পাকড়া ঝাড়ফিদ্দা

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
পাকড়া ঝাড়ফিদ্দা
Pied bushchat fem.jpg
Female of burmanicus
সংরক্ষণ অবস্থা
বৈজ্ঞানিক শ্রেণীবিন্যাস
জগৎ/রাজ্য: Animalia
পর্ব: Chordata
শ্রেণী: Aves
বর্গ: Passeriformes
পরিবার: Muscicapidae
গণ: Saxicola
প্রজাতি: S. caprata
দ্বিপদী নাম
Saxicola caprata
Linnaeus, 1766
প্রতিশব্দ

Pratincola caprata

পাকড়া ঝাড়ফিদ্দা (বৈজ্ঞানিক নাম: Saxicola caprata); (ইংরেজি: Pied Bush Chat) কালো ও সাদা পালকের দুর্লভ পাখি। বাংলাদেশ ছাড়া ভারত, ভুটান, মিয়ানমার, থাইল্যান্ড, চীন, তিব্বত, জাপান, এবং রাশিয়ায় এ পাখি দেখা যায়।[২]

বিচরণ[সম্পাদনা]

Female of race bicolor, India

সাধারণত উঁচু ঘাসবন, বিচ্ছিন্ন ঝোপসহ খোলা মাঠ, পাহাড়ের পাদদেশ, জলের ধারের আবাদি জমিতে এ পাখি বিচরণ করে।[২]

স্বভাব[সম্পাদনা]

একাকী থাকে বেশি সময়। একাকী পুরুষ পাখি বিরতি দিয়ে একটানা অনেকক্ষণ ডাকাডাকি করে। ডাকের ধরন চ্যাপ-চ্যাপ-ট্রিউয়ি। তবে প্রজনন মৌসুমে হুয়িট-হুয়িট-টিটি-হুয়ি..টিয়্যার-টিউহু সুরে ডাকে।[২]

আকার[সম্পাদনা]

এটি পোকাশিকারি ছোট পাখি। দেহের দৈর্ঘ্য ১৩ সেন্টিমিটার, ওজন ১৫ গ্রাম। পুরুষ ও স্ত্রী পাখি দেখতে অভিন্ন। প্রাপ্তবয়স্ক পুরুষ পাখির দেহ কালো বর্ণের পালকে আবৃত থাকে। ডানার প্রান্ত, পেট ও কোমরের পালক সাদা বর্ণের। স্ত্রী পাখির পিঠের দিকটা কালচে বাদামি, দেহের নিচের দিক লালচে বাদামি। ডানার প্রান্তদেশ পীতাভ। কোমর উজ্জ্বল লালচে-কমলা পালকে আবৃত। লেজ কালো ও গলা ফিকে। উভয় পাখির চোখ কালচে বাদামি, ঠোঁট কালচে। পা, পায়ের পাতা ও নখর কালো।[২]

প্রজননকাল[সম্পাদনা]

প্রজননকাল মার্চ-আগস্ট মাসে। ভূমিতে ঘাসের গোছার নিচে, আইলের গর্তে বাসা বানিয়ে ডিম পাড়ে। ডিমগুলো ফিকে নীল, সংখ্যায় তিন-পাঁচটি। প্রধানত স্ত্রী পাখি ডিমে তা দেয়, ডিম ফুটে ছানা আসে ১২ থেকে ১৩ দিনে।[২]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. BirdLife International (2012)। "Saxicola caprata"IUCN Red List of Threatened Species. Version 2012.1International Union for Conservation of Nature। সংগৃহীত 16 July 2012 
  2. ২.০ ২.১ ২.২ ২.৩ ২.৪ পাকড়া ঝাড়ফিদ্দা,সৌরভ মাহমুদ, দৈনিক প্রথম আলো। ঢাকা থেকে প্রকাশের তারিখ: ১৫-১১-২০১২ খ্রিস্টাব্দ।

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]