লস্কর-ই-জাংভি

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
লস্কর-ই-জাংভি
Flag of Lashkar-e-Jhangvi.svg
অপারেশন তারিখ ১৯৯৬ - বর্তমান
নেতা রিয়াজ বসরা 
আকরাম লাহরী[১]
Malik Ishaq
আহমেদ লুধিয়ানভি
উদ্দেশ্য সাম্প্রদাযিকতা
সক্রিয় অঞ্চল পাকিস্তান
অধিবিদ্যা দেওবন্দী মৌলবাদ
উল্লেখযোগ্য আক্রমণ শিয়া মুসলমানদের উপর হামলা
অবস্থা কানাডা, ইউরোপীয় ইউনিয়ন, পাকিস্তান, যুক্তরাজ্য, এবং মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র দ্বারা সন্ত্রাসী সংগঠন হিসেবে চিহ্নিত

লস্কর-ই-জাংভি (উর্দু: لشكرِجهنگوی; হক নওয়াজ জাংভির সৈন্য) প্রচণ্ডভাবে শিয়া মুসলমানবিরোধী সন্ত্রাসী সংগঠন।[২] পাকিস্তানে সাম্প্রদায়িক দাঙ্গায় জড়িত থাকার দায়ে লস্কর-ই-জাংভিকে ২০০১ সালে নিষিদ্ধ করা হয়। আল কায়েদা ও তালেবানের সঙ্গে জড়িত পাঞ্জাবি জাতিগোষ্ঠীর লোক নিয়ে লস্কর-ই-জাংভি গঠিত হয়েছে।[৩]

হামলার বিবরণ[সম্পাদনা]

  • ১৬ ফেব্রুয়ারি এ গোষ্ঠী বেলুচিস্তানের রাজধানী কোয়েটায় শিয়া সম্প্রদায়ের ওপর ভয়াবহ বোমা হামলা চালায়। এতে নারী ও শিশুসহ ৯০ জনের বেশি নিহত এবং অন্তত ২০০ ব্যক্তি আহত হয়। এর আগে গত ১০ জানুয়ারি কোয়েটায় অন্য এক হামলায় অন্তত ৯০ জন নিহত হয়।[৩][৪]
  • ২০০৯ সালে পাকিস্তান সফররত শ্রীলংকার জাতীয় ক্রিকেট দলের ওপর হামলার সঙ্গেও লস্কর-ই জাংভি জড়িত ছিল।[৫]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. উদ্ধৃতি ত্রুটি: অবৈধ <ref> ট্যাগ; satp নামের ref গুলির জন্য কোন টেক্সট প্রদান করা হয়নি
  2. পাকিস্তানে ৮০ শতাংশ হামলায় লস্কর-ই-জাংভি জড়িত : স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী, দৈনিক আমাদের সময়। ঢাকা থেকে প্রকাশের তারিখ: ০৩-০৩-২০১৩ খ্রিস্টাব্দ।
  3. ৩.০ ৩.১ পাকিস্তানে লস্কর-ই-জাংভি’র শীর্ষ নেতা গ্রেপ্তার, সাগর হোসেন, প্রথম নিউজ ডটকম। ঢাকা থেকে প্রকাশের তারিখ: ২৩-০২-২০১২ খ্রিস্টাব্দ।
  4. ‘পাকিস্তানে বেশিরভাগ সন্ত্রাসী হামলার সঙ্গে জড়িত লস্কর-ই জাংভি’, দৈনিক মানবকণ্ঠ। ঢাকা থেকে প্রকাশের তারিখ: ৩ মার্চ ২০১৩ খ্রিস্টাব্দ।
  5. পাকিস্তানে লস্কর-ই জাংভি প্রধান ইসহাক গ্রেফতার, দৈনিক ডেসটিনি। ঢাকা থেকে প্রকাশের তারিখ: ১ সেপ্টেম্বর ২০১২ খ্রিস্টাব্দ।

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]

An early version of this article was adapted from the public domain U.S. federal government sources.