ম্খাস-গ্রুব-র্গ্যা-ম্ত্শো

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
ম্খাস-গ্রুব-র্গ্যা-ম্ত্শো

ম্খাস-গ্রুব-র্গ্যা-ম্ত্শো (তিব্বতী: མཁས་གྲུབ་རྒྱ་མཚོ་ওয়াইলি: mkhas grub rgya mtsho), (১লা নভেম্বর, ১৮৩৮ – ৩১শে জানুয়ারী, ১৮৫৬) তিব্বতী বৌদ্ধধর্মের অন্যতম প্রধান ধর্মসম্প্রদায় দ্গে-লুগ্স ধর্মসম্প্রদায়ের একাদশ দলাই লামা ছিলেন।[১]

জন্ম[সম্পাদনা]

ম্খাস-গ্রুব-র্গ্যা-ম্ত্শো ১৮৩৮ খ্রিষ্টাব্দের ১লা নভেম্বর তিব্বতের খাম্স অঞ্চলে ম্গার-থাং (ওয়াইলি: mgar thang) বৌদ্ধবিহারের নিকটে একটি ছোট শহরে জন্মগ্রহণ করেন। তাঁর পিতার নাম ছিল ত্শে-দ্বাং-দোন-গ্রুব (ওয়াইলি: tshe dbang don grub) এবং মাতার নাম ছিল গ্যুং-দ্রুং-বু-খ্রিদ (ওয়াইলি: g.yung drung bu khrid)।[২]

দলাই লামা হিসেবে চিহ্নিতকরণ[সম্পাদনা]

১৮৪১ খ্রিষ্টাব্দে ঙ্গাগ-দ্বাং-'জাম-দ্পাল-ত্শুল-খ্রিম্স-র্গ্যা-ম্ত্শো (ওয়াইলি: ngag dbang 'jam dpal tshul khrims rgya mtsho) নামক তিয়াত্তরতম [[দ্গা'-ল্দান-খ্রি-পা] ম্খাস-গ্রুব-র্গ্যা-ম্ত্শোকে দশম দলাই লামার পুনর্জন্ম রূপে চিহ্নিত করেন এবং তাঁকে লাসা শহরে নিয়ে আসা হয়। চিং সরকারের পক্ষ থেকে গ্সের-বুম-স্ক্রুগ-পা (ওয়াইলি: gser bum skrug pa) পদ্ধতির মাধ্যমে তাঁকে একাদশ দলাই লামা রূপে নিশ্চিত করা হয়। ১৮৪২ খ্রিষ্টাব্দে পাঁচ বছর বয়সে তাঁকে একাদশ দলাই লামা হিসেবে অধিষ্ঠিত করা হয়।[২] ১৮৪৮ খ্রিষ্টাব্দে সপ্তম পাঞ্চেন লামা তাঁকে শিক্ষার্থীর শপথ প্রদান করেন।[৩]

গ্রীষ্মকালীন আবাসস্থল প্রতিষ্ঠা[সম্পাদনা]

১৮৪৮ খ্রিষ্টাব্দে ম্খাস-গ্রুব-র্গ্যা-ম্ত্শোর পৃষ্ঠপোষকতায় নোরবুলিংকা প্রাসাদ চত্বরের মধ্যে দ্বু-গ্যাব-গ্জিম-ছুং (ওয়াইলি: dbu g.yab gzim chung) নামক একটি প্রাসাদভবন নির্মিত হয়। এই নতুন প্রাসাদ দলাই লামার গ্রীষ্মকালীন বাসস্থান হিসেবে তৈরী করা হয়। ১৮৪৯ খ্রিষ্টাব্দে ঝো'ই-স্তোন (ওয়াইলি: zho'i ston) উৎসবের সময় এই প্রাসাদের উদ্বোধন করা হয়। এই উৎসব একটি ভারতীয় বৌদ্ধ রীতির ওপর ভিত্তি করে শুরু হয়েছিল। এই রীতি অনুসারে, প্রতি বৌদ্ধ ভিক্ষুকে গ্রীষ্মকালীন সাধনার জন্য এক বাটি করে দুধ ও দই দান করা হত। পঞ্চম দলাই লামার আমলে এই রীতি একটি সামাজিক উৎসবে পরিণত হয়। ১৮৪৯ খ্রিষ্টাব্দে এই উৎসবের দিনেই নতুন প্রাসাদ ভবনের উদ্বোধন হওয়ায় এই দিনটি গ্রীষ্মকালে দলাই লামার পোতালা প্রাসাদ থেকে নোরবুলিংকা প্রাসাদে যাত্রার দিন হিসেবেও অনুষ্ঠিত হতে থাকে।[২]

শেষ জীবন[সম্পাদনা]

ম্খাস-গ্রুব-র্গ্যা-ম্ত্শো সে-রা, দ্রেপুং এবং দ্গা'-ল্দান বৌদ্ধবিহার বিশ্ববিদ্যালয়ে শিক্ষালাভ করেন। 'জাম-দ্পাল-ত্শুল-খ্রিম্স (ওয়াইলি: 'jam dpal tshul khrims) নামক বাহাত্তরতম দ্গা'-ল্দান-খ্রি-পা, ঙ্গাগ-দ্বাং-ব্লো-ব্জাং-ব্স্তান-পা'ই-র্গ্যাল-ম্ত্শান (ওয়াইলি: ngag dbang blo bzang bstan pa'i rgyal mtshan) নামক নবম র্তা-ত্শাগ-র্জে-দ্রুং (ওয়াইলি: rta tshag rje drung) প্রভৃতি বিখ্যাত লামারা তাঁর শিক্ষক হিসেবে দায়িত্ব গ্রহণ করেন। ১৮৫৪ খ্রিষ্টাব্দে চিং সম্রাট দাওগুয়াং তাঁকে তিব্বতের শাসনক্ষমতা গ্রহণের জন্য নির্দেশ দেন, কিন্তু ১৮৫৬ খ্রিষ্টাব্দের ৩১শে জানুয়ারী ম্খাস-গ্রুব-র্গ্যা-ম্ত্শো মৃত্যুবরণ করেন।[২]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. "His Holiness the Eleventh Dalai Lama, Khedrup Gyatso"। The Office of His Holiness The Dalai Lama। সংগৃহীত 16 July 2012 
  2. ২.০ ২.১ ২.২ ২.৩ Chhosphel, Samten (November 2011)। "The Eleventh Dalai Lama, Khedrub Gyatso"The Treasury of Lives। treasuryoflives.com। সংগৃহীত July 28, 2014 
  3. Khetsun Sangpo Rinpoche. (1982). "Life and times of the Eighth to Twelfth Dalai Lamas." The Tibet Journal. Vol. VII Nos. 1 & 2. Spring/Summer 1982, p. 50.

আরো পড়ুন[সম্পাদনা]

  • Khetsun Sangpo. 1973. Biographical Dictionary of Tibet and Tibetan Buddhism. Dharamsala: LTWA, vol. 6, p. 357.
  • Maher, Derek. 2005. “The Eleventh Dalai Lama, Kedrup Gyatso.” In The Dalai Lamas: A Visual History. Martin Brauen, ed.. London: Serindia, pp. 133-134.
  • Mullin, Glenn H. (2001). The Fourteen Dalai Lamas: A Sacred Legacy of Reincarnation, pp. 361–367. Clear Light Publishers. Santa Fe, New Mexico. ISBN 1-57416-092-3.
পূর্বসূরী
ত্শুল-খ্রিম্স-র্গ্যা-ম্ত্শো
ম্খাস-গ্রুব-র্গ্যা-ম্ত্শো
একাদশ দলাই লামা


উত্তরসূরী
'ফ্রিন-লাস-র্গ্যা-ম্ত্শো