অক্সিটোসিন

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
সরাসরি যাও: পরিভ্রমণ, অনুসন্ধান
Oxytocin with labels.png
OxitocinaCPK3D.png
অক্সিটোসিন
(আইউপিএসি)প্রদত্ত নাম
1-({(4R,7S,10S,13S,16S,19R)-19-amino-7-(2-amino-2-oxoethyl)-10-(3-amino-3-oxopropyl)-16-(4-hydroxybenzoyl)-13-[(1S)-1-methylpropyl]-6,9,12,15,18-pentaoxo-1,2-dithia-5,8,11,14,17-pentaazacycloicosan-4-yl}carbonyl)-L-prolyl-L-leucylglycinamide
চিহ্নিতকারকসমূহ
সিএএস সংখ্যা 50-56-6
এটিসি কোড H01BB02
পাবকেম 439302
ড্রাগব্যাংক DB00107
রাসায়নিক উপাত্ত
সংকেত C43H66N12O12S2 
আনবিক ভর 1007.19 g/mol
স্মাইল্‌স search in eMolecules, PubChem
ফার্মাকোকাইনেটিক উপাত্ত
বায়োভ্যালিয়েবিলিটি  ?
প্রোটিন বন্ধন 30%
বিপাক hepatic oxytocinases
অর্ধায়ু 1–6 min (IV)
~2 h (intranasal)[১][২]
Excretion Biliary and renal
Therapeutic considerations
Pregnancy cat.

A(এইউ)

আইনগত মর্যাদা

POM(ইউকে) ?(ইউএস)

রুটসমূহ Intranasal, IV, IM

অক্সিটোসিন (ইংরেজি: Oxytocin) হল স্তন্যপায়ী প্রাণীদের দেহে প্রাপ্ত একটি হরমোন। এটি স্তন্যপায়ীদের মস্তিষ্কে কাজ করে। মানবদেহে এটি নারীদের প্রজননের সময় নির্গত হয়, বিশেষ করে সন্তান প্রসবের সময় এবং প্রসবের পরে।[৩]

ের অন্যান্য প্রতিক্রিয়াও রয়েছে। এটি সম্পর্কের বন্ধন তৈরিতে এবং পিতামাতার আচরণের বিকাশ ঘটাতে সহায়তা করে। এটি অর্গাজম বা রাগমোচনের সময় এবং এমনকি আলিঙ্গণের মত ঘনিষ্ঠ মুহূর্তগুলোতেও নিঃসৃত হয়ে থাকে। উক্ত কারণে একে প্রায়শই ভালোবাসার হরমোন নামে অভিহিত করা হয়।[৪]

অদ্ভুত ব্যাপার হল, পিটুইটারি গ্রন্থি হতে নিঃসৃত এই অক্সিটোসিন মস্তিষ্কে পৌঁছাতে পারে না; এটি শরীরের অন্যান্য অংশে বিভিন্ন রকম প্রতিক্রিয়া সৃষ্টি করে। এর কারণ হল এখানে একটি ব্লাড ব্রেইন ব্যারিয়ার বা রক্ত মস্তিষ্ক প্রতিবন্ধক রয়েছে যা বড় আকারের অণুদেরকে মস্তিষ্কে প্রবেশে বাধা প্রদান করে। মস্তিষ্কে এই হরমোনটি এর পরিবর্তে মস্তিষ্কের অভ্যন্তরীণ বিশেষ স্নায়ু কোষ দ্বারা উৎপন্ন হয়।[৫]

এমডিএমএ-র মত কিছু আনন্দদায়ক ড্রাগ এবং চিকিৎসকের পরামর্শকৃত মিচু অবসাদনাশক ওষুধ সেবনের ফলেও এই হরমোনটি নিঃসৃত হয়।[৬]

অক্সিটোসিন হল প্রথম পলিপেপ্টাইড হরমোন যা ১৯৫৩ সালে ভিন্সেন্ট ডা ভেনদ এবং তাঁর সহকর্মীদের দ্বারা বিশ্লেষিত এবং সংশ্লেষিত হয়।[৭]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. Weisman O, Zagoory-Sharon O, Feldman R (সেপ্টেম্বর ২০১২)। "Intranasal oxytocin administration is reflected in human saliva"Psychoneuroendocrinology 37 (9): 1582–6। ডিওআই:10.1016/j.psyneuen.2012.02.014পিএমআইডি 22436536 
  2. Huffmeijer R, Alink LR, Tops M, et al. (২০১২)। "Salivary levels of oxytocin remain elevated for more than two hours after intranasal oxytocin administration"। Neuro Endocrinol. Lett. 33 (1): 21–5। পিএমআইডি 22467107 
  3. "Oxytocin – the great facilitator of life" 
  4. "Oxytocin – The love hormone that could cure shyness"। the Daily Telegraph। 
  5. Ross HE, Cole CD, Smith Y এবং অন্যান্য (২০০৯)। "Characterization of the oxytocin system regulating affiliative behavior in female prairie voles"। Neuroscience 162 (4): 892–903। ডিওআই:10.1016/j.neuroscience.2009.05.055পিএমআইডি 19482070পিএমসি 2744157  |author-separator= প্যারামিটার অজানা, উপেক্ষা করুন (সাহায্য)
  6. http://www.biopsychiatry.com/
  7. du Vigneaud V. et al (১৯৫৩)। "The synthesis of an octapeptide amide with the hormonal activity of oxytocin"J. Am. Chem. Soc. 75 (19): 4879–80। ডিওআই:10.1021/ja01115a553 

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]