বজরং দল

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
বজরং দল
গঠন ১ অক্টোবর ১৯৮৪ (1984-10-01) (৩০ বছর আগে)
প্রধান প্রতিষ্ঠান বিশ্ব হিন্দু পরিষদ
ওয়েবসাইট www.bajrangdal.org

বজরং দল হল উগ্র হিন্দুত্ববাদে বিস্বাসী[১][২][৩][৪] বিশ্ব হিন্দু পরিষদের যুব বাহীনি।[৫] ১লা অক্টোবর ১৯৮৪ সালে উত্তর প্রদেশ দলটি প্রতিষ্টিত হয় এবং গোটা ভারতে উগ্র হিন্দু জাতীয়তাবাদ দলহিসাবে বিস্তৃত লাভ করে। দলটি বিভিন্ন জঙ্গি ক্রিয়াকলাপে যুক্ত।[৬]

এই দলের লক্ষ্য হল গোহত্যা নিরোধ করা এবং মথুরার আযোধ্যায় বাবরি মসজিদ ভেঙ্গে রামজন্মভুমি মন্দির নির্মান করা। এছাড়াও ভারতের হিন্দুদেরকে সাম্যবাদ (কমিউনিজম) থেকে রক্ষা করা, মুসলিম এবং খ্রীষ্টান ধর্মে রপান্তর হতে বিরত রাখা।

সূচনা[সম্পাদনা]

অক্টোবর ১৯৮৪ সাল থেকে, বিশ্ব হিন্দু পরিষদ (ভিএইচপি) উত্তর প্রদেশ রাজ্যের অযোধ্যায় নিয়মিত মিছিল, অনুষ্ঠান শুরু করে। এই মিছিলকে রাম-জানকী রথযাত্রা বলা হয় এবং এর লক্ষ্য ছিল সমাজের জাগরণ। বিশ্ব হিন্দু পরিষদ আনুষ্ঠানিকভাবে এই অনুশীলনের জন্য অন্য কোনো ধর্ম বিরোধী কর্ম করা হয়নি বলে দাবি করে যদিও, ভারতের সমাজের অনেক বিভাগ এই নিয়মিত অনুষ্ঠানকে একটি উগ্র-হিন্দু আন্দোলন হিসেবে অভিহিত করে। এর ফলে, এই মিছিল ঘিরে সাম্প্রদায়িক উত্তেজনা ও হুমকির একটি পরিবেশ সৃষ্ট হয়। এই পরিস্থিতিতে, বিশ্ব হিন্দু পরিষদের সদস্যদরা মিছিল রক্ষা করার জন্য যুবকদের প্রতি আহ্বান জানান। এইভাবে বজরং দল গঠিত হয়।

বিতর্ক[সম্পাদনা]

  • হিউম্যান রাইটস্‌ ওয়াচ অনুযায়ী, বজরং দল ২০০২ সালে গুজরাট সহিংসতায় মুসলমানদের বিরুদ্ধে দাঙ্গা জড়িত ছিল।[৭]
  • এপ্রিল ২০০৬ সালে, দুজন বজরং দলের কর্মী বোমা তৈরীর সময় মহারাষ্ট্রের নান্দেদ শহরের কাছাকাছি নিহত হয়। এছাড়াও ২০০৩ সালে পারভানি মসজিদ বিস্ফোরণ সংঘটিত করার জন্য সন্দেহ করা হয়।[৮] যারা গ্রেফতার ​​হন পরে তারা ত্তজর দেখান যে সারা দেশে বেশ কয়েকটি বিস্ফোরণের উসুল চেয়েছিলেন।[৯] এনডিটিভি (NDTV) পরবর্তীকালে নান্দেদের পুলিশকে তথ্য ধামাচাপা দেওয়ার অভিযোগে অভিযুক্ত করে। ভারতের ধর্মনিরপেক্ষ সিটিজেন এর ফোরাম ও PUCL মিলিতভাবে তদন্ত করে একটি রিপোর্ট পেশ করে যাতে উল্লেক্ষ ছিল যে নাগপুর মৃত বজরং দলের সদস্যের বাড়িতে বিভিন্ন মসজিদের মানচিত্র পাওয়া গিয়েছে।[১০]
  • এপ্রিল ২০০৩ সালে বিশ্ব হিন্দু পরিষদের নেতা প্রভীন তোগাড়িয়া নিষেধাজ্ঞা উপেক্ষা করে আজমিরে, বজরং দলের সদস্যদের হাতে ত্রিশূল তুলে দেন।[১১]
  • দলটির বিরূদ্ধে গুজরাতে, মুসলমানদেরকে জমি ক্রয় করা থেকে আটকান, যারা বিক্রয় করতে ইচ্ছুক তাদের উপর অত্যাচার করা এবং মুসলিমদের নিজস্ব সম্পত্তি ও বাড়ি জোরপূর্বক বিক্রি করতে বাধ্য করার মত গুরুতর অভিযোগে অভিযুক্ত। ফল স্বরুপ গুজরাতের আমেদাবাদভাদোদারা মত শহরে মূসলিম বস্তি গড়ে ওঠে।[১২]
  • বিভিন্ন অনুষ্ঠানে, "সামাজিক পুলিশ" হিসেবে অভিনয়ে বজরং দলের কর্মীরা ভালোবাসা দিবসে অ-বিবাহিত যুগলদেরকে জোরপুর্বক সিদুর পরানো বা রাখি পরিয়ে যথাক্রমে দম্পতি ও ভাই-বোন হতে বাধ্য করে। এছাড়াও কর্মীরা প্রায়ই উপহার-এর দোকান ও রেস্তোরাঁ আক্রমণ করে, ভালোবাসা দিবসে যুগলদেরকে শাসানি, সহিংসতায় জড়িয়ে পড়ে।[১৩][১৪][১৫][১৬]
  • ২৪ আগস্ট ২০০৮ সালে কানপুরে বোমা বানানোর দুর্ঘটনার সাথে জড়িত।[১৭]
  • সেপ্টেম্বর ২০০৮ সালে, হিন্দু দেবতা অবমাননার অভিযোগ তুলে এর বিরুদ্ধে প্রতিবাদ হিসাবে কর্নাটকে খ্রীষ্টান গীর্জা আক্রমণ করে। এছাড়া জাতীয় সংখ্যালঘু কমিশন কর্ণাটক ও উড়িষ্যার বিজেপি-শাসিত অঞলে ধর্মীয় সহিংসতার জন্য তাদের দায়ী করে।[১৮]
  • ১৪ই ফেব্রুয়ারী ২০১১ সালে পুনরায় উত্তর প্রদেশের কানপুর শহরে ভালোবাসা দিবস উদযাপনকারীদেরকে তাদের কান ধরে উঠ-বোস করতে বাধ্য করে। "পশ্চিমী ছুট" উদযাপন করার অপরাধে এই শাস্তি ও সহিংসতা রুখতে পুলিশ নিয়োগ করতে হয়।[১৯]

সমালোচনা[সম্পাদনা]

হিউম্যান রাইটস্‌ ওয়াচ-এর দ্বারা গঠিত "ওয়ার্ল্ড রিপোর্ট (২০০০)" এবং যুক্তরাষ্ট্রের দ্বারা পরিচালিত "আন্তর্জাতিক ধর্মীয় স্বাধীনতা রিপোর্টের (২০০০)" বার্ষিক প্রতিবেদনে বজরং দলকে হিন্দু চরমপন্থী গ্রুপ হিসাবে চিহ্নিত করা হয়।[২০][২১] ওয়াশিংটন বিশ্ববিদ্যালয়ের দক্ষিণ এশিয়ার স্টাডিজ ও রাষ্ট্রবিজ্ঞান -এর অধ্যাপক, পল আর ব্রাস (Paul R. Brass), বজরং দলকে ভারতের নাত্সি সমতুল্য হিসাবে বর্ণিত করে।[২২]

বজরং দল এমনকি মধ্যপন্থী হিন্দু জাতীয়তাবাদী সংগঠন, হিন্দু মহাসভা দ্বারাও সমালোচিত হয়েছে।[২৩]

নিষেধাজ্ঞার দাবি[সম্পাদনা]

  • সেপ্টেম্বর ২০০৮ সালে ভারতীয় জাতীয় কংগ্রেস দলটির নিষেধাজ্ঞার দাবি তোলে। মনিশ তিওয়ারি বলেন

    "White paper should be brought out not only against SIMI but all organisations involved in anti-national activities like Bajrang Dal and VHP"[২৪]

কংগ্রেসের একাধিক নেতা ছাড়াও কানপুর বিস্ফোরণের পর, সন্ত্রাসবাদের বিরুদ্ধে আন্দোলন -এ যূক্ত মাওলানা খালিদ রশিদ ফিরাঙ্গি মাহলিও নিষেধাজ্ঞার পক্ষে দাবি জানান।[২৫]

  • মাসিক পত্রিকা কম্যুনালিজম্ কম্ব্যাট (Communalism Combat) আগস্ট ২০০৮ সালে বজরং দলের তাৎক্ষণিক নিষেধাজ্ঞার দাবি তোলে।[২৬]
  • লোক জনশক্তি পার্টির নেতা রামচন্দ্র পাসওয়ান বজরং দল ও বিশ্ব হিন্দু পরিষদকে সাম্প্রদায়ীক দল হিসাবে আক্ষ্যা দিয়ে অবিলম্ব নিষিদ্ধ করার আহ্বান জানান।[২৭]
  • রাজ্যসভা সাংসদ রাম বিলাস পাসোয়ান থেকে শুরু করে কর্নাটকের মুখ্যমন্ত্রী (১৯৯৪-১৯৯৬) ও একই সাথে ভারতের 11 তম প্রধানমন্ত্রী ডেভে গৌড়া ও উত্তর প্রদেশের মুখ্যমন্ত্রী মায়াবতী বজরং দলের পাশাপাশি শ্রী রাম সেনার উপরও নিষেধাজ্ঞার দাবি তোলেন।[২৮][২৯][৩০]

আরও দেখুন[সম্পাদনা]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. 16 Harv. Hum. Rts. J. 41 (2003) Overlooked Danger: The Security and Rights Implications of Hindu Nationalism in India; Narula, Smita
  2. "Militant Hindu Valentine threat"। BBC। 12 February 2001। সংগৃহীত 2001-02-12 
  3. Chetan Bhatt (2001)। Hindu Nationalism: Origins, Ideologies and Modern Myths। Berg Publishers। পৃ: 199। আইএসবিএন 978-1-85973-348-6 
  4. Cracking down on ‘violations of moral code’ in Dakshina Kannada The Hindu
  5. Deshpande, Rajeev (30 September 2008)। "Bajrang Dal: The militant face of the saffron family?"। The Times of India। সংগৃহীত 2008-09-30 
  6. "'Bajrang Dal,a terror group, ban likely"। The Hindusthan Times। সংগৃহীত ৪ঠা মার্চ ২০১৪ 
  7. State Participation and Complicity in Communal Violence in Gujarat Humean Rights Watch – June 2002
  8. Malegaon the road to perdition,The Hindu
  9. [১] Malegaon blasts: Is it Bajrang or Lashkar?
  10. A report on bomb blast at the house of prominent RSS activist in Nanded, Maharashtra,pucl.org
  11. Togadia defies ban, distributes tridents,The Hindu
  12. Organised intolerance
  13. Valentines day
  14. Gupta, Suchandana (15 February 2008)। "On V-Day, Bajrang Dal men force couple to get 'married'"The Times of India 
  15. "Sena, Bajrang Dal act spoilers on Valentine's Day"। Rediff.com। 31 December 2004। সংগৃহীত 2012-11-26 
  16. "Bajrang Dal protests against Valentine's Day"The Hindu (Chennai, India)। 15 February 2008। 
  17. Bajrang Dal plotted ‘revenge blasts’ in Kanpur: UP police Indian Express – 28 August 2008
  18. Christians: The Sangh Parivar's new target The Economic Times – 20 September 2008
  19. Bajrang Dal activists threaten couples celebrating Valentine's Day in Kanpur DailyIndia.com – 14 February 2011
  20. Barbara Larkin। Annual Report on International Religious Freedom 2000। পৃ: 508। আইএসবিএন 0-7567-1229-7 
  21. Human Rights Watch World Report 2000Human Rights Watch। পৃ: 188। আইএসবিএন 1-56432-238-6 
  22. Paul R. Brass (1997)। Theft of an Idol: Text and Context in the Representation of Collective ViolencePrinceton University Press। পৃ: 17। আইএসবিএন 0-691-02650-5 
  23. Bajrang deaf to BJP sermon The Telegraph, Calcutta – 3 October 2008
  24. Cong demands white paper on Bajrang Dal, VHP
  25. Muslim cleric demands ban on Bajrang Dal
  26. Call for immediate ban on Bajrang Dal, VHP
  27. LJP demands ban on Bajrang Dal, VHP
  28. Gowda, Maya demand ban on Bajrang Dal The Times of India, 22 September 2008
  29. Paswan seeks ban on Bajrang Dal, VHP The Hindu, 20 September 2008
  30. Congress seeks ban on VHP, Bajrang Dal Sify News, 20 September 2008