নাইটউইশ

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
নাইটউইশ
Nightwish-Melbourne-2008.jpg
নাইটউইশ অস্ট্রেলিয়ার মেলবোর্নে ২০০৮ সালে
প্রাথমিক তথ্যাদি
উদ্ভব কিটিই, ফিনল্যান্ড
ধরন সিম্ফোনিক মেটাল, পাওয়ার মেটাল, গোথিক মেটাল
কার্যকাল ১৯৯৬ – বর্তমান
লেবেল স্পাইন ফার্ম রেকর্ডস, নিউক্লিয়ার ব্ল্যাস্ট রেকর্ডস, রোডরানার রেকর্ডস, , সেঞ্চুরি মিডিয়া
ওয়েবসাইট www.nightwish.com
সদস্যবৃন্দ অ্যানেত্তে অলজোন
টমাস হলোপেইনেন
মারকো হাইতালা
এম্পু ভিরনেন
জুক্কা নেভালাইনেন
প্রাক্তন সদস্যবৃন্দ টারজা টুরুনেন
সামি ভান্সকা

নাইটউইশ ফিনল্যান্ডের একটি সিম্ফোনিক পাওয়ার মেটাল ব্যান্ড ১৯৯৬ সালে যা গিটারিস্ট এম্পু ভিরনেন ,সাবেক ভোকাল টারজা টুরুনেন, কি-বোর্ডিস্ট টমাস হলোপেইনেনের মাধ্যমে গঠিত হয়। ব্যান্ডটি প্রায় ১৫ মিলিয়নের মতো অ্যালবাম, ডিভিডি ও অনলাইন সামগ্রী বিক্রি করেন। ১৯৯৭ সালে প্রকাশিত তাদের একক গান দ্যা কার্পেন্টার ও তাদের প্রথম অ্যালবাম অ্যাঞ্জেলস ফল ফার্স্ট জন্য তারা তাদের নিজ দেশে বিখ্যাত ছিল, কিন্তু তারা সারা পৃথিবীতে খ্যাতি পায় ওসেনবর্ন, উইশমাস্টার ও সেঞ্চুরি চাইল্ড অ্যালবামের জন্য যা ১৯৯৮, ২০০০ ও ২০০২ সালে প্রকাশিত হয়। ২০০৪ সালের অ্যালবাম ওয়ান্স ১.২ মিলিয়ন কপি বিক্রি হয়[১] ও আমেরিকার এমটিভিতে তাদের গান প্রচারিত হয়। একক গান উইশ আই হ্যাড অ্যাঞ্জেল আমেরিকান সিনেমার সাউন্ডট্র্যাক হিসেবে প্রকাশিত হয়।[২] ভোকাল টুরুনেনের পরিবর্তে ২০০৭ সালের মে মাসে দলে যোগ দেন অ্যানেত্তে অলজোন যিনি আগে অ্যালিসন অ্যাভেনিউ নামের একটি সুইডিশ ব্যান্ডের ভোকাল ছিলেন।[৩] সেই বছরের শরৎকালে তাদের ডার্ক প্যাসন প্লে নামের অ্যালবাম বের হয় ও তা সারা বিশ্বে ১.৫ মিলিয়ন কপি বিক্রি হয়।

বর্তমান সদস্য[সম্পাদনা]

ডিস্কোগ্রাফি[সম্পাদনা]

২০০৮ সালে মেলবোর্নে নাইটউইশ
  • অ্যাঞ্জেলস ফল ফার্স্ট (১৯৯৭)
  • ওসেনবর্ন (১৯৯৮)
  • উইশমাস্টার (২০০০)
  • ওভার দ্যা হিলস এ্যান্ড ফার অ্যাওয়ে (ইপি)(২০০১)
  • সেঞ্চুরি চাইল্ড(২০০২)
  • ওয়ান্স (২০০৪)
  • ডার্ক প্যাসন প্লে (২০০৭)
  • সপ্তম স্টুডিও অ্যালবাম (২০১০/২০১১)

আরো পড়ুন[সম্পাদনা]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. http://www.spinefarm.fi/showband.php?id=1
  2. [১] 1743752/
  3. http://www.roadrunnerrecords.com/blabbermouth.net/news.aspx?mode=Article&newsitemID=73176

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]