নীলবনলতা

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
(নীল বনলতা থেকে পুনর্নির্দেশিত)
নীল বনলতা
Thunbergia grandiflora
Thunbergia grandiflora Blanco1.229-cropped.jpg
বৈজ্ঞানিক শ্রেণীবিন্যাস
জগৎ/রাজ্য: Plantae
(শ্রেণীবিহীন): Angiosperms
(শ্রেণীবিহীন): Eudicots
(শ্রেণীবিহীন): Asterids
বর্গ: Lamiales
পরিবার: Acanthaceae
গণ: Thunbergia
প্রজাতি: T. grandiflora
দ্বিপদী নাম
Thunbergia grandiflora
(Roxb. ex Rottler) Roxb.[১]
প্রতিশব্দ

Flemingia grandiflora Roxb. ex Rottler

নীলবনলতা (বৈজ্ঞানিক নাম:Thunbergia grandiflora) হচ্ছে Acanthaceae পরিবারের একটি লতা

উৎপত্তিস্তান[সম্পাদনা]

এটি মূলত নেপাল, চীন, ইন্দোচীন, মায়ানমারঅসমের স্থানীয় প্রজাতি। এটি অন্যত্রও প্রাকৃতিক হয়েছে।[২]

আকার[সম্পাদনা]

নীলবনলতা শক্ত লতার গাছ। সাধারণত ৮-১০ মিটার পর্যন্ত লম্বা হতে পারে। পাতারা প্রতিমুখ এবং সবৃন্তক। পত্রবৃন্ত ২.৫-৪ সেমি লম্বা ও কর্কশ হয়, পাতার গোড়া তাম্বুলাকার, পাতার উভয়দিক অমসৃণ, করতলাকারে ৫-৭টি শিরাযুক্ত, পাতার বোঁটা মোড়ানো ধরনের, আগা চোখা, পাতারা ১০ সেন্টিমিটারের মতো লম্বা হয়ে থাকে। পাতার কিনারে লতি হয়।[৩]

ফুল[সম্পাদনা]

ফুল লম্বা ঝুলন্ত ডাঁটায় এক বা একাধিক। ফুল দেখতে ঘণ্টার গড়ন, দলনল সামান্য বাঁকা। পাপড়ি পাঁচটি। পাপড়ির রঙ হালকা নীল। পাপড়ি ৬ সেমি লম্বা।[৩] পুংকেশর ৪টি, অর্ধসমান, গলদেশের অভ্যন্তরের দিক বাঁকানো, পরাগধানী ৫-৯ মিলিমিটার লম্বা ও দীর্ঘায়িত। মার্চ হতে ডিসেম্বর মাস ফুল ফোঁটার সময়। ফল শক্ত ধরনের, ফল ৩-৫ সেমি দীর্ঘ হয়ে থাকে। মালয়েশিয়ায় এ গাছের পাতার ক্বাথ পেটের পীড়ায় কাজে লাগে। বংশবিস্তার বীজ ও কলমে। বাগানের চারদিকে আলংকারিক বেড়া হিসেবে দৃষ্টিনন্দন।[৪]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. "Thunbergia grandiflora"Australian Plant Name Index (APNI), IBIS database। Centre for Plant Biodiversity Research, Australian Government, Canberra। সংগৃহীত 8 January 2013 
  2. "Taxon: Thunbergia grandiflora Roxb."Germplasm Resources Information Network (GRIN)। United States Department of Agriculture, Agricultural Research Service, Beltsville Area। সংগৃহীত 8 January 2013 
  3. ৩.০ ৩.১ দ্বিজেন শর্মা, ফুলগুলি যেন কথা, বাংলা একাডেমী, ঢাকা, ডিসেম্বর ২০০৩, পৃষ্ঠা-৭৫।
  4. নীল বনলতা, মোকারম হোসেন, দৈনিক প্রথম আলো। ঢাকা থেকে প্রকাশের তারিখ: ১৭-০৫-২০১২ খ্রিস্টাব্দ।

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]