চুনিমুখো মৌটুসি

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
চুনিমুখো মৌটুসি
সংরক্ষণ অবস্থা
বৈজ্ঞানিক শ্রেণীবিন্যাস
জগৎ/রাজ্য: Animalia
পর্ব: Chordata
শ্রেণী: Aves
বর্গ: Passeriformes
পরিবার: Nectariniidae
গণ: Anthreptes
প্রজাতি: A. singalensis
দ্বিপদী নাম
Anthreptes singalensis
(Gmelin, 1788)
প্রতিশব্দ

Chalcoparia singalensis
Sylvia singalensis

চুনিমুখো মৌটুসি (বৈজ্ঞানিক নাম: Anthreptes singalensis) (ইংরেজি: Ruby-cheeked Sunbird), চুনিমুখি মৌটুসি বা সবুজাভ মৌটুসি Nectariniidae (নেক্টার্নিডাই) গোত্র বা পরিবারের অন্তর্গত Anthreptes (অ্যানথ্রেপ্টেজ) গণের অন্তর্গত এক প্রজাতির মৌপায়ী পাখি[১][২] পাখিটি বাংলাদেশ, ভারত ছাড়াও দক্ষিণদক্ষিণ-পূর্ব এশিয়ার বিভিন্ন দেশে দেখা যায়। সারা পৃথিবীতে এক বিশাল এলাকা জুড়ে এদের আবাস, প্রায় ২৮ লাখ ৩০ হাজার বর্গ কিলোমিটার।[৩] বিগত কয়েক দশক ধরে এদের সংখ্যা স্থিতিশীল রয়েছে, বাড়েনি আবার আশংকাজনক হারে কমেও যায়নি। সেকারণে আই. ইউ. সি. এন. এই প্রজাতিটিকে Least Concern বা ন্যূনতম বিপদগ্রস্ত বলে ঘোষণা করেছে।[৪] বাংলাদেশের বন্যপ্রাণী আইনে এ প্রজাতিটি সংরক্ষিত নয়।[২]

বিস্তৃতি[সম্পাদনা]

বাংলাদেশভারত ছাড়াও ভুটান, কম্বোডিয়া, চীন, ইন্দোনেশিয়া, লাওস, মালয়েশিয়া, মায়ানমার, নেপাল, ব্রুনাই, থাইল্যান্ডভিয়েতনামে নিয়মিত এদের দেখা যায়। এসব দেশে এরা স্থায়ী পাখি।[৪]

বিবরণ[সম্পাদনা]

চুনিমুখো মৌটুসি অত্যন্ত ক্ষুদ্রকায় চকচকে সবুজ বর্ণের পাখি। এর দৈর্ঘ্য কমবেশি ১১ সেন্টিমিটার, ডানা ৫.৩ সেন্টিমিটার, ঠোঁট ১.৫ সেন্টিমিটার, লেজ ৪.২ সেন্টিমিটার ও পা ১.৬ সেন্টিমিটার।[২] স্ত্রী ও পুরুষ পাখির চেহারায় পার্থক্য রয়েছে। পুরুষ মৌটুসির মাথার চাঁদি, ঘাড়, পিঠ, কোমর ও লেজের উপরের আচ্ছাদক ধাতব সবুজ। জানা ও লেজ কালচে। রোদে এর গাল উজ্জ্বল লাল থেকে কিছুটা বেগুনি দেখায়। গলা ও বুক লালচে-কমলা, পেট হলুদ।[২]

স্ত্রী মৌটুসির পিঠ অনুজ্জ্বল জলপাই সবুজ। গলা ও বুক হালকা লালচে-কমলা। গালে লাল রঙ থাকে না। পেট পুরুষ মৌটুসির মতই হলুদ। স্ত্রী ও পুরুষ পাখি উভয়ের চোখ লাল। ঠোঁট অপেক্ষাকৃত খাটো ও সোজা। ঠোঁটের রঙ কালচে। পা ও পায়ের পাতা সবজে-ধূসর। অপ্রাপ্তবয়স্ক পাখির চেহারা অবিকল স্ত্রী মৌটুসির মত, কেবল দেহতলে হলুদ রঙ থাকে না।[২]

স্বভাব[সম্পাদনা]

চুনিমুখো মৌটুসি পাতলা বন, বনের আশেপাশে চাষাবাদের জন্য পরিষ্কার জায়গা, বনপ্রান্ত, চিরসবুজ বন, ক্ষুদ্র ঝোপ ও প্যারাবনে বিচরণ করে। সচরাচর একা বা জোড়ায় জোড়ায় থাকে। শীতকালে ছোট পতঙ্গভূক পাখির দলে যোগ দেয়। ঝোপঝাড়ে ও গাছে গাছে এরা খাবারের খোঁজে ঘুরে বেড়ায়। গাছের পাতা, ফুল ও মুকুলে খাদ্য খোঁজে। এদের প্রধান খাদ্য পোকামাকড় ও ফুলের মধু। সচরাচর তীব্র স্বরে শিস দেয়ঃ সুইটি-টি-চি-চিউ...টিউসি-টিটসুইটি-সুইটি...সুইটি-টি-চি-চিউ...

প্রজনন[সম্পাদনা]

মার্চ থেকে জুন মাস এদের প্রজনন মৌসুম। এসময় ঝোপে ফার্ন ও আঁশ দিয়ে ছোট থলের মত বাসা বানিয়ে ডিম পাড়ে। ডিমগুলো সংখ্যায় ২টি ও সাদা রঙের , তাতে বাদামি-ধূসর দাগ থাকে। ডিমের মাপ ১.৬ × ১.২ সেমি।[২]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. রেজা খান (২০০৮)। বাংলাদেশের পাখি। ঢাকা: বাংলা একাডেমী। পৃ: ২৫৩। আইএসবিএন 9840746901 
  2. ২.০ ২.১ ২.২ ২.৩ ২.৪ ২.৫ জিয়া উদ্দিন আহমেদ (সম্পা.) (২০০৯)। বাংলাদেশ উদ্ভিদ ও প্রাণী জ্ঞানকোষ: পাখি, খণ্ড: ২৬। ঢাকা: বাংলাদেশ এশিয়াটিক সোসাইটি। পৃ: ৫১৯–২০। আইএসবিএন 9843000002860 |isbn= মান পরীক্ষা করুন (সাহায্য) 
  3. Anthreptes singalensis, BirdLife International এ চুনিমুখো মৌটুসি বিষয়ক পাতা।
  4. ৪.০ ৪.১ Anthreptes singalensis, The IUCN Red List of Threatened Species এ চুনিমুখো মৌটুসি বিষয়ক পাতা।