সৌদি আরবের সরকার পদ্ধতি

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে

সৌদি আরবের সরকার পদ্ধতি মূলতঃ একটি ইসলামিক রাষ্ট্র-শাসন ব্যবস্থা। সৌদি আরব একটি সার্বভৌম আরব-ইসলামী দেশ। এর ধর্ম ইসলাম। সৌদি সরকারের ক্ষমতার উৎস কোরআন ও রাসূলের হাদিস এবং দেশের সব বিধান ও আইন এর আলোকেই প্রণীত। বলা চলে আল্লাহর কিতাব কোরআন এবং মুহাম্মদ(সা.)-এর হাদিস এর সংবিধান অর্থ্যাৎ সকল আইন ও বিধির উৎস। ইসলামের বিধান অনুসারে ন্যায়বিচার, পরামর্শ ও সাম্য সরকার পরিচালনার নিয়ামক। রাষ্ট্রভাষা আরবি এবং রিয়াদ এর রাজধানী।

মূল কাঠামো[সম্পাদনা]

কোরআনহাদিস এগুলো এবং ১৪১২ হিজরির ২৭ শাবান (১ মার্চ, ১৯৯৩) জারিকৃত শূরা কাউন্সিল ও আঞ্চলিক প্রশাসন সংবিধি সরকারের মৌলিক বিধি হিসেবে একযোগে ঘোষিত হয়েছে। জাতির উদ্দেশ্যে প্রদত্ত ভাষণে দুই পবিত্র মসজিদের খাদেম বাদশাহ ফাহাদ বিন আবদুল আজিজ দেশের পরিচিতি, আইনের উৎস এবং সরকারের নীতিসমূহের বাস্তবতা সংক্ষেপে তুলে ধরেন। সৌদি আরবের প্রতিষ্ঠাতা বাদশাহ আবদুল আজিজ আল-সউদ বর্ণিত ও প্রদর্শিত একটি সুস্পষ্ট ও ধারাবাহিক পথ সৌদি আরব অনুসরণ করে আসছে। বাদশাহ আবদুল আজিজের সময়ের প্রশাসন পদ্ধতিই যুগোপযোগী করে অনুসরণ করা হচ্ছে। প্রতিষ্ঠাতার সন্তানরা তাদের নিজ নিজ কার্যকালে ওইসব পদ্ধতির উন্নয়ন ও আধুনিকায়ন করেছেন। দেশের শাসক ও জনগণের সম্পর্ক প্রাচীন ঐতিহ্য অনুসারে বংশ পরম্পরায় ভালবাসা, পারস্পারিক সম্মান এবং আনুগত্যের ওপর ভিত্তিকৃত। এই সম্পর্কের একটি বাস্তব বহিঃপ্রকাশ ঘটে বাদশাহের দরবারে সাধারণ জনগণের অবাধ প্রবেশাধিকারের মধ্য দিয়ে। এটা অস্বাভাবিক কোন ব্যাপার নয়। সরকারের মৌলিক নীতি বাদশাহ এবং যুবরাজের দরবারে যে কোন সাধারণ নাগরিক প্রবেশ করে যে কোন বিষয়ে সরাসরি অভিযোগ করতে পারেন। এসব আইনের ঘোষণা থেকে এটাই প্রতীয়মান হয় যে, সৌদি নেতৃত্ব ইসলামের বিধান অনুসারে সরকার পদ্ধতি অব্যাহত রাখতে ও উন্নত করতে বদ্ধপরিকর। প্রায় দেড়শ’ বছর আগে প্রথম সৌদি রাষ্ট্রের প্রতিষ্ঠাতা ইমাম মুহাম্মদ ইবনে সউদ সংস্কারক শেখ মুহাম্মদ ইবনে আবদুল ওয়াহাবের সঙ্গে আঁতাত করে যে নীতির ওপর দেশটি প্রতিষ্ঠা করেছিলেন তা ছিল আল্লাহ শব্দের প্রাধান্য বিস্তার, তাঁর আইন প্রয়োগ এবং ইসলাম রক্ষা। সৌদি আরব ইসলামের প্রতি তার বিশ্বাসে এবং ইসলামী আইন প্রয়োগে একনিষ্ঠ ও নিবেদিত রয়েছে। এই আইন জীবনে প্রয়োগ এবং আইন অনুসারে জীবন ও রাষ্ট্রীয় পদ্ধতি চালানোতে সৌদি জনগণ খুশি। সৌদি আরবের রাজনৈতিক ব্যবস্থায় তা প্রতিফলিত হয়েছে। সেখানে কখনও সাংবিধানিক শূন্যতা দেখা দেয়নি এবং এই ব্যবস্থার ফলে নিরাপত্তা, স্থিতিশীলতা এবং নিরবচ্ছিন্ন উন্নয়ন অব্যাহত রয়েছে, যার ফলাফল দেশের সব নাগরিক ভোগ করছে। সৌদি আরব যে আরব ও ইসলামী লক্ষ্য অর্জনের জন্য অব্যাহত চেষ্টা চালাতে পারছে এটাও ওই ব্যবস্থারই ফল। ঘটনাবলি প্রমাণ করছে যে, সৌদি আরব ইসলামী ও আরব দেশসমূহ এবং আন্তর্জাতিক দায়িত্ববোধের প্রতি যে প্রতিশ্র“তি দিয়েছে তার প্রতি বিশ্বস্ত। নেতৃত্বের প্রজ্ঞার কারণে সৌদি আরব আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়ের সম্মান ও আস্থা অর্জনে সক্ষম হয়েছে। সরকারের মৌলিক আইনে শাসন পদ্ধতি এবং উত্তরাধিকার নির্বাচন পদ্ধতি বর্ণনা করা হয়েছে। এতে শাসক ও শাসিতের সম্পর্ক এবং বিচার ব্যবস্থা ও সরকারের বিভাগগুলোর কার্য পরিধি ব্যাখ্যা করা হয়েছে। এতে রাষ্ট্রের অধিকার ও দায়িত্ব এবং নাগরিকদের দায়িত্বও বর্ণনা করা হয়েছে। অন্য যেসব সংবিধি জারি করা হয়েছে তার লক্ষ্য পুরান পদ্ধতিকে আধুনিক করা এবং সকল ক্ষেত্রে ব্যাপক উন্নয়নের ধারার সঙ্গে সামঞ্জস্য রক্ষা করা।

শূরা কাউন্সিল[সম্পাদনা]

শূরা অর্থ পরামর্শ। ইসলামের এই বিধান সৌদি আরবের অন্যতম ভিত্তি। ইসলামে শূরার অর্থ আলাপ-আলোচনার মাধ্যমে ঐকমত্যে পৌঁছা। শূরা কোন রাজনৈতিক মতবাদ নয়, বরং মুসলিম সমাজের একটি নীতিমালা। বাদশাহ্ আবদুল আজিজ যখন সৌদি আরবের একত্রীকরণের ঘোষণা দেন, তখন শূরা কাউন্সিল ছিল তার প্রথম ও অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ অর্জন। তিনি ১৩৪৭ হিজরিতে (১৯২৭) প্রথম শূরা কাউন্সিল প্রতিষ্ঠার নির্দেশ দেন। কাউন্সিলের প্রথম যুগের প্রেসিডেন্টদের মধ্যে ছিলেন হেজাজে বাদশাহর প্রতিনিধি প্রিন্স ফয়সল বিন আবদুল আজিজ (পরে বাদশাহ ফয়সল)। প্রথম দিকে কাউন্সিলের সদস্য সংখ্যা ছিল আটজন, পরে পাঁচজন বাড়ানো হয়। কাউন্সিলের সদস্য সংখ্যা পর্যায়ক্রমে ১৩৭২ হিজরিতে (১৯৫২) ২০ জনে পৌঁছে। তারা প্রতিদিনই বৈঠক করতেন। ১৩৭৫ হিজরিতে বাদশাহ সউদ এক ফরমানবলে কাউন্সিলের সদস্য সংখ্যা ২৫-এ উন্নীত করেন। তারা সপ্তাহে একদিন বৈঠকে বসতেন। ১৩৭৭ হিজরিতে মন্ত্রিপরিষদ সংবিধি জারি করার পর শূরা পরিষদের বিলুপ্তি ঘটে। দুই পবিত্র মসজিদের খাদেম ১৪১২ হিজরির ২৭ শাবান এ/৯১ নং আদেশ জারির মাধ্যমে নতুন শূরা কাউন্সিল গঠনের আগ পর্যন্ত শূরা কাউন্সিল বিলুপ্ত ছিল। ১৩১৪ হিজরির ৩ রবিউল আউয়াল জারিকৃত এ/১৫ সংখ্যক ফরমানের মাধ্যমে ছয় অনুচ্ছেদে ৬২টি আর্টিকেলের সংবিধি ঘোষণা করা হয়। এতে শূরা কাউন্সিলের অভ্যন্তরীণ কার্যক্রম এবং সদস্যদের অধিকার, দায়িত্ব ও কর্তব্য নির্দিষ্ট করে দেয়া হয়। কাউন্সিলের একজন প্রেসিডেন্ট এবং ৬০ জন সদস্য থাকবেন। ১৪১৮ হিজরির ৩ রবিউল আউয়াল (৭ জুলাই ১৯৯৭) জারিকৃত এক ফরমানে শূরা কাউন্সিলের সদস্য সংখ্যা ৩০ জন করা হয়। শূরা কাউন্সিলের দ্বিতীয় অধিবেশন বসে ৯০ জন সদস্য নিয়ে এবং এর মেয়াদ নির্ধারণ করা হয় চার বছর। আদেশ জারি করা হয় যে, নতুন কাউন্সিল নির্বাচনের সময় নতুন সদস্যের সংখ্যা পূর্ববর্তী কাউন্সিলের যেন অন্তত অর্ধেক হয়। শূরার অধিবেশন রিয়াদে অনুষ্ঠিত হবে, তবে বাদশাহ প্রয়োজন মনে করলে দেশের যে কোন স্থানে শূরার অধিবেশন বসতে বলতে পারেন। কাউন্সিলের সাধারণ বৈঠক ১৫ দিনে একবার হবে এবং প্রেসিডেন্ট যে কোন বৈঠকের তারিখ নির্ধারণ করতে পারবেন, কোন সুনির্দিষ্ট বিষয় আলোচনার জন্য জরুরি বৈঠক আহ্বান করা যেতে পারে।

মন্ত্রিপরিষদ সংবিধি[সম্পাদনা]

বাদশাহ আবদুল আজিজ কর্তৃক ১৩৭৩ হিজরির (১৯৫৩) এক আদেশবলে সৌদি আরবের মন্ত্রিপরিষদ গঠিত। একই বছর মন্ত্রিপরিষদ সংবিধি জারি করা হয় এবং ১৩৭৭ হিজরি পর্যন্ত বহাল থাকে। এ সময় বাদশাহ সউদ নতুন ফরমান জারি করেন। মন্ত্রিপরিষদ গঠনের আগে সৌদি আরব ১৯৩১ সালের ডিসেম্বরে প্রচলিত আইন দ্বারা পরিচালিত হতো, সে সময় বাদশাহ তার মন্ত্রী, উপদেষ্টা ও শূরা কাউন্সিলের সদস্যদের সহায়তায় সরকার পরিচালনা করতেন। বাদশাহ সউদ, বাদশাহ ফয়সল, বাদশাহ খালেদ এবং দুই পবিত্র মসজিদের খাদেম বাদশাহ ফাহাদ মন্ত্রিপরিষদ এবং এর বিভিন্ন কমিটির বিবর্তন ও উন্নয়ন সাধন করেছেন। বাদশাহ ফাহাদ ১৩৭৭ হিজরির সংবিধি পরিবর্তন ও সংশোধন করে ১৪১৪ হিজরির ৩ রবিউল আউয়াল (২০ আগস্ট ১৯৯৩) এ/১৩ সংখ্যক রাজকীয় ফরমান জারি করেন। মন্ত্রিপরিষদ অভ্যন্তরীণ বৈদেশিক, আর্থিক অর্থনৈতিক, শিক্ষা ও প্রতিরক্ষা নীতি এবং রাষ্ট্রের সকল বিষয়ে পরিকল্পনা প্রণয়ন করে এবং সেগুলোর বাস্তবায়ন তদারক করে। মন্ত্রিপরিষদ শূরা কাউন্সিলের সিদ্ধান্তও পরীক্ষা করে। সব মন্ত্রণালয় এবং সরকারের বিভিন্ন সংস্থার আর্থিক ও প্রশাসনিক ব্যাপারে নজর রাখার নির্বাহী ক্ষমতা মন্ত্রিপরিষদের রয়েছে। রাজকীয় আদেশে মন্ত্রী এবং উচ্চপদে নিযুক্ত ব্যক্তিবর্গের চাকরির মেয়াদ চার বছর। মন্ত্রিপরিষদের কাঠামোতে রয়েছেÑ কাউন্সিল চেয়ারম্যানের অফিস, কাউন্সিলের জেনারেল সেক্রেটারিয়েট এবং বিশেষজ্ঞ প্যানেল। বাদশাহ প্রধানমন্ত্রীর দায়িত্ব পালন করেন। তিনি রাষ্ট্রের সার্বিক নীতি-নির্দেশনা দেন এবং যথাযথ নির্দেশনা এবং রাষ্ট্রের বিভিন্ন বিভাগের মধ্যে সমন্বয় এবং সহযোগিতা নিশ্চিত করেন। মন্ত্রিপরিষদের কার্যক্রমের ধারাবাহিকতা ও ঐক্যের নিয়ামক বাদশাহ। তিনি মন্ত্রিপরিষদের সামগ্রিক কাজের এবং সরকারের অন্যান্য সংস্থার কাজ এবং আইন ও বিধির তত্ত্বাবধান করেন।

আঞ্চলিক প্রশাসনিক সংবিধি[সম্পাদনা]

১৪১২ হিজরির ২৭ শাবান আঞ্চলিক প্রশাসন সংবিধি জারি করা হয় এবং ১৪১৪ হিজরির ২০ রবিউল আউয়াল প্রশাসনের মানোন্নয়ন ও উন্নয়ন ত্বরান্বিত করার লক্ষ্যে তা সংশোধন করা হয়। সংবিধির লক্ষ্যগুলোর মধ্যে রয়েছে নিরাপত্তা বজায় রাখা এবং ইসলামী আইনের কাঠামোর মধ্যে জনগণের অধিকার ও স্বাধীনতা রক্ষা করা। দেশকে প্রশাসনিক অঞ্চলে ভাগ করার সময় জনসংখ্যার ঘনত্ব, ভৌগোলিক নিরাপত্তা, পরিবেশ এবং যোগাযোগ ব্যবস্থা বিবেচনা করা হয়। সৌদি আরব ১৩টি অঞ্চলে বিভক্ত রিয়াদ রিজিয়ন, মক্কা রিজিয়ন, মদিনা রিজিয়ন, কাসিম রিজিয়ন, ইস্টার্ন রিজিয়ন, আসির রিজিয়ন, তাবুক রিজিয়ন, হাইল রিজিয়ন, নর্দার্ন ফ্রন্টিয়ার্স রিজিয়ন, জিজান রিজিয়ন, নাজরান রিজিয়ন, আলবাহা রিজিয়ন এবং আল-জনফ রিজিয়ন। প্রতিটি অঞ্চলের জন্য মন্ত্রীর পদমর্যাদায় একজন আমির রয়েছেন। রাষ্ট্রীয় কাঠামোর মধ্যে তিনি অঞ্চল শাসন করেন। সংবিধিতে আমির এবং তার ডেপুটির ভূমিকা নির্দিষ্ট করে দেয়া হয়েছে। স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর অধীনে এবং স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর সুপারিশের ভিত্তিতে রাজকীয় আদেশে তাদের নিয়োগ ও বরখাস্ত করা হয়। সংবিধির একটি নতুন সংযোজন হল, আঞ্চলিক পরিষদের সৃষ্টি। অঞ্চলের আমির আঞ্চলিক পরিষদের প্রেসিডেন্ট এবং তার ডেপুটি হলেন ভাইস প্রেসিডেন্ট। আঞ্চলিক পরিষদ সদস্যদের মধ্যে রয়েছেÑ আমিরের সহকারী, অঞ্চলের সহকারী সংস্থাগুলোর প্রধান। স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর সুপারিশের ভিত্তিতে প্রধানমন্ত্রী এই পরিষদ নিয়োগ করেন। যেসব নাগরিক জ্ঞানী, অভিজ্ঞ এবং বিশেষজ্ঞ তাদেরকে আমিরের সুপারিশক্রমে এবং স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর অনুমোদনক্রমে প্রধানমন্ত্রী নিয়োগদান করেন। তাদের সংখ্যা দশের কম নয়। সদস্য পদ চার বছরের জন্য এবং তা নবায়নযোগ্য। নতুন আইনের প্রবর্তন সরকারের নির্বাহী ও প্রশাসনিক কাঠামোয় নিয়োগ চার বছর বেঁধে দেয়ায় নবায়নের সুযোগ অবারিত হয়েছে। সৌদি আরবের সরকার পদ্ধতিতেও প্রশাসনে গুণগত পরিবর্তন হয়েছে। যার প্রমাণ মেলে দুই পবিত্র মসজিদের খাদেম কর্তৃক ১৯৯৫ সালে ঘোষিত নতুন মন্ত্রিসভায়। দেশের অনেক প্রতিষ্ঠান, বিশ্ববিদ্যালয় এবং পাবলিক কমিশনে নতুন মুখের অন্তর্ভুক্তি থেকে এর প্রমাণ পাওয়া যায়। সবার অংশগ্রহণ এবং সব ক্ষেত্রে সর্বোচ্চ মান বজায় রাখার ওপর যে বাদশাহ জোর দিয়ে থাকেন এটা তারই প্রমাণ।

রচনাধীন নিবন্ধ। ব্যাপক সম্পাদনা প্রয়োজন