বিদ্যুৎশক্তি সঞ্চালন

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
সুইডেনের লুন্দের একটি সঞ্চালণ লাইন

বিদ্যুৎশক্তি সঞ্চালন ব্যবস্থা বা বিদ্যুৎ শক্তি সঞ্চারণ এমন একটি ব্যবস্থা যার মাধ্যমে ব্যবহারকারীদের কাছে বিদ্যুৎশক্তি প্রেরণ করা হয়। এই শব্দটি এক স্থান থেকে অন্য স্থানে বিদ্যুৎশক্তি পরিচালনের ক্ষেত্রে ব্যবহৃত হয়। সাধারণতঃ বিদ্যুৎশক্তি উৎপাদন কেন্দ্র থেকে জনবসতিপূর্ণ এলাকার কাছাকাছি অবস্থিত সাবষ্টেশন পর্যন্ত বিদ্যুৎ পরিবহনকে বিদ্যুৎশক্তি সঞ্চালণ বলে। বিদ্যুৎ উৎপাদন কেন্দ্রে উৎপাদিত বিদ্যুৎ শক্তিকে আরোহী রূপান্তরকের (transformer) মাধ্যমে উচ্চ বিভবে রূপান্তরিত করে তা সঞ্চালন করা হয়। সঞ্চালিত বিদ্যুৎ বিদ্যুৎ সাবস্টেশনে গেলে সেখানে আবার অবরোহী রূপান্তরকের মাধ্যমে নিম্ন বিভবে রুপান্তরিত করা হয়। বসতবাড়ি বা শিল্প কারখানায় সাধারণত সঞ্চালণ বিভবের থেকে কম বিভবেই বিদ্যুৎ শক্তি ব্যবহার করা হয়। এজন্য সঞ্চালণ বিভব থেকে বন্টন বিভবে রূপান্তর অবশ্যম্ভাবী।

বিদ্যুৎশক্তি সঞ্চালণ এবং বিদ্যুৎশক্তি বিতরণ দুটি ভিন্ন ব্যবস্থাকে নির্দেশ করে। বিদ্যুৎশক্তি বিতরণ ব্যবস্থার মাধ্যমে সাবষ্টেশন থেকে ব্যবহারকারীর কাছে বিদ্যুৎশক্তি সরবরাহ করা হয়। বিদ্যুৎশক্তি সঞ্চালন ব্যবস্থায় বিপুল পরিমাণ শক্তি সরবরাহ করা হয় বিধায় সাধারণতঃ এ ব্যবস্থায় উচ্চ বিভব (১১০ কেভি বা কিলোভোল্ট) ব্যবহার করা হয়। মূলতঃ ঝুলন্ত সঞ্চালন লাইনের মাধ্যমে দূর দূরান্তে বিদ্যুৎশক্তি প্রেরণ করা হয়। শুধুমাত্র অত্যন্ত ঘনবসতিপূর্ণ এলাকায় (যেমন বড় বড় শহরে) মাটির নীচে দিয়ে বিদ্যুৎশক্তি প্রেরণ করা হয়। এসব এলাকায় বিপুল পরিমাণে ক্যাপাসিটিভ এবং রেজিস্টিভ লস থাকে এবং এখানে ঝুলন্ত সঞ্চালন লাইন নির্মান অত্যন্ত ব্যয়বহুল বলে মাটির নীচের সঞ্চালন লাইন ব্যবহার করা হয়।

চলতড়িৎ (AC) সঞ্চালন ব্যবস্থা[সম্পাদনা]

ইতিহাস[সম্পাদনা]

বিপুল পরিমাণ শক্তি সঞ্চালন[সম্পাদনা]

গ্রীড সঞ্চালন[সম্পাদনা]

ক্ষয়(Losses)[সম্পাদনা]

উচ্চ বিভব একমুখী তড়িৎ[সম্পাদনা]

শক্তি ক্ষয়[সম্পাদনা]

গ্রীড ক্ষয়[সম্পাদনা]

যোগাযোগ[সম্পাদনা]

স্বাস্থ্য সচেতনতা[সম্পাদনা]

সম্পর্কিত ভুক্তি[সম্পাদনা]