বাংলাদেশ পাসপোর্ট

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
বাংলাদেশের পাসপোর্ট
বাংলাদেশের পাসপোর্ট
বাংলাদেশের পাসপোর্ট
প্রদানকারী সংস্থা  বাংলাদেশ
প্রকার পাসপোর্ট
উদ্দেশ্য Identification
প্রদানের যোগ্যতা Bangladeshi citizenship, Bangladeshi by birth or descent

বাংলাদেশ পাসপোর্ট বাংলাদেশের নাগরিকদের জন্য বিদেশে ভ্রমণের কাজে ব্যবহৃত দলিল। জন্মসূত্রে বা অভিবাসনসূত্রে বাংলাদেশের নাগরিকদেরকে এটি বাংলাদেশ সরকার প্রদান করে থাকে। বাংলাদেশের পাসপোর্ট অফিস বা বিদেশে বাংলাদেশী দূতাবাস হতে পাসপোর্ট দেয়া হয়ে থাকে। বাংলাদেশের পাসপোর্টে ইসরাইল ব্যতীত পৃথিবীর আর সব দেশে ভ্রমণের অনুমতি রয়েছে।

প্রকার[সম্পাদনা]

বাংলাদেশে ৩ রকমের পাসপোর্ট প্রদান করা হয়

  • আন্তর্জাতিক সাধারণ পাসপোর্ট (সবুজ মলাট)
  • সরকারী পাসপোর্ট (সবুজ মলাট, প্রথম পাতায় নীল সিলমোহর)
  • কূটনৈতিক পাসপোর্ট (লাল মলাট)

নিয়মাবলী[সম্পাদনা]

পাসপোর্টের শর্তাবলী[সম্পাদনা]

১। সরকারি, আধাসরকারি, স্বায়ত্তশাষিত ও রাষ্ট্রায়ত্ত সংস্থার স্থায়ী কর্মকর্তা/কর্মচারী, অবসরপ্রাপ্ত সরকারি চাকুরীজীবি ও তাদের নির্ভরশীল স্ত্রী/স্বামী এবং সরকারি চাকুরীজীবিগণের ১৫ (পনের) বৎসরের কম বয়সের সন্তান, ৫ (পাঁচ)/১০ (দশ) বৎসরের অতিক্রান্ত, সমর্পণকৃতদের (Surrendered) জন্য একটি ফর্ম ও অন্যান্যদের ক্ষেত্রে নতুন পাসপোর্টের জন্য ২ (দুই) কপি পূরণকৃত পাসপোর্ট ফর্ম দাখিল করতে হবে।

২। অপ্রাপ্তবয়স্ক (১৫ বছরের কম) আবেদনকারীর ক্ষেত্রে আবেদনকারীর পিতা ও মাতার একটি করে রঙিন ছবি (৩০ x ২৫ মিঃমিঃ) আঠা দিয়ে লাগানোর পর সত্যায়ন করতে হবে।

৩। জাতীয় পরিচয়পত্র অথবা জন্ম নিবন্ধন সনদ এবং প্রযোজ্য ক্ষেত্রে প্রাসঙ্গিক টেকনিক্যাল সনদসমূহের (যেমন ডাক্তার, ইঞ্জিনিয়ার, ড্রাইভার ইত্যাদি) সত্যায়িত ফটোকপি।

৪। যে সকল ব্যক্তিগণ পাসপোর্টের আবেদনপত্র ও ছবি প্রত্যায়ন ও সত্যায়ন করতে পারবেন – সংসদ সদস্য, সিটি কর্পোরেশনের মেয়র, ডেপুটি মেয়র ও কাউন্সিলরগণ, গেজেটেড কর্মকর্তা, পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক, উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান ও ভাইস চেয়ারম্যান, পৌরসভার মেয়র ও পৌর কাউন্সিলরগণ, বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক, বেসরকারি কলেজের অধ্যক্ষ, বেসরকারি উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক, জাতীয় দৈনিক পত্রিকার সম্পাদক, নোটারী পাবলিক ও আধাসরকারি/স্বায়ত্তশাসিত/রাষ্ট্রায়ত্ত সংস্থার জাতীয় বেতন স্কেলের ৭ম ও তদুর্ধ্ব গ্রেডের কর্মকর্তাগণ।

৫। প্রযোজ্য ক্ষেত্রে প্রাসঙ্গিক জিও (GO)/এনওসি (NOC) দাখিল করতে হবে।

৬। কূটনৈতিক পাসপোর্ট লাভের যোগ্য আবেদনকারীগণকে পূরণকৃত ফর্ম ও সংযুক্তিসমূহ পররাষ্ট্র মন্ত্রনালয়ে জমা দিতে হবে।

৭। শিক্ষাগত বা চাকুরীসূত্রে প্রাপ্ত পদবীসমূহ (যেমন ডাক্তার, ইঞ্জিনিয়ার, ডক্টর, পিএইচডি ইত্যাদি) নামের অংশ হিসেবে পরিগণিত হবে না। ফরমের ক্রমিক নং ৩ পূরনের ক্ষেত্রে, একাধিক অংশ থাকলে প্রতি অংশের মাঝখানে ১টি ঘর শূন্য রেখে পূরণ করতে হবে। আবেদনকারীর পিতা, মাতা, স্বামী/স্ত্রী মৃত হলেও তার/তাদের নামের পূর্বে ‘মৃত/মরহুম/Late’ লেখা যাবে না।

পাসপোর্ট ফরম পূরণ[সম্পাদনা]

প্রথম ধাপ[সম্পাদনা]

* অনলাইনে পাসপোর্টের ফরম পূরণ করার জন্য প্রথমে যেতে হবে www.dip.gov.bd এই ঠিকানায়।

* হোম পেইজের ডান পাশে Service বক্সে Apply online for mrp এই অংশে ক্লিক করার পর পাসপোর্ট-সংক্রান্ত প্রয়োজনীয় দিকনির্দেশনা আসবে। Continue to online enrollment ট্যাবে ক্লিক করলে অনলাইন অ্যাপ্লিকেশন ফরমটি আসবে। এই ফরমে যেসব তথ্য চাওয়া হয়েছে সেসব তথ্য দিতে হবে।

তবে ফরমের ঠিক ওপরের অংশ Delivery Type-এর নিচে Supporting Document নামে যে আলাদা একটি বক্স রয়েছে। সাধারণ নাগরিক সেটি পূরণ করবে না। সরকারি কর্মকর্তা, আধাসরকারি, স্বায়ত্তশাসিত ও রাষ্ট্রায়ত্ত সংস্থার স্থায়ী কর্মকর্তা/কর্মচারী, অবসরপ্রাপ্ত সরকারি চাকরিজীবীদের এটি পূরণ করতে হয়।

* Passport Type অংশে সাধারণ নাগরিকদের জন্য ordinary সিলেক্ট করতে হবে।

* Delivery Type অংশে ৩০ দিনের জন্য হলে Regular এবং ১৫ দিনের জন্য হলে Express সিলেক্ট করতে হবে।

দ্বিতীয় ধাপ[সম্পাদনা]

* একই ঠিকানায় আর একটি নতুন ফরম আসবে। এ ফরমটি পূরণ করতে হলে আগে থেকেই নির্ধারিত ব্যাংকে পাসপোর্টের জন্য ফি হিসাবে টাকা জমা দিয়ে রসিদ সংগ্রহ করতে হবে। সেই রশিদ নম্বর দিয়ে এ ফরম পূরণ করতে হয়।

* আবেদনপত্র সঠিকভাবে পূরণ করে প্রিন্ট নিয়ে সংশ্লিষ্ট পাসপোর্ট অফিসে জমা দিতে হবে।

* আবেদনপত্রটি ভেরিফিকেশন করে দায়িত্বরত কর্মকর্তা আবেদনপত্র যাচাই করে সিলসহ স্বাক্ষর করবেন।

* পাসপোর্ট অফিসেই খোলা আছে বেশ কয়েকটি বুথ। এসব বুথেই জমা দিতে হবে।

* আবেদনপত্রটি জমা দেওয়ার সময় পাসপোর্ট অফিসের দায়িত্বরত ব্যক্তি আপনার তথ্যগুলো কম্পিউটারে এন্ট্রি করে রাখবেন।

* এরপর তিনি আপনাকে একটি টোকেন দেবেন।

* টোকেনসহ আবেদনপত্রটি নিয়ে ছবি তোলার জন্য নির্ধারিত কর্মকর্তার কাছে যেতে হবে।

* জাতীয় পরিচয়পত্রের জন্য যেভাবে ছবি তোলা হয়েছিল, এখানেও একইভাবে নির্দিষ্ট মাপের ছবি তোলা হবে।

* ইলেকট্রনিক মেশিনে দুই হাতের আঙুলের ছাপ দিতে হবে।

* এরপর নেওয়া হবে ইলেকট্রনিক স্বাক্ষর।

* এই প্রক্রিয়া শেষে কর্তৃপক্ষ আবেদনপত্রটি রেখে দিয়ে পাসপোর্ট সংগ্রহের জন্য আপনাকে একটি আলাদা ডকুমেন্ট দেবে। পাসপোর্ট সংগ্রহ করার তারিখও জানিয়ে দেবেন।

* আবেদন ফরম জমা দেওয়ার সময় আবেদনকারীকে অবশ্যই উপস্থিত থাকতে হবে। সংগ্রহ করার সময় নিজে না থাকলেও চলবে।

* সাদা কাপড় পরে ছবি তোলা যাবে না।

অনলাইনে পাসপোর্ট চেকিং[সম্পাদনা]

নির্ধারিত ডেলিভারি তারিখে পাসপোর্ট ডেলিভারি নিতে পারবেন কি না তা অনলাইনে জানতে পারবেন।

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]

  • অফিসিয়াল পাসপোর্টের ওয়েবসাইট:http://www.passport.gov.bd
  • ইমিগ্রশন কর্তৃপক্ষের ওয়েবসাইট:http://dip.gov.bd