মাইকেল সাতা

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
মাইকেল সাতা
৫ম জাম্বিয়ার রাষ্ট্রপতি
কার্যালয়ে
২৩ সেপ্টেম্বর, ২০১১ – ২৮ অক্টোবর, ২০১৪
উপরাষ্ট্রপতি গাই স্কট
পূর্বসূরী রুপিয়াহ বান্দা
উত্তরসূরী গাই স্কট (ভারপ্রাপ্ত)
ব্যক্তিগত বিবরণ
জন্ম মাইকেল চিলুফিয়া সাতা
(১৯৩৭-০৭-০৬)৬ জুলাই ১৯৩৭
এমপিকা, নর্দার্ন রোডেশিয়া
(বর্তমানে জাম্বিয়া)
মৃত্যু ২৮ অক্টোবর ২০১৪(২০১৪-১০-২৮) (৭৭ বছর)
লন্ডন, ইংল্যান্ড, যুক্তরাজ্য
জাতীয়তা Zambian
রাজনৈতিক দল ইউনিপ (১৯৯১-এর পূর্বে)
এমএমপিডি (১৯৯১-২০০১)
প্যাট্রিয়টিক ফ্রন্ট (২০০১-২০১৪)
দাম্পত্য সঙ্গী ক্রিস্টিন কাসেবা
সন্তান [১]
জীবিকা পুলিশ কর্মকর্তাট্রেড ইউনিয়নকর্মী
ধর্ম রোমান ক্যাথলিক
Nickname(s) কিং কোবরা
ওয়েবসাইট ফেসবুকে মাইকেল সাতা

মাইকেল চিলুফিয়া সাতা (ইংরেজি: Michael Chilufya Sata; জন্ম: ৬ জুলাই, ১৯৩৭ - মৃত্যু: ২৮ অক্টোবর, ২০১৪)[২] উত্তর রোডেশিয়ার এমপিকায় জন্মগ্রহণকারী জাম্বিয়ার বিশিষ্ট রাজনীতিবিদ ছিলেন। জাম্বিয়ার ৫ম রাষ্ট্রপতি হিসেবে ২৩ সেপ্টেম্বর, ২০১১ তারিখ থেকে ২৮ অক্টোবর, ২০১৪ তারিখ পর্যন্ত দায়িত্ব পালন করেন। সমাজতান্ত্রিক গণতন্ত্রপন্থী[৩] হিসেবে জাম্বিয়ার বৃহত্তম রাজনৈতিক দল প্যাট্রিয়টিক ফ্রন্ট (পিএফ)-এর নেতৃত্ব দিয়েছেন তিনি।

রাজনৈতিক জীবন[সম্পাদনা]

১৯৯০-এর দশকে বহুদলীয় গণতান্ত্রিক আন্দোলন সরকারের আমলে তৎকালীন রাষ্ট্রপতি ফ্রেদেরিক চিলুবা’র অধীনে তিনি মন্ত্রী ছিলেন।[৪] ২০০১ সালে বিরোধী দলে চলে যান ও প্যাট্রিয়টিক ফ্রন্ট প্রতিষ্ঠা করেন। বিরোধীদলীয় নেতা হিসেবে তিনি কিং কোবরা নামে পরিচিতি পান।

অক্টোবর, ২০০৬ সালের নির্বাচনে তৎকালীন রাষ্ট্রপতি লেভি মোনাওয়াসা’র প্রবল প্রতিপক্ষরূপে আবির্ভূত হন। নির্বাচনে তিনি চিলুবা’র কাছ থেকে ব্যাপক সমর্থন পান।[৫] তারপরও তিনি নির্বাচনে পরাজিত হন। শুরুতে সাতা শীর্ষস্থানে থাকলেও পরবর্তীতে মোনাওয়াসা প্রথম স্থানে চলে যান ও ২৭% ভোট পেয়ে তিনি তৃতীয় স্থান অধিকার করেন।[৬] ১৫০ সংসদীয় এলাকার ১২০টির ফলাফলে মোনাওয়াসা ৪২%, হাকাইন্দ হিচিলিমা ২৮% ও তাঁকে ২৭% ভোটপ্রাপ্তি দেখানো হয়। যখন সাতা’র সমর্থকেরা তা শুনে, তখন লুসাকা’র রাস্তায় দাঙ্গা বেঁধে যায়।[৭] ২ অক্টোবর জাম্বিয়ার নির্বাচন কমিশন মোনাওয়াসাকে আনুষ্ঠানিকভাবে বিজয়ী ঘোষণা করে। তাতে সাতাকে ২৯% ভোট পেয়ে দ্বিতীয় স্থান অধিকারী হিসেবে দেখানো হয়।[৮][৯]

মোনাওয়াসা হৃদরোগে আক্রান্ত হলে ফ্রান্সে চলে যান। ১৫ জুলাই, ২০০৮ তারিখে সাতা আনুষ্ঠানিকভাবে মোনাওয়াসা’র স্বাস্থ্যের প্রশ্ন তোলেন। মন্ত্রণালয়ের মাধ্যমে ডাক্তারদের একটি দল গঠিত হয়। কিন্তু মোনাওয়াসা’র প্রকৃত অবস্থা জানায়নি।[১০] আগস্ট, ২০০৮ সালে মোনাওয়াসা’র মৃত্যুর পর সাতা পুণরায় উপ-নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করলেও অক্টোবর, ২০০৮ সালের ঐ নির্বাচনে পুণরায় স্বল্প ব্যবধানে হেরে যান রাষ্ট্রপতি রুপিয়াহ বান্দা’র কাছে। ২ নভেম্বর ফলাফল ঘোষিত হয়। এতে দেখা যায়, বান্দা ৪০% এবং সাতা ৩৮% ভোট পেয়েছেন।[১১] কিন্তু সাতা ধারাবাহিকভাবে বলতে থাকেন যে, তিনি পরাজিত হননি এবং বান্দা তাঁর সাথে প্রতারণার আশ্রয় নিয়েছেন।[১২]

রাষ্ট্রপতি[সম্পাদনা]

দীর্ঘ দশ বছর বিরোধী দলে থেকে অবশেষে সাতা বান্দাকে ২০ সেপ্টেম্বর, ২০১১ তারিখে অনুষ্ঠিত রাষ্ট্রপতি নির্বাচনে বিজয়ী হন ও ক্ষমতায় আরোহণ করেন। প্রায় ৪৩% ভোট পান সাতা এবং তার প্রতিপক্ষ বান্দা পান ৩৬% ভোট। প্রধান বিচারপতি আর্নেস্ট সাকালা ২৩ সেপ্টেম্বর প্রত্যুষে সাতাকে বিজয়ী ঘোষণা করেন। পরবর্তীতে ঐদিনই তাঁকে শপথবাক্য পাঠ করানো হয়।[১৩]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. BARIYO, NICHOLAS (29 October 2014)। "Zambia President Michael Sata Dies"WSJ। সংগৃহীত 29 October 2014 
  2. "China's stake in Zambia's election", BBC, 19 September 2011.
  3. "“We are social democrats”" 
  4. "Tilyenji comes to his father’s defense", Times of Zambia.
  5. "Vote out president, Chiluba says", BBC News, 18 September 2006.
  6. "Zambian President Takes Election Lead, Opposition Claims Irregularities", Voice of America, 1 October 2006.
  7. "Zambia vote count sparks violence", BBC News, 1 October 2006.
  8. "Poll victory for Zambia president", BBC News, 2 October 2006.
  9. Zambia elections, Angus Reid.
  10. "Is Mwanawasa fit to rule?", Sapa-AFP (IOL), 15 July 2008.
  11. "Zambia: Banda sworn in, riots spread", Sapa-DPA (IOL), 2 November 2008.
  12. "Sata: I have not lost this election", Sapa-DPA (IOL), 4 November 2008.
  13. "Zambia's Sata sworn in as new president", Reuters, 23 September 2011.

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]

রাজনৈতিক দফতর
পূর্বসূরী
রুপিয়াহ বান্দা
জাম্বিয়ার রাষ্ট্রপতি
২০১১-২০১৪


উত্তরসূরী
গাই স্কট
ভারপ্রাপ্ত