গ্রিন্ডকোর

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
গ্রিন্ডকোর
শৈলীগত সূত্রপাত এক্সট্রিম মেটাল, হার্ডকোর পাঙ্ক, নয়েজ রক, ইন্ডাস্ট্রিয়াল মিউজিক, পোস্ট-পাঙ্ক
সাংস্কৃতিক সূত্রপাত ১৯৮০-এর দশকের মাঝামাঝি , ইংল্যান্ড
সংশ্লিষ্ট বাদ্যযন্ত্র ইলেকট্রিক গিটার, বেজ গিটার ,ড্রামস, ভোকাল
সাফল্যকাল আন্ডারগ্রাউন্ড
উদ্ভূত শাখা ম্যাথকোর
উপধারা
গোরগ্রিন্ড , নয়েজগ্রিন্ড, ইলেক্ট্রোগ্রিন্ড, পর্ণোগ্রিন্ড
সম্মিলিত শাখা
ডেথগ্রিন্ড
ব্ল্যাস্ট বীট-এর উদাহরণ
বহিঃ ভিডিও
নাপালম ডেথ ব্যান্ডের পরিবেশনা ১৯৮৭ সালে জার্মানিতে, ইউটিউব থেকে, তত্ত্বাবধানে ইয়ারাচি রেকর্ডস.

গ্রিন্ডকোর এক প্রকার এক্সট্রিম জাতের সঙ্গীত যা ১৯৮০-এর দশকের শুরু থেকে মধ্য পর্যন্ত চালু হয়। এটা অনুপ্রাণিত হয়েছে ডেথ মেটাল, ইন্ডাস্ট্রিয়াল মেটাল, নয়েজ এবং নানা জাতের হার্ডকোর পাঙ্ক সঙ্গীত থেকে। গ্রিন্ডকোরকে বৈশিষ্ট্যমন্ডিত করা যায় উচ্চমাত্রার ডিস্টোর্টেড ও ডাউন-টিউন্ড গিটার, উচ্চ গতির টেম্পো, ব্ল্যাস্ট বীট এবং ভোকালের গর্জন ও উচ্চমাত্রার চিৎকারের মাধ্যমে। নাপালম ডেথ ব্যান্ডটি প্রাথমিক কাজটা করেছে এই ধারার জন্য।এটা এখন ইউরোপ ও দক্ষিণ আমেরিকায় খুব প্রচলিত ও জনপ্রিয় সঙ্গীত ধারা যা ব্রুটাল ট্রুথ ও নাসুম নামের জনপ্রিয় ব্যান্ডের মাধ্যমে বিকশিত হয়েছে। এই সঙ্গীত ধারার বিষয়বস্তু সামাজিক ও রাজনৈতিক সমস্যা থেকে কালো রসিকতা পর্যন্ত বিস্তৃত। গ্রিন্ডকোর গানের বিশেষত্ব হচ্ছে ছোট আকারের গান। অনেক ব্যান্ড মাত্র কয়েক সেকেন্ড দৈর্ঘ্যের গান করেছে। ১৯৮৭ সালে প্রকাশিত নাপালম ডেথ ব্যান্ডের একটা গান ইউ সাফার ছিল মাত্র ১ সেকেন্ডের যা গিনিস বুক অব ওয়ার্ল্ড রেকর্ডস-এ সবচেয়ে ছোট গানের স্বীকৃতি পেয়েছে। গ্রিন্ডকোরের নানা ধরণের ছোট ছোট উপধারা আছে। যেমন গোরগ্রিন্ড যা হরর থিমকে কেন্দ্র করে গঠিত এবং পর্ণোগ্রিন্ড যা পর্ণোগ্রাফিক থিমকে কেন্দ্র করে গঠিত। আরো আছে নয়েজ গ্রিন্ড ও ইলেক্ট্রোগ্রিন্ড, যা ইলেক্ট্রনিক উপাদানের সাহায্যে গঠিত। এটা হার্ডকোর পাঙ্কহেভি মেটাল ধাচের সঙ্গীতের বাদ্যযন্ত্রই ব্যবহার করে যেমন- ইলেকট্রিক গিটার, বেজ গিটারড্রামস। গানের গঠন ও সুরের দিক থেকে গ্রিন্ডকোর আলাদা। এখানে মাঝে মাঝে কোন গানের কথাই থাকে না। ২০০১ সালে ব্রুটাল ট্রুথ ব্যান্ডের একটা গানের মিউজিক ভিডিও কলেটারাল ডামেজ ছিল মাত্র ৪ সেকেন্ডের যা গিনিস বুক অব ওয়ার্ল্ড রেকর্ডস-এ সবচেয়ে ছোট মিউজিক ভিডিও-এর স্বীকৃতি পেয়েছে। তবে ২০০৭ সালে নাপালম ডেথ ব্যান্ডের একটা ভিডিও ইউ সাফার ছিল মাত্র ১.৩ সেকেন্ডের যা আগের রেকর্ড ভেংগে দেয়। নাপালম ডেথ ব্যান্ডের গানের কথার বিষয়বস্তু থাকে নৈরাজ্যবাদী, বর্ণবাদ বিরোধিতা, নারীবাদ, সামরিক বিরোধী ও পুজিবাদ বিরোধিতা ইত্যাদি বিষয় নিয়ে। গ্রিন্ডকোর ব্যান্ড কারকাসের গানের কথায় নিরামিষভোজ, প্রানীদের প্রতি অত্যাচার ও মানুষের আচরণের প্রতি বিরক্তি থাকে।

২০০৮ সালে গ্রিন্ডকোর রটেন সাউন্ড ব্যান্ডের মঞ্চ পরিবেশনা

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]