পশ্চিম সিক্কিম জেলা

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
পশ্চিম সিক্কিম
पश्चिम सिक्किम
জেলা
Ruins
রাবদেনসে রাজপ্রাসাদ
সিক্কিম রাজ্যে পশ্চিম সিক্কিম জেলার অবস্থান
স্থানাঙ্ক: ২৭°১৭′ উত্তর ৮৮°১৫′ পূর্ব / ২৭.২৮৩° উত্তর ৮৮.২৫০° পূর্ব / 27.283; 88.250স্থানাঙ্ক: ২৭°১৭′ উত্তর ৮৮°১৫′ পূর্ব / ২৭.২৮৩° উত্তর ৮৮.২৫০° পূর্ব / 27.283; 88.250
রাজ্য সিক্কিম
দেশ ভারত
আসন গেজিং
আয়তন
 • মোট
জনসংখ্যা (২০১১)
সময় অঞ্চল ভারতীয় সময় (ইউটিসি+০৫:৩০)
আইএসও ৩১৬৬ কোড IN-SK-WS
ওয়েবসাইট http://wsikkim.gov.in
Chortens
রাবেনসের তিনটি চোর্টেন
থাংসিং-এর কাছে হিমবাহ উপত্যকা

জেলার দৃশ্য

পশ্চিম সিক্কিম জেলা হল ভারতের সিক্কিম রাজ্যের একটি জেলা। এই জেলার সদর শহর গেজিং। উচ্চ পার্বত্য অঞ্চলে অবস্থানের জন্য এই জেলা ট্রেকিং-এর জন্য বিশেষ প্রসিদ্ধ। পেলিংজোরথাং এই জেলার অপর দুটি প্রধান শহর।

ইতিহাস[সম্পাদনা]

সিক্কিমের প্রাচীন রাজধানী ইউকসোম এই জেলায় অবস্থিত। ১৬৪২ সাল থেকে ৫০ বছর এই শহর ছিল সিক্কিমের রাজধানী। তারপর রাজধানী স্থানান্তরিত হয় রাবতেনস শহরে। অষ্টাদশ ও উনবিংশ শতাব্দীতে এই জেলা নেপালের অধীনে ছিল। গোর্খা যুদ্ধের পর এই জেলা সিক্কিমের হাতে আবার ফিরে আসে।

ভূগোল[সম্পাদনা]

পশ্চিম সিক্কিম জেলায় আয়তন ১১৬৬ বর্গ কিলোমিটার। খেচেওপেরি হ্রদ এই জেলার অন্যতম আকর্ষণ। এছাড়া রাজ্যের প্রথম মঠ ডুবডি মঠও এই জেলায় অবস্থিত। কাঞ্চনজঙ্ঘা জাতীয় উদ্যানের অংশবিশেষও এই জেলায় অবস্থিত।

অর্থনীতি[সম্পাদনা]

এই জেলার অর্থনীতির প্রধান ভিত্তি কৃষি। তবে জেলার অধিকাংশ অঞ্চলেই খাড়া ও পাথুরে ঢাল থাকার জন্য কৃষিকাজের পক্ষে অনুপযুক্ত।

পরিষেবা[সম্পাদনা]

এই জেলায় বেশ কয়েকটি বিদ্যুৎকেন্দ্র থাকায় নিরবিচ্ছিন্ন বৈদ্যুতিক সংযোগের সুবিধা ভোগ করে থাকে। ঘন ঘন ধস নামার ফলে এখানকার রাস্তাঘাটের অবস্থা ভাল নয়।

জনপরিসংখ্যান[সম্পাদনা]

২০১১ সালের জনগণনা অনুসারে, পশ্চিম সিক্কিম জেলার জনসংখ্যা ১৩৬,২৯৯।[১] এই জনসংখ্যা গ্রেনাডার প্রায় সমান।[২] এটি ভারতের ৬৪০টি জেলার মধ্যে জনসংখ্যার বিচারে ৬০৮তম।[১] জেলার জনঘনত্ব প্রতি বর্গকিলোমিটারে ১১৭ জন।[১] ২০০১-২০১১ দশকে এখানে দশকীয় জনসংখ্যা বৃদ্ধির হার ১০.৫৮%।[১] পশ্চিম সিক্কিমের লিঙ্গানুপাত প্রতি ১০০০ পুরুষে ৯৪১ জন।[১] এই জেলার সাক্ষরতার হার ৭৮.৬৯%।[১]

সিক্কিমের অধিবাসীরা মূলত নেপালি বংশোদ্ভুত। এছাড়া লেপচা ও ভুটিয়া উপজাতির মানুষেরাও বাস করেন। জেলার প্রধান ভাষা হল নেপালি

উদ্ভিদ ও প্রাণী[সম্পাদনা]

এই জেলায় বিভিন্ন ধরনের উদ্ভিদ ও প্রাণী দেখা যায়। পার্বত্য অঞ্চল হওয়ার জন্য এই জেলার আবহাওয়া শীতল। ৩,৮০০ মিটারের (১২,০০০ ফুট) উপরে পাহাড়ের ঢালগুলি রডোডেনড্রন বনে ভর্তি।

১৯৭৭ সালে পশ্চিম সিক্কিম জেলায় কাঞ্চনজঙ্ঘা জাতীয় উদ্যান স্থাপন করা হয়। এই জাতীয় উদ্যানের আয়তন ১,৭৮৪ কিমি (৬৮৮.৮ মা)।[৩] এই জাতীয় উদ্যানের কিছু অংশ উত্তর সিক্কিম জেলাতে অবস্থিত।[৩]

বিভাগ[সম্পাদনা]

প্রশাসনিক বিভাগ[সম্পাদনা]

পশ্চিম সিক্কিম জেলা দুটি মহকুমায় বিভক্ত:[৪]

নাম সদর গ্রামের সংখ্যা[৫] অবস্থান
গ্যালশিং গ্যালশিং
West Sikkim Subdivisions Gyalshing.png
সোরেং সোরেং
West Sikkim Subdivisions Sorreng.png

পাদটীকা[সম্পাদনা]

  1. ১.০ ১.১ ১.২ ১.৩ ১.৪ ১.৫ "District Census 2011"। Census2011.co.in। 2011। সংগৃহীত 2011-09-30 
  2. US Directorate of Intelligence। "Country Comparison:Population"। সংগৃহীত 2011-10-01। "Grenada 108,419 July 2011 est." 
  3. ৩.০ ৩.১ Indian Ministry of Forests and Environment। "Protected areas: Sikkim"। সংগৃহীত September 25, 2011 
  4. The Registrar General & Census Commissioner, India, New Delhi, Ministry of Home Affairs, Government of India (2011) (in English) (PDF). Sikkim Administrative Divisions (মানচিত্র). http://censusindia.gov.in/2011census/maps/administrative_maps/SIKIM.pdf। সংগৃহীত হয়েছে 2011-09-29.
  5. "MDDS e-Governance Code (Sikkim Rural)" (PDF)। Office of the Registrar General & Census Commissioner, India। 2011। সংগৃহীত 2011-10-15 

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]

উইকিভ্রমণে West Sikkim সম্পর্কিত ভ্রমণ নির্দেশিকা রয়েছে।