জেমস ব্লান্ট

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
জেমস ব্লান্ট
James-Blunt.jpg
২০০৮ এ জেমস ব্লান্ট
প্রাথমিক তথ্যাদি
জন্ম নাম জেমস হিলার ব্লাউন্ট
ধরন পপ রক, ফোক রোক
পেশা সংগীতশিল্পী
বাদ্যযন্ত্র কণ্ঠশিল্পই, গিটার, পিয়ানো, অর্গান, ভায়োলিন
কার্যকাল ২০০৪-বর্তমান
লেবেল ওয়ার্নার ব্রোস. রেকর্ডস, আটলান্টিক রেকর্ডস, কাসটার্ড রেকর্ডস
ওয়েবসাইট jamesblunt.com
উল্লেখযোগ্য বাদ্যযন্ত্র
সিগাল অ্যাকুয়িস্টিক গিটার

জেমস হিলার ব্লাউন্ট (জন্ম ২২ ফেব্রুয়ারী ১৯৭৪)[১][২], জেমস ব্লান্ট হিসেবে অধিক পরিচিত, একজন ইংলিশ কণ্ঠশিল্পী এবং সাবেক সেনাবাহিনীর কর্মকর্তা। তাঁর প্রথম অ্যালবাম ব্যাক টু বেডল্যাম এবং দুইটি একক সঙ্গীত, ইউ আর বিউটিফুল ও গুডবাই মাই লাভার তাকে খ্যাতি এনে দেয়। ২০০৬ পর্যন্ত জেমস ব্লান্ট পাঁচটি গ্র্যামি এ্যাওয়ার্ডের জন্য মনোনীত হন। পরবর্তি বছরে তিনি তাঁর দ্বিতীয় অ্যালবাম অল দ্য লস্ট সোল্‌স প্রকাশ করেন। তাঁর তৃতীয় অ্যালবাম সাম কাইন্ড অফ ট্রাবল ২০১০ এর নভেম্বরে প্রকশিত হয়। জেমস ব্লান্ট বিশ্বব্যাপী ১৫ মিলিয়নেরও অধিক অ্যালবাম বিক্রয় করেছেন।

ব্লান্ট ন্যাটো-এর অধীনে ১৯৯৯ সালে কসভোতে সংঘর্ষ চলাকালে দায়িত্ব পালন করেছেন। ২০০৯ এর ৪ অক্টোবর নাগাদ, ব্লান্ট-এর প্রধান বাড়ি স্পেনের ইবিজা দ্বীপে।[৩]

প্রথম জীবন[সম্পাদনা]

জেমস ব্লান্ট ইংল্যান্ডের উইল্টশায়ারের একটি সেনা হাসপাতালে জন্মগ্রহণ করেন। তিনি তাঁর বাবা-মায়ের প্রথম সন্তান। তাঁর মায়ের নাম জেন এ. এফ. এবং বাবার নাম চার্লস ব্লাউন্ট। জেমস তাঁর শৈশবকালের অধিকাংশ সময় ইংল্যান্ড, সাইপ্রাস এবং জার্মানিতে কাটিয়েছেন। তাঁর বাবা ছিলেন ব্রিটিশ সেনাবাহিনীর একজন কর্নেল ও মিলিটারি হেলিকপ্টার পাইলট।[৪]

জেমস ব্লান্টের দুইজন ছোট ভাই-বোন রয়েছে। ব্লান্ট তাঁর বাবার কাছ থেকে পাইলট হবার আকাঙ্খা লাভ করেন। তিনি মাত্র ১৬ বছর বয়সে পাইলটের লাইসেন্স লাভ করেন। সেনাবাহিনীর চাকরির ক্ষেত্রে ব্লাউন্ট পরিবারের সুদীর্ঘকালের ইতিহাস আছে।[৫][৬] ব্লান্ট ইন্ডিপেন্ডেন্ট স্কুলে তাঁর প্রাতিষ্ঠানিক শিক্ষা লাভ করেন। সাত বছর বয়সে তিনি বার্কশায়ারের এলস্ট্রি স্কুলে ভর্তি হন। এরপরে তিনি লন্ডনের উত্তর-পশ্চিমে অবস্থিত হ্যারো স্কুলে ভর্তি হন। এই বিদ্যালয় থেকে তিনি ইউনিভার্সিটি অফ ব্রিস্টলে সেনাবাহিনী-সমর্থিত একটি আসন লাভ করেন। এখানে তিনি অ্যারোস্পেস ম্যানুফ্যাকচারিং প্রকৌশল বিষয়ে পড়ালেখা করেন। পরবর্তিতে তিনি সমাজবিজ্ঞান বিষয়ে পরেন। ১৯৯৬ সালে তিনি সমাজবিজ্ঞানে স্নাতক ডিগ্রী লাভ করেন।[৭]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. "James Blunt: Biography"। Allmusic.com। সংগৃহীত 28 April 2009 
  2. National Archives, England & Wales, Birth Index: 1916-2005 volume 6b, page 446 confirms birth as Q1, 1974
  3. "James Blunt set to pen new album in his hideaway"Hello!। সংগৃহীত 4 October 2009 
  4. London Gazette: (Supplement) no. 56261, p. 7807, 3 July 2001. Retrieved 12 February 2008.
  5. "The Blunt Life"। Rolling Stone Magazine (Wenner Media LLC (Jann S. Wenner))। 4 October 2007। পৃ: 56–58, 88। 
  6. Thomas, David (1 August 2005)। "To be blunt, James, you are a trooper"The Sunday Telegraph (London)। সংগৃহীত 29 December 2007 
  7. "In Touch. (newsletter)" (PDF)। University of Bristol Alumni Association। Autumn 2005। পৃ: 2। সংগৃহীত 31 May 2009 

আরও পড়ুন[সম্পাদনা]

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]