নিযামুল মুলক

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
মাশহাদে অবস্থিত নিযামুল মুলকের স্মৃতিসৌধ

আবু আলী আল-হাসান আল তুসি নিযাম উল-মুলক (১০১৮-১০৯২), খাজা নিযামুল মুলক নামে অধিক পরিচিত (ফার্সি - خواجه نظام‌الملک طوسی - খাজা নিযামুল মুলক আল-তুসী) ছিলেন পারস্যের পন্ডিত[১][২] এবং সেলজুক সাম্রাজ্যের উজির। অল্পকালের জন্য তিনি সেলজুক সাম্রাজ্যের শাসক হিসেবেও অধিষ্ঠিত ছিলেন।

জীবনী[সম্পাদনা]

নিযামুল মুলক তুস নগরে জন্মগ্রহণ করেন। প্রথমদিকে গজনবী সুলতানের অধীনে চাকরি করেন। ১০৫৯ সালে তিনি খোরাসানের প্রধান শাসক হন।

১০৬৩ সাল থেকে তিনি সেলজুকদের উজির হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন। আল্প আরসালান (১০৬৩-১০৭২) ও ১ম মালিক শাহের (১০৭২-১০৯২) রাজত্বকাল পর্যন্ত তিনি এই পদে ছিলেন। সেলজুক সাম্রাজ্যের সরকারী ব্যবস্থাপনায় তিনি বেশ প্রভাব রেখে যান যার ফলে তিনি “নিযামুল মুলক” উপাধী লাভ করেন। এর অর্থ “রাজ্যের শৃঙ্খলা”। বিরোধীদের বিরুদ্ধে আব্বাসীয়সেলজুকদের মধ্যকার রাজনৈতিক দূরত্ব দূর করতে তিনি গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করেন। এই বিরোধীদের মধ্যে ফাতিমীয়বুইয়িরা ছিল।

উজিরের দায়িত্ব পালনের পাশাপাশি তিনি উচ্চশিক্ষার জন্য বেশ কিছু শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান স্থাপন করেন। এগুলোর মধ্যে নিযামিয়া অন্যতম। এগুলো তার নামে নামকরণ করা হয়। বিভিন্ন ক্ষেত্রে এই শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানগুলো বিভিন্ন ক্ষেত্রে ইউরোপে প্রতিষ্ঠিত বিশ্ববিদ্যালয়গুলোর পূর্বসূরি ও আদর্শরূপে পরিণত হয়।

রাজত্বের উপর লিখিত তার সিয়াস্তানামা গ্রন্থটির জন্যও তিনি খ্যাত। দাস্তুর আল-উজারা নামক বইটিও তিনি লেখেন। এটি তিনি তার পুত্র আবুলফাতেহ ফখর-উল-মালেকের জন্য জন্য লেখেন। বইটি বিখ্যাত গ্রন্থ কাবুস নামার মতই।

৪৮৫ হিজরির ১০ রমজান (১৪ অক্টোবর ১০৯২ খ্রিষ্টাব্দ) ইসফাহান থেকে বাগদাদ যাওয়ার পথে আততায়ীর হাতে তিনি নিহত হন। বিভিন্ন মৌলিক সূত্রমতে অ্যাসাসিনরা তাকে হত্যা করে। ঘাতক দরবেশের ছদ্মবেশে তার দিকে অগ্রসর হয়।[৩]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. Gustave E. Von Grunebaum, Katherine Watson, Classical Islam: A History, 600 A.D. to 1258 A.D., Translated by Katherine Watson Published by Aldine Transaction, 2005. page 155
  2. Holt, P. M.; Ann K. S. Lambton, Bernard Lewis (1977)। The Cambridge History of Islam Volume 1। Cambridge University Press। পৃ: 150।  |coauthors= প্যারামিটার অজানা, উপেক্ষা করুন (সাহায্য)
  3. Waterson, James, The Ismaili Assassins. A history of medieval murder (Yorkshire, 2008) 79

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]