ভার্নন ফিল্যান্ডার

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
ভার্নন ফিল্যান্ডার
Vernon-philander.jpg
২০১২ সালে সমারসেটের বিপক্ষে খেলেছেন ফিল্যান্ডার
ব্যক্তিগত তথ্য
পূর্ণ নাম ভার্নন ড্যারিল ফিল্যান্ডার
জন্ম (১৯৮৫-০৬-২৪) ২৪ জুন ১৯৮৫ (বয়স ২৯)
র‌েভেন্সমিড, বেলভিল, কেপ প্রদেশ, দক্ষিণ আফ্রিকা
ডাকনাম প্রো, ভি-দগ, বিগ ভার্ন
ব্যাটিংয়ের ধরণ ডানহাতি
বোলিংয়ের ধরণ ডানহাতি মিডিয়াম-ফাস্ট
ভূমিকা অল-রাউন্ডার
আন্তর্জাতিক তথ্য
জাতীয় পার্শ্ব
টেস্ট অভিষেক (ক্যাপ ৩১১) ৯ নভেম্বর ২০১১ বনাম অস্ট্রেলিয়া
শেষ টেস্ট ২২ ফেব্রুয়ারি ২০১৩ বনাম পাকিস্তান
ওডিআই অভিষেক (ক্যাপ ৮৬) ২৪ জুন ২০০৭ বনাম আয়ারল্যান্ড
শেষ ওডিআই ২০ জানুয়ারি ২০১২ বনাম শ্রীলঙ্কা
ঘরোয়া দলের তথ্য
বছর দল
২০০১– ওয়েস্টার্ন প্রভিন্স
২০০৪ ডেভন
২০০৪– কেপ কোবরাজ (দল নং ২৪)
২০০৮ মিডলসেক্স
২০১২ সমারসেট
কর্মজীবনের পরিসংখ্যান
প্রতিযোগিতা টেস্ট ওডিআই এফসি এলএ
ম্যাচ সংখ্যা ১৬ ৯৭ ৯৭
রানের সংখ্যা ৩৬৪ ৭৫ ২,৭৪০ ১,১৮১
ব্যাটিং গড় ২২.৭৫ ২৫.০০ ২৫.৬০ ২৫.১২
১০০/৫০ ০/২ ০/০ ২/৮ ০/৪
সর্বোচ্চ রান ৭৪ ২৩ ১৬৮ ৭৯*
বল করেছে ৩,২৭৯ ৩১১ ১৭,০৮১ ৪,০২৫
উইকেট ৮৯ ৩৮০ ৮৯
বোলিং গড় ১৭.১৩ ৩৫.৪২ ১৯.৭১ ৩৫.৭৪
ইনিংসে ৫ উইকেট ২০
ম্যাচে ১০ উইকেট n/a n/a
সেরা বোলিং ৬/৪৪ ৪/১২ ৭/৬১ ৪/১২
ক্যাচ/স্ট্যাম্পিং ৫/– ২/– ২৫/– ৭/–
উত্স: ক্রিকইনফো, ৮ মার্চ ২০১৩

ভার্নন ডেরিল ফিল্যান্ডার (ইংরেজি: Vernon Darryl Philander; জন্ম: ২৪ জুন, ১৯৮৫) দক্ষিণ আফ্রিকার কেপ প্রদেশে জন্মগ্রহণকারী ক্রিকেটার। ডানহাতি বোলারঅল-রাউন্ডার হিসেবে তিনি পরিচিত হয়ে আছেন। দক্ষিণ আফ্রিকার পক্ষ হয়ে অনূর্ধ্ব-১৯ দলে প্রতিনিধিত্ব করেছেন। ঘরোয়া ক্রিকেটে কেপ কোবরাজ দলের পক্ষ হয়ে খেলেন।

খেলোয়াড়ী জীবন[সম্পাদনা]

বেলফাস্টে অনুষ্ঠিত নিজের ২২তম জন্মদিনে একদিনের আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে আয়ারল্যান্ডের বিপক্ষে অভিষেক ঘটে তার। খেলায় দল জিতে এবং তিনি চার উইকেট নেন মাত্র বার রান দিয়ে।

আন্তর্জাতিক ক্রিকেটাঙ্গনে ফিল্যান্ডের চমকপ্রদভাবে শুরু করেন। ৯ নভেম্বর, ২০১১ তারিখে অনুষ্ঠিত ১ম টেস্টে অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে অভিষেক ঘটে। দ্বিতীয় ইনিংসে ৫ উইকেট নেন মাত্র ১৫ রানের বিনিময়ে।[১] ফলে অস্ট্রেলিয়া মাত্র ৪৭ রানে অল-আউট হয় যা ১৯০২ সালের পর ছিল সর্বনিম্ন ইনিংস। ১৩.৯২ রান গড়ে ১৪ উইকেট লাভ করে ম্যান অব দ্য সিরিজ পুরস্কারে ভূষিত হন। বিশ্বের পঞ্চম খেলোয়াড় হিসেবে ক্রিকেট ইতিহাসে প্রথম তিন টেস্টেই পাঁচ উইকেট শিকারে দক্ষতা দেখান ফিল্যান্ডার।[২] এধরণের সাফল্যের প্রেক্ষিতে ক্রিকেট সাউথ আফ্রিকার সাথে জাতীয়ভাবে চুক্তিবদ্ধ হন তিনি।[৩]

সাফল্যগাঁথা[সম্পাদনা]

মার্চ, ২০১২ সালে ওয়েলিংটনে অনুষ্ঠিত তৃতীয় টেস্টের প্রথম ইনিংসে নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে ৮১ রানের বিনিময়ে ৬ উইকেট নেন। তন্মধ্যে ডগ ব্রেসওয়েলকে আউট করে নিজস্ব ৭ম টেস্টে ৫০-উইকেট লাভ করেন। এরফলে তিনি চার্লস টার্নারের পর দ্বিতীয় বোলার হিসেবে এ সাফল্য লাভ করেন।[৪] কিন্তু দ্বিতীয় ইনিংসে কোন উইকেট লাভ করেননি; যারফলে খেলাটি ড্র হয়।[৫]

অক্টোবর, ২০১২ সালে ডেল স্টেইনমরনে মরকেলের সাথে তিনিও পেস আক্রমণে যুক্ত হন। বোলিং কোচ ও সাবেক টেস্ট ক্রিকেটার অ্যালান ডোনাল্ড মনে করেন যে, ত্রয়ী বোলারগণ দেশের পক্ষে সেরা খেলোয়াড়।[৬]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. "1st Test: South Africa v Australia at Cape Town, Nov 9-11, 2011"espncricinfo। সংগৃহীত 2011-12-18 
  2. McGlashan, Andrew (15 December 2011)। "Philander sets up dominant South Africa"ESPNcricinfo। সংগৃহীত 17 December 2011 
  3. "Philander awarded national contract"ESPNcricinfo। 21 January 2012। সংগৃহীত 21 January 2012 
  4. "Records / Test matches / Bowling records / Fastest to 50 wickets"। Cricinfo। সংগৃহীত 6 May 2012 
  5. "Williamson secures hard-fought draw"। Cricinfo। 
  6. "Donald rates Proteas pace lineup best ever"3 News NZ। 31 October 2012। 

আরও দেখুন[সম্পাদনা]

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]