ধাম্মিকা প্রসাদ

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
ধাম্মিকা প্রসাদ
Dammika prasad.jpg
ব্যক্তিগত তথ্য
পূর্ণ নাম কারিয়াওয়াসাম তিরানা গামাগে ধাম্মিকা প্রসাদ
জন্ম (১৯৮৩-০৫-৩০) ৩০ মে ১৯৮৩ (বয়স ৩১)
রাগামা, শ্রীলঙ্কা
উচ্চতা ৬ ফুট ১ ইঞ্চি (১.৮৫ মিটার)
ব্যাটিংয়ের ধরণ ডানহাতি
বোলিংয়ের ধরণ ডানহাতি ফাস্ট-মিডিয়াম
ভূমিকা বোলার
আন্তর্জাতিক তথ্য
জাতীয় পার্শ্ব
টেস্ট অভিষেক (ক্যাপ ১১০) ৮ আগস্ট ২০০৮ বনাম ভারত
শেষ টেস্ট ৩ জানুয়ারি ২০১৩ বনাম অস্ট্রেলিয়া
ওডিআই অভিষেক (ক্যাপ ১৩০) ২৫ ফেব্রুয়ারি ২০০৬ বনাম বাংলাদেশ
শেষ ওডিআই ৪ মার্চ ২০১২ বনাম অস্ট্রেলিয়া
ঘরোয়া দলের তথ্য
বছর দল
২০০২/০৩-বর্তমান সিংহলীজ স্পোর্টস ক্লাব
বাসনাহিরা নর্থ
কর্মজীবনের পরিসংখ্যান
প্রতিযোগিতা টেস্ট ওডিআই এফসি লিস্ট এ
ম্যাচ সংখ্যা ১২ ১২ ৮৮ ৭০
রানের সংখ্যা ২৭৫ ৬৩ ১,৮০২ ৩৫০
ব্যাটিং গড় ১৮.৩৩ ২১.০০ ২০.৭১ ১২.৯৬
১০০/৫০ ০/০ ০/০ ১/৭ ০/০
সর্বোচ্চ রান ৪৭ ৩১* ১০৩* ৩১*
বল করেছে ১,৮২০ ৫৪১ ১০,৭৯৫ ২,৯৩৯
উইকেট ২২ ১৮ ২৩৭ ৮৬
বোলিং গড় ৫৯.০০ ২৭.৬১ ২৮.৯৮ ২৭.৭৫
ইনিংসে ৫ উইকেট
ম্যাচে ১০ উইকেট n/a n/a
সেরা বোলিং ৩/৮২ ৩/১৭ ৬/২৫ ৪/৩৯
ক্যাচ/স্ট্যাম্পিং ৫/– ০/– ২৪/– ১২/–
উত্স: ক্রিকইনফো, ১২ আগস্ট ২০১৩

কারিয়াওয়াসাম তিরানা গামাগে ধাম্মিকা প্রসাদ (তামিল: தம்மிக பிரசாத்; জন্ম: ৩০ মে, ১৯৮৩) শ্রীলঙ্কার রাগামা এলাকায় জন্মগ্রহণকারী বিশিষ্ট ক্রিকেটারআন্তর্জাতিক ক্রিকেট অঙ্গনে তিনি ধাম্মিকা প্রসাদ নামেই অধিক পরিচিত। শ্রীলঙ্কা জাতীয় ক্রিকেট দলের অন্যতম সদস্য ধাম্মিকা টেস্ট ক্রিকেট, একদিনের আন্তর্জাতিক এবং টুয়েন্টি২০ আন্তর্জাতিকে খেলছেন। এছাড়াও তিনি ঘরোয়া ক্রিকেটে সিংহলীজ স্পোর্টস ক্লাব ও বাসনাহিরা নর্থ দলের সদস্য।[১] খেলায় তিনি মূলতঃ ডানহাতি ফাস্ট মিডিয়াম বোলিং করে থাকেন।

খেলোয়াড়ী জীবন[সম্পাদনা]

কানডানা এলাকায় অবস্থিত ডি ম্যাজনোড কলেজের প্রাক্তন ছাত্র ছিলেন ধাম্মিকা প্রসাদ। ঐ সময়েই শীর্ষসারির ব্যাটসম্যান হিসেবে ক্রিকেট খেলায় অংশগ্রহণ করতেন তিনি। কিন্তু ২০০২ সালের আইসিসি অনূর্ধ্ব-১৯ ক্রিকেট বিশ্বকাপে তিনি ফাস্ট বোলার হিসেবে মনোনীত হয়েছিলেন। ঘরোয়া প্রথম-শ্রেণীর ক্রিকেটে প্রতি উইকেট গ্রহণে ২৩ রানেরও কম দেয়ায় ফেব্রুয়ারি, ২০০৬ সালে বাংলাদশ সফরে শ্রীলঙ্কার ওডিআই এবং টেস্ট দলে ডাক পান।[২] চট্টগ্রামের জহুর আহমেদ চৌধুরী স্টেডিয়ামে অনুষ্ঠিত একদিনের আন্তর্জাতিকে তার অভিষেক ঘটে ও তিনি ২৯ রানের বিনিময়ে ২ উইকেট গ্রহণ করেন। খেলার তার দল বাংলাদেশের বিপক্ষে ৭৮ রানের জয় পায়।[১][৩]

কিন্তু পিঠের আঘাতপ্রাপ্তির দরুণ আন্তর্জাতিক ক্রীড়াঙ্গনে অংশগ্রহণ ব্যাহত হয়। আগস্ট, ২০০৮ সাল পর্যন্ত তাকে টেস্ট অভিষেকের জন্য অপেক্ষা করতে হয়। ২০০৮ সালে ভারত ক্রিকেট দলের শ্রীলঙ্কা সফরের সময় ৩য় টেস্টে অভিষেক ঘটে তার। অভিষেক টেস্টের উভয় ইনিংস মিলিয়ে তিনি পাঁচ উইকেট লাভ করেন। তন্মধ্যে তার প্রিয় খেলোয়াড় সচিন তেন্ডুলকর, রাহুল দ্রাবিড় এবং বিরেন্দর শেওয়াগকে আউট করেছিলেন।[৪][৫]

২০০৮-০৯ মৌসুমে বাংলাদেশ সফরে তিনি চার উইকেট লাভ করেন। কিন্তু ডিসেম্বর, ২০০৮ সালে দ্বিতীয় টেস্ট খেলা থেকে বাদ পড়েন।[৬][৭] ২০০৯ সালে স্বদেশে অনুষ্ঠিত নিউজিল্যান্ড দলের বিপক্ষে অনুষ্ঠিত ২য় টেস্টে অংশগ্রহণ করলেও ২০০৯-১০ মৌসুমে ভারত সফরের প্রথম টেস্টে আঘাতপ্রাপ্ত ঘটে।[৮] ২০১০ সালে ভারত ও পরবর্তীতে ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে অনুষ্ঠিত টেস্টে অংশগ্রহণ করলেও কোন উইকেট লাভ করতে পারেননি তিনি।[৯]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. ১.০ ১.১ "Dhammika Prasad: Sri Lanka"ESPNcricinfo। সংগৃহীত 31 December 2011 
  2. Sa'adi Thawfeeq (16 February 2006)। "Pace rookie Prasad only newcomer for Bangladesh"Daily News (Sri Lanka)। সংগৃহীত 31 December 2011 
  3. "Sri Lanka tour of Bangladesh, 2005/06: 3rd ODI – scorecard"ESPNcricinfo। সংগৃহীত 31 December 2011 
  4. "Sachin's wicket was special: Prasad"। Sify Sports। 8 August 2008। সংগৃহীত 31 December 2011 
  5. "India tour of Sri Lanka, 2008 – 3rd Test: scorecard"ESPNcricinfo। সংগৃহীত 31 December 2011 
  6. "Sri Lanka tour of Bangladesh, 2008/09 – 1st Test: scorecard"ESPNcricinfo। সংগৃহীত 31 December 2011 
  7. "Sri Lanka wins toss, bats vs. Bangladesh"The Hindu। 3 January 2009। সংগৃহীত 31 December 2011 
  8. "Prasad out of second Test"। Sport24। 23 November 2009। সংগৃহীত 1 January 2012 
  9. "Statistics / Statsguru / KTGD Prasad / Test matches"ESPNcricinfo। সংগৃহীত 1 January 2012 

আরও দেখুন[সম্পাদনা]

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]