইক পম্পে বলেন, বাজপেয়ী প্রথম দিকে স্বীকার করেন যে যুক্তরাষ্ট্র-ভারত অংশীদারিত্ব বিশ্বের অর্থনৈতিক সমৃদ্ধি ও নিরাপত্তায় অবদান রাখবে এবং গণতন্ত্র নিয়ে তার দর্শন থেকে দুই দেশই উপকৃত হবে। পম্পে আরও বলেন, "মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের জনগণের পক্ষ থেকে আমি প্রাক্তন প্রধানমন্ত্রী অটলবিহারী বাজপেয়ীর সাম্প্রতিক মৃত্যুতে ভারতের জনগণের প্রতি আন্তরিক সমবেদনা জানাচ্ছি। তিনি ২০০০ সালে কংগ্রেসে বাজপেয়ীর ভাষণ স্মরণ করে বলেন, যখন তিনি বিখ্যাতভাবে মার্কিন-ভারত সম্পর্ককে "যৌথ প্রচেষ্টার প্রাকৃতিক অংশীদারিত্ব" হিসেবে চিহ্নিত করেছিলেন। পম্পে বলেন, "আজ আমাদের দুই দেশ এবং আমাদের দ্বিপাক্ষিক সম্পর্ক প্রধানমন্ত্রী বাজপেয়ীর দৃষ্টিভঙ্গি থেকে উপকৃত হচ্ছে, যা দুই দেশের মধ্যে সহযোগিতা বাড়াতে সাহায্য করেছে।" তিনি বলেন, আমেরিকার জনগণ ভারতের জনগণের পাশে দাঁড়িয়েছে "যেমন আমরা প্রধানমন্ত্রী বাজপেয়ীর মৃত্যুতে শোক প্রকাশ করছি"।"[১৫৮]

সম্মাননা[সম্পাদনা]

জাতীয় সম্মাননা[সম্পাদনা]

বিদেশি সম্মাননা[সম্পাদনা]

অন্যান্য অর্জনসমূহ[সম্পাদনা]

  • ২০১২ সালে, দ্য গ্রেটেস্ট ইন্ডিয়ানের আউটলুক ম্যাগাজিনের জরিপে বাজপেয়ী ৯ নম্বরে ছিলেন।
  • ২০১৮ সালে আগস্টে, নয়া রায়পুরের নাম বদলে রাখা হয়েছিল অটল নগর
  • ২০১৮ সালের অক্টোবরে, গঙ্গোত্রী হিমবাহের কাছে তাঁর নাম অনুসারে চারটি হিমালয় পর্বতশৃঙ্গ হয়েছে।

পুরস্কার[সম্পাদনা]

প্রকাশিত কাজ[সম্পাদনা]

বাজপেয়ী বেশ কিছু গদ্য ও কবিতা রচনা করেছেন। তার প্রধান কিছু প্রকাশনা নিচে তালিকাভুক্ত করা হল। এগুলো ছাড়াও, তার বক্তৃতা, প্রবন্ধ এবং স্লোগানের বিভিন্ন সংগ্রহ দিয়ে বই রচনা করা হয়েছে।[১৬০][১৬১][১৬২]

গদ্য[সম্পাদনা]

  • জাতীয় একীকরণ (১৯৬১)[১৬৩]
  • ভারতের পররাষ্ট্র নীতির নতুন মাত্রা (১৯৭৯)[১৬০]
  • গাথবন্ধন কি রজনী[১৬৪]
  • কিছু লেখা, কিছু কথা (১৯৯৬)[১৬৫]
  • বিন্দু বিন্দু ভিকারা (১৯৯৭)[১৬৬]
  • নিষ্পত্তিমূলক দিন (১৯৯৯)[১৬৭]
  • সংকল্প-কাল (১৯৯৯)[১৬৮]
  • ভিকারা-বিন্দু (হিন্দি সংস্করণ ২০০০)
  • আসিয়ান ও এশিয়া-প্রশান্ত মহাসাগরীয় অঞ্চল (২০০৩)[১৬৯]
  • না দিনিয়াম না পালায়নাম[১৭০]
  • নাই চুনাবতী : নয়া আভাস[১৭১]

কবিতা[সম্পাদনা]

  • কাইদি কবিরাজ কি কুন্দলিয়ান[১৬০]
  • আমার আগ হ্যায় (১৯৯৪)
  • মেরি ইকিয়াভানা কবিতাম (১৯৯৫).[১৭২] এই কবিতাগুলির মধ্যে কিছু জগজিৎ সিং তার অ্যালবাম সমবেদনা জন্য সঙ্গীত সেট করা হয়।[১৭৩]
  • কেয়া খোয়া কেয়া পায়া: অটলবিহারী বাজপেয়ী, ব্যক্তিতিভা ঔর কবিতাম (১৯৯৯)[১৭৪]
  • বাজপেয়ীর মূল্যবোধ, দর্শন ও শ্লোক: ভারতের নিয়তির মানুষ (২০০১)[১৭৫]
  • একুশ কবিতা (২০০৩)[১৭৬]
  • চুনী হুই কবিতা (২০১২)[১৭৭]

উত্তরসূরি[সম্পাদনা]

নরেন্দ্র মোদীর প্রশাসন ২০১৪ সালের ২৫ শে ডিসেম্বর বাজপেয়ীর জন্মদিনকে সুশাসন দিবস হিসাবে ঘোষণা করে।[১৭৮][১৭৯] হিমাচল প্রদেশের রোহতাংয়ে লেহ-মানালি হাইওয়েতে বিশ্বের দীর্ঘতম সুড়ঙ্গ অটল বিহারী বাজপেয়ীর নামানুসারে অটল সুড়ঙ্গ নামে নামকরণ করা হয়।[১৮০] মাণ্ডবী নদীর উপর ভারতের তৃতীয় দীর্ঘতম তার সংযুক্ত সেতুর নাম অটল সেতু রাখা হয়। ছত্তিশগড় সরকার নয়া রায়পুরের নাম পরিবর্তন করে অটল নগর রাখে।[১৮১][১৮২]

আরও দেখুন[সম্পাদনা]

আরও পড়ুন[সম্পাদনা]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

তথ্য উদ্ধৃতি[সম্পাদনা]

  1. "Atal Bihari Vajpayee at 92: A look into the life of the former prime minister"The Indian Express (ইংরেজি ভাষায়)। ২০১৬-১২-২৫। সংগ্রহের তারিখ ২০১৯-০৮-০৭ 
  2. "Press Information Bureau" 
  3. Smriti Kak Ramachandran। "Bharat Ratna for Vajpayee, Madan Mohan Malaviya"The Hindu 
  4. Rahul Shrivastava (২৩ ডিসেম্বর ২০১৪)। "Bharat Ratna for Atal Bihari Vajpayee, Madan Mohan Malaviya Likely To be Announced Today"NDTV.com 
  5. "Atal Bihari Vajpayee Biography – About family, political life, awards won, history"elections.in। ২৪ জুলাই ২০১৭ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২৪ জুলাই ২০১৭ 
  6. McFadden, Robert D. (১৬ আগস্ট ২০১৮)। "Atal Bihari Vajpayee, Former Prime Minister of India, Dies at 93"The New York Times। ১৬ আগস্ট ২০১৮ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১৬ আগস্ট ২০১৮ 
  7. "The Sangh (RSS) is my Soul; writes Atal Bihari Vajpayee"Vishwa Samvada Kendra। ১৯ জানুয়ারি ২০১২। ১৮ আগস্ট ২০১৭ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২৪ জুলাই ২০১৭ 
  8. "The Sangh (RSS) is my Soul; writes Atal Bihari Vajpayee"Vishwa Samvada Kendra। ১৯ জানুয়ারি ২০১২। ১৮ আগস্ট ২০১৭ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২৪ জুলাই ২০১৭ 
  9. "The outliers who won the PMs post"। ১২ নভেম্বর ২০১৬ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২৪ জুলাই ২০১৭ 
  10. Jaffrelot 1996
  11. Chatterjee, Manini; Ramachandran, V. K. (৭ ফেব্রুয়ারি ১৯৯৮)। "Vajpayee and the Quit India movement"Frontline। ২৮ সেপ্টেম্বর ২০১৩ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১১ নভেম্বর ২০১২ 
  12. "Election Commission of India" (PDF)। ৮ অক্টোবর ২০১৪ তারিখে মূল (PDF) থেকে আর্কাইভ করা। 
  13. "Explained: Battleground AMU; A Raja and his Legacy"The Indian Express। ২৯ নভেম্বর ২০১৪। ৩ জুন ২০১৭ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২৪ জুলাই ২০১৭ 
  14. Guha, Ramachandra (১৬ আগস্ট ২০১৮)। "Atal Bihari Vajpayee (1924–2018): A poet among bigots"Scroll.in। সংগ্রহের তারিখ ১৭ আগস্ট ২০১৮ 
  15. Nag, Kingshuk (২৯ জুন ২০১৪)। "How the leadership of the Jana Sangh passed to Vajpayee"Scroll.in। ২৫ অক্টোবর ২০১৬ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১৭ আগস্ট ২০১৮ 
  16. "Key milestones in Atal Bihari Vajpayee's political journey"The Times of India। ১৬ আগস্ট ২০১৮। ১৭ আগস্ট ২০১৮ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১৭ আগস্ট ২০১৮ 
  17. McFadden, Robert D. (১৬ আগস্ট ২০১৮)। "Atal Bihari Vajpayee, Former Prime Minister of India, Dies at 93"The New York Times। ১৬ আগস্ট ২০১৮ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১৬ আগস্ট ২০১৮ 
  18. Coomi Kapoor 2016
  19. Nag, Kingshuk (১৬ আগস্ট ২০১৮)। "Atal Behari Vajpayee: A mercurial moderate"। BBC। সংগ্রহের তারিখ ১৮ আগস্ট ২০১৮ 
  20. "AB Vajpayee: The PM who consolidated India as a nuclear power"। BBC। ১৮ আগস্ট ২০১৮। ১৭ আগস্ট ২০১৮ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১৮ আগস্ট ২০১৮ 
  21. De, Abhishek (১৬ আগস্ট ২০১৮)। "Atal Bihari Vajpayee passes away: 10 defining moments of his political career"The Indian Express। সংগ্রহের তারিখ ১৭ আগস্ট ২০১৮ 
  22. "Obituary: Morarji Desai"The Independent। ৩ নভেম্বর ২০১২ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১৭ আগস্ট ২০১৮ 
  23. Lahiry, Sutapa (২০০৫)। "Jana Sangh and Bharatiya Janata Party : A comparative assessment of their philosophy and strategy and their proximity with the other members of the Sangh Parivar": 831–850। জেস্টোর 41856171 
  24. "How Vajpayee fared in the 14 Lok Sabha elections he contested between 1957 and 2004"Mint। ১৭ আগস্ট ২০১৮। ১৭ আগস্ট ২০১৮ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১৭ আগস্ট ২০১৮ 
  25. Gupta, Shekhar (৩১ ডিসেম্বর ১৯৮৪)। "Gwalior to see epic election battle between Madhavrao Scindia and Atal Behari Vajpayee"India Today। ১৭ আগস্ট ২০১৮ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১৭ আগস্ট ২০১৮ 
  26. Malik, Yogendra K.; Singh, V.B. (এপ্রিল ১৯৯২)। "Bharatiya Janata Party: An Alternative to the Congress (I)?": 318–336। জেস্টোর 2645149ডিওআই:10.2307/2645149 
  27. Ghosh, Abantika (১১ নভেম্বর ২০১৫)। "BJP members' statement: Senior leader recalls 1984 loss, says Vajpayee offered to quit"The Indian Express। ১৮ আগস্ট ২০১৮ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১৭ আগস্ট ২০১৮ 
  28. Chatterjee, Manini (১ মে ১৯৯৪)। "The BJP: Political Mobilization for Hindutva": 14–23। আইএসএসএন 1089-201Xডিওআই:10.1215/07323867-14-1-14 
  29. "Alphabetical List Of Former Members Of Rajya Sabha Since 1952"Rajya Sabha। ৯ জানুয়ারি ২০১০ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১৭ আগস্ট ২০১৮ 
  30. Guha, Ramachandra (১৫ আগস্ট ২০০৭)। "India's Internal Partition"The New York Times। ১৭ আগস্ট ২০১৮ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১৭ আগস্ট ২০১৮ 
  31. Peer, Basharat (৬ ডিসেম্বর ২০১৬)। ""Maybe We Will Have The Temple When The Congress Is in Power": Twenty-Four Years After The Babri Masjid Demolition"The Caravan। ১৭ আগস্ট ২০১৮ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১৭ আগস্ট ২০১৮ 
  32. "Atal Bihari Vajpayee had his website as early as 1999 polls"। ১৯ আগস্ট ২০১৮ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ৫ নভেম্বর ২০১৮ 
  33. "Will the 'rath yatra' bring LK Advani back in RSS good books?"dna। ১১ অক্টোবর ২০১১। ২১ সেপ্টেম্বর ২০১৭ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২৪ জুলাই ২০১৭ 
  34. Guha 2007
  35. Muller 2012
  36. Chitkara ও Śarmā 1997
  37. "Atal Bihari Vajpayee: India's new prime minister"। BBC। ৫ ডিসেম্বর ২০১৬ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২৪ জুলাই ২০১৭ 
  38. "Vajpayee's thirteen months"। BBC। সংগ্রহের তারিখ ২৪ জুলাই ২০১৭ 
  39. Turner 2016
  40. Ajai K. Rai 2009
  41. Morrow, Daniel; Carriere, Michael (Fall ১৯৯৯)। "The economic impacts of the 1998 sanctions on India and Pakistan" (PDF)। পৃষ্ঠা 10। ৮ আগস্ট ২০১৭ তারিখে মূল (PDF) থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২৪ জুলাই ২০১৭ 
  42. Maggsi, Amjad Abbas. "Lahore Declaration February, 1999 A Major Initiative for Peace in South Asia." Pakistan Vision 14, no. 1 (2013): 183.
  43. "CNN – Leaders of Pakistan, India pledge to work toward peace – February 21, 1999"। CNN। ৩১ জানুয়ারি ২০১১ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১৭ আগস্ট ২০১৮ 
  44. "SJIR: The Fate of Kashmir : International Law or Lawlessness?"web.stanford.edu। ১২ অক্টোবর ২০১৭ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১৭ আগস্ট ২০১৮ 
  45. Myra 2017
  46. "PARLIAMENT QUESTIONS, LOK SABHA"। ২ ডিসেম্বর ২০০৮। ২ ডিসেম্বর ২০০৮ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১৭ আগস্ট ২০১৮ 
  47. Rodrigo 2006
  48. Reddy, B. Muralidhar (১৭ আগস্ট ২০০৩)। "The Hindu : Over 4,000 soldiers killed in Kargil: Sharif"The Hindu। ৩১ মে ২০০৪ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১৭ আগস্ট ২০১৮ 
  49. "Pak quietly names 453 men killed in Kargil war"Rediff.com। ২৭ জুন ২০১৮ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১৭ আগস্ট ২০১৮ 
  50. Team, BS Web (৩ ডিসেম্বর ২০১৫)। "India was ready to cross LoC, use nuclear weapons in Kargil war"Business Standard India। ৯ জুন ২০১৭ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২৪ জুলাই ২০১৭ 
  51. "The story of how Nawaz Sharif pulled back from nuclear war"Foreign Policy। ১৭ আগস্ট ২০১৮ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১৭ আগস্ট ২০১৮ 
  52. "Address to the Nation by Prime Minister Atal Bihari Vajpayee" (PDF)। Indianembassy.org। ২ এপ্রিল ২০১২ তারিখে মূল (PDF) থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২৪ নভেম্বর ২০১২ 
  53. "Rediff on the NeT: 70-member Vajpayee ministry sworn in"Rediff.com। ৩ মার্চ ২০১৬ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১৭ আগস্ট ২০১৮ 
  54. "Archived copy"। ১৮ জুন ২০১০ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ৬ ফেব্রুয়ারি ২০১৬ 
  55. "How the World Paid for the IC-814 Hijacking, 18 Years Ago"The Quint। সংগ্রহের তারিখ ১৭ আগস্ট ২০১৮ 
  56. Symonds, Peter। "Clinton visit to the Indian subcontinent sets a new strategic orientation"। ১৭ আগস্ট ২০১৮ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১৭ আগস্ট ২০১৮ 
  57. Chaudhury, Dipanjan Roy (১৭ আগস্ট ২০১৮)। "Atal Bihari Vajpayee went the extra mile, shaped India's foreign policy"The Economic Times। ১৭ আগস্ট ২০১৮ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১৭ আগস্ট ২০১৮ 
  58. "The text of the Clinton-Vajpayee joint statement"Rediff। ১৬ সেপ্টেম্বর ২০০০। ২৯ এপ্রিল ২০১১ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১৭ আগস্ট ২০১৮ 
  59. Bengali, Shashank; M. N., Parth (১৬ আগস্ট ২০১৮)। "Atal Bihari Vajpayee, former Indian prime minister who pursued peace with Pakistan, dies at 93"Los Angeles Times। ১৭ আগস্ট ২০১৮ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১৭ আগস্ট ২০১৮ 
  60. "Atal Bihari Vajpayee passes away at 93: Bhishma Pitamaha of Indian politics, former prime minister was humanity personified – Firstpost"firstpost.com। সংগ্রহের তারিখ ১৭ আগস্ট ২০১৮ 
  61. "Revive Jan Sangh – BJP hardlines"The Indian Express। সংগ্রহের তারিখ ২৪ জুলাই ২০১৭ 
  62. Mehra, Ajay K. (১৯ সেপ্টেম্বর ২০০১)। "The colour of education"The Hindu। ২২ সেপ্টেম্বর ২০০২ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১৮ আগস্ট ২০১৮ 
  63. Yadav, Shyamlal (১ আগস্ট ২০২০)। "Explained: How India's Education Ministry became 'HRD Ministry', and then returned to embrace Education"The Indian Express (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ২৭ ফেব্রুয়ারি ২০২১ 
  64. Ramakrishnan, Venkitesh (২৫ এপ্রিল ২০০৪)। "The Hindu : National / Elections 2004 : This Vajpayee speech campaigns against the NDA"The Hindu। ২ জানুয়ারি ২০১৬ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২৪ জুলাই ২০১৭ 
  65. Mishra, Subhash (১১ অক্টোবর ১৯৯৯)। "Spoiling the party"India Today। ১৭ আগস্ট ২০১৮ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১৭ আগস্ট ২০১৮ 
  66. Singh, Tavleen (৮ জানুয়ারি ২০০১)। "Year of inaction"India Today। ১৭ আগস্ট ২০১৮ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১৭ আগস্ট ২০১৮ 
  67. Raghunath, From Pamela (৮ জুন ২০০১)। "Vajpayee's knee surgery successful"Gulf News। ২৯ মে ২০১৭ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১৭ আগস্ট ২০১৮ 
  68. "The Hindu : Operation West End"The Hindu। ২০ মার্চ ২০০১। ৯ মার্চ ২০১৫ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১৭ আগস্ট ২০১৮ 
  69. "Archived copy"। ৫ নভেম্বর ২০১২ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১৭ আগস্ট ২০১৮ 
  70. "Fernandes offers to quit"The Times of India। ২১ এপ্রিল ২০১৮ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২৪ জুলাই ২০১৭ 
  71. Dugger, Celia W. (১৪ জুলাই ২০০১)। "A Summit Meeting of Old Foes: India and Pakistan"The New York Times। ২৭ মে ২০১৫ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১৮ আগস্ট ২০১৮ 
  72. Baral, J.K. (১ আগস্ট ২০০২)। "The Agra Summit": 289–302। আইএসএসএন 0020-8817ডিওআই:10.1177/002088170203900305 
  73. "Parliament attack: From 5 terrorists storming in to Afzal Guru hanging, all that happened in 16 years"India Today। ১২ জানুয়ারি ২০১৮ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১৭ আগস্ট ২০১৮ 
  74. J. N. Dixit 2003
  75. Times News Network (TNN) (১০ ফেব্রুয়ারি ২০১৩)। "Parliament attack had brought India, Pak on brink of another war"The Times of India। ১২ ফেব্রুয়ারি ২০১৩ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১৭ আগস্ট ২০১৮ 
  76. "Pakistan to withdraw front-line troops"BBC News। ১৭ অক্টোবর ২০০২। ১৪ জুলাই ২০১৮ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১৭ আগস্ট ২০১৮ 
  77. Coll, Steve (১৩ ফেব্রুয়ারি ২০০৬)। https://web.archive.org/web/20180724140934/https://www.newyorker.com/magazine/2006/02/13/the-stand-off। ২৪ জুলাই ২০১৮ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১৭ আগস্ট ২০১৮  |শিরোনাম= অনুপস্থিত বা খালি (সাহায্য)
  78. Venkatesan, V.। https://www.frontline.in/static/html/fl2003/stories/20030214004102600.htm। সংগ্রহের তারিখ ১৭ আগস্ট ২০১৮  |শিরোনাম= অনুপস্থিত বা খালি (সাহায্য)[স্থায়ীভাবে অকার্যকর সংযোগ]
  79. Singh, Jyotsna (১৭ সেপ্টেম্বর ২০০৪)। "Analysis: The problems with Pota"BBC News। ১৭ আগস্ট ২০১৮ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১৭ আগস্ট ২০১৮ 
  80. Venkatesan, V.। https://www.frontline.in/static/html/fl1908/19081020.htm। সংগ্রহের তারিখ ১৭ আগস্ট ২০১৮  |শিরোনাম= অনুপস্থিত বা খালি (সাহায্য)[স্থায়ীভাবে অকার্যকর সংযোগ]
  81. Mody, Anjaly (১৪ মার্চ ২০০২)। "Security blanket over Ayodhya as VHP is firm on shila daan"The Hindu। সংগ্রহের তারিখ ১৭ আগস্ট ২০১৮ 
  82. Harding, Luke (১৫ মার্চ ২০০২)। "Ayodhya fear: Hindus to defy ban and pray at site of ruined mosque"The Guardian। ১২ মার্চ ২০১৭ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১৭ আগস্ট ২০১৮ 
  83. "Ayodhya: India's religious flashpoint"CNN। ২৮ ফেব্রুয়ারি ২০০২। ২৪ জানুয়ারি ২০১১ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১৭ আগস্ট ২০১৮ 
  84. Mody, Anjaly (১৫ মার্চ ২০০২)। "Central emissary receives 'shila'; Ayodhya breathes easy"The Hindu। সংগ্রহের তারিখ ১৭ আগস্ট ২০১৮ 
  85. "Timeline of the Riots in Modi's Gujarat"The New York Times। ১৯ আগস্ট ২০১৫। ২৬ জুলাই ২০১৮ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১৮ আগস্ট ২০১৮ 
  86. Dugger, Celia W. (২৭ জুলাই ২০০২)। "Religious Riots Loom Over Indian Politics"The New York Times। ১২ আগস্ট ২০১৬ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১৮ আগস্ট ২০১৮ 
  87. Dasgupta, Manas (৫ এপ্রিল ২০০২)। "Vajpayee's advice to Modi"The Hindu। ৬ জানুয়ারি ২০১৬ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১৮ আগস্ট ২০১৮ 
  88. Sengupta, Somini (২৯ এপ্রিল ২০০৯)। "Shadows of Violence Cling to Indian Politician"The New York Times। ৩০ আগস্ট ২০১২ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১৮ আগস্ট ২০১৮ 
  89. Jose, Vinod K (১ মার্চ ২০১২)। "1 March 2012"The Caravan। ২২ জুলাই ২০১৮ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১৮ আগস্ট ২০১৮ 
  90. "'Modi has to go': Post-2002 Gujarat riots, Atal Bihari Vajpayee wanted then CM to step down"Firstpost। ৭ জানুয়ারি ২০১৭। ৮ ফেব্রুয়ারি ২০১৮ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১৮ আগস্ট ২০১৮ 
  91. Bearak, Barry (৫ এপ্রিল ২০০২)। "Angry and Ashamed, Indian Prime Minister Tours Riot-Torn State"The New York Times। ১৮ আগস্ট ২০১৮ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১৮ আগস্ট ২০১৮ 
  92. "Vajpayee condemns Godhra carnage, Gujarat communal violence – Express India"The Indian Express। ১৪ সেপ্টেম্বর ২০১৭ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২৪ জুলাই ২০১৭ 
  93. "Who Started The Fire?"Outlook। ২০ এপ্রিল ২০০২। ১৮ জানুয়ারি ২০১৮ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১৮ আগস্ট ২০১৮ 
  94. Tully, Mark। "CNN.com – Vajpayee reveals his true colors – April 18, 2002"। CNN। ৩১ ডিসেম্বর ২০১৭ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২৪ জুলাই ২০১৭ 
  95. "Atal Bihari Vajpayee passes away: BJP loses its tallest leader, India a statesman politician"The Financial Express। ১৬ আগস্ট ২০১৮। ১৬ আগস্ট ২০১৮ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১৭ আগস্ট ২০১৮ 
  96. Naji, Kasra। "CNN.com – Vajpayee admits mistake over Gujarat – April 30, 2002"। CNN। ২ জানুয়ারি ২০১৮ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২৪ জুলাই ২০১৭ 
  97. Dossani 2008
  98. Yogengra, Kanwar (১৪ জুন ২০০৪)। "Not removing Modi was a mistake, says Vajpayee"The Hindu। ১৮ আগস্ট ২০১৮ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১৮ আগস্ট ২০১৮ 
  99. Agencies (৩০ জুন ২০০৪)। "India's economy grows 8.2% in 2003–2004"China Daily। ১১ জুন ২০০৯ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১৭ আগস্ট ২০১৮ 
  100. "GDP growth (annual %): India"World Bank। ১৮ আগস্ট ২০১৮ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১৭ আগস্ট ২০১৮ 
  101. Rai, Saritha (১ এপ্রিল ২০০৪)। "India's Economy Soared by 10% in Last Quarter of 2003"The New York Times। ১৮ আগস্ট ২০১৮ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১৭ আগস্ট ২০১৮ 
  102. Waldman, Amy (২ মে ২০০৩)। "India Announces Steps in Effort to End Its Conflict With Pakistan"The New York Times। সংগ্রহের তারিখ ১৮ আগস্ট ২০১৮ 
  103. Jain, B.M. (২৪ জানুয়ারি ২০০৭)। "India–China relations: issues and emerging trends": 253–269। আইএসএসএন 0035-8533ডিওআই:10.1080/00358530410001679602 
  104. "Vajpayee, the right man in the wrong party – 4  – New..."archive.is। ৪ জানুয়ারি ২০১৩। ৪ জানুয়ারি ২০১৩ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২৪ জুলাই ২০১৭ 
  105. "Vajpayee – the intuitive reformer"@businessline। সংগ্রহের তারিখ ১৭ আগস্ট ২০১৮ 
  106. "Pradhan Mantri Gram Sadak Yojana: How the programme impacted Indian hinterland"The Indian Express। ২৫ ফেব্রুয়ারি ২০১৬। ১২ জানুয়ারি ২০১৮ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১৭ আগস্ট ২০১৮ 
  107. "Schemes | Government of India, Ministry of Human Resource Development"mhrd.gov.in। ২৯ অক্টোবর ২০১৩ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১৭ আগস্ট ২০১৮ 
  108. "Atal Bihari Vajpayee's contribution towards education sector"The Indian Express। ১৬ আগস্ট ২০১৮। ১৭ আগস্ট ২০১৮ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১৭ আগস্ট ২০১৮ 
  109. Vyas, Neena (২৫ সেপ্টেম্বর ২০০৩)। "Vajpayee is our leader, reiterates BJP"The Hindu। ৪ ফেব্রুয়ারি ২০০৪ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১৮ আগস্ট ২০১৮ 
  110. Bidwai, Praful (১৭ জুন ২০০৩)। "BJP's leadership fissures"Rediff। ২৪ জুলাই ২০০৮ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১৮ আগস্ট ২০১৮ 
  111. Arun, T. K. (১৬ আগস্ট ২০১৮)। "Atal Bihari Vajpayee: The pregnant pause lengthens forever"The Economic Times। ১৭ আগস্ট ২০১৮ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১৭ আগস্ট ২০১৮ 
  112. Raghavan, S (৬ জুন ২০০৩)। "Vikas and loh"Business Line। ২৩ মে ২০০৬ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১৮ আগস্ট ২০১৮ 
  113. Waldman, Amy (১৩ মে ২০০৪)। "In Huge Upset, Gandhi's Party Wins Election in India"The New York Times। ১৮ আগস্ট ২০১৮ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১৮ আগস্ট ২০১৮ 
  114. Ramesh, Randeep (১৪ মে ২০০৪)। "Shock defeat for India's Hindu nationalists"The Guardian। ১২ জুন ২০১৮ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১৮ আগস্ট ২০১৮ 
  115. "India Shining backfired: Advani – Debating India"india.eu.org। ২৭ ডিসেম্বর ২০০৫ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১৭ আগস্ট ২০১৮ 
  116. "BJP and the India Shining campaign | The Express Tribune"The Express Tribune। ৬ এপ্রিল ২০১৩। ২৯ জুলাই ২০১৭ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১৭ আগস্ট ২০১৮ 
  117. "The voters' big surprise"The Economist। ১৩ মে ২০০৪। ১৮ আগস্ট ২০১৮ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১৮ আগস্ট ২০১৮ 
  118. "CNN.com – Vajpayee resigns after poll upset – May 13, 2004"। CNN। ১৬ আগস্ট ২০১৮ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১৭ আগস্ট ২০১৮ 
  119. "Sonia: and yet so far"The Economist। ২০ মে ২০০৪। ১৮ আগস্ট ২০১৮ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১৮ আগস্ট ২০১৮ 
  120. "BBC NEWS | World | South Asia | Vajpayee to retire from politics"। BBC। ২৯ ডিসেম্বর ২০০৫। ২৩ নভেম্বর ২০০৬ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২৫ জুলাই ২০১৭ 
  121. ""Bhishma Pitamah" should rise above party politics: PM"The Hindu। সংগ্রহের তারিখ ২৫ জুলাই ২০১৭ 
  122. "Vajpayee showing signs of improvement"The Indian Express। ৫ ফেব্রুয়ারি ২০০৯। ২১ এপ্রিল ২০১৮ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২৫ জুলাই ২০১৭ 
  123. "Vajpayee asks Lucknow voters to ensure BJP's win"The Indian Express। ১৭ এপ্রিল ২০০৯। ২ অক্টোবর ২০১৭ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২৫ জুলাই ২০১৭ 
  124. "To evade marriage, Atal Bihari Vajpayee locked himself up for 3 days"The Times of India। ২৩ জুলাই ২০১৯ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১৮ আগস্ট ২০১৮ 
  125. "Mrs Kaul, Delhi's most famous unknown other half, passes away"The Indian Express। ৪ মে ২০১৪। ৩১ জানুয়ারি ২০১৮ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১৬ আগস্ট ২০১৮ 
  126. Burns, John F. (২০ মার্চ ১৯৯৮)। "Man in the News: Atal Bihari Vajpayee; Sworn In as India's Leader, Ambiguity in His Wake"The New York Times। ১৮ আগস্ট ২০১৮ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১৮ আগস্ট ২০১৮ 
  127. Lakshmi, Rama; Joshi, Sopan (১৬ আগস্ট ২০১৮)। "Atal Bihari Vajpayee, prime minister who made India a nuclear power, dies at 93"The Washington Post। ১৮ আগস্ট ২০১৮ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১৮ আগস্ট ২০১৮ 
  128. Popham, Peter (২৫ মে ২০০২)। "Profile: Atal Behari Vajpayee"The Independent। সংগ্রহের তারিখ ১৮ আগস্ট ২০১৮ 
  129. Values, Vision & Verses of Vajpayee: India's Man of Destiny page – iii
  130. "A peek into the life Atal Bihari Vajpayee now leads"The Times of India। ২৩ জুলাই ২০১৭ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২৭ জুলাই ২০১৭ 
  131. "Vajpayee turns 88 amid health concerns"Zee News। ২৩ ডিসেম্বর ২০১১। ২১ এপ্রিল ২০১৮ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২৭ জুলাই ২০১৭ 
  132. "Atal Bihari Vajpayee's Condition Stable But Will Remain in Hospital For Now, Says AIIMS"। ১২ জুন ২০১৮ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১২ জুন ২০১৮ 
  133. "Atal Bihari Vajpayee's condition 'stable', Manmohan Singh pays a visit"। ১২ জুন ২০১৮। ১২ জুন ২০১৮ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১২ জুন ২০১৮ 
  134. "Atal Bihari Vajpayee, Former Prime Minister and BJP Stalwart, Passes Away Aged 93 at AIIMS"News18। ১৬ আগস্ট ২০১৮। সংগ্রহের তারিখ ১৬ আগস্ট ২০১৮ 
  135. "Atal Bihari Vajpayee, former Prime Minister, passes away at 93"The Hindu। ১৬ আগস্ট ২০১৮। সংগ্রহের তারিখ ১৬ আগস্ট ২০১৮ 
  136. "Sena Leader Questions Day Of Vajpayee's Death, Links It To PM's Speech"NDTV। ২৭ আগস্ট ২০১৮। সংগ্রহের তারিখ ২৭ আগস্ট ২০১৮ 
  137. "Vajpayee death announced a day late, claims PCB official"PuneMirror। ১৯ আগস্ট ২০১৮। ২৮ আগস্ট ২০১৮ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১৯ আগস্ট ২০১৮ 
  138. "Atal Bihari Vajpayee cremated, daughter Namita lights funeral pyre"Business Standard India। Press Trust of India। ১৭ আগস্ট ২০১৮। ১৭ আগস্ট ২০১৮ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১৮ আগস্ট ২০১৮ 
  139. "Atal Bihari Vajpayee's funeral live updates: Last rites of Vajpayee performed with full state honours – The Times of India"The Times of India। ১৭ আগস্ট ২০১৮ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১৮ আগস্ট ২০১৮ 
  140. "Atal Bihari Vajpayee Funeral Highlights: Former PM Cremated, Thousands Pay Tributes"NDTV.com। ১৮ আগস্ট ২০১৮ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১৮ আগস্ট ২০১৮ 
  141. "Atal Bihari Vajpayee funeral: A massive attendance, 21-gun salute and all that happened at Smriti Sthal – NewsX"NewsX। ১৭ আগস্ট ২০১৮। ১৮ আগস্ট ২০১৮ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১৮ আগস্ট ২০১৮ 
  142. Bureau, ABP News। "Former PM Atal Bihari Vajpayee's ashes immersed in Ganga at Haridwar"। সংগ্রহের তারিখ ১৯ আগস্ট ২০১৮ 
  143. "Former prime minister Atal Bihari Vajpayee's ashes immersed in Ganga at Haridwar"Hindustan Times। ১৯ আগস্ট ২০১৮। সংগ্রহের তারিখ ১৯ আগস্ট ২০১৮ 
  144. "India mourns former PM AB Vajpayee"BBC News। ১৭ আগস্ট ২০১৮। ১৯ আগস্ট ২০১৮ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১৮ আগস্ট ২০১৮ 
  145. "Former PM Atal Bihari Vajpayee Dies at 93 : National Mourning Declared for 7 days : Tricolor To Fly Half Mast"। Headlines Today। ১৬ আগস্ট ২০১৮। ২৭ আগস্ট ২০১৮ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২৭ আগস্ট ২০১৮ 
  146. "Bhutan, Pakistan, Nepal, Afghanistan and Bangladesh: South Asia pays tribute to Vajpayee"Hindustan Times। ১৭ আগস্ট ২০১৮। ১৭ আগস্ট ২০১৮ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১৮ আগস্ট ২০১৮ 
  147. "Bangladesh PM Sheikh Hasina says Vajpayee's death is a day of great sadness"The Times of India। ১৭ আগস্ট ২০১৮। 
  148. "Bhutan King Among Foreign Dignitaries to Attend Vajpayee's Funeral"। The Quint। ১৭ আগস্ট ২০১৮। ১৮ আগস্ট ২০১৮ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১৮ আগস্ট ২০১৮ 
  149. "Atal Bihari Vajpayee an 'outstanding Indian statesman', says China"। সংগ্রহের তারিখ ১৮ আগস্ট ২০১৮ 
  150. "Japanese PM Shinzo Abe remembers Atal Bihari Vajpayee as 'good friend of Japan'"Hindustan Times। ১৭ আগস্ট ২০১৮। ১৮ আগস্ট ২০১৮ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১৮ আগস্ট ২০১৮ 
  151. "Flags in Mauritius at half mast in Vajpayee's honour"The Economic Times। ১৭ আগস্ট ২০১৮। ১৮ আগস্ট ২০১৮ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১৮ আগস্ট ২০১৮ 
  152. "Mauritian Indian flags to fly at half mast in Vajpayee's honour in Mauritius"The Week। ১৭ আগস্ট ২০১৮ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১৮ আগস্ট ২০১৮ 
  153. Staff, Newsroom (১৮ আগস্ট ২০১৮)। "Tower in Mauritius to be named after late PM Vajpayee"Newsroom Post। ১৮ আগস্ট ২০১৮ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১৮ আগস্ট ২০১৮ 
  154. "Pakistan interim Law Minister Syed Ali Zafar meets Sushma Swaraj over Vajpayee's demise"The Indian Express। ১৭ আগস্ট ২০১৮। ১৮ আগস্ট ২০১৮ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১৮ আগস্ট ২০১৮ 
  155. "Musharraf, Vajpayee and kheer at Agra summit: Former Pak ruler remembers the Indian stalwart"। Zee News। ১৭ আগস্ট ২০১৮। ১৭ আগস্ট ২০১৮ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১৮ আগস্ট ২০১৮ 
  156. "Global leaders including Vladimir Putin condole Atal Bihari Vajpayee's death"The Economic Times। ১৭ আগস্ট ২০১৮। 
  157. "Sri Lankan leaders, top bureaucrats pay tributes to Vajpayee"The Hindu। ১৭ আগস্ট ২০১৮। ১৭ আগস্ট ২০১৮ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১৮ আগস্ট ২০১৮ 
  158. "Statement by Secretary Pompeo on Passing of Former Indian Prime Minister Atal Bihari Vajpayee"U.S. Embassy & Consulates in India। in.usembassy.gov। ১৭ আগস্ট ২০১৮। সংগ্রহের তারিখ ১৯ আগস্ট ২০১৮ 
  159. "President of India to present the Bharat Ratna to Shri Atal Bihari Vajpayee on March 27th at his residence"pib.nic.in। ২২ মার্চ ২০১৮ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১১ মে ২০১৭ 
  160. "Atal Bihari Vajpayee: Books by the former Indian Prime Minister"The Times of India। ১৬ আগস্ট ২০১৮ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১৭ আগস্ট ২০১৮ 
  161. Vajpayee 2000
  162. Vajpayee 1977
  163. Vajpayee 1961
  164. Vajpayee 2004
  165. Vajpayee 1996
  166. Vajpayee 1997
  167. Vajpayee 1999a
  168. Vajpayee 1999b
  169. Vajpayee 2002
  170. Vajpayee 1998
  171. Vajpayee 2011
  172. Vajpayee 1995
  173. "When Atal Bihari Vajpayee, Shah Rukh Khan and Jagjit Singh came together for a music video"The Indian Express। ১৬ আগস্ট ২০১৮। ১৭ আগস্ট ২০১৮ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১৭ আগস্ট ২০১৮ 
  174. Vajpayee 1999c
  175. Vajpayee 2001a
  176. Vajpayee 2001b
  177. Vajpayee 2012
  178. Smriti Kak Ramachandran (২৪ ডিসেম্বর ২০১৪)। "Bharat Ratna for Vajpayee, Madan Mohan Malaviya"The Hindu। ২৫ ডিসেম্বর ২০১৪ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২৬ ডিসেম্বর ২০১৪ 
  179. Rahul Shrivastava (২৩ ডিসেম্বর ২০১৪)। "Bharat Ratna for Atal Bihari Vajpayee, Madan Mohan Malaviya Likely To be Announced Today"NDTV.com। ২৪ ডিসেম্বর ২০১৪ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২৪ ডিসেম্বর ২০১৪ 
  180. PTI; Srinivasan, Chandrashekar (৩ অক্টোবর ২০২০)। "PM Modi Inaugurates Strategically Important Atal Tunnel At Rohtang In Himachal"NDTV.com। সংগ্রহের তারিখ ৩ অক্টোবর ২০২০ 
  181. "Goa gets cable-stayed bridge over Mandovi river, Manohar Parrikar hails Gadkari as his hero"The Indian Express (ইংরেজি ভাষায়)। ২৮ জানুয়ারি ২০১৯। সংগ্রহের তারিখ ৩ অক্টোবর ২০২০ 
  182. "Atal Nagar: Naya Raipur to be named as Atal Nagar in memory of Atal Bihari Vajpayee"The Economic Times। ২৫ অক্টোবর ২০১৮। সংগ্রহের তারিখ ৯ অক্টোবর ২০২০ 

উৎস[সম্পাদনা]

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]