বেনাস্টার টার্লেটন

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
স্যার বেনাস্টার টার্লেটন, বিটি
স্যার হুজুয়া রেনোল্ডস অঙ্কিত "লেফটেনান্ট-কর্ণেল বেনাস্টার টার্লেটন" -এর চিত্র
ডাকনাম ব্লাডি বেন, দ্য বুচার, দ্য গ্রিন ড্রাগন (১৯৫২-এর পর দেওয়া ডাকনাম)[তথ্যসূত্র প্রয়োজন]
জন্ম ২১শে আগস্ট ১৭৫৪
লিভারপুল, ইংল্যান্ড
মৃত্যু ১৫ জানুয়ারি ১৮৩৩(১৮৩৩-০১-১৫) (৭৮ বছর)
লেইন্টওয়ার্ডিন, হেরফোর্ডশায়ার, ইংল্যান্ড
আনুগত্য  গ্রেট ব্রিটেনের রাজত্ব
সার্ভিস/শাখা  ব্রিটিশ সেনাবাহিনী
কার্যকাল ১৭৭৫–১৮১২
পদমর্যাদা জেনারেল
ইউনিট প্রথম ড্রাগন গার্ডস
নেতৃত্বসমূহ ব্রিটিশ লেজিয়ন
যুদ্ধ/সংগ্রাম আমেরিকার স্বাধীনতা যুদ্ধ
চার্লসটন অবরোধ
মোঙ্ক কর্ণারের যুদ্ধ
লিনাডস ফেরির যুদ্ধ
ওয়েক্সহাওস এর যুদ্ধ
ফিশিং ক্রিকের যুদ্ধ
কেমডেনের যুদ্ধ
ব্ল্যাকস্টক ফার্মের যুদ্ধ
কাউপেন্সের যুদ্ধ
কাউয়ান ফোর্ডের যুদ্ধ
টরেন্স টেভরেনের যুদ্ধ
ওয়েজিল মিলের যুদ্ধ
গাইলফোর্ড কোর্টহাউজের যুদ্ধ
গ্রিন স্প্রিং-এর যুদ্ধ
ইয়র্কটাউনের অবরোধ
পুরস্কার নাইট গ্র্যান্ড ক্রস অফ দ্য অর্ডার অফ দ্য বাথ
ব্যারোনেট

জেনারেল স্যার বেনাস্টার টার্লেটন, প্রথম ব্যারোনেট, জিসিবি (২১শে আগস্ট ১৭৫৪ – ১৫ই জানুয়ারি ১৮৩৩) ছিলেন একজন ব্রিটিশ সৈনিক ও রাজনীতিবিদ।

তাকে আজো সম্ভবত আমেরিকার স্বাধীনতা যুদ্ধে তার কৃতিত্ত্বপূর্ণ সামরিক অবদানের জন্য স্বরণ করা হয়ে থাকে। দাবি করা হয়ে থাকে, ওয়েক্সহাসের যুদ্ধে কন্টিনেন্টাল আর্মির সৈন্যদলকে গুলির মুখে আত্মসমর্পণে বাধ্য করার জন্য তিনিই ছিলেন অগ্রপথিক। রবার্ট ডি. বেস লিখিত কাল্পনিক উপন্যাস দ্য গ্রিন ড্রাগন: দ্য লাইভস অফ বেনাস্টার টার্লেটন এন্ড মেরি রবিনসনে তাকে ব্লাডি বেনদ্য বুচার নামে উল্লেখ করা হয়েছে যা বর্তমান সংস্কৃতিতেও প্রভাব ফেলেছে। উপন্যাসটি ১৯৫২ সালে প্রকাশিত হয়েছিল।

তিনি একজন আদর্শবান সৈনিক হিসেবে ব্রিটিশদের কাছে অভিনন্দিত হয়েছিলেন এবং তার যুদ্ধ নৈপুণ্যের জন্য তার বিরোধী সিনিয়র অফিসাররাও তাকে ভালো চোখে দেখতেন। তার সবুজ ইউনিফর্ম ব্রিটিশ লেজিয়নের স্ট্যান্ডার্ড; একটি প্রাদেশিক ইউনিট যা নিউ ইয়র্কে ১৭৭৮ সালে সংগঠিত হয়। টার্লেটন পরবর্তীতে লিভারপুল থেকে সংসদ সদস্য নির্বাচিত হয়েছিলেন ও ক্রমেই একজন প্রমিনেন্ট উইং রাজনীতিবিদ হিসেবে নিজের অবস্থান শক্ত করেছিলেন। টার্লেটনের ক্যাভলরির লোকদের সচরাচর টার্লেটন রেইডারস নামে ডাকা হয়।

প্রারম্ভিক জীবন[সম্পাদনা]

বেনাস্টারের পিতার নাম জন টার্লেটন যিনি ছিলেন জাহাজের মালিক ও দাস বণিক। জন টার্লেটন লিভারপুলের মেয়র হিসেবেও দায়িত্ব পালন করেন (১৭১৮ - ১৭৭৩) এবং তার সাথে ব্রিটেনের আমেরিকান কলোনির যথেষ্ঠ ভালো ব্যবসায়িক সম্পর্ক ছিলো।[১] বেনাস্টার ছিলেন সাত ভাইয়ের মধ্যে চতুর্থ।

টার্লেটন লন্ডনের মিডল টেম্পলে অধ্যয়ন শুরু করে এবং ১৭৭১ সালে অক্সেফোর্ড বিশ্ববিদ্যালয়ের ইউনিভার্সিটি কলেজে আইন বিষয়ে অধ্যয়ন করে, আইনজীবী হিসেবে কর্মজীবন শুরু করার প্রস্তুতি নেন। ১৭৭৩ সালে তিনি তার পিতার মৃত্যুর পর উত্তাধিকার সূত্রে £৫,০০০ অর্জন করেন। কিন্তু তিনি এক বছরের মধ্যেই তার টাকার অধিকাংশই লন্ডন ট্রি ক্লাবে মদ ও নারীর পিছনে ব্যায় করেন। ১৭৭৫ সালে তিনিপ্রথম ড্রাগন গার্ডে ক্যাভলরি অফিসার হিসেবে নিয়োগ পানে এবং কিছুদিনের মধ্যেই একজন দক্ষ অশ্বারোহী ও সৈনদের দলপতি হিসেবে দক্ষতার পরিচয় দেন। পরবর্তীতে তার দক্ষতাবলে তিনি লেফটেনান্ট কর্ণেল পদমর্যাদায় ভূষিত হন।

গ্রন্থপঞ্জি[সম্পাদনা]

  • Bass, Robert D. The Green Dragoon, Sandlapper Pub. Co. 500pp. 2003.
  • Scotti, Anthony J. Brutal Virtue: The Myth and Reality of Banastre Tarleton, Heritage Books, 302pp., 2002. ISBN 0-7884-2099-2.
  • Wilson, David K. The southern strategy: Britain's conquest of South Carolina and Georgia, 1775-1780. University of South Carolina Press, 2005. ISBN 978-1-57003-797-9

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. Scotti p.14
  • A Sketch of the Life of Brig. General Francis Marion by William Dobein James, A.M. (Member of Marion's Militia)
  • Redcoats and Rebels by Christopher Hibbert
  • Cassell's Biographical Dictionary of the American War of Independence, 1763-1783 by Mark Mayo Boatner (Cassell, London, 1966. ISBN 0-304-29296-6)

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]