টর্ক

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
চিরায়ত বলবিদ্যা
\mathbf{F} = \frac{\mathrm{d}}{\mathrm{d}t}(m \mathbf{v})
নিউটনের দ্বিতীয় সূত্র
চিরায়ত বলবিদ্যার ইতিহাস
F, r, τ এর মধ্যে সম্পর্ক, তীর চিহ্ন দ্বারা এদের দিক প্রকাশ করা হয়েছে

টর্ক (ইংরেজি: Torque) বা বলের ভ্রামক বলতে একটি বস্তুকে কোন বল কোন অক্ষ,অবলম্বন বা পিভটের চারদিকে ঘোরানোর প্রবনতা বোঝায়। বল দ্বারা যেমন ধাক্কা বা টান বোঝায় তেমনি টর্ক বলতে অক্ষের চারদিকে কোন বস্তুর ঘূর্নন প্রবনতা বোঝানো হয়ে থাকে।গাণিতিকভাবে টর্ক হল কোন অক্ষের সাপেক্ষে ঘূর্ননশীল বস্তুর উপর ক্রিয়ারত বল এবং অক্ষ থেকে ঐ বস্তুর দুরত্তের ভেক্টর গুনফল।

সহজভাবে বলতে গেলে টর্ক দ্বারা কোন অক্ষের চারদিকে কোন বস্তুর ঘূর্নন প্রবনতার পরিমাপ বোঝানো হয়ে থাকে।ঊদাহরনস্বরুপ, কোন যন্ত্রে আটকানো একটি নাট বা বল্টু খুলতে হলে তাতে রেঞ্চ আটকিয়ে এর ঘোরানোর সময় রেঞ্চের হাতলে টর্ক সৃষ্টি হয়।

টর্ককে সাধারনত গ্রীক অক্ষর τ (টাউ) দ্বারা সূচিত করা হয়। তবে যখন এটিকে ভ্রামক বা বলের ভ্রামক হিসেবে বর্ননা করা হয় তখন এটিকে M দ্বারা সূচিত করা হয়ে থাকে।

টর্কের মান তিনটি বিষয়ের উপর নির্ভর করেঃ প্রযুক্ত বল (F), ব্যসার্ধ ভেক্টর (r) এবং বলের দিক ও ব্যসার্ধ ভেক্টরের মধ্যবর্তি কোণ (θ)।

গানিতিক ভাবেঃ

\boldsymbol \tau = \mathbf{r}\times \mathbf{F}\,\!
\boldsymbol \tau = rF\sin \theta\,\!
τ হল টর্ক বা বলের ভ্রামক,
r ঘূর্নন অক্ষ থেকে বলের প্রয়োগবিন্দুর দূরত্ত বা ব্যসার্ধ ভেক্টর,
F বস্তুর উপর ক্রিয়ারত বল,
× দ্বারা ভেক্টর গুনন প্রকাশ করা হয়েছে,
θ দ্বারা F এবং τ এর মধ্যবর্তি কোণ।[১]

😆😇😎😏

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. Tipler, Paul (2004)। Physics for Scientists and Engineers: Mechanics, Oscillations and Waves, Thermodynamics (5th ed.)। W. H. Freeman। আইএসবিএন 0-7167-0809-4