পিসিফর্মিস

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
পিসিফর্মিস/Piciformes
পুরুষ লালপেট কাঠঠোকরা
(Melanerpes carolinus)
বৈজ্ঞানিক শ্রেণীবিন্যাস
জগৎ/রাজ্য: Animalia
পর্ব: Chordata
শ্রেণী: Aves
উপ-শ্রেণী: Neornithes
Infraclass: Neognathae
মহাবর্গ: Neoaves
বর্গ: Piciformes
Meyer & Wolf, 1810
উপবর্গগোত্র

গ্যালবুলি

  • বুক্কনিডি
  • গ্যালবুলিডি

পিসি

প্রতিশব্দ

গ্যালবুলিফর্মিস

পিসিফর্মিস বর্গটি মোট নয়টি গোত্র নিয়ে গঠিত। এ বর্গের পাখিগুলো মূলত বৃক্ষচর। কাঠঠোকরা আর তার নিকটতম আত্মীয়দের নিয়ে গঠিত গোত্র পিসিডি এ বর্গের সবচেয়ে উল্লেখযোগ্য গোত্র। পিসিফর্মিস বর্গে প্রায় ৬৭টি গণে মোট ৪০০ প্রজাতির পাখি রয়েছে। এর মধ্যে অর্ধেক প্রজাতিই পিসিডি গোত্রের অন্তর্ভূক্ত।[১] অ্যান্টার্কটিকাঅস্ট্রেলিয়া ছাড়া প্রায় সব মহাদেশেই এদের দেখা যায়।

পিসিফর্মিস বর্গের অধিকাংশ প্রজাতিই পতঙ্গভূক। তবে টুক্যানবসন্তবৌরিরা প্রধানত ফলাহারী। পক্ষীজগতে মোম খাওয়া ও হজম করার ব্যাপারে হানিগাইডরা অনন্য (অবশ্য পোকামাকড়ই এদের মূল খাদ্য)। টিয়ার মত প্রায় সব পিসিফর্মের পা জাইগোডাক্টাইল, অর্থাৎ দু'টি আঙুল সম্মুখে ও দু'টি আঙুল পেছন দিকে মুখ করে থাকে। পায়ের এ বিশেষ গঠন গাছে চড়া ও চলাফেরার ক্ষেত্রে এদের বিশেষ সুবিধা দেয়। তবে কিছু প্রজাতির কাঠঠোকরার তিনটি আঙুল থাকে। জ্যাকামার ছাড়া সকল পিসিফর্মের জীবনের কোন পর্যায়েই ডাউন পালক থাকে না। এ বর্গের সবচেয়ে ছোট প্রজাতিটি হল লালচে কুটিকুড়ালি (দৈর্ঘ্য মাত্র আট সেন্টিমিটার, ওজনে সাত গ্রাম) আর সবচেয়ে বড় প্রজাতি টোকো টুক্যান (দৈর্ঘ্য ৬৩ সেন্টিমিটার, ওজনে ৬৮০ গ্রাম)[২] সব পিসিফর্ম গর্তে বাসা করে।

গোত্রসমূহ[সম্পাদনা]

বর্গ: পিসিফর্মিস

  • উপবর্গ গ্যালবুলি
    • গোত্র গ্যালবুলিডি – জ্যাকামার (১৮টি প্রজাতি)
    • গোত্র বুক্কনিডি – পাফবার্ড, নানবার্ড ও নানলেট (প্রায় ৩০টি প্রজাতি)
  • উপবর্গ পিসি
    • গোত্র লিবিডি – আফ্রিকান বসন্তবৌরি (প্রায় ৪০টি প্রজাতি, ক্যাপিটোনিডি থেকে সম্প্রতি আলাদা করা হয়েছে)
    • গোত্র মেগালাইমিডি – এশীয় বসন্তবৌরি (প্রায় ২৫টি প্রজাতি, ক্যাপিটোনিডি থেকে সম্প্রতি আলাদা করা হয়েছে)
    • গোত্র র‍্যাম্ফাস্টিডি – টুক্যান (প্রায় ৩০টি প্রজাতি)
    • গোত্র সেমনর্নিথিডি – টুক্যান-বসন্তবৌরি (২টি প্রজাতি, ক্যাপিটোনিডি থেকে সম্প্রতি আলাদা করা হয়েছে)
    • গোত্র ক্যাপিটোনিডি – আমেরিকান বসন্তবৌরি (প্রায় ১৫টি প্রজাতি)
    • গোত্র মায়োপিকোনিডি (জীবাশ্ম)
    • গোত্র পিকাভিডি (জীবাশ্ম)
    • গোত্র পিসিডি – কাঠঠোকরা, কাঠকুড়ালি, কুটিকুড়ালি ও ঘাড়ব্যাথা (দুইশ'রও বেশি প্রজাতি)
    • গোত্র ইন্ডিকেটরিডি – হানিগাইড (১৭টি প্রজাতি)

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. Lester L. Short। "Piciform"। Encyclopaedia Britannica। সংগৃহীত 28 সেপ্টেম্বর 2013 
  2. Short, Lester L. (1991)। Forshaw, Joseph, সম্পাদক। Encyclopaedia of Animals: Birds। London: Merehurst Press। পৃ: 152–157। আইএসবিএন 1-85391-186-0 

আরও পড়ুন[সম্পাদনা]

  • Gorman, Gerard (2004): Woodpeckers of Europe: A Study of the European Picidae. Bruce Coleman, UK. ISBN 1-872842-05-4.

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]