মীরজাফর

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
মীরজাফর
নবাব
রাজত্বকাল ১৭৫৭ –
পূর্ণ নাম মীর জাফর আলী খান
পূর্বসূরি সিরাজদৌল্লা
রয়েল হাউস Heera Jheel (Diamond Lake)
ধর্মবিশ্বাস ইসলাম

মীরজাফর, যাঁর সম্পূর্ণ নাম মীর জাফর আলী খান (জন্ম ১৬৯১- মৃত্যু ফেব্রুয়ারি ৫, ১৭৬৫), বাংলার একজন নবাব।

জীবন বৃত্তান্ত[সম্পাদনা]

প্রাথমিক জীবন[সম্পাদনা]

মীরজাফর সিরাজদ্দৌলার একজন অমাত্য ছিলেন। তিনি প্রধান সেনাপতি ছিলেন।নবাব আলীবর্দ্দী খান তার দৌহিত্র সিরাজউদ্দৌলাকে বাংলার নবাব করায় ক্ষুব্ধ হন মীর জাফর। তাই তিনি প্রধান সেনাপতি হয়েও কখনোই সিরাজউদ্দৌলাকে নবাব হিসেবে মেনে নিতে পারেন নি। সব সময় তিনি চেয়েছেন বাংলার নবাবের পতন। কিন্তু বিশ্বাসঘাতকতা করে তিনি ব্রিটিশ ইস্ট ইন্ডিয়া কোম্পানিরবার্ট ক্লাইভ এর সাথে তিনি ষড়যন্ত্রে লিপ্ত হন, এবং পলাশীর যুদ্ধে তাঁর কারণেই ব্রিটিশদের হাতে সিরাজুদ্দৌলার পরাজয় ঘটে। এই যুদ্ধের পর ইস্ট ইন্ডিয়া কোম্পানি মীরজাফরকে নবাবের মসনদে অধিষ্ঠিত করে।

ঘটনা মুলক ইতিহাস[সম্পাদনা]

১৭৫৭ সালের ২৩ জুন পলাশীর আম্রকাননে ইংরেজ বেনিয়াদের সঙ্গে বাংলা, বিহার, উড়িষ্যার শেষ স্বাধীন নবাব সিরাজউদ্দৌলার সৈন্যদের লড়াই হয়। এই যুদ্ধে নবাবের পক্ষে স্বাধীনতা রক্ষার লড়াইয়ে প্রধান সেনাপতি ছিলেন মীরজাফর আলী খান। তার সঙ্গে ছিলেন মীর মদন আর মোহনলাল। মীর মদন আর মোহনলাল ইংরেজদের বিরুদ্ধে বীর বিক্রমে লড়াই করে পরাজিত হন। আর যুদ্ধের ময়দানে নিরব দাঁড়িয়ে থেকে প্রধান সেনাপতি মীরজাফর আলী খান ও তার দোসররা ধূর্ত ইংরেজ বেনিয়া লর্ড ক্লাইভের হাতে বাংলার শাসন ক্ষমতা তুলে দেয়। পরাজিত হন বাংলা, বিহার উড়িষ্যার শেষ স্বাধীন নবাব সিরাজউদ্দৌলা। মুষ্টিমেয় ইংরেজ শাসক বিশ্বাসঘাতকদের সহায়তায় বাংলায় তাদের শাসন ক্ষমতা পোক্ত করে এবং সোয়া দুইশ’ বছর এদেশ শাসন করে। সেই থেকেই মীরজাফরের নাম বিশ্বাসঘাতকতার রূপক হিসাবে চিহ্নিত হয়ে আছে।

মীর জাফর নামের ব্যবহার[সম্পাদনা]

মীরজাফরের বিশ্বাসঘাতকতার জন্য তাঁর নামটি বিশ্বাসঘাতকের প্রতিশব্দ হিসাবে ব্যবহৃত হয়ে থাকে। একটু খেয়াল করলেই দেখবেন বাংলাদেশে মীরজাফর নামে কারো নাম রাখা হয় না।