মানস সরোবর

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
মানস সরোবর
མ་ཕམ་གཡུ་མཚོ།
Lake Manasarovar.jpg
(জুলাই ২০০৬)
অবস্থান তিব্বত
স্থানাঙ্ক 30°40′25.68″N, 81°28′07.90″Eস্থানাঙ্ক: 30°40′25.68″N, 81°28′07.90″E
পৃষ্ঠতলীয় ক্ষেত্রফল ৩২০ বর্গ কিলোমিটার
গড় গভীরতা ৯০ মিটার (৩০০ ফুট)
পৃষ্ঠতলীয় উচ্চতা ৪,৫৫৬ মিটার
হিমায়িত শীতকাল

মানস সরোবর (সংস্কৃত: मानस सरोवर; তিব্বতী: མ་ཕམ་གཡུ་མཚོ།ওয়াইলি: ma-pham g.yu-mtsho, ZYPY: Mapam Yumco; সরলীকৃত চীনা: 玛旁雍错; ঐতিহ্যবাহী চীনা: 瑪旁雍錯) লাসা থেকে ২০০ কিমি দুরে তিব্বতে অবস্থিত একটি মিষ্ট জলের হ্রদ। "মানস সরোবর" শব্দটির বুৎপত্তিগত অর্থ হল মনের সরোবর। মানস সরোবর পূর্বদিকে রাক্ষসতল হ্রদ এবং উত্তর দিকে কৈলাস পর্বত দ্বারা বেষ্টিত।

সাংস্কৃতিক তাৎপর্য[সম্পাদনা]

চিউ গুম্ফা থেকে দৃশ্যমান মানস সরোবর

এশিয় সংস্কৃতিতে মানস সরোবরের একটি গুরুত্বপূর্ণ অবস্থান রয়েছে। মুখ্যত বৌদ্ধধর্মাবলম্বী এবং হিন্দুধর্মাবলম্বীদের কাছে এই সরোবর একটি অত্যন্ত পবিত্র হ্রদ হিসেবে গণ্য হয়। বৌদ্ধধর্মানুসারে ত্রিপিটকে বর্ণিত অনবতপ্ত হ্রদই (পালি: অনোতত্ত) হল মানস সরোবর। প্রচলিত কিংবদন্তি অনুসারে এই মহাপবিত্র হ্রদের নিকটেই মায়াদেবী শাক্যমুনি বুদ্ধকে গর্ভে ধারণ করেছিলেন।

উপগ্রহচিত্রে কৈলাস পর্বতের সানুদেশে বাঁদিকে মানস সরোবর ও ডান দিকে রাক্ষসতাল হ্রদ

গ্রন্থপঞ্জি[সম্পাদনা]

The Lake and Tibetan Himalayas
  • Allen, Charles. (1999). The Search for Shangri-La: A Journey into Tibetan History. Little, Brown and Company. Reprint: Abacus, London. 2000. ISBN 0-349-11142-1.
  • "A Tibetan Guide for Pilgrimage to Ti-se (Mount Kailas) and mTsho Ma-pham (Lake Manasarovar)." Toni Huber and Tsepak Rigzin. In: Sacred Spaces and Powerful Places In Tibetan Culture: A Collection of Essays. (1999) Edited by Toni Huber, pp. 125–153. The Library of Tibetan Works and Archives, Dharamsala, H.P., India. ISBN 81-86470-22-0.